মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রাণের সৃষ্টি রহস্য সমাধানে বিজ্ঞানীদের রোমাঞ্চকর অভিযাত্রা (শেষ পর্ব)

মাহবুবুল আলম তারেক
বিংশ শতকের দ্বিতীয়ার্ধজুড়ে প্রাণের উৎপত্তি নিয়ে গবেষণারত বিজ্ঞানীরা ভিন্ন ভিন্ন তত্ত্বের সমর্থনে ভিন্ন ভিন্ন দলে ভাগ হয়ে তাদের গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। প্রতিটি বিজ্ঞানীদল তাদের নিজস্ব চিন্তার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করছিলেন, কিন্তু বেশিরভাগ যুক্তিই ছিল আকাশকুসুম অনুমানের অস্বাভাবিক প্রতিযোগিতা। যদিও এই প্রক্রিয়া বেশ কাজে দিয়েছিল, কিন্তু প্রাণ বিকাশের প্রতিটি সম্ভাবনাময় ধারণা বা অনুমান শেষ পর্যন্ত নতুন কোনো বড় প্রশ্নের জন্ম দেয় এবং নতুন সমস্যার সৃষ্টি করে। যে কারণে কিছু গবেষক এবার প্রাণ বিকাশের গবেষণায় আরো সমন্বিত দৃষ্টিভঙ্গিতে এতদিনের অমীমাংসীত প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে চেষ্টা করলেন।

প্রাণের উৎপত্তির উৎস সন্ধানে এই সমন্বিত দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কাজ করার প্রয়াস কয়েক বছর আগে বেগবান হয়। সমন্বিত দৃষ্টিভঙ্গির বিজ্ঞানীরা ইতিপূর্বের বহুল চর্চিত ‘আরএনএ প্রথম নিজেই নিজের প্রতিরূপ তৈরি করেছিল’ মতবাদের উপর কাজ শুরু করেন। কিন্তু ২০০৯ সালে আরএনএ ঘরানার বিজ্ঞানীরা আবার একটি বড় ধরণের সমস্যার মুখে পড়ে গেলেন। পৃথিবী সৃষ্টির আদিতে ঠিক কীভাবে প্রাণ সৃষ্টি হয়েছিল তার মূল অনুসন্ধান করতে গিয়ে তারা তাদের মতবাদের পক্ষে প্রাণের মৌলিক উপাদান আরএনএ’র গাঠনিক উপাদান নিউক্লিওটাইড সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হলেন। যে কারণে পৃথিবীতে প্রথম প্রাণের বিকাশ মোটেও আরএনএ থেকে হয় নি এমন ধারণাই করতে লাগলেন লোকে।

ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের অধ্যাপক জন ডেভিড সুদারল্যান্ড ১৯৮০ সাল থেকে এই সমস্যা অথবা সম্ভাবনা নিয়ে গবেষণা করছিলেন। জন ডেভিড সুদারল্যান্ড বলেন, ‘আমি মনে করি, আপনি যদি প্রমাণ করে দেখাতে পারেন, আরএনএ নিজেই নিজের প্রতিরূপ সৃষ্টি করতে সক্ষম তাহলে সেটা হবে অসাধারণ এক কাজ।‘ কিছুদিন পরেই সুদারল্যান্ড যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটির মলিকিউলার বায়োলজি ল্যাবরেটরিতে গবেষণার চাকরি পান। বেশিরভাগ গবেষণা প্রতিষ্ঠানই গবেষকদলকে নতুন উদ্ভাবনে ক্রমাগত চাপের মুখে রাখে, কিন্তু সৌভাগ্যক্রমে ‘মলিকিউলার বায়োলজি ল্যাবরেটরি’ কখনো কাজের জন্য চাপ দেয় না। সুতরাং সুদারল্যান্ড কৃত্রিমভাবে আরএনএ নিউক্লিওটাইড সৃষ্টি করা এত দুরূহ কেন সেটা নিয়েই গবেষণা শুরু করলেন এবং বছরের পর বছর পার করে দিলেন। এসময় তিনি ভিন্ন একটি দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তুলতে লাগলেন।

এই দীর্ঘ গবেষণার পর তিনি প্রাণের উৎপত্তি সম্পর্কে একটি সম্পুর্ন নতুন ধারণা প্রস্তাব করলেন। তিনি বললেন, আদি প্রাণকোষের সমস্ত মৌলিক উপাদান একসাথেই সৃষ্টি হয়েছিল।

জন সুদারল্যান্ড বলেন, ‘ল্যাবরেটরিতে সৃষ্ট ‘আরএনএ’র কিছু গুরুত্বপূর্ণ রাসায়নিক উপাদান ঠিকঠাক কাজ করে না।‘ প্রতিটি আরএনএ নিউক্লিওটাইড- শর্করা, একটি ভিত্তিমূল এবং ফসফেট দিয়ে তৈরি। কিন্তু গবেষণাগারে প্রমাণিত হয়েছে যে, আরএনএ’র মূল উপাদানের সাথে শর্করাকে মেলানো সম্ভব নয়। কারণ মলিকিউলের বেমানান আকার শর্করাকে মিশতে বাধা দেয়।‘

সুতরাং সুদারল্যান্ড সম্পূর্ণ ভিন্ন উপাদান দিয়ে আরএনএ নিউক্লিওটাইড সৃষ্টি করার জন্য গবেষণা শুরু করলেন। যথারীতি তার গবেষকদল ভিন্ন ধরণের শর্করা এবং সায়ানাইডের যৌগ সিনামাইডসহ পাঁচটি সাধারণ মলিকিউল দিয়ে গবেষণা শুরু করলেন। গবেষক দল উপাদানগুলোকে কয়েক ধাপের রাসায়নিক বিক্রিয়ার মধ্য দিয়ে পরিচালিত করলেন। ফলশ্রুতিতে চারটি আরএনএ নিউক্লিওটাইড এর দুটি উৎপন্ন হল। এই গবেষণা প্রাণের উৎপত্তি কীভাবে হয়েছিলো সেই অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্য এনে দিলো এবং জন ডেভিড সুদারল্যান্ডের সুনাম ছড়িয়ে পড়ল।

