রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিরক্তিকর হয়ে উঠেছে স্মার্টফোন যে সকল কারণে !

 
প্রযুক্তি ডেস্ক : হাতে হাতে স্মার্টফোন চলে আসায় এখন অনেকেই এ যন্ত্রটিতে মাত্রাতিরিক্ত সময় ব্যয় করছেন। এ কারণে মানসিক উদ্বেগ বৃদ্ধিসহ নানা সমস্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন বহু মানুষ। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম রেডিটেও ব্যবহারকারীদের স্মার্টফোন বিষয়ে নেতিবাচক মন্তব্য পাওয়া গেছে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হাফিংটন পোস্ট।

 

Smart-Phone

মোবাইল ফোন এখন অনেকেরই দৈনন্দিন জীবনধারার অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। জরিপে দেখা গেছে, গড়ে একজন মানুষ এখন প্রতি সাড়ে ছয় মিনিট পর পর একবার করে স্মার্টফোন দেখে নেয়। কিন্তু এটি মানসিকভাবে সন্তুষ্ট করে না। সম্প্রতি রেডিট ব্যবহাকারীরা এ বিষয়ে তাদের মতামত প্রকাশ করেছে।

 

 

অনলাইনে এ মতামতগুলো এসেছে ২৪ ঘণ্টায় প্রায় দুই হাজার ব্যবহারকারীর মন্তব্যে। এ মন্তব্যকারীদের অনেকেই স্মার্টফোনকে খুবই বিরক্তিকর এবং স্বাভাবিক জীবনযাপনের প্রতিবন্ধক বলে জানিয়েছেন। ফানসাইজডস্যাটান নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, স্মার্টফোনের এ নেশা এখন অনেকের কাছে সব সময়ের বিষয়ে পরিণত হয়েছে। আমি এ জন্য সবকিছু বাদ দিতে পারি না। আমি একটি কাজের মাঝে থাকার সময় টেক্সট মেসেজ বা ইমেইলের জবাব দিতে পারি না। আপনি হয়ত দেখছেন আমি সেটা গ্রহণ করেছি।

 

 

কিন্তু তার মানে এটা নয় যে, তখনি তার জবাব দিতে হবে। বারকিপ নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, বিরক্তিকর মানুষরা জনগণের স্থানে গান বাজায়। বিষয় হলো, আমি তা শুনতে চাই না। এটা খুবই বিরক্তিকর। এটিএলবিএমডাব্লিউ নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, ভুলে গেলে চলবে না যে, মানুষ কল করে কিংবা স্পিকার ফোন ব্যবহার করে জনসমক্ষে। দ্যহোয়াইটহাউজ নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, সব সময় অনলাইনে থাকার বিষয়ে অন্যদের আশাবাদ আমাকে খুবই উদ্বিগ্ন করে তোলে। কিছু মানুষের জন্য এটি খুবই বিরক্তিকর।

 

 

অন্য একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, আমার মতে এর সবচেয়ে বিরক্তিকর বিষয় হলো এটি মানুষের মুখোমুখি যোগাযোগের ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করে। ইটিংব্রেড নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন এটি তুচ্ছ কারণে মানুষকে বিশ্বাসভঙ্গ করতে উৎসাহিত করে। সাইনিক২৩৪৩ নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, এটি আপনার কোনো বিষয়ে মনোযোগী হতে বাধা দেয়। আমি যখন ছোট ছিলাম তখন ঘণ্টার পর ঘণ্টা টানা পড়তে পারতাম। কিন্তু এখন তা ১০-১৫ মিনিট হওয়াই বড় বিষয়।

 

 

সাইরোনিয়েপস১০২ নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, মানুষ খাওয়ার সময়েও স্মার্টফোন ব্যবহার করে। এটি আমার দৃষ্টিতে খুবই বিরক্তিকর। লকি৮৪৮১ নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, মানুষ হাঁটার সময়েও মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। এতে তারা আশপাশের বিষয়ে খেয়াল রাখতে পারে না। আমার একই অভিজ্ঞতা হয়েছে।

 

 

এক দুর্ঘটনার পর আমি এ কাজটি করা বাদ দিয়েছি। ফানিটিকলার নামে একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, মানুষ কোনো একটি মুহূর্তকে আর উপভোগ করতে পারছে না। সবকিছুই ছবি ও রেকর্ডকৃত বিষয়ের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কারণে মুহূর্তগুলো হারিয়ে যাচ্ছে।