বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘এই ইউনিয়নে সাংবাদিক ঢুকতে আমার অনুমতি লাগে’

news-image

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুর সদর উপজেলার আঙ্গারিয়া ইউনিয়নে অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পে গিয়াসউদ্দিন নামে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের বক্তব্য জানতে গেলে তিনি ও গিয়াসউদ্দিনের ছেলে আলিমুল মোল্লার হামলার শিকার হয়েছেন পাঁচ সাংবাদিক। আজ রোববার দুপুরে পরিষদের ভেতরে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় তিন সাংবাদিকের মাইক্রোফোন, ক্যামেরা, মোটর সাইকেলের লুকিংগ্লাস ও হেলমেট ভাঙচুর করা হয়।

হামলায় আহতরা হলেন- কালের কণ্ঠর শরীয়তপুর প্রতিনিধি শরিফুল আলম ইমন, প্রথম আলোর সত্যজিৎ ঘোষ, চ্যানেল ২৪-এর নুরুল আমিন রবিন, এখন টেলিভিশনের কাজী মনিরুজ্জামান ও ক্যামেরা পারসন শাহাদাত।

ক্তভোগীরা জানান, কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে ইউপি সদস্য গিয়াস উদ্দিনের অনিয়মের বিষয়ে চেয়ারম্যানের বক্তব্য জানতে দুপুরে শরীয়তপুরে কর্মরত পাঁচ সাংবাদিক আংগারিয়া ইউপি কার্যালয়ে যান। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান একপর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে পরেন। তখন তিনি ও অভিযুক্ত ইউপি সদস্য গিয়াসউদ্দিনের ছেলে আলিমুল মোল্লা মাইক্রোফোন ছুঁড়ে মারেন ও ক্যামেরা ফেলে দেন। পরে সাংবাদিকদের মোটরসাইকেলের লুকিংগ্লাস ও হেলমেট ভাঙচুর করা হয় এবং প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গ্রামের দরিদ্র মানুষের কর্মসংস্থানের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। তারই একটি অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্প। ওই প্রকল্পের আওতায় বছরে দুই দফা ৪০ দিন করে দরিদ্র মানুষ কাজ করার সুযোগ পান।

প্রকল্পের শ্রমিকরা মাটি কাটা, রাস্তার ঘাস পরিস্কার, ডোবার কচুরিপানা পরিস্কারসহ বিভিন্ন কাজ করেন। এ কাজের জন্য শ্রমিকদের প্রতি দিন ৪০০ টাকা মজুরি দেওয়া হয়। এজন্য স্থানীয় ইউপি কার্যালয় থেকে তালিকা প্রস্তুত করে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে পাঠানো হয়। ওই তালিকা যাচাই শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। মন্ত্রণালয় থেকে ওই শ্রমিকদের বিকাশ নম্বরে কাজের টাকা পরিশোধ করা হয়।

নভেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে শরীয়তপুর সদর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচির কাজ শুরু হয়েছে। আঙ্গারিয়া ইউনিয়নে ৬৮ জন শ্রমিকের অনুকূলে ১১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ২ নম্বর ওয়ার্ডের চরচটাং গ্রামে ১৪ জন শ্রমিক দিয়ে একটি মাটির রাস্তা সংস্কার কাজ চলছে। ওই প্রকল্পের সভাপতি করা হয়েছে ইউপি সদস্য গিয়াসউদ্দিনকে।

ওই ১৪ শ্রমিকের নামের তালিকায় ইউপি সদস্যর স্ত্রী নাছিমা বেগম, ছেলে আলিমুল মোল্লা, মেয়ে সোনিয়া বেগম, ছেলের স্ত্রী হালিমা আক্তার, ভাই আবু সিদ্দিক মোল্লা, ছেলের শাশুড়ি, শ্যালিকাসহ ১১ জনের নাম রয়েছে। তাদের বিকাশ নম্বরে শ্রমিকের মজুরি দেওয়া হচ্ছে। কিন্ত ইউপি সদস্যর পরিবারের কেউ মাটি কাটা শ্রমিকের কাজ করেন না।

২০২১-২০২২ অর্থবছরে চরচটাং গ্রামে অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচিতে ২০ জন শ্রমিকের বিপরীতে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল। ইউপি সদস্য গিয়াসউদ্দিন তার পরিবারের সদস্যদের বিকাশ নস্বর দিয়ে ওই টাকা উত্তোলন করেছেন। সেই প্রকল্পে ৩০ হাজার টাকা ব্যয়ে একটি ধানক্ষেতে ৫০ মিটার রাস্তা সংস্কার করে বাকি টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে।

নতুন প্রকল্পে কাজ করা শ্রমিক আব্দুল সরদার বলেন, ‘আমরা সাতজন শ্রমিক ৬ দিন কাজ করে একটি রাস্তা সংস্কার করেছি। আরেকটি রাস্তার ৯০ মিটার সংস্কার করছি। ওই দুটি রাস্তায় আমাদের ৮০ হাজার টাকা বিল দেওয়া হবে। ইউপি মেম্বারের ছেলে আলিমুল চুক্তি অনুযায়ী আমাদের টাকা দিচ্ছেন।’

এ বিষয়ে ইউপি সদস্য গিয়াসউদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। এ ছাড়া কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

আঙ্গারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘নিয়ম নীতি যা আছে এটা সরকার বুঝবে। এটা সাংবাদিকদের কাজ না। সাংবাদিকরা সব ধান্দাবাজ, আমার জানা আছে। আপনারা কার অনুমতি নিয়ে আসছেন এখানে? এই ইউনিয়নে সাংবাদিক ঢুকতে আমার অনুমতি লাগে।’

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বলেন, ‘অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান প্রকল্পে কোনও অবস্থায় এক পরিবারের একাধিক ব্যক্তির নাম থাকা যাবে না। এ ক্ষেত্রে ইউপি সদস্যের কোনও অনিয়ম হয়ে থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

পালং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আক্তার হোসেন বলেন, ‘ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন কয়েকজন সাংবাদিকের ওপর হামলা করেছেন এমন তথ্য পেয়েছি। তারা লিখিত অভিযোগ দিলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’