মঙ্গলবার, ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মহানবী (সা.) নারীকে যে গুরুত্ব ও মর্যাদা দিয়েছেন

news-image

ইসলাম ডেস্ক: মানুষকে শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি হিসেবে আল্লাহতায়ালা পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। তার কার্যাবলি সম্পাদনের দায়িত্ব দিয়েছেন। প্রতিনিধিত্বমূলক দায়িত্ব পালনে নারী ও পুরুষ প্রত্যেকেই সমান। তাই ইসলাম পুরুষের অধিকারের বিষয়টি আলোচনার পাশাপাশি নারীর অধিকারের বিষয়টিও আরও বেশি সুস্পষ্ট করেছে কোরআনের বিভিন্ন আয়াত ও প্রিয়নবী (সা.)-এর বাণীর মাধ্যমে।

আধুনিক বিশ্বে নারী অধিকারের বিষয়টি বহুল আলোচিত। পাশ্চাত্য সভ্যতায় নারী অধিকারের ধারণাটি গত শতাব্দীর সৃষ্টি। কিন্তু ইসলাম নারী অধিকারের ধারণা সর্বপ্রথম উপস্থাপন করেছে আজ থেকে প্রায় ১৫০০ বছর আগে। ইসলাম নারী অধিকারের সুস্পষ্ট ঘোষণায় নারীর যথাযথ মর্যাদার স্বীকৃতি দিয়েছে এবং মানবতার নবী মোহাম্মদ (সা.) সর্বপ্রথম নারী জাতির পূর্ণ মানবিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করে নারীর শিক্ষা বিস্তারে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে ইতিহাসের কালজয়ী অধ্যায়ের সূচনা করেছেন।

মহানবী (সা.) মাত্র ২৩ বছরে সমগ্র মানবজাতির জন্য এক অপূর্ব জাগরণ এনে দিয়েছেন। যারা এক দিন তার প্রাণের শত্রু ছিল। তারাই তার শিক্ষা গ্রহণ করে ধন্য হয়েছে। পৌত্তলিকতার আঁতুড়ঘরে তিনি তাওহিদের পতাকা উড্ডীন করেছেন। আর এর সবই রাসুল (সা.)-এর মহান শিক্ষার ফলস্বরূপ।

মহানবী (সা.) নারীকে যে গুরুত্ব ও মর্যাদা দিয়েছেন, তা মানব-অধ্যায়ে চিরন্তন ও অত্যুজ্জ্বল ভাস্বর হয়ে থাকবে। রাসুল (সা.) যখন দেখলেন, জাহেলি সমাজ নারীর প্রতি চরম অবজ্ঞা, জুলুম ও অন্যায়-উৎপীড়ন করছে এবং তার প্রতি ঘৃণা ও অপমানের বাণ নিক্ষেপ করছে। এমনকি জাহেলি সমাজ নারীদের মধ্যে অমঙ্গলের লক্ষণ প্রত্যক্ষ করত। ওমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) বলেন, ‘আল্লাহর কসম! আমরা জাহেলিয়াতের মধ্যে ডুবে ছিলাম। কোনো ব্যাপারেই নারীদের গুরুত্ব দিতাম না। অবশেষে আল্লাহ তাদের সম্পর্কে যা নাজিল করার, তা নাজিল করলেন আর তাদের জন্য যা বণ্টন করার, তা বণ্টন করলেন।’

এই অত্যাচারী সমাজ নারীদের লাঞ্ছিত করে অন্ধকারের অতলগহ্বরে নিক্ষেপ করেছিল। সেখানে আল্লাহ তার রাসুল (সা.)-কে পাঠালেন, যিনি মেয়েদের প্রতি গুরুত্বারোপ করলেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের মর্যাদা সমুন্নত করলেন। মানুষকে তাদের প্রতি গুরুত্ব দেওয়ার নির্দেশ দিলেন। কন্যাসন্তানের উত্তম তারবিয়াতের প্রতি উৎসাহ প্রদান করলেন। আর মুসলিম সমাজকে সেই বিরাট প্রতিদানের প্রতি আগ্রহী করে তুললেন, যা আল্লাহ তাদের জন্য নির্ধারণ করে রেখেছেন। রাসুল (সা.) ঘোষণা করলেন, ‘যে ব্যক্তি দুটি কন্যাসন্তানের বয়োপ্রাপ্ত হওয়া পর্যন্ত প্রতিপালন করবে (তিনি তার হাতের আঙুলগুলো একত্র করে বললেন), কিয়ামতের দিন আমি এবং সে এরূপ কাছাকাছি থাকব।’ (মুসলিম, সূত্র মিশকাত, পৃষ্ঠা : ৪২১)

মহানবী (সা.) পিতার অন্তরে কন্যাসন্তানের প্রতি গভীর মমত্ববোধ জাগ্রত করার উদ্দেশ্যে বহু উপদেশ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘যে তিনটি কন্যাসন্তান অথবা তিন বোন প্রতিপালন করল, তাদের শিষ্টাচারিতা শিক্ষা দিল এবং তাদের প্রতি দয়া করল, অবশেষে আল্লাহতায়ালা তাদের মুখাপেক্ষীহীন করে দিলেন। তাহলে তার জন্য আল্লাহ জান্নাত অবধারিত করে দেবেন। তখন জনৈক সাহাবি জিজ্ঞাসা করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! দুটি কন্যা প্রতিপালন করলেও? তিনি উত্তরে বললেন, দুটি করলেও।’ (শারহুস সুন্নাহ, সূত্র : মিশকাত, পৃষ্ঠা : ৪২৩)

নারীর মর্যাদার উন্নতিকল্পে রাসুল (সা.) দৈনন্দিন কাজের মাধ্যমে এমন সব পন্থা ও পদ্ধতি অবলম্বন করতেন, যাতে তা মানুষের অন্তরে প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়। ওইসব কাজের মাধ্যমে তিনি মানুষকে উৎসাহিত করেছেন যেন তারা পুত্র-কন্যাদের তারবিয়াত দেন, তাদের চরিত্র গঠন করেন এবং আদব-লেহাজ, মহৎ কাজ, আহার-বিহার, পোশাক-পরিধান তথা সবকিছু শিক্ষাদানের ব্যাপারে সমতা রক্ষা করে। এমনকি যে পিতা কন্যাদের সুন্দররূপে তারবিয়াত দেয় এবং পুত্রদের তাদের ওপর প্রাধান্য না দেয়, রাসুলে কারিম (সা.) তার জন্য জান্নাতের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

রাসুল (সা.) নারী শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রে সর্বোৎকৃষ্ট দৃষ্টান্তের অবতারণার পাশাপাশি তাদের ব্যাপারে যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। ক্রীতদাসীকে শিক্ষাদানের ব্যাপারেও তিনি মুসলিম সমাজকে উৎসাহিত করেন। অথচ তাদের ব্যাপারে কেউ কোনো দিন চিন্তাও করত না। তিনি বলেন, ‘কোনো ব্যক্তির যদি ক্রীতদাসী থাকে আর সে তাকে উত্তমরূপে বিদ্যা ও শিষ্টাচার শিখিয়ে স্বাধীন করে দেয়। অতঃপর তাকে স্ত্রীরূপে গ্রহণ করে, তাহলে তার জন্য দুটি পুরস্কার রয়েছে।’ (বুখারি শরিফ)

নারী শিক্ষা সম্পর্কে মানব শিক্ষার অগ্রপথিক মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘জ্ঞান অর্জন করা প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর ওপর ফরজ। (বায়হাকি, ইবনে মাজাহ, সূত্র মিশকাত, পৃষ্ঠা : ৩৪)

শিক্ষার ক্ষেত্রে যে কোনোরূপ শ্রেণিভেদ বিবেচ্য নয়, তা এখানে স্পষ্ট। এমনকি নারীরা শুধু শিক্ষিত নয়, শিক্ষকও হতে পারেন। এ প্রসঙ্গে মানবতার মহান শিক্ষক মোহাম্মদ (সা.) বলেন, ‘তোমরা তোমাদের দ্বীনের অর্ধেক এই হুমায়রা (আয়েশা রা.) থেকে গ্রহণ করো।’ (নাসায়ি শরিফ)

মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে ঘোষণা দেন, ‘যারা জানে আর যারা জানে না তারা কি সমান হতে পারে।’ (সুরা জুমার, আয়াত : ৯)

সর্বোপরি শিক্ষার অধিকার নারী-পুরুষ সবার জন্য সমান। এরই ধারাবাহিকতায় আধুনিক বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশই তাদের নাগরিকদের শিক্ষা গ্রহণের অধিকারকে সাংবিধানিক স্বীকৃতির মাধ্যমে নিশ্চয়তা বিধান করেছে।

