[bangla_day], [english_date] [bangla_date]

আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার যুদ্ধের সমাপ্তি ঘোষণা

news-image

রাশিয়া, আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান, ৩ দেশের সরকার প্রধান যুদ্ধ সমাপ্তির চুক্তি সাইন করেছে। বিশ্বের ইতিহাসে প্রথম অনলাইন শান্তিচুক্তি সই করলেন ৩ দেশের প্রধান যা নতুন করে ইতিহাস হয়ে থাকবে। আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের সরকার প্রধানকে ধন্যবাদ যুদ্ধের সমাপ্তি চুক্তি করার জন্য।
আর্মেনিয়া নিজেদের সৈন্য ফিরিয়ে নিয়ে যাবে আজারবাইজানের কাছ থেকে দখল করা ভূমি থেকে। যে কোন যুদ্ধই সমর্থন যোগ্য না কারণ মানুষ ও সম্পদের ক্ষতি এড়িয়ে যুদ্ধ করা সম্ভব না। তবে এখানে উল্লেখ্য যে এই যুদ্ধ আজারবাইজান করেছে নিজেদের মাতৃভূমির দখল উদ্ধার করার জন্য। পক্ষান্তরে আর্মেনিয়া যুদ্ধ করেছে দখল করা ভূমির নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখার জন্য। আর্মেনিয়া যে ভূমি দখল করে রেখেছিল গত ৩০ বছর ধরে তা জাতিসংঘের ঘোনষনা অনুসারে আজারবাইজানের। আর্মেনিয়ার সাথে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা চুক্তি রয়েছে তার পরেও এই যুদ্ধে রাশিয়া আর্মেনিয়ার পক্ষে অংশগ্রহণ করে নাই কারণ রাশিয়া সরাসরি বলেছে আর্মেনিয়ার অন্যায় ভাবে দখল করা আজারবাইজানের ভূমিতে গিয়ে আর্মেনিয়ার পক্ষে যুদ্ধ করা সম্ভব না। তবে প্রমাণ পাওয়া গেছে যে রাশিয়া অস্ত্র সরবরাহ করেছে আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনীকে যেমন করে তুরস্ক ড্রোন সরবরাহ করেছে আজারবাইজানকে।
আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার এই যুদ্ধটি বিশ্বের সামরিক ইতিহাসে অংশ হয়ে যাবে বলে মনে করি। বিশেষ করে যুদ্ধ স্ট্রাটেজি বিষয়ক পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবার সমূহ সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। আজারবাইজান এমন একটা সময় বেছে নিয়েছে যুদ্ধের জন্য তা তাদের সেনাবাহিনীর নেতৃত্বের যোগ্যতা প্রমাণ করে। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের শুরু ও তাদের যুদ্ধের শুরু একই সময়ে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দেশগুলো করোনার কারণে প্রচণ্ড ব্যস্ত নিজেদের নাগরিকদের বাঁচাতে অন্যদের নিয়ে ভাবার সময় তাদের নেই।
রাশিয়া এই যুদ্ধে নিজেদের লাভের অংক কষেছে। রাশিয়া চিন্তা করেছে আর্মেনিয়ার পক্ষে যুদ্ধ করলে বেশি লাভ নাকি তুরস্কের পক্ষে থাকা বেশি লাভ। বিশেষ করে সাম্প্রতিক লাকে তুরস্ক যত টাকার অস্ত্র ক্রয় চুক্তি করেছে রাশিয়ার সাথে তার ১০ ভাগের এক ভাগও ব্যায় করা সম্ভব না আর্মেনিয়ার পক্ষে আগামী ১০ বছরেও। সেই সাথে তুরস্কের পক্ষে থাকলে ঐ অঞ্চলে রাশিয়ার সামরিক প্রভাব অক্ষুণ্ণ থাকবে বলেই রাশিয়া ভেবেছে। একই সাথে আজারবাইজান চেয়েছে আমেরিকার নির্বাচন শেষ হবার পূর্বেই যুদ্ধ শেষ করতে ও তারা তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। একই সাথে রাশিয়াও বুঝেছে যে আমেরিকার নির্বাচন শেষে আমেরিকা এই যুদ্ধে নাক গলাবে। তাই রাশিয়া মনে-প্রাণে চেয়েছে এই যুদ্ধের সমাপ্তি টানতে। ছোট দেশ আর্মেনিয়া ইতিমধ্যেই যে পরিমাণ ক্ষয়-ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে ও বিশ্বের কোন দেশ থেকেই নৈতিক কিংবা রাজনৈতিক সমর্থন পেতে ব্যর্থ হয়েছে (আমেরিকান সেলিব্রেটি কিম কার্ডাশিয়ান ছাড়া) তাই এই যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া তাদের পক্ষে সম্ভব ছিলও না। ফলে সব পক্ষ নিজেদের লাভ-ক্ষতির হিসাব করেই যুদ্ধ সমাপ্তির পথেই এগিয়েছে।
=========================================
অনেক নির্বোধই এই যুদ্ধে ধর্মকে টেনে এনেছে। অথচ এই যুদ্ধে ধর্ম কোন ইস্যুই ছিলও না।
=========================================
