সোমবার, ২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

৪৫ দেশে ফোনে আড়ি তালিকায় বাংলাদেশও

news-image

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বের ৪৫টি দেশের ৫০ হাজারের বেশি স্মার্টফোনে আড়ি পাতার ঘটনা ফাঁস হয়েছে। এসব দেশের রাজনীতিবিদ, বিশেষ করে বিরোধীদলীয় নেতা, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মীরা এর শিকার হয়েছেন। এ তালিকায় বাংলাদেশের নামও রয়েছে। ইসরায়েলের এনএসও গ্রুপের তৈরি বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী স্পাইয়িং সফটওয়্যার ‘পেগাসাস’ ব্যবহার করে ফোনে আড়ি পাতা হয়েছে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সহযোগিতায় দ্য গার্ডিয়ান, ওয়াশিংটন পোস্টসহ ১৬টি সংবাদমাধ্যমের যৌথ অনুসন্ধানে এসব তথ্য উঠে এসেছে। গত রোববার বিষয়টি প্রথম গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়।

‘স্পাইয়িং সফটওয়্যার’ পেগাসাসে একবার কোনো স্মার্টফোন যুক্ত হলে ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত গোপনীয়তার দেয়াল ভেঙে যায়। বেডরুম থেকে যাপিত জীবন নিয়ে ফোনে যে ধরনেরই যোগাযোগ হোক না কেন, তা চলে যায় তৃতীয় পক্ষের হাতে। আর এসব তথ্য ব্যবহার করে নজরদারিকারী সরকার বা প্রতিষ্ঠান ব্যক্তির সবকিছু জেনে যায়। পেগাসাসের এই ক্ষমতা সম্পর্কে সমকালকে জানিয়েছেন তথ্যপ্রযুক্তি বিশারদ সুমন আহমেদ সাবির।

গতকাল সোমবার দ্য গার্ডিয়ান, ওয়াশিংটন পোস্ট, নিউইয়র্ক টাইমস ও বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশসহ ৪৫টি দেশ পেগাসাস ব্যবহার করছে। এ তালিকায় উন্নয়নশীল ও তৃতীয় বিশ্বের দেশের পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড, ফ্রান্সের মতো উন্নত দেশের নামও আছে। কর্তৃত্ববাদী সরকারগুলো এর ব্যবহার করে ভিন্নমত দমনের চেষ্টা করছে। এখন পর্যন্ত এই স্পাইয়িং সফটওয়্যারটির সবচেয়ে বেশি অপব্যবহারের প্রমাণ মিলেছে ভারতে। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফোনে আড়ি পাতার তথ্য পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয়, দেশটির অন্তত ৪০ সাংবাদিকসহ তিন শতাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির ফোনে নজরদারি চালানো হয়েছে।

তালিকায় বাংলাদেশের নাম থাকা প্রসঙ্গে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সমকালকে বলেন, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ এবং এর অধীন কোনো প্রতিষ্ঠান এই সফটওয়্যার ব্যবহার করে না। ফলে পেগাসাস ব্যবহারকারী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ নাম থাকার বিষয়টি গ্রহণযোগ্য নয়।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের বাইরে অন্য কোনো মন্ত্রণালয় বা সংস্থা এটি ব্যবহার করছে কিনা- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, অন্য মন্ত্রণালয় কিংবা সংস্থার বিষয়ে বলতে পারব না। তবে জানামতে, বাংলাদেশে এই সফটওয়্যারের ব্যবহার নেই। তিনি আরও বলেন, বিদেশে বসে দেশের অনেকেই বাংলাদেশ সম্পর্কে অপপ্রচার করছে। পেগাসাস ব্যবহারকারীর তালিকায় বাংলাদেশের নামটিও সেই অপপ্রচারের অংশ হতে পারে।

যেভাবে অনুসন্ধান, পেগাসাস সফটওয়্যার যা করে :ফাঁস হওয়া একটি ডাটাবেস থেকে পেগাসাসের নিয়ন্ত্রণে থাকা প্রায় ৫০ হাজার ফোন নম্বরের সন্ধান পেয়েছিল প্যারিসভিত্তিক ফরবিডেন স্টোরিজ এবং লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। এই ডাটাবেস নিয়ে গার্ডিয়ান, দ্য ওয়্যারসহ ১৬টি সংবাদমাধ্যম অনুসন্ধান চালায়, যার নাম দেওয়া হয় ‘পেগাসাস প্রজেক্ট’।