অনেক পর্যবেক্ষক সুদারল্যান্ডের গবেষণার ফলাফলকে আরএনএ ঘরানার পক্ষে নতুন প্রমাণ হিসেবে আখ্যায়িত করলেন। কিন্তু সুদারল্যান্ড নিজে ওই পর্যবেক্ষকদের সাথে একমত ছিলেন না। আরএনএ ঘরানার ক্ল্যাসিকাল তত্ত্ব অনুসারে, প্রথম অণুজীবের ভেতরে প্রাণের সব কর্মকাণ্ডের জন্য দায়ী ছিলো আরএনএ। কিন্তু সুদারল্যান্ড আরএনএ ঘরানার গবেষক ও পর্যবেক্ষকদের সেই ধারণাকে নাকচ করে দিয়ে বললেন, তাদের মতামত ‘হতাশাজনকভাবে আশাবাদী’। তিনি বিশ্বাস করতেন আরএনএ সেখানে ছিলো কিন্তু তা একমাত্র উপাদান নয়।

সুদারল্যান্ড আরএনএ ঘরানার তত্ত্ব পরিহার করে সোসটাকের সাম্প্রতিক গবেষণা থেকে অনুপ্রেরণা গ্রহণ করেন। সোসটাক আরএনএ ঘরানার ‘নিজেই নিজের প্রতিরূপ সৃষ্টি করার সক্ষমতা তৈরি হয়েছে প্রথমে’ এবং ইতালির বিজ্ঞানী পিয়েরে লুইগি লুইজি প্রস্তাবিত ‘কোষের খোলস বা কাঠামো গঠন হয়েছে প্রথমে’ এই দুই তত্ত্বের সমন্বয় করে মত দিয়েছিলেন দুটো কাজ একসঙ্গেই ঘটেছিলো।

তবে সুদারল্যান্ড আরও সামনে এগিয়ে গেলেন। তিনি বললেন, ‘প্রাণের সবকিছুই প্রথমে, একসঙ্গেই সৃষ্টি হয়েছিল’। তিনি চেষ্টা করলেন পারস্পরিক সম্পর্কহীন বিচ্ছিন্ন বস্তুগত উপাদান থেকে রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে একবারে স্বয়ং সম্পূর্ণ কোষ সৃষ্টি করতে। তার প্রথম সূত্র ছিলো নিউক্লিওটাইডের সংশ্লেষণ সম্পর্কে কিছুটা বেমানান বিবরণ, যেটাকে শুরুতে মনে হয়েছিল ঘটনাচক্রের ফল।

সুদারল্যান্ডের কর্মপ্রক্রিয়ার শেষ ধাপে সুদারল্যান্ড নিউক্লিওটাইডে ফসফেট যুক্ত করে দেন। কিন্তু তিনি গবেষণায় যা পেলেন তা হল বিক্রিয়ার শুরুতেই ফসফেট মিশিয়ে দিলে সর্বোৎকৃষ্ট ফলাফল পেতে পারতেন, কারণ এতে নিউক্লিওটাইডের প্রাথমিক বিক্রিয়া ত্বরান্বিত হয়। এরকম পরিস্থিতিতে বিক্রিয়ার জন্য আগেই ফসফেট যুক্ত করা অত্যাবশ্যকীয় হলেও কাজটি ছিল খুব ঝামেলাপূর্ণ, কিন্তু সুদারল্যান্ড ঝামেলার মাঝেই দেখতে পেলেন দারুণ সম্ভাবনা।

এ থেকেই সুদারল্যান্ড ভাবতে শুরু করলেন ফসফেটের মিশ্রণটি ঠিক কতটা জটিল এবং ঝামেলাপূর্ণ হতে পারে। পৃথিবীর শৈশবকালে অবশ্যই শত শত রকমের রাসায়নিক উপাদানের একত্রে উপস্থিতি ছিল এবং এদের মিশ্রণে তৈরি হয়েছিল তরল গাদ বা কাদামাটির মত বস্তু এবং সেগুলো যথাসম্ভব পরস্পর বিশৃঙ্খল অবস্থায় ছিল। ১৯৫০ সালে স্ট্যানলি মিলার ঠিক একই ধরণের কাদার মিশ্রণ বানিয়েছিলেন। স্ট্যানলি মিলারের কাদার মিশ্রণ ছিল সুদারল্যান্ডের মিশ্রণ থেকেও জটিল ও ঘন। সেই কাদার মধ্যে ছিল অণুজৈবিক মলিকিউল। কিন্তু সুদারল্যান্ড বলেন, ‘কাদার মিশ্রণের মধ্যে প্রচুর অন্যান্য রাসায়নিক উপাদানও মিশে ছিল যাদের বেশিরভাগই অজৈবিক।‘

সুদারল্যান্ডের নতুন গবেষণার অর্থ দাঁড়ায় মিলারের গবেষণা পদ্ধতি যথেষ্ট ফলপ্রসূ ছিল না। বরং মিলারের গবেষণার প্রক্রিয়া ছিল খুবই বিশৃঙ্খলাপূর্ণ। ফলে ভালো রাসায়নিক উপাদানগুলো মিশ্রণের মধ্যে বিলীন হয়ে যায়। সুতরাং সুদারল্যান্ড পৃথিবীর আদি অবস্থার সেই ‘গোল্ডিলকস কেমিস্ট্রি’ বের করার জন্য অনুসন্ধান শুরু করেন, যা এতটা বিশৃঙ্খল নয় যে তা অকেজো হয়ে পড়বে, আবার এতটাও সরল নয় যে তার সক্ষমতা সীমিত হয়ে পড়বে। রাসায়নিক উপাদানের মিশ্রণটিকে যথেষ্ট জটিল হতে হবে যাতে প্রাণের সব উপাদান একই সঙ্গে গঠিত হতে পারে এবং এরপর একসঙ্গে যুক্ত হতে পারে।

অন্যভাবে বলা যেতে পারে, প্রায় চারশ কোটি বছর আগেকার আমাদের পৃথিবীতে ছিল একটি উত্তপ্ত পুকুরের মত জলাশয় এবং তা সেভাবেই পতিত অবস্থায় ছিল বছরের পর বছর, রাসায়নিক উপাদানগুলো প্রাণের বিকাশের জন্য উপযোগী হওয়ার অপেক্ষায়। তারপর একসময়ে হয়তো কয়েক মিনিটের মধ্যেই প্রথম প্রাণকোষটি সৃষ্টি হয়ে যায়।