এই যুদ্ধে আজারবাইজানকে তুরস্ক ও ইসরাইল সাহায্য করেছে ভূ-রাজনৈতিক ভাবে লাভবান হবার জন্য; পক্ষান্তরে ইরান ও রাশিয়া আর্মেনিয়াকে সাহায্য করেছে একই ভাবে। শতকরা ৯০ ভাগ মুসলিম ধর্ম অধিস্যুত আজারবাইজানকে ইসরাইল সাহায্য করেছে কারণ আজারবাইজানের সাথে ইরানের বর্ডার আছে; আর আজারবাইজান তাদের দেশে থেকে ইসরাইলের গোয়েন্দাদের ইরানের উপর নজরদারি করতে দেয়। যেহেতু ইসরাইল পরোক্ষ ভাবে এই যুদ্ধে জড়িত তাই আমেরিকার পক্ষে সরাসরি আর্মেনিয়াকে সাহায্য করা সম্ভব না শুধুমাত্র আমেরিকা প্রবাসী আর্মেনিয়ানদের লবিং এর কারণে। আমেরিকার রাজনীতিতে এখনও আর্মেনিয়ার লবি ইসরাইলি লবি অপেক্ষা শক্তিশালী হয় নাই।
তুরস্ক এই যুদ্ধে পরোক্ষভাবে অংশগ্রহণ করেছে শতকরা ১০% ধর্ম, ৪০% আঞ্চলিক প্রভাব, ও ৫০% সামরিক অস্ত্র বিক্রয়ে লাভবান হবার জন্য। এই যুদ্ধে ৫০% লাভবান হয়েছে আজারবাইজান যেহেতু তারা নিজেদের হারানো মাতৃভূমি ফিরে পেয়েছে; ২৫% লাভবান হয়েছে তুরস্ক যেহেতু তারা তাদের সামরিক প্রযুক্তির যুদ্ধ জয়ের সক্ষমতা প্রমাণ করতে পরেছে; ২৫% লাভবান হয়েছে রাশিয়া যেহেতু তারা নিজে যুদ্ধে না জড়িয়ে ও আমেরিকা ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কোন প্রকার প্রভাব বিস্তার ছাড়াই যুদ্ধ সমাপ্তির ব্যবস্হা করেছে। এই যুদ্ধে শুধু আর্মেনিয়া হারে নি; সেই সাথে হেরেছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন। বিশেষ করে ফ্রান্স। ১৯৯০ সালের যুদ্ধের পরে যে শান্তি চুক্তি হয়েছিল তার মধ্যস্থতা করেছিল রাশিয়া, ফ্রান্স ও আমেরিকা। এবারের মধ্যস্থতার ফ্রান্স ও আমেরিকার অংশগ্রহণের কোন ব্যবস্হা রাখা হয় নাই; কিংবা রাশিয়া ও তুরস্ক সেই সুযোগ দেন নাই ফ্রান্স ও আমেরিকাকে। নিশ্চিত করেই বলা যায় রাশিয়া ও তুরস্ক হবে আগমীদিন গুলোতে এই অঞ্চলের ভূ-রাজনীতির নিয়ন্ত্রক।
এই যুদ্ধ চলতে দেওয়াটা রাশিয়ার জন্য অনেক রিস্কি ছিলও। ইতিমধ্যেই আজারবাইজান তুরস্কের কাছ থেকে কেনা ড্রোন দিয়ে আর্মেনিয়ান সেনাবাহিনীর কাছে রাশিয়ার সরবরাহ করা এস-৩০০ আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্হা ধ্বংস করার যে ভিডিও অনলাইনে ছেড়েছে আজারবাইজান তা রাশিয়ার জন্য চরম ক্ষতিকর। যেহেতু রাশিয়ার দ্বিতীয় প্রধান রপ্তানি দ্রব্য সামরিক প্রযুক্তি ও অস্ত্র। আজারবাইজানের সেনাবাহিনী আর্মেনিয়ার বিমান বাহিনীর মিগ-২৯ বিমানও ধ্বংস করেছে যেটাও রাশিয়ার জন্য সম্মান হানি করেছে। ফলে যুদ্ধ যত দীর্ঘ হত তত বেশি রিস্ক ছিলও একই রকম ক্ষতির। ফলে রাশিয়াও চেয়েছে যত দ্রুত সম্ভব যুদ্ধ শেষ করে দেবার।
এই শান্তি চুক্তির জন্য পুতিন মামাও যদি ট্রাম্প মামার মতো নোবেল পুরষ্কারের জন্য মনোনিত হয় বা পুরষ্কার পয় তবে অবাক হবো না।
আর্মেনিয়ার দখলে থাকা আজারবাইজানের ভূমি নিয়ে যে যুদ্ধ সেই স্হান সম্বন্ধে জাতিসংঘের বিভিন্ন সিদ্ধান্তে উপসংহার নিচের ছবি থেকে যেনে নিতে পারেন। এই সিদ্ধান্ত গুলোর কারণেই এই যুদ্ধে অন্য দেশের সরাসরি সামিক ভাবে অংশগ্রহন করা সম্ভব ছিলো না।

Mostofa Kamal Palash

এ জাতীয় আরও খবর

কাকরাইলে সংঘর্ষে ৩ মামলা, আসামি ৪ হাজারের বেশি

বড় জয় পেল লিভারপুল

কখনো পাপিয়া, কখনো পরীমনি, কখনো সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা : মান্না

‘পুলিশ-র‌্যাবের সামনে ভাঙচুর করল সন্ত্রাসীরা, আর মামলা আমাদের বিরুদ্ধে’

ঢাকামুখী অভিবাসন রোধ করতে হবে : তাপস

সৌদিতে বিধিনিষেধ শিথিল, মাস্ক পরতে হবে না

কারাগারের ক্যান্টিনে যা খাচ্ছেন আরিয়ান

ইয়েমেনে সৌদি জোটের হামলা, নিহত ১৬০

অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলার মন্ত্র জানল বাংলাদেশ

মেয়েকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে মৌসুমী, যেতে পারেনি সানী

প্রথম বল থেকেই ম্যাচ আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে : মাহমুদউল্লাহ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদত্যাগ করে ‘ইমামতি’ করা উচিত : কাদের মির্জা