বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সক্ষমতা বাড়ছে তিন স্থল শুল্ক স্টেশনের

news-image

অনলাইন ডেস্ক : দেশে পণ্য আমদানি-রপ্তানি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ১৫টি স্থল শুল্ক স্টেশন রয়েছে। পর্যাপ্ত অবকাঠামো না থাকায় এসব স্টেশন ব্যবসায়ীদের প্রয়োজনীয় সেবা দিতে পারছে না। ফলে রোধ করা যাচ্ছে না সীমান্তবর্তী এলাকার চোরাচালান।

বর্তমানে দেশে মোট ১৮১টি এলসি স্টেশন রয়েছে। এর মধ্যে ১৫টি দিয়ে আমদানি-রপ্তানি হয়। এগুলোর মধ্যে উত্তরাঞ্চলের এলসি স্টেশনগুলোর ভৌত অবকাঠামো সুবিধা নেই বললেই চলে। এসব কারণে সেখানে আমদানি-রপ্তানি আশানুরূপ হচ্ছে না বলে জানিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড।

এমন বাস্তবতার নিরিখে দেশের তিন স্থল শুল্ক স্টেশনের অবকাঠামো সুবিধা বাড়ানোর প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। ৮০ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘হিলি, বুড়িমারী ও বাংলাবান্ধা এলসি স্টেশনের ভৌত অবকাঠামো নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ।

প্রকল্পটি যৌথভাবে বাস্তবায়ন করবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও গণপূর্ত অধিদপ্তর। এরই মধ্যে প্রকল্পটি একনেক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনও পেয়েছে।

রাজস্ব বোর্ড বলছে, অর্থনীতির আকার বাড়ছে। বাড়ছে দেশের আমদানি-রপ্তানি। প্রতি বছরই রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ায় এনবিআরের কর্মকাণ্ডও বিস্তৃত হচ্ছে। এসব বিবেচনায় নিয়ে প্রকল্পটি প্রস্তাব করা হয়েছে।

সরকারি এ সংস্থাটি বলছে, চলতি বছর শুরু হয়ে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে ২০২৪ সালের জুনে। এটি বাস্তবায়ন হলে এলসি স্টেশনগুলোতে কাজের সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি হবে, রাজস্ব আদায়ও বাড়বে।

এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম জাগো নিউজকে বলেন, শুল্ক আদায়ে অটোমেশন ও ডিজিটালাইজেশনে গুরুত্ব দিচ্ছে এনবিআর। ভ্যাট ও ট্যাক্স আদায়ে অন্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ডাটা ইনটিগ্রেশন করা হচ্ছে। সক্ষমতা বাড়াতে ও কাজের অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে শুল্ক স্টেশনগুলোর অবকাঠামো উন্নয়নে নজর দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসের (ইউল্যাব) মাধ্যমে প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নে ইউল্যাব কিছু সুপারিশও দিয়েছে। সেসব দিক ভেবে প্রকল্পটি হাতে নেওয়া হয়েছে। সুপারিশ অনুযায়ী, শুল্ক স্টেশনগুলোতে একটি করে অডিটোরিয়াম, মসজিদ ও টেনিস কোর্ট নির্মাণের সুপারিশ করেছে ইউল্যাব। তিনটি এলসি স্টেশনের অবকাঠামো সুবিধার পাশাপাশি পর্যাপ্ত জনবল নিশ্চিত করারও সুপারিশ করা হয়।

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, হিলির শুল্ক স্টেশনের জন্য দিনাজপুরের হাকিমপুর, বুড়িমারি শুল্ক স্টেশনের জন্য লালমনিরহাটের পাটগ্রাম ও বাংলাবান্ধা শুল্ক স্টেশনের জন্য পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। প্রকল্পের আওতায় প্রত্যেকটি স্টেশনের জন্য চার একর করে মোট ১২ একর ভূমি অধিগ্রহণ করা হবে।

এছাড়া প্রত্যেকটিতে ৭৮ হাজার বর্গফুটের প্রশাসনিক বা দাপ্তরিক ভবন নির্মাণ, ৩৪ হাজার ২৯০ বর্গফুট আবাসিক ভবন নির্মাণ, তিন হাজার ৩৬৯ বর্গফুট সিপাহি ব্যারাক ও ২৪ হাজার ৩০০ বর্গফুট ডরমেটরি ভবন নির্মাণ করা হবে।

পরিকল্পনা কমিশনে ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য (সচিব) মামুন-আল-রশীদ জাগো নিউজকে বলেন, প্রকল্পটির ফলে উত্তরাঞ্চলের হিলি, বুড়িমারী ও বাংলাবান্দা স্থল শুল্ক স্টেশনের ভৌত অবকাঠামো সুবিধা বাড়বে। এতে আবগারি কর্মকাণ্ডও বাড়বে, পাশাপাশি চোরাচালান ও অবৈধ বাণিজ্য কমানো সম্ভব হবে।

এ বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমরা দেখেছি, সীমান্তের ওপারে এলসি স্টেশনগুলো আধুনিক ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। আমাদেরও কয়েকটা আধুনিক মানের স্টেশন রয়েছে। আমরা চাচ্ছি, আমাদের সবগুলো স্টেশন আধুনিক মানের হোক।’