মনে হতে পারে এ-তো অসম্ভব, যেমন-ভাবে মধ্য যুগের অপরসায়নবিদেরা বলতেন নানা অলীক গল্প। তবে সুদারল্যান্ডের তথ্য-প্রমাণ কিন্তু ক্রমেই গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছিল। ২০০৯ সাল থেকেই তিনি দেখাচ্ছেন, একই রাসায়নিক উপাদান যা তার গবেষণার জন্য দুটো আরএনএ নিউক্লিওটাইড সৃষ্টি করেছিল তারাই প্রাণের অন্যান্য অণুজীব উপাদান সৃষ্টিতে সমান ভূমিকা রাখতে পারে।

তাহলে অবশ্যই পরের পদক্ষেপ হবে আরও বেশি আরএনএ নিউক্লিওটাইড তৈরি করা। যদিও তিনি অধিক পরিমাণে নিউক্লিওটাইড সৃষ্টি করতে পারেন নি। কিন্তু ২০১০ সালে তিনি প্রায় কাছাকাছি ধরণের অণুজীব সৃষ্টি করতে সক্ষম হন যেগুলোকে নিউক্লিওটাইডে রূপান্তর করা সম্ভব। একইভাবে ২০১৩ সালে সুদারল্যান্ড অ্যামাইনো অ্যাসিডের মূল উপাদান সৃষ্টি করতে সক্ষম হন, যা প্রাণের সবচেয়ে মৌলিক উপাদান। এ-পর্যায়ে তিনি গবেষণায় বিক্রিয়া সুসম্পন্ন করতে আগের রাসায়নিক উপাদানের সাথে কপার সায়ানাইড যুক্ত করে দেন।

সায়ানাইডের সাথে সম্পৃক্ত রাসায়নিক উপাদানে প্রাণের কিছু সাধারণ বিষয়ের প্রমাণ উঁকি দিয়ে যায় এবং ২০১৫ সালে সুদারল্যান্ড সায়ানাইডযুক্ত রাসায়নিক উপাদান নিয়ে পুনরায় গবেষণা করতে মনোনিবেশ করেন। গবেষণায় তিনি দেখালেন একই রাসায়নিক মিশ্রণ প্রাণের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান লিপিড সৃষ্টিরও পূর্ব শর্ত, লিপিড হল সেই মলিকিউল যা কোষের দেয়াল তৈরি করে। সুদারল্যান্ডের সব গবেষণার রাসায়নিক বিক্রিয়া অতিবেগুনি আলোর প্রতিফলনে সম্পন্ন করা হয় এবং বিক্রিয়াতে ব্যবহার করা হয় গন্ধক এবং বিক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করতে ব্যবহৃত হয় তামা।

জ্যাক উইলিয়াম সোসটাক বলেন, ‘প্রাণ বিকাশের প্রতিটি উপাদান মূলত রাসায়নিক বিক্রিয়ার একটি সাধারণ মর্মস্থল থেকেই উদ্ভূত হয়েছে।‘

যদি সুদারল্যান্ডের গবেষণা সঠিক হয়, তাহলে দেখা যাচ্ছে গত চল্লিশ বছর ধরে প্রাণের উৎপত্তি হয়েছিলো কীভাবে সে বিষয়ে যে গবেষণা চলমান সেটা ভুলভাবে চলছিল। কোষের জটিলতা এখন পরিষ্কার হয়ে গেল। বিজ্ঞানীরা এই ধারণার ওপর ভিত্তি করে গবেষণা করছিলেন যে, আদি কোষের উপাদানগুলো পর্যায়ক্রমে সৃষ্টি হয়েছিলো একটি একটি করে।

সুদারল্যান্ড বলেন, ‘আরএনএ প্রথম সৃষ্টি হয়েছিল’ লেসলি ওরগেল এর এমন প্রস্তাবনার পরেই আসলে বিজ্ঞানীরা একটি উপাদানকে আরেকটি উপাদানের আগে পেতে চাইলেন এবং এরপর সেটি থেকে আরেকটি উপাদানকে উদ্ভাবন করতে চাইলেন। কিন্তু সুদারল্যান্ড মনে করলেন, প্রাণের উৎপত্তির রহস্য সমাধানের সবচেয়ে ভাল উপায় হল প্রাণের সব উপাদান একইসাথে সৃষ্টি হয়েছিল কী না সেটা আগে খুঁজে দেখা।

সুদারল্যান্ড বলেন, ‘আমরা যেটা করলাম সেটা হল, একই সাথে প্রাণের সব উপাদান সৃষ্টি হওয়াটা অসম্ভব এই সেকেলে ধারণাকে বাতিল করে দিলাম।‘ প্রাণের সব মৌলিক উপাদানই একবারেই, একসঙ্গেই সৃষ্টি হওয়া সম্ভব বলে মনে করেন সুদারল্যান্ড।

ফলে সোসটাক এখন সন্দেহ করছেন, প্রাণের অণুজীব উপাদানগুলো সৃষ্টি এবং সেগুলোকে একত্রিত করে জীবন্ত কোষে পরিণত করার যেসব গবেষণা চলছিলো সেসব ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয় একটি কারণে- গবেষণাগুলো ছিল অতি বেশি মাত্রায় সরল। এতদিন বিজ্ঞানীরা শুধু তাদের পছন্দের সামান্য কিছু রাসায়নিক উপাদান দিয়েই গবেষণা করতেন এবং পৃথিবীর প্রথমদিককার পরিবেশে হাজির ছিল এমন অন্যান্য সব রাসায়নিক উপাদানকে গবেষণার বাইরে রেখেছিলেন তারা। কিন্তু সুদারল্যান্ডের গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, প্রাণের উৎস সন্ধানে ল্যাবরেটরিতে সৃষ্ট রাসায়নিক বিক্রিয়াতে আরো কিছু রাসায়নিক উপাদান যোগ করলে বিক্রিয়ার ফলাফলে আরও জটিলতা এবং বহুমাত্রিকতা সৃষ্টি করা সম্ভব।

