বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাশিয়ার হুমকির পরও ন্যাটোতে যাচ্ছে ফিনল্যান্ড

news-image

অনলাইন ডেস্ক : ন্যাটো সামরিক জোটের সদস্যপদের জন্য আবেদন করার ঘোষণা দিয়েছেন ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট সাউলি নিনিস্টো। আজ রোববার এ ঘোষণা দেন তিনি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়ার সঙ্গে ফিনল্যান্ডের প্রায় ১ হাজার ৩০০ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্ত রয়েছে। রাশিয়ার প্রতিবেশী এই দেশটি দীর্ঘদিনের ‘নিরপেক্ষ নীতি’ ছেড়ে এখন ন্যাটোতে যাওয়ার ঘোষণা দিলো।

তবে মস্কো হুঁশিয়ারি দিয়েছে, ফিনল্যান্ড যদি ন্যাটোতে যোগ দেয়, সেটা হবে এক বিরাট ভুল। শুধু তাই নয়, ফিনল্যান্ডের এমন সিদ্ধান্ত দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ক্ষতি করবে।

তবে রাশিয়ার এমন হুমকিতে মোটেও ভীত নয় ফিনল্যান্ড। অস্ট্রেলিয়ান গণমাধ্যম স্কাই নিউজের এক প্রতিবেদনে এমনটাই জানিয়েছেন দেশটির ইউরোপীয় সম্পর্ক বিষয়ক মন্ত্রী টিট্টি টুপ্পুরাইনেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে কোনো নোংরা পদক্ষেপ নিলে তা শক্ত হাতে মোকাবিলা করা হবে। এ বিষয়ে আমরা আতঙ্কিত নই।’

ফিনল্যান্ডের মতো সুইডেনও ন্যাটো জোটে যোগ দেবে বলে মনে করা হচ্ছে। নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগের কারণে দেশটিতে ন্যাটো জোটে যোগ দেওয়ার পক্ষে জনসমর্থন বাড়ছে।

গত বৃহস্পতিবার ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট নিনিস্টো এবং প্রধানমন্ত্রী সানা মারিন দুজনেই জানান, তারা ন্যাটো জোটে যোগ দেওয়ার পক্ষে।

আজ হেলসিংকির প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে সাউলি নিনিস্টো সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজকে আমি ও সরকারের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক কমিটি মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, ফিনল্যান্ড ন্যাটোর সদস্য পদের জন্য আবেদন করবে।’

ফিনল্যান্ড যে ন্যাটো জোটে যোগ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে, সেটা জানাতে গতকাল শনিবার রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে ফোন করেন ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট। পুতিন তাকে জানান, এমন পদক্ষেপ রুশ-ফিনিশ সম্পর্কের ক্ষতি করবে।

তবে প্রেসিডেন্ট নিনিস্টো আজ হেলসিংকিতে বলেন, ন্যাটো জোটে যোগ দিলে ফিনল্যান্ডের ভৌগোলিক অবস্থানের তো পরিবর্তন হবে না। কারণ তখনো রাশিয়ার সঙ্গে ফিনল্যান্ডের দীর্ঘ স্থল এবং সমুদ্র সীমান্ত থাকবে।’

ফিনিশ প্রেসিডেন্ট আশা করেন, নরওয়ে যেভাবে ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার পরও রাশিয়ার সঙ্গে সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে পেরেছে, ফিনল্যান্ডের বেলায়ও তাই ঘটবে।