মঙ্গলবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জীবিকা সংকটে এখনো নগর ছাড়ছে মানুষ

news-image

নিউজ ডেস্ক : করোনাকালের জীবিকা সংকটে এখনো নগর ছাড়ছে মানুষ। দীর্ঘদিনের সংসার একটি ট্রাকে গুটিয়ে গ্রামে ফিরে যাচ্ছেন তারা ছবি-আবু তাহের খোকন

রাজধানীর মগবাজারের লিটল ফ্লাওয়ার নামের কিন্ডারগার্টেন স্কুলে চাকরি করতেন ফারদিন আলী। করোনার প্রভাবে মার্চে বন্ধ হয়ে যায় স্কুল। মে মাস পর্যন্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ বেতন দিলেও জুন থেকে বেতন বন্ধ। বাসা ভাড়া, নিত্যপ্রয়োজনীয় খরচ মেটাতে হিমশিম অবস্থা তার। অবশেষে ১৫ বছরের সংসার গুটিয়ে আগস্টে জামালপুরে নিজের গ্রামের বাড়িতে ফিরে গেছেন স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে।

ফারদিন আলী বলেন, আয় নেই কিন্তু মাস ঘুরতেই বাড়ি ভাড়া সঙ্গে আনুষঙ্গিক খরচের বোঝা। বাড়িতে থাকলে বাড়ি ভাড়ার খড়গ অন্তত থাকে না। বাড়ির উঠানে কিছু সবজি লাগানো হয়েছে। আমার স্ত্রী দরজির কাজ করছেন আমি আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে আয়ের চেষ্টা করছি। আপাতত ঢাকা ফেরার কোনো পরিকল্পনা নেই।

করোনাভাইরাস মহামারীর প্রকোপে কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হচ্ছেন নিম্নবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো। বন্ধ হয়ে গেছে অনেক প্রতিষ্ঠান, অনেকে কর্র্মী ছাঁটাই করে কোনোরকমে টিকে থাকছেন। চাকরি হারিয়ে বেকায়দায় পড়েছেন রাজধানীর অনেক বাসিন্দা। অনেকেই রাজধানীর পাট চুকিয়ে চলে যাচ্ছেন গ্রামে।

ভাড়াটিয়া পরিষদের হিসাব অনুযায়ী, এ পর্যন্ত ঢাকার ৫০ হাজার ভাড়াটিয়া বাসা ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন। তার চেয়ে আরও অনেক বেশি মানুষ আগের বাসা ছেড়ে দিয়ে কম ভাড়ার বাসায় উঠেছেন বা ওঠার চেষ্টা করছেন। যারা ১৫ থেকে ১৮ হাজার টাকায় ভাড়া থাকতেন তারা এখন আট-নয় হাজার টাকার ভাড়া বাসা খুঁজছেন। যাদের মাসে আয় ছিল ২৫-৩০ হাজার টাকা তারা আর এই শহরে টিকতে পারছেন না। ভাড়াটিয়া পরিষদের সভাপতি বাহরাইন সুলতান বাহার বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে অর্থনৈতিকভাবে টিকে থাকা দুষ্কর হয়ে পড়ায় ইতিমধ্যেই ৫০ হাজার ভাড়াটিয়া রাজধানী ছেড়ে চলে গেছেন এবং আরও অনেকেই যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন। বাসা ছেড়ে চলে যাওয়ার সময় অনেক ভাড়াটিয়াই বাসা ভাড়া পরিশোধের জন্য সস্তায় নিজেদের আসবাবপত্রও বিক্রি করছেন। বাড়িওয়ালারা তাদের তিন মাসের ভাড়া পরিশোধের জন্য চাপ দিচ্ছেন।’

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, ১৯৯১ সালে ঢাকা শহরের জনসংখ্যা ছিল ৬৮ লাখ। এরপর থেকে এই নগরের ওপর জনসংখ্যার চাপ বাড়তে বাড়তে বর্তমানে তা মেগাসিটিতে পরিণত হয়েছে। জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড আরবানাইজেশন প্রসপেক্টাস ২০১৮ অনুযায়ী ঢাকা শহরের জন্য সংখ্যা ১ কোটি ৭০ লাখ ছাড়িয়েছে। গত এপ্রিলে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, করোনা মহামারীর কারণে বিশ্বজুড়ে এ বছর ১৯ কোটি লোক চাকরি হারাতে পারেন। একই মাসে ঢাকা ভিত্তিক পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের চালানো এক জরিপে বলা হয়, এপ্রিলের শেষ পর্যন্ত মহামারীর কারণে দেশে দেড় কোটি লোক চাকরি হারিয়েছেন। ব্র্যাক, ডেটাসেন্স এবং উন্নয়ন সমন্বয়ের যৌথভাবে চালানো এক জরিপে বলা হয়, মহামারীর কারণে দেশে ১০ কোটি ২২ লাখ মানুষ আর্থিক এবং অর্থনৈতিক ঝুঁকিতে পড়েছে। যাদের ওপর এই জরিপ চালানো হয়, তাদের ৩৪ শতাংশ পরিবার জানিয়েছে, মহামারীর কারণে বিগত সময়ে তাদের প্রত্যেকের পরিবারের অন্তত একজন মানুষ চাকরি হারিয়েছে। জরিপ বলছে, ইতিমধ্যে ৭৪ শতাংশ পরিবারের আয় কমে গেছে এবং চাকরি হারিয়ে বিদেশ থেকে ১৪ লাখ প্রবাসী দেশে ফেরত এসেছে। জরিপের তথ্য অনুযায়ী, মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে এপ্রিল পর্যন্ত করোনার কারণে দেশের বিভিন্ন কারখানায় কাজ করা ২২ লাখ মানুষ তাদের চাকরি হারিয়েছে। করোনার কারণে অন্যসব ব্যবসার মতো রেস্টুরেন্টের ব্যবসায়ও ধস নেমেছে। বাংলাদেশ রেস্টুরেন্ট ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে, মার্চ মাস থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ঢাকা শহরের রেস্টুরেন্টগুলোতে কাজ করা প্রায় ৯ লাখ কর্মী বিনা বেতনে ছুটিতে ছিলেন। অনেক রেস্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে গেছে, চাকরি হারা হয়েছেন কর্মীরা।

নতুনবাজার এলাকায় ভাত-ভর্তা হোটেলে কাজ করতেন আলতাফ হোসেন। করোনার কারণে এপ্রিলে বন্ধ হয়ে যায় হোটেলটি। চাকরি হারা হন হোটেলের বাবুর্চিসহ নয়জন। আলাউদ্দিন বলেন, চাকরি চলে যাওয়ার পরে বেতন বন্ধ হয়ে যায়। স্ত্রী, ছেলেকে বাড়ি পাঠিয়ে দিয়ে মেসে একরুমে দুজনের সঙ্গে ভাগ করে বসবাস শুরু করি। কিন্তু লকডাউনে কাজের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় জমানো টাকা খরচ হতে থাকে। তাই অগত্যা কিশোরগঞ্জে গ্রামের বাড়িতে ফিরে এসেছি। আপাতত মাছ ধরার কাজ করছি। এখানে একটা ছোট খাবার হোটেল দেওয়ার চিন্তা করছি। বিডি-প্রতিদিন