বৃহস্পতিবার, ১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আসছে এরশাদের আত্মজীবনী,বইটির নাম ‘আমার জীবন, আমার কর্ম’

 

Ershad জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জীবনের নানান ঘটনা নিয়ে লেখা আত্মজীবনী গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন মঙ্গলবার। এরশাদ বইটির নাম দিয়েছেন ‘আমার জীবন, আমার কর্ম’।

 

 

রোববার রাত পৌনে ৮টায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের প্রেস সচিব সুনীল শুভ রায় বাংলামেইলকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ স্যারের আত্মজীবনী “আমার জীবন, আমার কর্ম” বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হবে। বইটির মোড়ক উন্মোচন করবেন সমাজবিজ্ঞানী, লেখক, সাবেক মন্ত্রী ড. মীজানূর রহমান শেলী।’

 

 

তিনি বলেন, ‘মোড়ক উন্মোচনের পরই অমর একুশের গ্রন্থমেলায় এই বই পাওয়া যাবে।’
প্রকাশনা সূত্র জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে লেখা এই গ্রন্থে এরশাদের এই আত্মজীবনীতে তার শৈশব, কৈশোর, কর্মজীবন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে কোন প্রেক্ষাপটে এবং কেন পাকিস্তানে অবস্থান করতে হয়েছিল, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে মুক্তি পেয়ে দেশে ফিরে আসার পর কীভাবে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সান্নিধ্যে গিয়েছিলেন, কীভাবে বঙ্গবন্ধু তাকে সেনাবাহিনীতে পদোন্নতি দিয়েছিলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীতে জিয়াউর রহমানের কী ভূমিকা ছিল, বঙ্গবন্ধু হত্যার সময় জিয়াউর রহমানের ভূমিকা কী ছিল, কর্নেল তাহের হত্যা ও জিয়ার সম্পৃক্ততা এবং ৯ বছর রাষ্ট্রক্ষমতা, বিরোধী রাজনৈতিক দলের দাবীর প্রেক্ষিতে ক্ষমতা ছেড়ে দেয়াসহ প্রায় সব খুঁটিনাটি বিষয়ই স্থান পেয়েছে। এই আত্মজীবনীতে জিনাত মোশাররফ ছাড়াও রওশন এরশাদ, বিদিশাসহ বেশ কয়েকজনের বিষয় উঠে এসেছে।

 

এরশাদের আত্মজীবনী গ্রন্থের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন বাংলা একাডেমির সাবেক উপ-পরিচালক মুহম্মদ মফিজুল ইসলাম। তিনি এরশাদের হাতে লেখা কপিকে পাণ্ডুলিপি আকারে প্রস্তুত, তা থেকে প্রেসকপি তৈরি এবং মুদ্রণের নানাবিধ কাজের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

এ প্রসঙ্গে মুহম্মদ মফিজুল ইসলাম বাংলামেইলকে জানান, প্রায় এক হাজার পাতার এই বইয়ের মধ্যে ৮৮০ পাতায় লেখা এবং ১০৪ পাতা ছবিতে পরিপূর্ণ। এর প্রচ্ছদে রয়েছে তার ছবি এবং শেষে কিছু লেখা। বইটির মূল্যও ধরা হয়েছে এক হাজার টাকা। বইটি প্রকাশিত হচ্ছে আকাশ প্রকাশনী থেকে। সংস্থাটির কর্ণধার আলমগীর সিকদার ছোটন।