২০০৫ সালে আদি কোষে আরএনএ এনজাইমের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে গিয়ে সোসটাক এ সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা লাভ করেন। এনজাইমের দরকার হয়েছিলো ম্যাগনেসিয়াম। কিন্তু তা আবার কোষের চারপাশের ঝিল্লির মতো আবরণটা ধ্বংস করে দেয়।

এই সমস্যার সমাধানে অতিরিক্ত রাসায়নিক উপাদান যুক্ত করার ফলাফল ছিল বিস্ময়কর। একটি নির্ভেজাল ফ্যাটি অ্যাসিড থেকে ভেসিকল সৃষ্টির পরিবর্তে বিজ্ঞানীরা দুটির মিশ্রণ থেকে ভেসিকল সৃষ্টি করলেন। এই নতুন জটিল যৌগের ভেসিকল ম্যাগনেসিয়ামের সাথে টিকে থাকতে পারে এবং তার মানে হল তারা কার্যকর আরএনএ এনজাইমকেও ধারণ করতে পারবে। প্রথম জিনও সম্ভবত এই জটিলতাকে ধারণ করেছিল।

আধুনিক অণুজীব তাদের জিন বহনের জন্য নির্ভেজাল ডিএনএ ব্যবহার করে। কিন্তু প্রাণের উৎপত্তির সময় সম্ভবত নির্ভেজাল ডিএনএ’র অস্তিত্ব ছিল না। সেসময় সম্ভবত আরএনএ এবং ডিএনএ নিউক্লিওটাইডের জটিল মিশ্রণ ছিল। ২০১২ সালে সোসটাক দেখালেন, আরএনএ এবং ডিএনএ নিউক্লিওটাইডের এই জটিল মিশ্রণ ‘মোজাইকের’ মত দেখতে মলিকিউলে একত্রিত হয়েছিলো এবং এর আচার-আচরণ প্রায় খাঁটি আরএন’র মতই ছিলো। এই আরএনএ এবং ডিএনএ নিউক্লিওটাইডের জটিল মিশ্রণের শিকল ভাঁজও হতে পারতো।

এ থেকে বুঝা যায় আদি প্রাণকোষ খাঁটি আরএনএ বা ডিএনএ তৈরি করতে পারলো কি পারলো না সেটা কোনো সমস্যা ছিলো না। সোসটাক বলেন, ‘আদি কোষে হয়তো আরএনএ সদৃশ কোনো উপাদান ছিলো, যা আরএনএ’র আরো জটিল কোনো সংস্করণ।‘

হয়তো গবেষণাগারে সৃষ্ট টিএনএ এবং পিএনএ-র মতো আরএনএ-র বিকল্প কোনো উপাদানের জন্যও জায়গা ছিলো। টিএনএ এবং পিএনএ প্রকৃতিতে পাওয়া যায় না, ফলে পৃথিবীতে তাদের অস্তিত্ত্ব কখনো ছিলো কিনা নিশ্চিত নয়। তবে তারা যদি থেকে থাকে তাহলে প্রথমদিককার প্রাণকোষগুলো হয়তো আরএনএ-র পাশাপাশি তাদেরকেও ব্যবহার করেছে।

ফলে দেখা যাচ্ছে প্রাণের যাত্রা শুরু হয়েছে আরএনএ দিয়ে এই ধারণা ঠিক নয়, বরং সেখানে আরএনএ ছাড়াও আরো নানা উপাদান ছিলো।

এই গবেষণাগুলোর শিক্ষা হল যে, আদি প্রাণকোষ সৃষ্টি করে দেখানোর কাজকে একসময় যতটা কঠিন মনে হয়েছিল বাস্তবে তা হয়তো ততটা কঠিন নয়।

কিন্তু একটা সমস্যার সমাধান সুদারল্যান্ড বা সোসটাক কেউই দিতে পারেন নি এবং সেটা অনেক বড় একটা সমস্যা। প্রথম প্রাণের অবশ্যই শক্তি উৎপাদনের জন্য যেকোনো ধরণের বিপাক ক্রিয়ার ব্যবস্থা ছিল। যেখান থেকেই শুরু হোক না কেন প্রাণকে অবশ্যই শক্তি আহরণ করতে হয় আর নয়তো তা বেঁচে থাকতে পারবে না।

এই ইস্যুতে মাইক রাসেল, বিল মার্টিন এবং অন্যান্য বিজ্ঞানীদের ‘বিপাক ক্রিয়া প্রথমে’ এই তত্ত্বের সাথে একাত্বতা ঘোষণা করেন সুদারল্যান্ড। সুদারল্যান্ড বলেন, ‘আরএনএ ঘরানার বিজ্ঞানীরা যখন বিপাক ক্রিয়া প্রথমে উদ্ভূত হয়েছে এমন ধারণা পোষণকারী বিজ্ঞানীদের সাথে তর্কযুদ্ধে লিপ্ত হন তখন তারা একটা বিষয়ে একমত হন যে, যেভাবেই হউক না কেন, প্রথম প্রাণের উৎপত্তির সময় সেখানে বিপাক ক্রিয়ার উপস্থিতিও থাকতেই হবে। এই রাসায়নিক বিক্রিয়ার শক্তির উৎস কী ছিলো সেটাই হল বড় প্রশ্ন। ‘

এমনকি যদি মার্টিন এবং রাসেলের তত্ত্ব- প্রাণের সূচনা হয়েছিল সমুদ্রের গভীরে আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখে লাভা মিশ্রিত খনিজ পানিতে, এমন তত্ত্ব যদি ভুলও হয় তবুও তাদের তত্ত্বের অনেক উপাদান সঠিক। এর মধ্যে একটি হল- প্রাণের বিকাশে নানা ধাতুর গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা।

প্রকৃতিতে, অনেক এনজাইমেরই কেন্দ্রে একটি ধাতুর অণু পাওয়া যায়। অনেক সময় এই ধাতব অংশটাই এনজাইমের সবথেকে সচল এবং কর্মক্ষম অংশ, আর বাদবাকি অংশ এর সহায়ক কাঠামো হিসেবে কাজ করে। প্রথমদিকের প্রাণের এত জটিল এবং উন্নত এনজাইম ছিল না বরং প্রথম প্রাণ সম্ভবত আবরণবিহীন ধাতুকে অনুঘটক হিসেবে ব্যবহার করেছিল।

