শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাড়ে ১৭ লাখ টাকা জরিমানা আদায় রাজউকের উচ্ছেদ অভিযানে

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজউকরাজধানীর গুলশান, উত্তরা ও গ্রিনরোড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন ভবনের কারপার্কি স্থানে নির্মিত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং ভবনের নকশা বহির্ভূত ব্যবহার করায় ১৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-রাজউকের তিনটি ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার দিনভর এসব অভিযান পরিচালনা করা হয়।
গুলশান এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. হামিদ মিয়া ও অথরাইজড অফিসার মো. আদিলুজ্জামান। তারা বেশ কয়েকটি ভবনের সামনে নির্মিত র‌্যাম্প ভেঙে দেন এবং ভবনের পার্কিং স্থানে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের দায়ে কয়েকজন ভবন মালিককে ছয় লাখ টাকা জরিমানা করেন।

RAJUK-medium20150214190615
উত্তরা আবাসিক এলাকার ৪ নম্বর সেক্টরের ৪ নম্বর সড়কের ৪ নম্বর প্লটে ক্যালিফোর্নিয়া ফ্রায়েড চিকেন ভবনের নিচতলায় থাকা রেস্টুরেন্ট এবং একই সড়কের ২ নম্বর প্লটের পেছনে গাড়ি পার্কিংয়ে নির্মিত আগোরার গোডাউন ভেঙে ফেলা হয়। ৬ নম্বর সড়কের ৯ নম্বর বাড়ির পার্কিং স্থানে দোকান থাকায় মালিককে এক লাখ টাকা জরিমানা এবং দুই দিনের মধ্যে দোকানটি সরিয়ে নিতে সংশ্লিষ্টদের সময় বেঁধে দেওয়া হয়।
৭ নম্বর সড়কের ৭ নম্বর প্লটের ভবনের বেজমেন্টকে গোডাউন হিসেবে ব্যবহারের দায়ে ডাচবাংলা ব্যাংককে এক লাখ টাকা জরিমানা এবং গোডাউন সরিয়ে নিতে দুই দিনের সময় দেওয়া হয়। একই সড়কের ৫৯/এ প্লটের ভবনে পার্কিং স্থানে গোডাউন ও জেনারেটর রাখার দায়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও এগুলো সরিয়ে নিতে দুই দিনের সময় দেওয়া হয়। ৬১/এ প্লটের পার্কিং স্থানে স্থাপিত এটিএম বুথ সরিয়ে নিতে এক্সিম ব্যাংককে দুই দিন সময় দেওয়া হয়।

 

 

এ সড়কের পার্কিং স্থানে রেস্টুরেন্ট পরিচালনার দায়ে ‘সি শেল’ নামের রেস্টুরেন্টকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা এবং অবৈধ স্থাপনাটি সরিয়ে নিতে দুই দিনের সময় দেওয়া হয়।উত্তরায় অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খোন্দকার জাকির হোসেন ও অথরাইজড অফিসার মিজানুর রহমান।

 

গ্রিন রোডে অবস্থিত হোটেল ফার্মগেট অ্যান্ড রেস্টুরেন্টকে পার্কিং স্থানে হোটেল ও পানি শোধনাগার স্থাপনের দায়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করেছে রাজউকের ভ্রাম্যমাণ আদালত। ছন্দ-আনন্দ সিনেমা হলের বিপরীতে পার্কিং স্পেস না থাকায় ক্যাপিটেল মার্কেটকে ২ লাখ টাকা এবং পার্কিং স্পেস না রাখায় বড়বাজার মার্কেট নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ট্রপিক্যাল হোমস লিমিটেডকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। পাশাপাশি বড়বাজারের নকশা বহির্ভূত সিড়ি বুলডোজার দিয়ে ভেঙে দেওয়া হয়।

 

 

গ্রিন রোডের ৮৫ নম্বর হোল্ডিংয়ের পার্কিং স্থানে দোকান থাকায় ভবন মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং দোকান সরিয়ে নিতে সময় বেঁধে দেওয়া হয়। বাঞ্ছারামপুর ভবন নামের একটি মার্কেটে পার্কিং না থাকায় ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।গ্রিন রোডে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নাসির উদ্দিন ও অথরাইজড অফিসার আ.জ.ম. শফিউল হান্নান। এ সময় রাজউকের জোন-৫ এর পরিচালক শাহ্ আলম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।