এই প্রজেক্ট সম্পর্কে অনুসন্ধানে যুক্ত আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের বিশ্নেষণে বলা হয়েছে, পেগাসাস সফটওয়্যার ব্যবহূত হয় মূলত ‘টার্গেটেড ইন্টারসেপশনে’র জন্য। অর্থাৎ নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা লক্ষ্যবস্তু স্থির করে এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে তার স্মার্টফোন দখলে নেওয়া হয়। সফটওয়্যারটি মূলত লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হওয়া ব্যক্তির মাইক্রোফোন, স্পিকার ও ক্যামেরার দখল নেয়। পাশাপাশি স্মার্টফোনের গ্যালারি ও ম্যাপিংয়ের মতো অ্যাপ্লিকেশনগুলোও নিয়ন্ত্রণে রেখে সেখান থেকে তথ্য সংগ্রহ করে। ফোনের কথোপকথন তো বটেই, মাইক্রোফোন দখলে থাকার স্মার্টফোনটি কেউ টেবিলে কিংবা পকেটে রেখে কারও সঙ্গে সামনাসামনি বসে আড্ডা বা আলাপচারিতা চালালেও তাও রেকর্ড হয়ে যায়। পাশাপাশি ক্যামেরা দখল নিয়ে গোপনে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত ব্যক্তির প্রতিমুহূর্তের চলাফেরার ভিডিওচিত্রও ধারণ করতে থাকে। এমনকি স্মার্টফোন যদি শাটডাউন বা পাওয়ার অফ অবস্থায় থাকে, তাহলেও পেগাসাস মাইক্রোফোনে ভয়েস রেকর্ড এবং ক্যামেরায় ভিডিওচিত্র ধারণ করতে পারে। এ ক্ষেত্রে স্মার্টফোনের ব্যাটারিতে চার্জ থাকলেই কাজ হয়। স্মার্টফোনটি পুনরায় চালু করার পর ইন্টারনেটে সংযুক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ অবস্থায় করা ভয়েস রেকর্ড কিংবা ভিডিওচিত্র পেগাসাসের নিয়ন্ত্রণকারী ব্যক্তি বা সংস্থার সার্ভারে চলে যায়।

ডাটাবেস থেকে বেছে নেওয়া ব্যক্তিদের ফোনের তথ্যের ডিজিটাল ফরেনসিক বিশ্নেষণ করে অনুসন্ধানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো আরও বিস্তারিত তথ্য জানতে পেরেছে। তারা জানিয়েছে, স্পিকার ও মাইক্রোফোন দখলে থাকার কারণে হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার, মেসেঞ্জার, সিগন্যালের মতো এন্ড টু এন্ড এনক্রিপটেড ওটিটি অ্যাপের আলাপচারিতাও রেকর্ড করতে পারে পেগাসাস। কেউ ভিডিওকলে কথা বললে ক্যামেরায় যা দেখানো হচ্ছে, তাও রেকর্ড করতে পারে ক্যামেরার দখলের কারণে। আবার পেগাসাস দখল নেওয়া স্মার্টফোনের গোপন স্ট্ক্রিনশট নিতেও সক্ষম। ফলে মেসেঞ্জারে যা লেখা হচ্ছে, তারও স্ট্ক্রিনশট রেকর্ড হয়ে যায়। ফলে এনক্রিপশন না ভেঙে পেগাসাস এনক্রিপটেড অ্যাপের সব ধরনের আলাপচারিতাই গ্রাস করতে সক্ষম।

তথ্যপ্রযুক্তিবিদ সুমন আহমেদ সাবির বলেন, একটি বাক্যে এই সফটওয়্যারের ক্ষমতা সম্পর্কে বলে দেওয়া যায়। তা হচ্ছে, আপনি যদি স্পাইয়িং সফটওয়্যার পেগাসাসের দখলে থাকেন, তাহলে আপনার ‘ব্যক্তিগত গোপনীয়তা’ বলে আর কিছু নেই। তিনি আরও জানান, পেগাসাস সফটওয়্যারটি এতই শক্তিশালী যে এক দেশে বসে অন্য দেশের যে কারও স্মার্টফোন দখলে নিয়ে তার ভয়েস রেকর্ড শুধু নয়, প্রতিমুহূর্তের কার্যক্রমের ভিডিও রেকর্ড করা সম্ভব। ফলে এই সফটওয়্যার ব্যবহার করার অর্থ- ক্ষমতাবান কিংবা ক্ষমতাহীন প্রত্যেকের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সার্বক্ষণিক ঝুঁকিতে রাখা। এই সফটওয়্যার আপনাকে দখলে রেখেছে কিনা, তা জানাও অত্যন্ত কঠিন। কারণ, পেগাসাসের জাল সম্পর্কে জানতে হলে এই সফটওয়্যার সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ টিমের প্রয়োজন।

