মঙ্গলবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক কঠোর হচ্ছে প্রশাসন

news-image

দেশে করোনার রোগী শনাক্ত বেড়েছে। চলতি শীতে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের। এই পরিস্থিতিতে সব জায়গায় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। এতে কঠোর হচ্ছে প্রশাসন। সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানেও মাস্ক ব্যবহারে বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়েছে। মাস্ক না পরায় বিভিন্ন জায়গায় প্রশাসন মানুষকে জেল-জরিমানা দেয়া শুরু  করেছে। ইতিমধ্যে খুলনায় অর্ধশত মানুষকে আটক করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। জরিমানা করেছে ৮ জনকে।

সাধারণ মানুষ মাস্ক ব্যবহারে খুবই উদাসীন থাকায় প্রশাসন প্রয়োজনে আইন প্রয়োগ করছে। মন্ত্রিসভা বলেছে, ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’। মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক।এদিকে, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণের আশঙ্কায় প্রশাসনের কেন্দ্রবিন্দু সচিবালয়ে মাস্ক পরায় কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। মাস্ক না পরলে সেবা দেয়া হবে না, মন্ত্রণালয়গুলোতে প্রবেশ করা যাবে না, সচিবালয়ের লিফটেও উঠতে দেয়া হবে না-এমন সিদ্ধান্তের ফেস্টুন, ব্যানার, স্টিকার শোভা পাচ্ছে সচিবালয়জুড়ে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দেশনার পর সচিবালয়ে এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এ পদক্ষেপের পর সচিবালয়ে মাস্ক ব্যবহারের হার অনেক বেড়ে গেছে।
করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় পর্যায় মোকাবিলায় সরকারি-বেসরকারি সব দপ্তরে মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিতে গত ২৫শে অক্টোবর সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। পরে ৩রা নভেম্বর ফের নির্দেশনা জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এই নির্দেশনা দিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সিনিয়র সচিব/সচিব, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের (ইউএনও) কাছে পাঠানো হয়েছে। সর্বশেষ নির্দেশনায় বলা হয়, আসন্ন শীত মৌসুমে দেশে কোভিড-১৯ সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা করা হচ্ছে। কোভিড-১৯ সংক্রমণের সম্ভাব্য এই সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলায় মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দপ্তর/সংস্থা/প্রতিষ্ঠান এবং মাঠ পর্যায়ে সকলের মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করা প্রয়োজন। অথচ সমপ্রতি সকলের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে কিছুটা শিথিলতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এমতাবস্থায় সকল মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দপ্তর/সংস্থা/প্রতিষ্ঠান এবং মাঠ পর্যায়ের সকল দপ্তরে ‘মাস্ক ব্যবহার ব্যতীত প্রবেশ নিষেধ/নো মাস্ক, নো এন্ট্রি’, ‘মাস্ক পরিধান করুন, সেবা নিন/ওয়্যার মাস্ক, গেট সার্ভিস’ ইত্যাদি বার্তা উপযুক্ত মাধ্যমে পোস্টার, ব্যানার, বিলবোর্ড ইত্যাদি) দৃশ্যমান করাসহ সকল সেবা প্রদানকারী ও সেবা গ্রহণকারীর মাস্ক পরিধান ও স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের নির্দেশনা দেয়া হয় চিঠিতে।
এদিকে গত ৮ই নভেম্বর মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডাসহ সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে মাস্ক ব্যবহারে বাধ্যবাধকতা আরোপ করেছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।
এতে বলা হয়, মসজিদে সকল মুসল্লির মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করতে হবে। আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরিধান করে প্রবেশের জন্য প্রতি ওয়াক্ত নামাজের পূর্বে মসজিদের মাইকে প্রচারণা চালানোর পাশাপাশি এ বিষয়ে মসজিদের ফটকে ব্যানার প্রদর্শন মসজিদ কমিটিকে নিশ্চিত করতে হবে; হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টানসহ অন্যান্য ধর্মের অনুসারীরা আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরে উপাসনালয়ে প্রবেশ করবেন। মাস্ক পরে উপাসনালয়ে প্রবেশের জন্য প্রধান ফটকে ব্যানার প্রদর্শনের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট উপাসনালয় কমিটিকে নিশ্চিত করতে হবে; ‘ নো মাস্ক নো সার্ভিস’ বিষয়ে সর্বসাধারণকে বিশেষভাবে সচেতন করার জন্য ব্যাপক প্রচারণা চালাতে হবে। স্লোগানটি সব উন্মুক্ত স্থানে এবং সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহে পোস্টার বা ডিজিটাল প্রদর্শনীর ব্যবস্থা রাখতে হবে; কিছুক্ষণ পরপর সাবান-পানি দিয়ে হাত ধোয়াসহ স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। দেশের সকল মসজিদ ও অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে মাইকের মাধ্যমে নিয়মিতভাবে উপরে বর্ণিত ঘোষণাসমূহ আবশ্যিকভাবে প্রচার অব্যাহত রাখার জন্য স্থানীয় প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট, বৌদ্ধ ধর্মীয় ট্রাস্ট ও খ্রিষ্টান ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সংশ্লিষ্ট মসজিদ ও উপাসনালয়ের পরিচালনা কমিটিকে অনুরোধ জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।