জার্মান বিজ্ঞানী গুনটার ভাসটারশাওজার এই বিষয়টির উল্লেখ করেন। যখন তিনি দাবি করেছিলেন, প্রাণের সূচনা হয়েছিল লোহার পাইরাইটের ভেতর। একইভাবে রাসেল জোর দাবি তোলেন, সমুদ্রের গভীরে আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখে লাভা মিশ্রিত গরম পানিতে প্রচুর পরিমাণ ধাতব ছিল এবং সেগুলো রাসায়নিক বিক্রিয়ার অনুঘটক হিসেবে কাজ করত। এদিকে মার্টিন তার গবেষণায় দেখান পৃথিবীতে প্রাপ্ত সব প্রাণীর সাধারণ পূর্ব পুরুষ যেই আদি-কোষ তাতে প্রচুর পরিমাণে লোহাভিত্তিক এনজাইম অবশ্যই থাকতে হবে।

এই আলোচনার প্রেক্ষিতে আমরা বলতে পারি, সুদারল্যান্ডের সৃষ্ট রাসায়নিক বিক্রিয়াগুলো তামা এবং ঘটনাচক্রে গন্ধকের উপর নির্ভর করে। ভাসটারশাওজারও বিক্রিয়াতে গন্ধকের নির্ভরতার উপর জোর দিয়েছিলেন এবং সোসটাকের আদি-কোষের আরএনএ’র জন্য ম্যাগনেসিয়াম প্রয়োজন হয়।

তবুও প্রাণের উৎপত্তির গবেষণায় সমুদ্রের গভীরের আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। সোসটাক বলেন, ‘আপনি যদি আধুনিক কোষের বিপাক ক্রিয়ার দিকে তাকান তাহলে সেখানে লোহা এবং গন্ধকের মিশ্রিত উপস্থিতি দেখতে পাবেন। যা থেকে সিদ্ধান্ত দেওয়া যায় যে, প্রাণের যাত্রা শুরু হয়েছিল সমুদ্রের তলদেশের আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখের আশেপাশে, যেখানকার পানিতে প্রচুর পরিমাণে লোহা এবং গন্ধক ছিলো।

তবে সমুদ্রের তলদেশের আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখের আশেপাশের পানিতে প্রাণের উৎপত্তি হয়েছে এমন ধারণা একটি কারণে ভুল হতে বাধ্য। কেননা, গভীর সমুদ্রে কখনো প্রাণের বিকাশ সম্ভব নয়। সুদারল্যান্ড বলেন, আমরা প্রথম প্রাণের যে রসায়নটি উদঘাটন করলাম তা কিন্তু অতিবেগুনী রশ্মির ওপর খুবই নির্ভরশীল। আর অতি বেগুনী রশ্মির একমাত্র উৎস হল সূর্য। ফলে সুর্যের আলো পৌঁছাতে পারে এমন জায়গাতেই প্রাণের উৎপত্তি হতে হবে। কিন্তু গভীর সমুদ্রেতো তা পৌঁছাতে পারে না।‘

সোসটাক স্বীকার করে নেন, গভীর সমুদ্রে প্রাণের বিকাশ হওয়া সম্ভব নয়। সবচেয়ে অসম্ভবের বিষয় হল সমুদ্রের তলদেশ প্রাণ বিকাশের উপযুক্ত বায়ুমণ্ডলীয় রাসায়নিক পরিবেশ থেকে অনেক দূরে, যেখান থেকে সায়ানাইডের মত প্রচুর পরিমাণ শক্তি উৎপাদনকারী উপাদান যোগ হতে পারে না। কিন্তু এই সমস্যার কারণে সমুদ্রের তলদেশে আগ্নেয়গিরির গলিত লাভা থেকে প্রাণের বিকাশ হয়েছে এমন তত্ত্বকে একেবারে উড়িয়ে দেয়া যায় না। হতে পারে আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখগুলো ছিল সমুদ্রের অগভীর পানিতে যেখানে সূর্যের আলো এবং বায়ুমণ্ডলীয় রাসায়নিক পরিবেশ থেকে সায়ানাইড সহজেই প্রবেশ করতে পারে।

আরমেন মালকিদজানিয়ান বিকল্প একটি তত্ত্ব প্রস্তাব করেন। তিনি বলেন, সম্ভবত সমতল ভূমিতে পুকুরের মতো কোনো অগভীর জলাশয়ে, যেখানে আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখ থেকে বের হওয়া লাভা এসে জমা হত, এমন কোনো স্থানে প্রাণের উৎপত্তি হয়েছিল।

আরমেন মালকিদজানিয়ান গভীরভাবে কোষের রাসায়নিক গঠন পর্যবেক্ষণ করলেন- বিশেষত কোন ধরণের রাসায়নিক উপাদানকে কোষ নিজের ভেতরে প্রবেশ করতে দেয় আর কোনোগুলোকে বাইরে রাখে। তিনি দেখলেন, সব ধরণের প্রাণকোষ প্রচুর পরিমাণে ফসফেট, পটাশিয়াম এবং আরও কিছু ধাতব উপাদান ধারণ করে কিন্তু সেখানে সোডিয়ামের উপস্থিতি প্রায় নেই বললেই চলে।

আজকের দিনের কোষগুলো পাম্প করার মাধ্যমে কোষের ভেতরে প্রয়োজনীয় উপাদান ঢুকাতে পারে আবার বাইরে বেরও করে দিতে পারে। কিন্তু আদি প্রাণকোষের এই সুবিধা ছিল না কারণ আদি কোষে এমন কাজের জন্য সহায়ক যন্ত্রপাতি বা অঙ্গ ছিল না। সুতরাং মালকিদজানিয়ান দাবী করেন, আদি কোষ এমন কোনো স্থানে বিকশিত হয়েছিল যেখানে আধুনিক কোষগুলোর রাসায়নিক উপাদানের মিশ্রণের মতো মিশ্রণের উপস্থিতিও ছিল। সুতরাং এখানেই গভীর সমুদ্রে প্রাণের যাত্রা শুরু হয়েছে, এমন ধারণা বাতিল হয়ে যাচ্ছে। কারণ, প্রতিটি কোষ অতি উচ্চ মাত্রায় পটাশিয়াম এবং ফসফেট এবং খুব অল্প পরিমাণ সোডিয়াম বহন করে। অথচ সমুদ্রের পানিতে সোডিয়ামের পরিমাণ অনেক বেশি।

