মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যে ৮ কারণে ১১ হাজার কর্মী ছাঁটাই করলো মেটা

news-image

অনলাইন ডেস্ক : বিশ্বের অন্যতম বড় প্রযুক্তি কোম্পানি হঠাৎ করেই ১৩ শতাংশ কর্মী ছাঁটাই করেছে। ফেসবুকের মূল কোম্পানি মেটা ঘোষণা দিয়েছে যে, বিশ্বব্যাপী প্রতিষ্ঠানটির ১১ হাজার কর্মীকে চাকরি ছাড়তে বলেছে।

মেটার সিইও মার্ক জাকারবার্গ এক ব্লকপোস্টে বলেছেন, মেটার ইতিহাসে আমরা সবচেয়ে কঠিন কিছু পরিবর্তন এনেছি। তিনি মেটার এতসংখ্যক কর্মীকে ছাঁটাইয়ের বিস্তারিত কারণ তুলে ধরেছেন।

প্রধান আটটি কারণ প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট ‘গ্যাজেট নাউ’- এর প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে-

ই-কমার্সে বিনিয়োগ বৃদ্ধি:

জাকারবার্গ বলেছেন যে, মহামারির শুরুতে বিশ্ব দ্রুত অনলাইন নির্ভর হয়ে গেছে এবং ই-কমার্সের ঊর্ধ্বগতির ফলে আয় বৃদ্ধি পেয়েছে।’ মেটা এবং জাকারবার্গ ভেবেছিলেন যে এটি ধীরে ধীরে আরও বৃদ্ধি পাবে।

‘আমি আমাদের বিনিয়োগ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দুর্ভাগ্যবশত, এটি প্রত্যাশিতভাবে কার্যকর না হওয়ায় কোম্পানিটি রাজস্ব হারায়।

অর্থনৈতিক মন্দা:

মেটা সিইও উল্লেখ করেন যে, সামষ্টিক অর্থনৈতিক মন্দার কারণে রাজস্ব তার প্রত্যাশার চেয়ে ‘অনেক কম’ হয়েছে। মেটার ত্রৈমাসিক ফলাফলগুলো খুব একটা ভালো হয়নি। পরবর্তী ত্রৈমাসিকের পূর্বাভাসও খুব বেশি আশাবাদী নয়।

টিকটক, অ্যাপল ও অন্যান্য:

মেটার সিইও বলেছেন, রাজস্ব হ্রাসের অন্যান্য কারণগুলো হল- ‘প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি’ এবং ‘বিজ্ঞাপনে ক্ষতির সংকেত’- যা বোঝায় যে অ্যাপলের অ্যাপ ট্র্যাকিং ট্রান্সপারেন্সি সত্যিই মেটাকে পিছিয়ে দিয়েছে। এ ছাড়া গত কয়েক বছরে সোশ্যাল মিডিয়ায় টিকটকের- আধিপত্যের কারণে প্রতিযোগিতা বেড়ে যেতে পারে।

ক্রমবর্ধমান ব্যয়:

গত ত্রৈমাসিক ফলাফলে দেখা গেছে, বছরের পর বছর মেটার খরচ ১৯ শতাংশ বেড়েছে। তৃতীয় ত্রৈমাসিকে মেটার খরচ ২২.১ বিলিয়ন ডলার। তাই খরচ কমানোর জন্য কর্মীদের ছাঁটাই করতে হয়েছে।

বিক্রি ও আয় হ্রাস

তৃতীয় ত্রৈমাসিকে, মেটা জানিয়েছে যে- সামগ্রিক বিক্রি ৪ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে এবং এর অপারেটিং আয় ৪৬ শতাংশ কমে ৫.৬৬ বিলিয়ন ডলার হয়েছে।

‘পুঁজিতে দক্ষ’ হতে:

নিজের ব্লগ পোস্টে জাকারবার্গ বলেছেন যে- মূলধনে আরও দক্ষ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মেটা। অন্য কথায়, কোম্পানির বেশির ভাগ সংস্থান ‘স্বল্পসংখ্যক উচ্চ অগ্রাধিকার বৃদ্ধির ক্ষেত্রে’ যাবে। সংস্থাটি তার রিয়েল এস্টেট পদচিহ্ন সংকুচিত করেছিল, বিভিন্ন সুবিধা হ্রাস করেছিল তবে যথেষ্ট ছিল না। তাই কর্মী ছাঁটাইয়ের মতো কঠিন সিদ্ধান্তও নিয়েছি।

রিয়ালিটি ল্যাবগুলো ক্ষতির আশঙ্কা:

যদিও জাকারবার্গ মেটাভার্স নিয়ে আশাবাদী, এর জন্য দায়ী বিভাগ- রিয়েলিটি ল্যাবস- আর্থিক ক্ষতি করছে। জাকারবার্গ গত মাসে কোম্পানির উপার্জন প্রতিবেদনে বলেছিলেন- ২০২৩ সালে রিয়ালিটি ল্যাব অপারেটিং লোকসান উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাবে।

বিলিয়ন ডলার হারিয়েছে মেটাভার্স:

এ বছর রিয়েলিটি ল্যাবগুলো ৯.৪ বিলিয়ন ডলার হারিয়েছে। তবে জাকারবার্গ ও তার সংস্থার এর জন্য উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা রয়েছে।

তিনি কর্মী ছাঁটাই সম্পর্কে অবহিত করে ব্লগ পোস্টে বলেন, ‘আমরা সামাজিক সংযোগের ভবিষ্যৎ এবং পরবর্তী কম্পিউটিং প্ল্যাটফর্মকে সংজ্ঞায়িত করার জন্য প্রযুক্তির উন্নয়নে নেতৃত্ব দিচ্ছি।’