বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপির মঞ্চে ‘হেলমেট বাহিনী’র হামলা, পুলিশ বলছে ‘কোন্দল’

news-image

ফরিদপুর প্রতিনিধি : বিএনপির পূর্বঘোষিত সমাবেশের মঞ্চ ভেঙে তছনছ করার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ১২ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এ সময় পুলিশের পাঁচ ও বিএনপির কমপক্ষে ১৫ জন আহত হন।

বুধবার বিকেলে ফরিদপুর প্রেসক্লাব চত্বরে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় হেলমেট পরিহিত ২০/২৫ জন যুবককে ১০/১২ মিনিট ব্যাপী এ হামলায় অংশ নিতে দেখা যায়। তবে পুলিশ বলছে এটি স্থানীয় বিএনপির দু’পক্ষের কোন্দলের জের।

বিএনপির স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা জানান, বিভাগীয় শহরগুলোতে বুধবার বিএনপির পূর্বঘোষিত সমাবেশ ছিল এটি। দেশব্যাপী আওয়ামী লীগের হামলা ও পুলিশের গুলিতে বিএনপি নেতাকর্মীদের হতাহত হওয়া এবং গায়েবি মামলার প্রতিবাদে এ সমাবেশ ডাকা হয় ফরিদপুর প্রেসক্লাব চত্বরে। বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে ৪টার মধ্যে সেখানে জড়ো হওয়া শতাধিক কর্মীর সামনেই মঞ্চে উপস্থিত বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীদের ইটপাটকেল ছুড়ে ও ঘটনাস্থলে পরপর তিনটি ককটেল ফাটিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করে হেলমেট বাহিনী। এতে কমপক্ষে ১৫ নেতাকর্মী আহত হয়ে বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা নিচ্ছেন। গ্রেপ্তার এড়াতে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন না তারা।

বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে প্রেসক্লাব চত্বরে গিয়ে দেখা যায়, ভাঙচুর হওয়া মঞ্চ, চেয়ারের ভাঙা টুকরা ও ইটপাটকেল ছড়িয়ে থাকা প্রেসক্লাব চত্বর পুলিশ পরিবেষ্টিত। সেখানে পোশাকে ও সাদা পোশাকে অর্ধশত পুলিশ সদস্যকে সতর্ক অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়।

পুলিশ জানায়, বিএনপির দুই পক্ষ মারামারি করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করায় তারা একপর্যায়ে ফাঁকা গুলি ছুড়তে বাধ্য হন। এ সময় ইটের আঘাতে পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

সেখানে কর্তব্যরত ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ওসি এমএ জলিল সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপির সমাবেশ মঞ্চে হামলার ঘটনায় তাদের দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দলই দায়ী। তারা শামা ওবায়েদ ও নায়ব ইউসুফ এ দুই দলে বিভক্ত। এ হামলা সেই বিভক্তির কারণে ঘটেছে।

তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঘটনার সময় ছাত্রলীগ নেতা কাউসার আকন্দের নেতৃত্বে মোটরসাইকেল যোগে হেলমেট পরিহিত ২০/২৫ জন যুবক জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে সবার সামনেই হামলা চালায় বিএনপির সভায়। কাউসার ফরিদপুরের সরকারী রাজেন্দ্র কলেজ ছাত্র-ছাত্রী সংসদের সাবেক ভিপি ও ছাত্রলীগ রাজেন্দ্র কলেজ শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

কাউসার আকন্দ হামলার কথা অস্বীকার করে বলেন, আমি সে সময় মিছিল নিয়ে প্রেসক্লাবের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলাম। আমার কোনো ছেলে এ হামলা চালায়নি। অন্যরা হামলা করে আমাদের ওপর দায় চাপানোর চেষ্টা করছে।

বিকেল ৫টার দিকে দেখা যায়, ফরিদপুর প্রেসক্লাব সংলগ্ন মুজিব সড়কের পাশ থেকে এক যুবককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ ভ্যানে তুলে নেয় ডিবি পুলিশের সদস্যরা। এ সময় তাকে ছাড়াতে স্থানীয় বিএনপির সিনিয়র নেতারা এগিয়ে গেলে তাদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয় পুলিশের। তাকে গ্রেপ্তার করে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। বিএনপির দাবি তাদের ৯ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ। তবে পুলিশ বলছে, মারামারি করে শান্তিশৃঙ্খলা ভঙ্গ করায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার ও হামলা এবং মঞ্চ ভাঙচুরের নিন্দা জানিয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। হামলায় পণ্ড হয়ে যাওয়া সমাবেশে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেওয়ার কথা ছিল বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান ও ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদের।

ভাঙচুরের পর তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

সভায় সভাপতিত্ব করার করার কথা ছিল ফরিদপুর মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এএফএফ কাউয়ূম জাহাঙ্গীর।

শামা ওবায়েদ এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশের গুলিতে এ পর্যন্ত বিএনপির ১১ জন নেতাকর্মী নিহত হয়েছেন। তার প্রতিবাদে গত চার দিন আগে আমরা এ বিক্ষোভ কর্মসূচি দিয়েছি। পুলিশের তত্ত্বাবধানে ছাত্রলীগ-যুবলীগ এ হামলা করেছে। আমরা দেখেছি তারা বিভিন্ন জায়গায় ককটেল রেখে গায়েবি মামলা দিচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় আজ তারা ফরিদপুরে প্রেসক্লাবে ককটেল ফাটিয়ে আমাদের লোকদের ধরপাকড় করেছে।

মঈন খান বলেন, এখানে আজ আমাদের যে সমাবেশ ছিল সেটা ছিল সাধারণ মানুষের ওপরে এবং বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপরে সরকারের নির্যাতনের বিরুদ্ধে। এর বিরুদ্ধে একটি শান্তিপূর্ণ ছোট সমাবেশ করতে এসে আমরা হামলার শিকার হলাম।

জেলা বিএনপির সদস্যসচিব এ কে কিবরিয়া স্বপন বলেন, হামলায় দিলিপসহ তাদের অন্তত আট নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। পুলিশ রিতু, কামাল, রাজীব ও সিজানসহ বেশ কয়েকজন তরুণ কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে।