শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

উপসচিব পরিচয়ে প্রতারণা মাগুরায়

 

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরায় সার্কিট হাউসে অবস্থানের সুযোগ নিয়ে সোমবার রাতে প্রতারণার মাধ্যমে একটি জুয়েলারি দোকান থেকে ৫ ভরি স্বর্ণের গহনা নিয়ে পালালো খোরশেদ আলম পরিচয়দানকারী এক ভুয়া উপসচিব।সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ভিডিও ফুটেজ দেখে ওই প্রতারকের ব্যবহৃত গাড়ির নম্বর শনাক্ত করতে পারলেও প্রতারকের পরিচয় নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

MAP1456203558

মাগুরা পুলিশ সুপার একেএম এহসান উল্লাহ জানান, নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসির) রবিউল ইসলামের কাছে নিজেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব পরিচয় দিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় মাগুরা সার্কিট হাউসে ওঠেন কথিত খোরশেদ আলম নামে ওই ব্যক্তি। এ সময় তার ব্যবহৃত গাড়ির ড্রাইভারসহ তিনি ঘণ্টা খানেক সার্কিট হাউসে অবস্থান করেন। পরে এক আত্মীয়ের বিয়ের জন্য স্বর্ণের গহনা কেনার কথা বলে তিনি দামি গাড়িতে চড়ে শহরের সৈয়দ আতর আলী সড়কে মাওলানা মার্কেটে ওহিদুর রহমানের বিউটি জুয়েলারির দোকানে যান। সেখানে গিয়ে খাটি স্বর্ণের গহনা কেনার কথা বলে নিজ মোবাইল থেকে এনডিসি রবিউল ইসলামকে দিয়ে দোকানীকে ফোন করান। এনডিসি রবিউল সরল বিশ্বাসে দোকানী ওহিদুর রহমানকে ভাল ডিজাইনের খাটি গহনা দিতে বলেন।

 

এ সময় বিভিন্ন ধরনের ৫ ভরি স্বর্ণের গহনা নিয়ে দোকানিকে কথিত খোরশেদ আলম বলেন, ব্যাংক বন্ধ থাকায় তার কাছে সব টাকা নেই। ম্যাডামের (স্ত্রী) কাছে টাকা আছে। সার্কিট হাউসে যেতে হবে বলে গহনা নিয়ে দোকানি ও তার এক সহকর্মীকে নিজের গাড়িতে ওঠান। সার্কিট হাউসে গিয়ে গাড়ি থেকে নেমে একটি রুমে বসিয়ে পিয়ন ডেকে তাদের কফি দিতে বলেন। এরপর খোরশেদ আলম তাদের বলেন, ম্যাডাম পাশের রুমে রয়েছেন। কফি খান, এর মধ্যে গহনাগুলো দেখিয়ে টাকা নিয়ে আসছি বলে রুমের ভিতরে যান।

 
এরপর দীর্ঘ সময় অপেক্ষার কেউ ফিরে না আসায় দোকানী ওহিদুর রহমান পিওনকে ডেকে জিজ্ঞাসা করেন, স্যার ম্যাডামের কাছ থেকে টাকা এনে দেওয়ার কথা বলে বসিয়ে রেখে গেলেন কিন্তু এখনো আসছেন না কেন ?পিওন জানান, এখানে কোনো ম্যাডাম নেই। আপনাদের নিয়ে যে স্যার এসেছিলেন কিছুক্ষণ আগে তিনি পেছন দিক দিয়ে গাড়িতে করে চলে গেছেন। যাওয়ার সময় বলে গেছেন, একটু পরে আসছি।

 

পুলিশ সুপার আরো জানান, রাতে এনডিসি ও স্বর্ণের দোকানি বিষয়টি তাকে জানানোর পর শহরের লাগানো সিসি ক্যামারার ফুটেজ দেখে ইতিমধ্যে প্রতারকের ব্যবহৃত গাড়িটি শনাক্ত হয়েছে। তবে গাড়ির নম্বর সঠিক না হওয়ায় তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
দিকে স্বর্ণের দোকানি ওহিদুর রহমান জানান, এনডিসি স্যার মোবাইলে ভাল স্বর্ণের গহনা দেওয়া কথা বলায় প্রতারিত হওয়ার কথা ভাবতে পারিনি।

 

এনডিসি রবিউল ইসলাম বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব পরিচয়দানকারী ওই ব্যক্তি ফোন করলে দোকান মালিককে ভাল স্বর্ণ দিতে বলেছি। তবে তাকে বাকি দিতে বা অন্য কোথাও গিয়ে টাকা নিতে বলিনি।