শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিম্ন আদালতের বিচারকদের বেতন বাড়ছে

cabinet+jugantor_4920নিজস্ব প্রতিবেদক : অষ্টম বেতন কাঠামোর সঙ্গে সমন্বয় করে নিম্ন আদালতের বিচারকদের বেতন-ভাতা ও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়।

বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, ‘পে-কমিশনের সুপারিশ একটু পুনর্বিন্যাস করে বিচারকদের বেতন-ভাতা নির্ধারণ করা হয়েছে।’

তিনি জানান, ২০১৫ সালের ১ জুলাই থেকে নতুন বেতন কার্যকর হবে। আর ২০১৫ সালের ৩০ জুন বিচারকরা যে ভাতা পেতেন, এখন সেই পরিমাণ ভাতা পাবেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, সিনিয়র জেলা জজের মূল বেতন ৪০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৭৮ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ফলে সিনিয়র জজরা সচিবের সমান বেতন পাবেন।

এছাড়া জেলা জজ ও সমপর্যায়ের কর্মকর্তাদের বেতন ৩৬ হাজার ৯০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৭০ হাজার ৯২৫, অতিরিক্ত জেলা জজদের বেতন ৩২ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৬২ হাজার ৩৫০, যুগ্ম জেলা জজদের বেতন ২৮ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫৪ হাজার ৩৭০ টাকা করা হয়েছে।

আর সিনিয়র সহকারী জজদের বেতন ২৩ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪৪ হাজার ৪৫০ ও সহকারী জজদের বেতন ১৬ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০ হাজার ৯৩৫ টাকা করা হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

সর্বশেষ ২০০৯ সালে নিম্ন আদালতের বিচারকদের বেতান-ভাতা বাড়ানো হয়েছিল।

এ ছাড়া বৈঠকে ‘বৃক্ষ সংরক্ষণ আইন ২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত ও ‘চা আইন ২০১৬’ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এর ফলে পরিবেশের স্বার্থে পুরনো ও ঐতিহ্যবাহী গাছ সংরক্ষণ করা হবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী সামরিক শাসনামলে জারি করা আইন নতুন করে বাংলায় প্রণয়নের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।১৯৭৭ সালের চা আইনকে ইংরেজি থেকে বাংলায় ভাষায় রূপান্তর করে পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘নতুন আইনে কিছু সংজ্ঞা যোগ করা ছাড়াও কিছু সংজ্ঞা স্পষ্ট করা হয়েছে।’