এ থেকে বিজ্ঞানীরা সিদ্ধান্তে পৌঁছালেন, সমুদ্রের তলদেশে থাকা আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখের আশেপাশে প্রাণের বিকাশ হয়েছে এই তত্ত্ব ঠিক নয়। তার বদলে বরং ভূ-পৃষ্ঠের কোনো সক্রিয় আগ্নেয়গিরির পাশের অগভীর গরম জলাশয়ে প্রাণের উৎপত্তি হয়েছে বললে সেটাই বেশি যুক্তিযুক্ত হবে। এমন জলাশয়েই দেখা যায় তেমন পরিবেশ ঠিক যেমনটা প্রাণ বিকাশের জন্য দরকার। কারণ এমন জলাশয়েই পাওয়া যায় সেসব ধাতব উপাদানের সমস্ত মিশ্রণ যেগুলো আধুনিক কালের প্রাণকোষে দেখা যায়।

সোসটাক নিজেও এমন দৃশ্যের ভক্ত। তিনি মজা করে বলেন, ‘এই মুহূর্তে আমার মনে হয় আমার প্রিয় দৃশ্য হতে পারে সমতল ভূপৃষ্ঠে সক্রিয় কোনো আগ্নেয়গিরি এলাকার অগভীর হ্রদ বা পুকুর। সেখানে হয়ত আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখ থেকে গরম তরল প্রবাহ আছে কিন্তু সেগুলো গভীর সমুদ্রের আগ্নেয়গিরি নয়, বরং আমেরিকার মনটানা এবং আইডাহো প্রদেশের ইয়েলোস্টোন পার্কের অগভীর জলাশয়ের তলদেশে থাকা জ্বালামুখের মত।‘

সুদারল্যান্ডের প্রস্তাবিত প্রাণ সৃষ্টির রাসায়নিক বিক্রিয়া সম্ভবত এরকম পরিবেশেই সবচেয়ে বেশি কার্যকর হবে। বসন্তকালেই প্রয়োজনীয় রাসায়নিক উপাদানের মেলবন্ধন ঘটে, কারণ তখন পানির স্তর কমে যায় এবং কিছু স্থান শুকিয়ে যায় এবং সেখানে প্রচুর পরিমাণে সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি পড়ে। এ ছাড়া, সোসটাক বলেন, ‘অগভীর হ্রদ বা জলাশয়ই হতে পারে আদি প্রাণকোষের উৎপত্তির জন্য উপযুক্ত স্থান। যেখানে আদি প্রাণকোষ বেশিরভাগ সময় অপেক্ষাকৃত শীতল ছিল। আর এই পরিবেশ আরএনএ-র প্রতিরূপ সৃষ্টি এবং অন্যান্য সরল বিপাক ক্রিয়ার জন্য উপযুক্ত। কিন্তু ওই পরিবেশেই মাঝে-মধ্যেই আদি কোষ কিছুটা সময়ের জন্য উত্তপ্ত হত, যার ফলে আরএনএ সূতাগুলো আলাদা হয়ে যেত এবং পরের ধাপে প্রতিরূপ সৃষ্টি করার জন্য তৈরি হয়ে যেত। সেই অগভীর জলাশয়ে গরম পানির স্রোত ছিল ফলে সেখানে হয়তো বিদ্যুৎশক্তি তৈরি হতো যা আদি কোষগুলোর বিভাজনে সাহায্য করত।

তবে সুদারল্যান্ড প্রাণের উৎপত্তিস্থল সম্পর্কে তৃতীয় একটি সম্ভাবনার প্রস্তাব করলেন। তিনি বললেন, ‘উল্কা পতনের স্থানগুলোতেও প্রাণের বিকাশ ঘটে থাকতে পারে।’

পৃথিবীর জন্মের পর প্রথম পঞ্চাশ কোটি বছর ধরে শুধু এতে উল্কাপাত ঘটেছিল এবং আমরা এখনো মাঝে মাঝে উল্কা পতন দেখতে পাই। বড়সড় একটি উল্কার আঘাতে সমতলে সৃষ্টি হতো বিশালাকার গর্ত, গর্তে পানি জমে যে হ্রদের সৃষ্টি হয় সেখানেই হয়তো দেখা দেয় আরমেন মালকিদজানিয়ানের প্রস্তাবিত প্রাণ বিকাশের উপযুক্ত পরিবেশ। প্রথমত, উল্কাপিণ্ডগুলো প্রধানত ধাতব উপাদানে তৈরি ছিলো। সুতরাং উল্কার আঘাতে সৃষ্ট গর্তে বিপুল পরিমাণ লোহা এবং গন্ধকের উপস্থিতি থাকার কথা। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল উল্কার আঘাতে এবং অতি উচ্চ তাপে ভূপৃষ্ঠের উপরিভাগের পাথরের আবরণ (Earth’s Crust) গলে গিয়েছিল। যার ফলে পাথরে ফাটল ধরে ভেতর থেকে আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখের মতো সৃষ্টি হয় এবং পানি গরম হয়।

সুদারল্যান্ড কল্পনা করেন ছোট ছোট নদী এবং পানির প্রবাহ উল্কার আঘাতে সৃষ্ট খাড়ির ঢাল বেয়ে নেমে যাচ্ছে, আর পাথর থেকে বয়ে আনছে সায়ানাইডভিত্তিক রাসায়নিক, আর উপর থেকে সূর্য ঢালছে অতিবেগুনী রশ্মির বিকিরণ। প্রতিটি স্রোতেই ভিন্ন ভিন্ন রাসায়নিক মিশ্রণ আছে ফলে প্রতিটি স্রোতের মিলনে ভিন্ন ভিন্ন রাসায়নিক বিক্রিয়া ঘটছে এবং এভাবে সময়ের হাত ধরে জলাধারে উৎপাদিত হচ্ছে প্রথম প্রাণের আধার।

