মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাবার বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে মেয়েকে অপহরণ, ঠেকালো স্থানীয়রা

news-image

লক্ষ্মীপুর প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জে বাবার বুকে অস্ত্র ঠেকিয়ে তার মাদ্রাসাছাত্রী মেয়েকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার সময় পাঁচজন অপহরণকারীকে আটক করে গণধোলাই দিয়েছে স্থানীয়রা। অপহরণকারীদের গণধোলাই দেওয়ার পর পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে চন্দ্রগঞ্জের দক্ষিণ নুরুল্ল্যাহপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় মাদ্রাসাছাত্রীর বাবা আলাউদ্দিন বাদী হয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৪ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। আজ রোববার সকালে এ মামলা দায়ের করেন তিনি। পরে পুলিশ ওই মামলায় আটককৃত ৫ অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন, রাসেল ইসলাম, আরিফ হোসেন, শাওন ইসলাম, রবিউল ইসলাম ও মোরশেদ আলম। তাদের সবার বাড়ি চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়নে।

পুলিশ এবং ওই শিক্ষার্থীরা স্বজনরা জানায়, জাফরপুর ফাতেহা মোহাম্মদিয়া দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্রী লাকি আক্তার। দীর্ঘ দিন ধরে মাদ্রাসা আসা-যাওয়ার পথে বসুদৌহিতা এলাকার মো. রাসেল ওই শিক্ষার্থীকে উত্ত্যক্ত করতেন। উত্ত্যক্ত করার এক পর্যায়ে মেয়েকে মাদ্রাসা যাওয়া বন্ধ করে দেয় স্বজনরা।

এরই জেরে গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাসেলের নেতৃত্বে তিনটি সিএনজিতে করে ১৫-১৬ জনের এক দল সন্ত্রাসী ওই শিক্ষাথীর ঘরে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে প্রবেশ করে। এক পর্যায়ে বাবা-মাসহ পরিবারের সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে শিক্ষার্থীকে সিএনজিতে তুলে নিয়ে যান। পরে চরশাহীর দিঘীরপাড় এলাকায় পৌঁছলে স্থানীয়রা ঘেরাও করে ৫ অপহরণকারীকে অস্ত্রসহ আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে।

শিক্ষার্থীর বাবা আলাউদ্দিন বলেন, ‘বাড়িতে অনেক মেহমান ছিল। রাতের খাবার শেষে সবাই চা খাচ্ছিলেন। সাড়ে ১০টার দিকে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাড়িতে ঢুকে পড়ে। এ সময় অস্ত্রের মুখে আমার মেয়েকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করে। আমাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন তাদের আটক করে গণধোলাই দেন। পরে পুলিশ এসে তাদের আটক করে।’

চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি একে ফজলুল হক জানান, অস্ত্রের মুখে মেয়েকে অপহরণ করার সময় পাঁচজনকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি এলজি ও ধারোলা ছুঁরি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ৫জনসহ ৯জনের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও অপহরণ মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান বলেন, ৫ অপহরণকারী ছাড়াও এ ঘটনার সঙ্গে আরও যারা জড়িত রয়েছে তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। এ ঘটনায় অপহরণ ও অস্ত্র আইনে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামিদের জিজ্ঞাসাদের জন্য আদালতে ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। এ বিষয়ে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

 

এ জাতীয় আরও খবর