সোমবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়েছে বললেন সিইসি, বক্তব্য এডিটেড দাবি নিক্সনের

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফরিদপুরের জেলা প্রশাসককে হুমকি এবং চরভদ্রাসন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) ফোনে গালিগালাজের অডিও নিয়ে পাল্টাপাল্টি দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) নূরুল হুদা ও ফরিদপুর-৪ আসনের স্বতন্ত্র মুজিবর রহমান চৌধুরী নিক্সন।

মঙ্গলবার সাংবাদিকদের প্রশ্নে জবাবে সিইসি বলেন, নিক্সন নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন। তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অন্যদিকে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া অডিও বানোয়াট দাবি করে সংবাদ সম্মেলনে নিক্সন বলেন, বক্তব্যকে ‘সুপার এডিট’ করা হয়েছে। এমন গালিগালাজ তিনি করেননি।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) অতুল সরকারকে ‘দাঁতভাঙা জবাব’ দেওয়ার হুমকি এবং চরভদ্রাসনের ইউএনওর ফোনে কল করে ভাঙা উপজেলার এসিল্যান্ডকে গালিগালাজ করার নিক্সনের কথিত দুটি ভিডিও এবং অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়ে।

চরভদ্রাসন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত শনিবার এই দুটি ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে সিইসি নূরুল হুদা বলেন, ‘আমরা জানি, অভিযোগ আছে। অভিযোগটা আমরা সঙ্গে সঙ্গে জেনেছি। কমিশনারদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। করণীয় বিষয় নির্ধারণ করেছি। আজ বা কালকের মধ্যেই করণীয়, যেটা সিদ্ধান্ত নিয়ে, সেটা যাবে।’

তিনি বলেন, ‘অবশ্যই যে আচরণ সংসদ সদস্য করেছেন, নির্বাচন পরিচালনা করার সময় সেটা কাম্য নয়। আচরণবিধি ভঙ্গ করেছেন। আইনে যে রকম বিধিবিধান আছে, তার ব্যাপারে আইনের বিধিবিধান প্রযোজ্য হবে। এতটুকু বলতে পারি।’

নিক্সনের বিরুদ্ধে মামলা হবে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, মামলার বিধান থাকলে করা হবে। এখনো এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়নি।

এদিকে চরভদ্রাসন উপজেলার উপনির্বাচনে ‘ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের পক্ষপাতমূলক আচরণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে’ জাতীয় প্রেসক্লাবে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করেন নিক্সন।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের দিন কেন্দ্রের মাঠে দাঁড়িয়ে সিগারেট খাওয়ায় আমাদের এক কর্মীকে গাড়িতে তোলেন ম্যাজিস্ট্রেট। আমি ইউএনওকে ফোন দিয়ে বিষয়টি জানাই। এর বাইরে যে বক্তব্য ছড়ানো হয়েছে, সেগুলো এডিট করা। এগুলোর কোনো ভিত্তি নেই।’

ষড়যন্ত্রকারীরা এসব ছড়াচ্ছে দাবি করে নিক্সন বলেন, গত শনিবারের উপনির্বাচনের জন্য ২৭ সেপ্টেম্বর চারজন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয় জেলা প্রশাসন। নির্বাচনের আগের দিন কেন ১২ জন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হলো? ইসির কি এ বিষয়ক চিঠি আছে?

স্থানীয় এই এমপির অভিযোগ, নির্বাচনের দিন বিজিবি সঙ্গে নিয়ে ম্যাজিস্ট্রেটদের মারমুখী আচরণ করতে দেখা গেছে। যেখানে নৌকার ভোট বেশি, সেখানেই ম্যাজিস্ট্রেটরা বেশি তাণ্ডব করেছেন।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের পরদিন সকাল ১০টার দিকে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে ইউএনও আমার ভাঙ্গার বাড়িতে যান। নির্বাচনের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ইউএনও কোনোভাবেই আমার বাড়িতে আসতে পারেন না। জেলা প্রশাসকও নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন।’