সবশেষে ওই স্রোতগুলো সেই গর্তের তলদেশে প্রায় সমুদ্রের তলদেশের মতো আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখের মতো জলাশয় বা পুকুরে গিয়ে মিলিত হচ্ছে। এমন কোনো একটি রাসায়নিক বিক্রিয়ার পুকুরেই হয়তো পৃথিবীর প্রথম প্রাণকোষটি এর সবগুলো উপাদান সহ সৃষ্টি হয়।

সুদারল্যান্ড বলেন, ‘এটা প্রাণ সৃষ্টির খুবই সুবিন্যস্ত একটি দৃশ্য।‘ আর পরীক্ষাগারে প্রাপ্ত রাসায়নিক বিক্রিয়ার ভিত্তিতেই এই দৃশ্যটি কল্পনায় আঁকলেন সুদারল্যান্ড। তিনি বললেন, ‘এই দৃশ্যটাই একমাত্র দৃশ্য যা কেউ রসায়নের সূত্র অনুযায়ী কল্পনা করতে পারেন।‘

সোসটাক কিন্তু কোনোটার সঙ্গেই পুরোপুরি একমত পোষণ করলেন না। তবে তিনি বললেন, সুদারল্যান্ডের তত্ত্ব গভীর মনোযোগের দাবীদার। সোসটাক বলেন, ‘আমি মনে করি, উল্কার আঘাতে সৃষ্ট গভীর খাদের দৃশ্যকল্পটি বেশ সুন্দর। সেখানে জমা হওয়া রাসায়নিক মিশ্রিত পানিতেও হয়তো প্রাণ সৃষ্টি সম্ভব। একই সাথে আমি এও মনে করি যে, সমুদ্রের গভীরে আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখের পরিবেশেও প্রাণ সৃষ্টি হতে পারে। দুটি বিতর্কের স্বপক্ষেই প্রচুর যুক্তি আছে।’

অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে বিজ্ঞান-সভার বিতর্ক এবার যুক্তির লড়াইয়ের মঞ্চের মত চাঙ্গা হয়ে উঠবে। কিন্তু মনে হয় না কোনো পক্ষই দ্রুত কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারবেন। সিদ্ধান্ত হবে রসায়ন এবং আদি কোষের বিশ্লেষণের উপর ভিত্তি করে। তবে এই দুটো স্থানের কোনো একটিতে যদি প্রাণ সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় উপাদানগুলোর কোনো একটি উপস্থিত ছিলো না বলে প্রমাণ হয় তাহলে সেটি প্রাণের সম্ভাব্য উৎপত্তি স্থলের মর্যাদা হারাবে এবং অপরটি গৃহীত হবে।

এই বিতর্কের ইতিবাচক দিক হল, বিজ্ঞানের ইতিহাসে এই প্রথম দীর্ঘদিন ধরে চলমান পৃথিবীতে প্রাণের উৎপত্তি নিয়ে বিতর্কের একটি ব্যাপকভিত্তিক ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ দেখতে যাচ্ছি আমরা। সুদারল্যান্ড বলেন, প্রাণের উৎপত্তির রহস্যটি এখন আরো বেশি সমাধানযোগ্য মনে হচ্ছে।

তবে সোসটাক এবং সুদারল্যান্ডের প্রস্তাবিত ‘প্রাণের সবকিছু একবারেই, একসঙ্গেই সৃষ্টি হয়েছিল’ তত্ত্ব এখনো অসম্পুর্ণই রয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত এটি আমাদের সামনে শুধুই একটি রেখা চিত্রের মতো একটি আখ্যান উপস্থাপন করে মাত্র। তবে এই দুই বিজ্ঞানীর পদক্ষেপগুলো বিগত কয়েক দশক ধরে চলমান নানা পরীক্ষা-নিরিক্ষার ফলাফল দিয়ে সমর্থিত। ‘সবকিছু একবারে সৃষ্টি হয়েছিল’ তত্ত্ব প্রাণের উৎপত্তি সংক্রান্ত সবগুলো দৃষ্টিভঙ্গির মধ্যে একটি সমন্বয়ও সাধন করে। এটি অন্যান্য প্রতিটি তত্ত্বের ইতিবাচক দিকগুলোকে একই সূতায় বাঁধার চেষ্টা করে এবং একই সাথে সেগুলোর সমস্যাগুলোও সমাধানের চেষ্টা করে।

উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে, ‘সবকিছু একবারে সৃষ্টি হয়েছিল’ তত্ত্ব রাসেলের সমুদ্রের তলদেশে আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখে লাভা মিশ্রিত গরম পানির স্রোতের এলাকায় প্রাণের সৃষ্টি হয়েছিল সেই তত্ত্বকেও ভুল প্রমাণ করার চেষ্টা করে না বরং সেটার সবচেয়ে ভালো দিকগুলোকে গ্রহণ করে নেয়।

পরিশেষে বলা যায়, আমরা আসলে কখনোই পুরোপুরি নিশ্চিত করে জানতে পারবো না ৪০০ কোটি বছর আগে ঠিক কী ঘটেছিল। মার্টিন বলেন, ‘যদি কৃত্রিমভাবে এখন আদি পৃথিবীর সেই রাসায়নিক বিক্রিয়ার ক্ষেত্র তৈরি করা যায় এবং এসচেরিচিয়া কোলি নামের ব্যাকটেরিয়া উঁকি দেয় অন্য প্রান্তে তবুও প্রমাণ করা সম্ভব নয় যে আমরা (প্রাণ) ওভাবেই আবির্ভুত হয়েছিলাম।‘