মূল টার্গেট সাংবাদিক, রাজনীতিক ও মানবাধিকারকর্মী :দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পেগাসাসের গ্রাহকদের মূল লক্ষ্যবস্তু হিসেবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সাংবাদিক, রাজনীতিক ও মানবাধিকারকর্মীদের নাম দেখা গেছে। বিশেষ করে হাঙ্গেরি, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, তুরস্ক ও ভারতে বেশ কয়েকজন সাংবাদিকের নাম পেগাসাস প্রোজেক্টের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে। গার্ডিয়ান আরও জানায়, ফাঁস হওয়া ডাটাবেসের ৫০ হাজারের বেশি ফোন নম্বর পাওয়া গেছে। ২০১৬ সাল থেকে এনএসওর গ্রাহকরা স্পাইয়িং শুরু করেছে।

দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট জানায়, কানাডার ইউনিভার্সিটি অব টরন্টোর সিটিজেন ল্যাবের গবেষণায় ৪৫টি দেশে পেগাসাস ব্যবহারের প্রমাণ মিলেছে। দেশগুলো হচ্ছে- আলজেরিয়া, বাহরাইন, বাংলাদেশ, ব্রাজিল, কানাডা, মিসর, ফ্রান্স, গ্রিস, ভারত, ইরাক, ইসরায়েল, আইভরি কোস্ট, জর্ডান, কাজাখস্তান, কেনিয়া, কুয়েত, কিরগিজস্তান, লাটভিয়া, লেবানন, লিবিয়া, মেক্সিকো, মরক্কো, নেদারল্যান্ডস, ওমান, পাকিস্তান, ফিলিস্তিন, পোল্যান্ড, কাতার, রুয়ান্ডা, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ আফ্রিকা, সুইজারল্যান্ড, তাজিকিস্তান, থাইল্যান্ড, টোগো, তিউনিসিয়া, তুরস্ক, সংযুক্ত আরব আমিরাত, উগান্ডা, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, উজবেকিস্তান, ইয়েমেন ও জাম্বিয়া।

কানাডার সিটিজেন ল্যাবের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যে বলা হয়েছে, এ পর্যন্ত ৩৬টি পেগাসাস সিস্টেম এই ল্যাবে শনাক্ত করা গেছে, যেগুলো প্রত্যেকের একেকটি অপারেটর হিসেবে কাজ করছে। এই ৩৬টি পেগাসাস সিস্টেম থেকে ৪৫টি দেশে নজরদারি চালানো হয়েছে। এর মধ্যে ১০টি অপারেটর নিজের দেশ থেকে অন্য দেশে বা ‘ক্রসবর্ডার’ স্পাইয়িং কার্যক্রম চালিয়েছে। ‘গঙ্গা’ নামে একটি অপারেটর পেগাসাস ব্যবহার করে ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশ, ব্রাজিল, হংকং, ভারত ও পাকিস্তানে নজরদারি চালিয়ে আসছে।

ভারতের নিউজ পোর্টাল দ্য ওয়্যারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পেগাসাসের তালিকায় ভারতের রাজনীতিক, সাংবাদিক, অধিকারকর্মী ও বিজ্ঞানীর নাম রয়েছে। অবশ্য ভারত সরকারের একজন মুখপাত্র এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

এদিকে, পেগাসাস দিয়ে সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার আগে ও পরে তার ঘনিষ্ঠজনদের মোবাইল ফোনেও আড়ি পাতা হয়েছিল। আড়ি পাতা হয় খাসোগির স্ত্রী হানান এলাতার ও তার বাগদত্তা হেতিজে চেঙ্গিসের ফোনে।

পেগাসাস প্রজেক্টের ডেটার ডিজিটাল ফরেনসিক বিশ্নেষণ করা হয়েছে যুক্তরাজ্যের লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের পরীক্ষাগারে। এ তদন্তের জন্য ৬৭টি মোবাইল ফোনের তথ্য বিশ্নেষণ করা হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

মাস্টার-সুকানির ‘অদক্ষতায়’ পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা

টাইগারদের সিরিজ জয়ে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

দেশে করোনায় আরও ২২৮ জনের মৃত্যু

প্রতিবাদের মুখে নাটক প্রত্যাহার, ক্ষমা চাইলেন শিল্পী ও কলাকুশলীরা

প্রশিক্ষণের জন্য আড়াই হাজার কোটি টাকা চাচ্ছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

ভাসানীর রাজনীতি থেকে আমাদের অনেক শেখার আছে: তথ্যমন্ত্রী

সীমিত পরিসরে চালু হচ্ছে বিআরটিএ’র সেবা কার্যক্রম

ফেসবুকে গুজব ছড়িয়ে তারা র‌্যাবের জালে ধরা

প্রথমবারের মত বিদেশে তিন ফরমেটে ট্রফি জয়

প্রাণে বাঁচতে কান্দাহারে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে ২২ হাজার পরিবার

‘মাংস স্বাদ’ না হওয়ায় গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

২৯ বছর কোমায়, জ্ঞান ফিরেই ১৩০ কোটির মালিক!