মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ঐতিহ্যবাহী লড়াকু হাসলি মোরগ, বিক্রি হয় ২০-৩০ হাজার টাকায়

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে রয়েছে ঐতিহ্য লড়াকু হাসলি বা আঁচিল মোরগ। মোগল শাসনামল থেকেই এই মোরগ লালন-পালন হচ্ছে সরাইলে অনেক পরিবার। অত্যন্ত জেদি স্বভাবের এ মোরগের পা এবং গলা অন্যসব মোরগ-মুরগির চেয়ে অনেক বেশি লম্বা। পাশাপাশি দামও অন্যসব মুরগির থেকে বেশি। একেকটি মোরগের দাম ২০-৩০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। তীক্ষ্ণ দৃষ্টি আর উঁচু দেহের এই মোরগকে বলা হয়ে থাকে যুদ্ধবাজ মোরগ। মূলত লড়াইয়ের জন্যই শৌখিনরা এ মোরগ লালন-পালন করেন। গত এক দশকে হাসলি মোরগের লড়াইকারী দলের সংখ্যাও দ্বিগুণ হয়েছে। তবে শৌখিনতার পাশাপাশি কেউ কেউ এখন এ মোরগ বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যেও পালন করছেন।
সরেজমিনে ঘুরে কথা বলে জানা যায়, ১৬০০ শতাব্দীতে ইরান থেকে সরাইল পরগনার জমিদার পরিবার সর্বপ্রথম সরাইলে হাসলি মোরগ নিয়ে আসেন। তখন থেকেই হাসলি মোরগের লাড়াই হয়ে আসছে সরাইলে। স্থানীয়ভাবে এটিকে আঁচিল মোরগও বলা হয়।  ঢাকা ও সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাসলি মোরগের দল এসে লড়াইয়ে অংশ নেন। আবার সরাইলের মোরগগুলোরও ডাক পড়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে হওয়া লড়াইয়ে অংশ নেওয়ার জন্য।  একটি হাসলি মোরগের উচ্চতা ২৮-৩২ ইঞ্চি পর্যন্ত হয়ে থাকে। দেড় বছর বয়স থেকে লড়াই শুরুর পর সর্বোচ্চ ৪ বছর বয়স পর্যন্ত লড়াইয়ের সক্ষমতা থাকে একটি হাসলি মোরগের। এরপর সেগুলো প্রজননের কাজে ব্যবহার করা হয়। হাসলি মোরগের দৈনন্দিন খাবার তালিকায় থাকে ধান, গম ও ভুট্টাসহ অন্যান্য স্বাভাবিক খাবার। তবে লড়াইয়ের কয়েক মাস আগে থেকে কবুতরের মাংস, কাজু বাদাম, কাঠবাদাম, কিশমিশ ও সিদ্ধ ডিমসহ বিভিন্ন পুষ্টিকর খাবার খাওয়াতে হয়।
হাসলি মোরগ পালনকারী ছিদ্দিক মিয়া জানান, হাসলি মোরগের লড়াইকারী দল আছে ৩০-৪০টি। হাসলি মোরগ সরাইলের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে মিশে আছে। এই মোরগের লড়াই দেখার জন্য দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষজন সরাইলে আসে। এটি এখন মানুষের বিনোদনের খোরাকে পরিণত হয়েছে। লড়াইয়ে অংশ নেওয়ার পাশপাশি বছরে ৪-৫টি মোরগ বিক্রি করতে পারি।
আরেক মোরগ পালনকারী মো. সুরুজ আলী জানান,  ১৫ বছর ধরে হাসলি মোরগ-মুরগি পালন করছেন। একটি দলের হয়ে মাঝে-মধ্যে লড়াইয়ে অংশ নেয় তার মোরগ। এখন তিনি বিক্রির উদ্দেশ্যে লালন-পালন করছেন। বছরে ৪-৫টি মোরগ বিক্রি করতে পারেন তিনি। একেকটি মোরগ ১৫-২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন।