মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঈদের দিনে বজ্রপাতে ৮ জনের মৃত্যু

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন বজ্রপাতে দেশের ছয় জেলায় আটজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে টাঙ্গাইলের একই স্থানে তিন যুবক মারা গিয়েছেন। এ ছাড়াও ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হবিগঞ্জ, বাগেরহাট, মেহেরপুর ও কক্সবাজারে একজন করে মারা গেছেন।

টাঙ্গাইলের কা‌লিহাতী‌তে বজ্রপা‌তে দুই শিশুসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আজ সকা‌লে উপ‌জেলার দশ‌কিয়া ইউ‌নিয়নের হা‌তিয়া এলাকায় নদীপাড়ে এ ঘটনা ঘ‌টে। মৃত শিশুরা হলো- ওই এলাকার র‌বিউ‌লের ছে‌লে আ‌রিফ (১১) ও একই এলাকার জুলহা‌সের ছে‌লে ফয়সাল (১২)। তাৎক্ষণিকভাবে মৃত আ‌রেকজনের প‌রিচয় জানা যায়‌নি।

এদিকে,ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় শেষে বাবার কবর জিয়ারত অবস্থায় বজ্রপাতে রনি মিয়া (৩৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। রনি মিয়া দুর্গাপুর এলাকার বাসিন্দা। এলাকাবাসী জানিয়েছে, রনি ঈদের নামাজ আদায় শেষে তার বাবার কবর জিয়ারত করতে খড়মপুর কবরস্থানে যান। এ সময় তিনি বজ্রপাতের কবলে পড়েন। পরে তাকে উদ্ধার করে দ্রুত আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এছাড়াও হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় গোসল করতে গিয়ে বজ্রপাতে শাহজাহান মিয়া (৬০) নামে এক বৃদ্ধ মারা গেছেন। স্থানীয়রা জানান, ঈদের দিন সকাল ৯টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের নয়ানগর গ্রামের শাহজাহান মিয়া বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে যান। এ সময় বজ্রপাত ঘটলে তিনি আহত হন। স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বাগেরহাটের মোংলায় কাঠ নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে বজ্রপাতে মহির উদ্দিন শেখ (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। সকালে মোংলা উপজেলার আগা মাদুরপাল্টা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মহির উদ্দিন শেখ মোংলা উপজেলার মাদুরপাল্টা গ্রামের বাসিন্দা। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য অজিত মজুমদার জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢালির খণ্ড এলাকা থেকে জ্বালানি কাঠ নিয়ে বাড়িতে ফিরছিলেন মহির উদ্দিন শেখ। পথিমধ্যেই বজ্রপাতের শিকার হন তিনি। স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মেহেরপুর সদর উপজেলার মনোহরপুর গ্রামে বজ্রপাতে আব্দুর রাজ্জাক (৫৩) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। এ সময় তার ভাই মন্টু (৪৮) আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা জানান, সকালে ঈদের নামাজ পড়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হন রাজ্জাক ও মন্টু। পথে বজ্রপাত হলে দুজনই আহত হন। এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক আব্দুর রাজ্জাককে মৃত ঘোষণা করেন।

কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদণ্ডীতে বজ্রপাতে শামসুল আলম (৫০) নামে এক লবণচাষির মৃত্যু হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন একজন। বিকেল ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জানান, বিকেলে চৌফলদণ্ডী নতুন মহাল মাঝের পাড়ায় বৃষ্টি থেকে লবণ রক্ষা করতে গিয়ে হঠাৎ বজ্রপাতের কবলে পড়েন শামসুল আলম। তখন তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।