বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আমাদের নেতারা দাঁড়িয়ে ললিপপ চুষবেন না: ওবায়দুল কাদের

news-image

বকশীগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘১০ তারিখে (ডিসেম্বর) আমরা বাধা দিতে চাই না। বিএনপি সমাবেশ করুক শান্তিপূর্ণ পরিবেশে- এটাই আমরা চাই। তবে আগুন আর লাঠি নিয়ে আসলে খেলা হবে। আপনারা আগুন আর লাঠি নিয়ে আসলে আমাদের নেতারা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ললিপপ চুষবেন, এটা হবে না।’

আজ সোমবার বিকেলে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। জামালপুর জিলা স্কুল মাঠে আয়োজিত সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন তিনি।

১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির মহাসমাবেশ নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘১০ ডিসেম্বর আমরাও প্রস্তুত আছি। খেলা হবে। সামনের সারিতে আমাদের কেন্দ্রীয় নেতারা থাকবেন।’

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ফখরুল কী বলে জানেন, ১০ তারিখে তিনি নাকি হ্যামিলিনের বংশীবাদকের মতো বাঁশিতে ফুঁ দেবেন, এতেই নাকি অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে এ সরকারের পতন হবে!’

মঞ্চের সামনে থাকা নেতাকর্মীদের ওবায়দুল কাদের জিজ্ঞাসা করেন, ‘শুনছেন এই কথা?’ এরপর ফখরুল ইসলামের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘ফখরুল সাহেব, হ্যামিলিনের বংশীবাদকের মতো আপনারাও কি ঢাকাবাসীকে নদীতে ডুবিয়ে রাখবেন, নাকি কোনো পাহাড়ে নিয়ে আটকে রাখবেন?’

এ সময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, ‘সব ভেদাভেদ ভুলে আগামী সংসদ নির্বাচনে জামালপুর জেলার পাঁচটি আসনকে আবারও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে হবে। সম্মেলনে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ যে সিদ্ধান্ত নেবে সে সিদ্ধান্তকে মেনে নিয়ে একযোগে কাজ করতে হবে।’ আজকে যারা নেতৃত্বে আসবে তাদের নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার উদাত্ত আহ্বান জানান।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা মারুফা আক্তার পপি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহম্মেদ চৌধুরী, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক ছানোয়ার হোসেন ছানু, বকশীগঞ্জ-দেওয়ানগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য বেগম হোসেন আরা, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আসাদুজ্জামান আকন্দন বাবু, ছাত্রলীগ সভাপতি খাবিরুল ইসলাম বাবু।

পরে অনুষ্ঠানে আগামী তিন বছরের জন্য মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, বিজন কুমার চন্দকে সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাধারণ সম্পাদককে সিনিয়র সহসভাপতি হিসেবে ফারুক আহম্মেদের নাম ঘোষণা করেন।