একবার মহিলারা রাসুল (সা.)-এর কাছে আবেদন করলেন, যেন তিনি তাদের জন্য একটা দিন ধার্য করেন, যেদিন তিনি তাদের দ্বীনের তত্ত্ব ও ইসলামের বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষা দেন। রাসুল (সা.) তা মঞ্জুর করেছিলেন এবং তাদের জন্য একটি দিন ধার্য করে তাদের উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছিলেন, তাদের নসিহত করেছিলেন এবং ইসলামের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে কিছু তালিমও দিয়েছিলেন। বুখারি ও মুসলিম শরিফে এ ঘটনা বর্ণিত হয়েছে।

এভাবে মহানবী (সা.) মুসলিম নারীদের অন্তরে জ্ঞানার্জনের স্পৃহা তৈরি করেছিলেন। এ শিক্ষা ফলপ্রসূ হয়েছিল এবং উত্তম ফল বহন করে এনেছিল। যেমন হাদিস বর্ণনার ক্ষেত্রে ইসলামের প্রথম যুগের মহিলারা ব্যাপকভাবে সাড়া দিয়েছিলেন।

ইবনে সাদ তার ‘তাবাকাতে’ ৭০০ নারীর নাম উল্লেখ করেছেন, যারা রাসুল (সা.) থেকে বা তার সাহাবিদের থেকে হাদিস বর্ণনা করেছেন। আর ইবনে হাজার আসকালানি (রহ.) তার ‘আল-ইসাবাহ ফি তামায়িজিল হাদিস’ নামের গ্রন্থে ১ হাজার ৫৪৩ জন মহিলা হাদিসবিশারদের নাম উল্লেখ করেছেন এবং তাদের পাণ্ডিত্য ও বিশ্বস্ততার ব্যাপারে সাক্ষ্য দিয়েছেন। ইসলামের ইতিহাসে উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.) চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তিনি লোকদের কাছে হাদিস বর্ণনা করতেন, সাহাবাদের বর্ণনা সংশোধন করতেন এবং তাদের ফতোয়া দিতেন। এমনিভাবে বহু মুসলিম মহিলা জ্ঞান-বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে বিরাট মর্যাদা অর্জন করেছিলেন।

অন্যদিকে রাসুল (সা.) পুরুষ কিংবা নারী, স্বাধীন অথবা ক্রীতদাসী-যেই হোক না কেন, তার শিক্ষাদানের দায়িত্ব ইসলামি রাষ্ট্রের ওপর অর্পণ করেছেন। তার যা জানা উচিত সে সম্পর্কে যদি সে অজ্ঞ থাকে আর স্বামী বা মনিব তাকে শিক্ষা না দেয়, তাহলে তা শিক্ষার জন্য সে ঘর থেকে বের হতে পারে। এ অধিকার রাসুল (সা.) তাকে দিয়েছেন। এটা এজন্য যে তিনি নারীর ওপর কিছু দায়িত্ব ও কর্তব্য অর্পণ করেছেন। আর একই সময়ে তাকে জ্ঞান অর্জনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, যেন সে তার দায়িত্ব আশাতীত সুন্দর ও সুচারুরূপে সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়। যেহেতু মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন নিজেকে ও নিজের পরিবারকে জাহান্নামের অগ্নি থেকে বাঁচানোর জন্য মুমিন পুরুষ ও নারী উভয়কে নির্দেশ দিয়েছেন। আর নিজেকে বা অন্যকে কীভাবে বাঁচাতে হবে, সে সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান লাভ না করে পুরুষ কিংবা নারী কেউ নিজেকে বাঁচাতে সচেষ্ট হতে পারে না।

মহানবী (সা.) নারীর জ্ঞান অর্জনের পথকে সহজ ও কণ্টকমুক্ত করে দিয়েছেন। আর ইসলামি রাষ্ট্রের ওপর এমন সব বালক-বালিকার পাঠ্যব্যয় বহন করা ওয়াজিব করে দিয়েছেন, যাদের পিতা-মাতার জীবন-জীবিকার পথ সংকীর্ণ হয়ে পড়ে। তিনি নারীকে যখনই শিক্ষার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, তখনই তাকে আদেশ করেছেন মার্জিত, পরিশীলিত ও রুচিসম্মত পোশাক পরিধানের জন্য।