শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দুই দুর্বৃত্ত হত্যা করে পুরোহিতকে,গুলিবিদ্ধ গোপালের দাবি

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঠাণ্ডা মাথায় গলাকেটে পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে সন্ত গৌড়ীয় মঠ মন্দিরের পুরোহিত যোগেশ্বর চন্দ্র রায়কে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। তাকে রক্ষা করতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গোপাল চন্দ্র রায় এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, দুই ব্যক্তিকে মন্দিরে ঢুকতে দেখেন তিনি। তারা পুরোহিতকে হত্যার চেষ্টাকালে তিনি এগিয়ে এলে তাকে লক্ষ্য করে দুই রাউন্ড গুলি ছোড়ে দুর্বৃত্তরা। এ সময় রবিবার একুশে ফেব্রুয়ারির ভাব-গাম্ভীর্য নষ্ট করে সাতসকালে তাকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।d7627a1582420d5454a2a1080c3ef3c2-

 

রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গোপালসরেজমিনে হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, গুলিবিদ্ধ গোপাল চন্দ্রের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। গুলিতে তার হাতের রক্তনালী ছিঁড়ে যাওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে জরুরি ভিত্তিতে ঢাকায় স্থানান্তরের সুপারিশ করেছেন।

 

হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে কাতড়াতে কাতড়াতে দুর্বৃত্তদের মন্দিরে হামলার বর্ণনা দেন গুলিবিদ্ধ গোপাল। তিনি জানান, রবিবার সকালে বাসা থেকে সাইকেলে করে তিনি মন্দিরে আসেন।পুরোহিত যোগেশ্বর চন্দ্র রায় তখনও বিছানায় ঘুমিয়ে ছিলেন। কিছুক্ষণ পর পুরোহিত মন্দিরের কাছে টিউবওয়েলে হাত-মুখ ধুচ্ছিলেন। আর তিনি রান্নাঘরে ঢুকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ করছিলেন। এ সময় দুই যুবক মন্দিরে প্রবেশ করেন। গোপাল বলেন, আমি ভেবেছি শহীদ দিবস উপলক্ষে কোনও লোকজন হয়তো মন্দিরে বেড়াতে এসেছেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই মন্দিরের ভেতরে চিৎকার শুনে আমি দ্রুত সেখানে যাওয়ার সময় দুই যুবক আমাকে লক্ষ্য করে পরপর দুটি গুলি করেন। এ সময় আমার হাতে গুলি লাগলে কোনও রকমে মন্দিরের দেয়াল টপকে পালিয়ে যাই। এরপর আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। পরে জানতে পারি পুরোহিতকে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে।

 

 

গোপাল আরও বলেন, মূলত সন্ত্রাসীরা পুরোহিতকেই হত্যার পরিকল্পনা নিয়ে আসে। তারা ইচ্ছে করলে আমাকেও হত্যা করতে পারতো। তা না করে শুধু আমাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়েছে।

তিনি বলেন,তারা পুরোহিতকেও গুলি করে হত্যা করতে পারতো, তা না করে ঠাণ্ডা মাথায় গলাকেটে তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। এটা পূর্ব পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে জানান গোপাল। পুরোহিতকে হত্যার পর দুর্বৃত্তরা গুলিবর্ষণ ছাড়াও বেশ কয়েকটি বোমা বিস্ফোরণ করে।

 

 

এদিকে,গোপালকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করতে বলেছেন চিকিৎসকরা। কিন্তু গোপালের স্ত্রী কুন্তি রানী জানান, তার স্বামী পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি। ঢাকায় নিয়ে চিকিৎসা করানোর মতো আর্থিক সঙ্গতি তাদের নেই।স্বামীর কিছু হয়ে গেলে পথে বসা ছাড়া কোনও উপায় থাকবে না উল্লেখ করে কুন্তি রানী বলেন, গোপালের চিকিৎসার জন্য সরকারের সহযোগিতা কামনা করছি।

 

 

এদিকে, হাসপাতালের অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা.হযরত আলী জানান, গোপাল চন্দ্রের চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. জাকির হোসেনের নেতৃত্বে চার সদস্যের বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বোর্ডের চিকিৎসকরা গোপালের উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে জরুরি ভিত্তিতে ঢাকায় নিতে বলেছেন।