শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নাক কান কাটা অদ্ভুত মানুষ!

news-image

অনলাইন ডেস্ক : আমাদের মাঝে অনেকেই আছেন যারা নিজের রূপে সন্তুষ্ট থাকতে পারেন না। তাই তারা সব সময় চেষ্টা করেন নিজেকে বিভিন্ন ভাবে সাজিয়ে তোলার জন্য। আর এই নিজেকে সাজানোর প্রচেষ্টায় তাঁরা এমন কিছু রপ ধারন করে ফেলেন, যে রুপে তাদের দেখতে আরও অদ্ভুত লাগে। পছন্দসই রূপ পেতে দেহের বিভিন্ন অঙ্গের বদল ঘটাতেও পিছপা হন না তারা।

মিকেল ফারো দো প্রাদো:

৪৪ বছর বয়সী ব্রাজিলের ট্যাটু শিল্পী মিকেল ফারো দো প্রাদো নিজেকে একটু ভিন্ন ভাবেই তুলে ধরতে পছন্দ করেন।এজন্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গের পরিবর্তন করতেও ভালবাসেন তিনি।সারা মুখে ট্যাটু ছাড়াও চুলের বিভিন্ন পরিবর্তন, দাঁত পাল্টে ফেলা, মুখমণ্ডলের বিভিন্ন অংশে ছিদ্র ও কৃত্রিম শিং— এসব আগেই করেছিলেন তিনি।তবে নিজের চেহারা বদল ঘটাতে নাকের একাংশ কেটে বাদ দেওয়ায় বেশি আলোচনায় এসেছেন প্রাদো।

তার ‘শয়তানি রূপকে’ আরও জোরদার করতে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নাকের সামনের অংশ কেটে বাদ দিয়েছেন বলেই জানিয়েছেন প্রাদো।

প্রাদুর দাবি তার যন্ত্রনা সহ্য করার শক্তি প্রবল। তাই ট্যাটু বা শারীরিক এইসব পরিবর্তন করতে তার কোনো কষ্ট হয় না।

স্যান্ড্রো:
জার্মানির ফিনস্টারওয়াল্ডের বাসিন্দা স্যান্ড্রো ট্যাটু আর প্লাস্টিক সার্জারির মাধ্যমে নিজেকে ‘কিম্ভূত কিমাকার’ বানিয়ে আলোচনায় এসেছেন। গত বছর হঠাত্ই স্যান্ড্রোর মাথায় আসে, তাঁর মুখটাকে মানুষের মাথার খুলির মতো করে তুলতে হবে। তাই ২০১৯ সালে তিনি দুই কান কেটে ফেলেছিলেন। এছাড়া তার কপাল এবং হাতের পেছনের রয়েছে ইমপ্লান্ট এবং মুখ-ও ট্যাটুতে ছাকা।

তবে এখানেই শেষ নয়। ৩৯ বছরের স্যান্ড্রোর পরবর্তি পরিকল্পনা ‘খুলি’সদৃশ মুখ করে তোলার কাজকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে সে নাকের ডগা কেটে ফেলবে এবং চোখে উল্কি আঁকাবে।

জানা যায়, তাঁর এই উদ্ভট শারীরিক পরিবর্তনের আগ্রহ প্রথম জেগেছিল ২০০৭ সালে। সেই সময় তিনি টিভিতে এক ব্যক্তিকে দেখেছিলেন যার মাথায় কাটা ইমপ্লান্ট করা হয়েছিল। তারপর থেকে এখনও পর্যন্ত চেহারা পরিবর্তনের জন্য তিনি ছয় হাজার ইউরোরও বেশি খরচ করেছেন।