শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিদায় ম্যাককালাম!

c11e6d7bb150657dac76a4b84b375fdc-mccullumস্পোর্টস ডেস্ক : নাহ, শেষের ঝড়টা শুরু হতে না হতেই শেষ হয়ে গেল। পুরো ক্যারিয়ারে যে মূলমন্ত্র নিয়ে খেলে গেছেন, শেষ ইনিংসেও সেই আক্রমণই ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ব্যাটে থাকল। ২৭ বলের ২৫ রানের ইনিংসটা হয়তো এমন কিছুই নয়। তবে এটি তো আদতে ম্যাককালামের ক্যারিয়ারের ছোট্ট প্রতীক। ক্রাইস্টচার্চের ধূসর বিকেলটা তাই আজ আরও বিষণ্ন হয়ে গেল—ম্যাককালামকে আর কখনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যাটিং করতে দেখা যাবে না! শেষ ইনিংস দিয়েও ম্যাককালাম যেন প্রশ্নটা রেখে যেতে চাইলেন, ‘আমি আপনাদের ঠিকমতো বিনোদন দিতে পেরেছি তো!’

জশ হ্যাজলউডের বলটা উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে লেগ সাইডে উড়িয়ে মারতে গিয়েছিলেন ম্যাককালাম। কিন্তু মিডউইকেটে ডেভিড ওয়ার্নারের দুর্দান্ত ক্যাচে শেষ হয়ে গেল বলে চার-ছয় থেকেই ১৮ তোলা ইনিংসটি। ওয়ার্নারের হাতে ক্যাচটাও যেন প্রতীকী হয়ে থাকল​—ব্যাটিংয়ে দর্শকদের নিখাদ বিনোদন দেওয়ার মশালটা ওয়ার্নারকেই যেন দিয়ে গেলেন ম্যাককালাম।

ওয়ার্নারই সবার আগে ছুটে গেলেন। সঙ্গে এগিয়ে এলেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথও। কিউই অধিনায়কের সঙ্গে হাত মেলাতে। কুর্নিশ জানাতে দাঁড়িয়ে পড়েছে পুরো গ্যালারি।

নিজের শেষটাও ম্যাককালাম এমনই রাঙিয়ে দিয়ে গেছেন, নতুন একটা রেকর্ডও হলো। এই টেস্টে ১৭০ রান হয়ে গেছে ম্যাককালামের। ক্যারিয়ারের শেষ টেস্টে অধিনায়ক হিসেবে আর কোনো ক্রিকেটারের এত রানের কীর্তি নেই। আগের রেকর্ডটাও ৮৫ বছরের পুরোনো। ১৯৩০ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক কার্ল নুনেস নিজের শেষ টেস্টে দুই ইনিংস মিলে করেছিলেন ১৫৮ রান।

ম্যাককালাম যখন নেমেছিলেন, প্রথম ইনিংসের মতো নিউজিল্যান্ড আবারও বিপদে। ৭২ রানেই তখন হারিয়ে ফেলেছিল ৩ উইকেট। প্রথম ইনিংসের মতোই কিউই অধিনায়ক প্রতি আক্রমণে পাল্টা জবাব দিতে চেয়েছিলেন। জেমস প্যাটিনসনের এক ওভারে দুইটি চার মেরে সেই বার্তাই দিয়েছিলেন। হ্যাজলউডকে স্কয়ার লেগের ওপর দিয়ে ছয়ও মারলেন। কিন্তু পরের বলটা আবার উড়িয়ে মারতে গিয়েই হয়ে যান আউট।

তৃতীয় দিন শেষে নিউজিল্যান্ডও আরও কোণঠাসা। সকালের শুরুটা ভালোই হয়েছিল, নিল ওয়াগনার ৬ উইকেট নিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে বেঁধে ফেলেছিলেন ৫০৭ রানে। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ড ১২১ রান তুলতেই হারিয়ে ফেলেছে ৪ উইকেট। অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসের চেয়ে এখনো ১৪ রান পিছিয়ে, আরেকটি পরাজয় এড়াতে কাল অবিশ্বাস্য কিছুই করতে হবে উইলিয়ামসন-অ্যান্ডারসনদের।
ম্যাচের এখনো দুই দিন বাকি। অস্ট্রেলিয়াকে বড় একটা লক্ষ্য বেঁধে দিতে পারবে কি নিউজিল্যান্ড? পারবে শেষ ম্যাচটায় অধিনায়ককে গর্বের হাসি দিয়ে শেষ করার উপলক্ষ এনে দিতে?