গত ২৫শে অক্টোবর মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছেন, মাস্ক না পরলে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো সেবা মিলবে না।  নো মাস্ক নো সার্ভিস (মাস্ক না পরলে সেবা পাবেন না)। এরপর হলো সব জায়গায়, সব প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজার বা শপিংমল বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং সামাজিক ও ধর্মীয় সম্মেলনে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। আমরা এটা কম্পোলসারি (বাধ্যতামূলক) করে দিয়েছি। তিনি বলেন, আমরা বিভাগীয় কমিশনারদের ইতিমধ্যে নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছি। সব সরকারি-বেসরকারি অফিসের বাইরে বড় একটা পোস্টারের মতো থাকবে- মাস্ক ছাড়া কেউ প্রবেশ করতে পারবে না, মাস্ক ছাড়া ব্যবহারও করতে পারবে না। এর আগে গত ১৯শে অক্টোবর অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাব্য দ্বিতীয় পর্যায় (সেকেন্ড ওয়েভ) মোকাবিলায় বাইরে বের হওয়া মানুষের মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করার নির্দেশ দেয়া হয়। প্রয়োজনে আইন প্রয়োগের কথাও বলা হয় তখন।
এর আগে গত ২১শে জুলাই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এ সংক্রান্ত একটি পরিপত্র জারি করা হয়। এতে বলা হয়, করোনাকালে সব জায়গায় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির উদ্ভূত পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য সরকারের এই নির্দেশনা। পরিপত্রে ১২টি স্থান নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। (১) সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিসে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সংশ্লিষ্ট অফিসে আসা সেবাগ্রহীতারা বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক ব্যবহার করবেন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। (২) সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালসহ সব স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে আসা সেবা গ্রহীতারা আবশ্যিকভাবে মাস্ক ব্যবহার করবেন। সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। (৩) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মন্দির ও গির্জাসহ সব ধর্মীয় উপাসনালয়ে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।
স্থানীয় প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট পরিচালনা কমিটি বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। (৪) শপিংমল, বিপণিবিতান ও দোকানের ক্রেতা-বিক্রেতারা আবশ্যিকভাবে মাস্ক ব্যবহার করবেন। স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ও মার্কেট ব্যবস্থাপনা কমিটি বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। (৫) হাটবাজারে ক্রেতা-বিক্রেতারা মাস্ক ব্যবহার করবেন। মাস্ক পরিধান ব্যতীত ক্রেতা-বিক্রেতারা কোনো পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করবেন না। স্থানীয় প্রশাসন ও হাটবাজার কমিটি বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। (৬) গণপরিবহনের (সড়ক, নৌ, রেল ও আকাশপথ) চালক, চালকের সহকারী ও যাত্রীদের মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। গণপরিবহনে আরোহণের পূর্বে যাত্রীদের মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও মালিকরা বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। (৭) গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিসহ সব শিল্প-কারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও মালিকরা বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। (৮) হকার, রিকশা ও ভ্যানচালকসহ সব পথচারীর মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।
বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিশ্চিত করবেন। (৯) হোটেল ও রেস্টুরেন্টে কর্মরত ব্যক্তি এবং জনসমাবেশ চলাকালীন আবশ্যিকভাবে মাস্ক পরিধান করবেন। বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট মালিক সমিতিকে নিশ্চিত করতে হবে। (১০) সব ধরনের সামাজিক অনুষ্ঠানে আসা ব্যক্তিদের মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করতে হবে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান প্রধান নিশ্চিত করবেন। (১১) বাড়িতে করোনা উপসর্গসহ কোনো রোগী থাকলে পরিবারের সুস্থ সদস্যরা মাস্ক ব্যবহার করবেন। (১২) এ পরিপত্র বাংলাদেশে বসবাসরত সবার জন্য প্রযোজ্য বলে পরিপত্রে উল্লেখ করা হয়।

এ জাতীয় আরও খবর

১১ ডিসেম্বর পর্দায় আসছেন সিয়াম-পরীমনি

প্যারোলে মুক্তির ৪ ঘণ্টা পর ইরফান সেলিম ফের কারাগারে

কমে এসেছে খেলাপি ঋণ

পদ্মায় জেলেদের জালে ধরা পড়ল ২৪ কেজির বাঘা আইড়

৩ কোটি ডোজ করোনার টিকা বিনা মূল্যে দেবে সরকার

ভাস্কর্য স্থাপন নিয়ে উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়া হলে সরকার ব্যবস্থা নেবে : তথ্যমন্ত্রী

মুজিববর্ষে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২ গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি

ময়নাতদন্তের সময় জেগে উঠলেন এই ব্যক্তি

একটি উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ভাস্কর্যের বিরোধিতায় নেমেছে : ওবায়দুল কাদের

৯৯৯- এ ফোন করে মিথ্যা, বানোয়াট, গুজব ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দিলে শাস্তি

মাকে হত্যা: সৎ ছেলের দোষ স্বীকার

কালিয়াকৈর বাজারে আগুন, পুড়ল অর্ধশতাধিক দোকান