সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রণব মুখার্জির মৃত্যুতে ব্যথিত টালিউড

news-image

বিনোদন ডেস্ক : চলে গেলেন ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। অসুস্থ ছিলেন তিনি, তার আরোগ্য কামনায় আয়োজন করা হয়েছিল বিশেষ পূজা যজ্ঞের। কিন্তু ফিরলেন না প্রণব।

১৯৬৯ সাল। কংগ্রেসের হয়ে রাজ্যসভায় যাচ্ছেন তিনি। সাদা ধবধবে ধুতি-পাঞ্জাবি পরে সাড়ে পাঁচ ফুট উচ্চতার একটা লোক হনহন করে ঢুকছেন ভারতীয় গণতন্ত্রের পীঠস্থান সংসদ ভবনে। সামনে দাঁড়ানো একজনের সামনে নমস্কার করে বলছেন, ‘আমি প্রণব, প্রণব মুখোপাধ্যায়’। সামনে দাঁড়ানো অনেকেই ভাবছেন, ভারতবর্ষের আর পাঁচটা রাজনীতিক নির্বাচিত হয়ে যেভাবে এই ভবনটায় আসেন, ইনিও তেমনই একজন। আসলে একেবারে সাধারণ মানুষের জীবন কাটানো একটা ছা-পোষা লোককে নিয়ে এর বেশি আর কীই বা ভাবা যেত? কিন্তু সেই লোকটাই পরে পাঁচ দশকের বেশি সময় কাটালেন সংসদীয় রাজনীতিতে। শুধু কাটালেন বললে এক শতাংশও বলা হয় না, দায়িত্বে-প্রজ্ঞায়-অভিজ্ঞতায় তিনি ছাপিয়ে গেলেন এক মহাসমুদ্র।

এখন পর্যন্ত একমাত্র বাঙালি রাষ্ট্রপতিও তিনিই। অনেকেই বলেন, শুধুমাত্র কংগ্রেসের অন্দরের হিসেব-নিকেশে প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারটায় বসা হল না তার। প্রণব মুখোপাধ্যায় অসুস্থ হওয়ার পরই টুইট করে দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছিলেন টলিউডের একাধিক তারকা। আজ তার প্রয়াণের খবরে শোক প্রকাশ করলেন তারা। রাষ্ট্রপতি ভবনে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তর পাশে বসে মুক্তোধারা দেখেছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। সেই স্মৃতিচারণ করলেন তিনি। প্রণব বাবুর কথা লিখলেন পরিচালক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ও।

চতুষ্কোণের পর জাতীয় পুরস্কার নিয়ে রাষ্ট্রপতি ভবনে গিয়েছিলেন সৃজিত মুখোপাধ্যায়। দেখানো হয়েছিল জাতিস্মর। সেই কথা লিখলেন সৃজিতও। সাংসদ অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী লিখলেন, ‘আমাদের জন্য খুব খারাপ দিন। তার কাজ, দেশের প্রতি তার অবদানের জন্যই দেশবাসী তাকে মনে রাখবে আজীবন। আপনি শান্তিতে ঘুমোন…পরিবারের প্রতি সমবেদনা রইল।’

নুসরাত জাহান লিখলেন, ‘প্রণব মুখোপাধ্যায় আর নেই। ভারতীয় রাজনীতিতে বড় ক্ষতি।’ দেব লিখলেন, ‘অভিজিৎদার জন্য সমবেদনা রইল। সারা দেশর জন্য বড় ক্ষতি।’

‘আপনি আমাদের আপনার কাজের মাধ্যমে গর্বিত করেছেন। শান্তিতে ঘুমোন’- লিখলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। একই কথা লিখলেন অঙ্কুশও। সৃজিত লিখলেন, ‘জাতিস্মরের স্ক্রিনিং হয়েছিল রাষ্ট্রপতি ভবনে। তখনই তার সঙ্গে আমার প্রথম দেখা হয়। অনবদ্য এক মানুষের সাক্ষাৎ পেয়েছি আমি। যিনি সত্যিকারের সিনেমাপ্রেমী, বিখ্যাত রাজনীতিবিদ, ভারতরত্ন পাওয়ার পরেও কি অমায়িক এক মানুষ। গভীর শোকাহত।’ ঋতুপর্ণা লিখলেন, ‘প্রণব মুখোপাধ্যায় ও শুভ্রা মুখোপাধ্যায় দুজনেই আমার খুব কাছের মানুষ ছিলেন। আমার সিনেমা দেখতেন। দিল্লি গিয়ে বেশ কয়েকবার ওনাদের সঙ্গে দেখাও করেছি। যখন প্রণববাবু আমায় বললেন মুক্তধারা দেখতে চান, তখন যেন স্বপ্ন সত্যি বলে মনে হল। রাষ্ট্রপতি ভবনে আমরা একসঙ্গে বসে সিনেমা দেখলাম। আমার অভিনীত চরিত্রের খুব প্রশংসা করলেন। আমি সত্যিই গর্বিত। আজ আমরা এক দক্ষ রাজনীতিবিদকে হারালাম। একটা যুগের অবসান হল।’

এ জাতীয় আরও খবর

২৬ ম্যাচ পর অস্ট্রেলিয়াকে হারের স্বাদ দিল ভারতের মেয়েরা

আর্সেনালের কাছে হারল টটেনহাম

‘মেসির জার্সি’তে ফাতির ফেরায় জিতল বার্সা

অনন্যা হাঁটবেন কোন পথে?

কিছু অসৎ প্রতিষ্ঠানের কারণে ই-কমার্স বন্ধের সুযোগ নেই : বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রীতি ম্যাচে হংকংয়ের বিপক্ষে সাবিনা-তহুরার গোল উৎসব

কলকাতাকে হারাল চেন্নাই

শেখ হাসিনার সরকার দেশের উন্নয়নে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে : পরিকল্পনামন্ত্রী

দ্বিতীয় বিয়েতে আগ্রহ, ফুটন্ত তেলে স্বামীর নিম্নাঙ্গ ঝলসালেন স্ত্রী!

কোয়েল মল্লিক ও শ্রাবন্তীর সঙ্গে ডেটে যেতে চান হিরো আলম (ভিডিও)

সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে অনুমতির বিধান কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট

৬৫ ঘণ্টার সফরে মোদীর ২০ বৈঠক