আমরা সর্বোচ্চ যা করতে পারি তা হল, এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত সকল সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে পৃথিবীতে প্রাণের উৎপত্তি হয়েছিলো কীভাবে তার একটা সঙ্গতিপূর্ণ চিত্রকল্প আঁকতে পারি। গবেষণাগারে যেসব রাসায়নিক বিক্রিয়া ভিত্তিক পরীক্ষা-নিরিক্ষা চালানো হয়েছে, আদি পৃথিবী সম্পর্কে আমরা যেসব তথ্য জানতে পেরেছি, এবং জীব বিজ্ঞান প্রাণের সবচেয়ে প্রাচীন গঠন সম্পর্কে যা কিছু উদঘাটন করেছে সেসবের ভিত্তিতেই পৃথিবীতে প্রাণের উৎপত্তি সম্পর্কিত এই চিত্রকল্পটি তৈরি করতে হবে।

অবশেষে, গত প্রায় ১০০ বছর ধরে পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্ন নানা গবেষণা প্রচেষ্টার পর পৃথিবীতে প্রাণের উৎপত্তি হয়েছিলো কীভাবে তার একটি পূর্ণাঙ্গ চিত্রকল্প দৃশ্যমান হয়ে উঠছে।

তার মানে, আমরা মানব ইতিহাসের সবচেয়ে বড় এক বিভক্তির কাছাকাছি চলে আসছি, বিভক্তিটি হল- একদল মানুষ যারা প্রাণের যাত্রা শুরুর কাহিনী জানে আর অপর একদল যারা তা কখনোই জানতে পারেনি। ১৮৫৯ সালে ডারউইনের ‘অরিজিন অফ স্পিসিস’ প্রকাশের আগে যারা মারা গেছে তাদের প্রতিটি মানুষ নিজেদের প্রকৃত উৎসের ইতিহাস না জেনেই মরে গেছে, কারণ তারা কেউ বিবর্তনের বিন্দু বিসর্গ কিছুই জানত না। কিন্তু বর্তমান কালের সকল জীবিত মানুষ, কিছু বিচ্ছিন্ন গোষ্ঠী বাদে, চাইলেই প্রাণী জগতের সাথে আমাদের সম্পর্ক তথা আত্মীয়তার বিষয়টি জানতে পারবে। অনুরূপভাবে ১৯৬১ সালে ইউরি গ্যাগারিনের পৃথিবী প্রদক্ষিণের পর যারা জন্মেছে তারা এমন একটা সমাজে বসবাস করছে যে সমাজ মহাবিশ্বে ভ্রমণ করছে। এমনকি আমরা যদি কখনো সশরীরে মহাশূন্যে নাও যাই তবুও মহাকাশ ভ্রমণ একটি বাস্তব সত্য, বিভিন্ন নভোযান কিন্তু ঠিকই বাস্তবে মহাকাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

এই বাস্তব সত্য ঘটনাগুলো দুনিয়া সম্পর্কে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি আমুল বদলে দিচ্ছে। আমাদেরকে আরো বুদ্ধিমান বা বিজ্ঞ করে তুলছে। বিবর্তনবাদ তত্ত্ব আমাদেরকে এবং আর আর সকল প্রাণকেও আমাদের নিজেদের প্রয়োজনেই সংরক্ষণের শিক্ষা দেয় ও তাগিদ যোগায় কেননা তারাও আমাদের মতোই। মানুষ সহ প্রাণিজগতের সকল জীবই একই আদি প্রাণ থেকে বিবর্তিত হয়ে আজকের অবস্থায় এসে পৌঁছেছে। বিবর্তনবাদ আমাদেরকে প্রতিটি প্রাণীকে মূল্যায়ন করতে শিখিয়েছে, কারণ মানুষ জানতে পেরেছে সব প্রাণীই তাদের দূর সম্পর্কের বা নিকটাত্মীয়। মহাকাশ ভ্রমণের মাধ্যমে আমরা আমাদের বিশ্বকে দূর থেকে সার্বিকভাবে দেখত পারি এবং পর্যবেক্ষণ করতে পারি; যা থেকে আমরা আমাদের পৃথিবীর অনন্যতা এবং তা যে কতটা ভঙ্গুর ও অসহায় তাও উপলব্ধি করতে পারি।

পৃথিবীতে আজ যারা জীবিত আছে তাদের মাঝে কিছু মানুষ পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথমবারের মত সততার সাথে বলতে পারবে কোথা থেকে তারা এসেছে। মানুষ জানতে পারবে তাদের পূর্বপুরুষ কে এবং কোথায় ছিল তার বসবাস।

এই জ্ঞান আমাদেরকে আমূল বদলে দেবে। পুরোপুরি বৈজ্ঞানিকভাবে আমরা হয়তো জানতে পারবো কীভাবে মহাবিশ্বে প্রাণের বিকাশ সম্ভব হয়েছে এবং কোথায় তাকে খুঁজতে হবে। একইসাথে এ থেকে আমরা প্রাণের মর্মগত প্রকৃতি বা বৈশিষ্ট সম্পর্কেও জানতে পারব। কিন্তু প্রাণের উৎপত্তির পর কীভাবে জন্ম নিলো প্রাণের প্রজ্ঞা, সে সম্পর্কে আমরা এখনো প্রায় কিছুই জানতে পারিনি।

(বিবিসি আর্থ-এ প্রকাশিত মাইকেল মার্শাল এর লেখা ’The secret of how life on earth began’ অবলম্বনে এই লেখা)

 

এ জাতীয় আরও খবর

আকাশসীমা লঙ্ঘন করবে না মিয়ানমার: বিজিবি মহাপরিচালক

দুর্ভিক্ষের আগেই আওয়ামী লীগকে তাড়াতে হবে: শাহজাহান

বিভেদ ভুলে এক টেবিলে নাশতা করলেন রওশন-কাদের

প্রবাসীরা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সরাসরি রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন

বিএনপি নয়াপল্টনেই গণসমাবেশ করবে

বিএনপিকে ২৬ শর্তে সোহরাওয়ার্দীতে গণসমাবেশের অনুমতি

যেখানে প্রথম দেখা, সেখানেই হলো বিয়ে

শেখ হাসিনা শাসক নয়, জনগণের সেবক: কাদের

‘উত্তাল ইরানে ৩০০ বিক্ষোভকারী নিহত’

১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখের পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী

ব্রাজিল সমর্থককে ছুরিকাঘাতে হত্যা আর্জেন্টিনা সমর্থকের

উ. কোরিয়াকে নজিরবিহীন জবাবের হুঁশিয়ারি দ. কোরিয়ার