মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশের ক্রীড়াঙ্গন যেসব নক্ষত্র হারিয়েছে

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনা জর্জর ২০২০ সালটা এমনিতেই ছিল বিষাদের। সেই বিষাদকে আরো গাঢ় করেছে একের পর এক কিংবদন্তির চলে যাওয়া। ফুটবলের বাদাল রায়, গোলাম রব্বানী হেলাল থেকে শুরু করে ক্রিকেট কিংবদন্তি রাম চাঁদ গোয়ালা চির বিদায় নিয়েছেন এ বছর।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক ২০২০ সালে দেশের ক্রীড়াঙ্গন হারিয়েছে যাদের-

গোলাম রব্বানী হেলাল

৩০ মে মৃত্যুবরণ করেন ফুটবলার গোলাম রব্বানী হেলাল। বেশ কয়েক বছর ধরেই নানা রোগের সঙ্গে লড়ছিলেন তিনি। সর্বশেষ মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে ৬৩ বছর বয়সে মারা যান হেলাল। ঘরোয়া ফুটবলে অনেক কীর্তি আক্রমণভাগের এই খেলোয়াড়ের। ১৯৭৫ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত খেলেছেন আবাহনীর হয়ে। সংগঠক হিসেবে আবাহনীর বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছেন।

নওশেরুজ্জামান

২১ সেপ্টেম্বর করোনার কাছে হেরে যান স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের সদস্য, তুখোড় স্ট্রাইকার নওশেরুজ্জামান। করোনায় আক্রান্ত হয়ে বেশ কিছুদিন হাসপাতালের আইসিউতে ছিলেন তিনি। ৭২ বছর বয়সী নওশেরুজ্জামান কেবল ফুটবলার হিসেবেই পরিচিত ছিলেন না। জাতীয় পর্যায়ে দীর্ঘদিন ক্রিকেটও খেলেছেন।

বাদল রায়

২২ নভেম্বর মাত্র ৬৩ বছর বয়সে পরলোকগমন করেন কিংবদন্তি ফুটবলার বাদল রায়। ঢাকার মাঠের অন্যতম তারকা, জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব, সফল ক্রীড়া সংগঠক বাদল রায় ২০১৭ সালে মস্তিষ্কের জটিল রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। অস্ত্রোপচার করা হয়। মৃত্যুর কিছুদিন আগে তার লিভার ক্যানসার চতুর্থ পর্যায় ধরা পড়ে। ১৯৭৭-এ মোহামেডানের জার্সিতে ঢাকার ফুটবলে অভিষেক বাদল রায়ের। দীর্ঘ ১২ বছর সাদা-কালো জার্সিতে খেলেন। জাতীয় দলের হয়েও খেলেছেন টানা ৫ বছর। খেলা ছাড়ার পর ফুটবল ফেডারেশনের সহ-সভাপতিসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা যায় তাকে।

রাম চাঁদ গোয়ালা

কিংবদন্তি ক্রিকেটার, দেশের প্রথম বাঁহাতি স্পিনার রাম চাঁদ গোয়ালা ১৯ জুন ময়মনসিংহের নিজ বাসভবনে পরলোকগমন করেন। ময়মনসিংহ থেকে উঠে আসা সাবেক এই বাঁহাতি স্পিনার এবং বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ঢাকার ক্রিকেটে ২০ বছর দাপটের সঙ্গে খেলেছেন। এর মধ্যে ১৯৮১ থেকে ১৯৯৩ পর্যন্ত খেলেছেন আবাহনীর হয়ে। সফরকারী ভারতের হায়দ্রাবাদের বিপক্ষে জাতীয় দলে খেলেছেন তিনি।

এ এস এম ফারুক

১৮ সেপ্টেম্বর সাবেক ক্রিকেটার এ এস এম ফারুক ৭৫ বছর বয়সে মারা যান। ১৯৭৭ সালের জানুয়ারিতে ঢাকায় এমসিসির বিপক্ষে যে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখে বাংলাদেশ, সেই দলের সদস্য ছিলেন তিনি। দীর্ঘদিন ঢাকার ঐতিহ্যবাহী মোহামেডান ক্লাবের সংগঠক ছিলেন। ২০০৩ বিশ্বকাপে জাতীয় দলের এবং ২০১৬-তে দেশের মাটিতে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে যুব দলের ম্যানেজার ছিলেন তিনি।

এহতেশাম সুলতান

১৭ আগস্ট মারা যান হকির কিংবদন্তি এহতেশাম সুলতান। ১৯৬৮ থেকে ৭০ পর্যন্ত পূর্ব পাকিস্তান দলের সদস্য ছিলেন। ১৯৭৮ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হকি টেস্ট সিরিজে খেলেছেন। অবসরের পর দীর্ঘদিন জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব পালন করেন। জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কারপ্রাপ্ত এহতেশাম সুলতান হকি ফেডারেশনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বও পালন করেন।

২০২০ সালে এ ছাড়া আমরা হারিয়েছি অ্যাথলিট কাজী জাহেদা আলী, ফুটবলার এস এম সালাউদ্দিন, নূরুল হক মানিক, লুৎফর রহমান, কারাতেকার হুমায়ুন কবীর জুয়েল, ভলিবল খেলোয়াড় গোলাম রসুল মেহেদী, সংগঠক এ এইচ এম সামসুল ইসলাম, রেফারি আবদুল আজিজকে।

এ জাতীয় আরও খবর

সেপটিক ট্যাঙ্কে মিলল আনারের দেহের ‍অংশ

এমপি আনার খুন: দেহাংশ খুঁজতে ভাঙা হবে সঞ্জীবা গার্ডেনসের স্যুয়ারেজ লাইন

প্রাথমিকে ৪৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া হাইকোর্টে স্থগিত

বেনজীর ও তার স্ত্রী-সন্তা‌নদের সব বিও হিসাব ফ্রিজ

ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিলো স্পেন-নরওয়ে

কাল ঢাকায় আসছেন আইএমও মহাসচিব

আরও তিন উপজেলার ভোট স্থগিত

ঈদুল আজহায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির তারিখ ঘোষণা

উপকূলে এখনো থামেনি ঘূর্ণিঝড় রিমালের দাপট

বিয়ের ১২ দিন পর স্ত্রী হয়ে গেলেন পুরুষ

অপরাধী হলে শাস্তি পেতেই হবে, সাবেক সেনাপ্রধান-আইজিপির বিষয়ে কাদের

সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ৭০ হাজার পদ ফাঁকা : জনপ্রশাসনমন্ত্রী