শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘উচ্চবিত্তরা বাংলা ভাষার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করছে’

salimullah-khanবিনোদন ডেস্ক :‘বাংলা ভাষার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হচ্ছে। আর এই কাজটা করছে দেশের উচ্চবিত্ত শ্রেণির মানুষ।’ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও ভাষা শহীদ দিবসের এক আলোচনা এক অনুষ্ঠানে একথা বলেন, ইউনিভারসিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ এর অধ্যাপক ছলিমুল্লাহ খান।

ছলিমুল্লাহ খান বলেন, ছেলে মেয়েদের ছোট বেলা থেকে ইংরেজি শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে যেটা শহর থেকে গ্রামেও। তাতে মাতৃভাষার মর্যাদা থাকলো কোথায়? আমি পরিস্কারভাবে বলতে চাই, বাংলাদেশের উচ্চবিত্ত পরিবার বাংলা ভাষার সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করছে। আমাদের উচ্চশিক্ষার ভাষা কি এখনো বাংলা হয়েছে? তাহলে বাংলা ভাষার মর্যাদা কোথায় থাকলো।

বাংলা ভাষার মর্যাদার বিষয় উল্লেখ করে অধ্যাপক ছলিমুল্লাহ খান বলেন, এখন মূল সমস্যাটা হলো, এখনও বাংলা রাষ্ট্রভাষা হয়নি। হয়েছে শুধু সংবিধানে। ব্যাপারটা অনেকটা এমন, ‘কাজির গরু খড়ে আছে গোঁয়ালে নেই।’ আমরা তখন মনে করেছিলাম উর্দু না, বাংলাই হবে রাষ্ট্রভাষা। কিন্তু ইংরেজি নিয়ে কেউ মাথা তোলেনি।

ছলিমুল্লাহ খান বলেন, এখন আমরা কথাটাকে তরল করে ফেলেছি। পৃথিবীর সব মাতৃভাষার অধিকার রক্ষা করতে হবে। সব মাতৃভাষার অধিকার রক্ষা করা এক বিষয় আর সংখ্যা গরিষ্ঠ জনগণের ভাষাকে সেই দেশের রাষ্ট্র ভাষা করা আরেক বিষয়। ফরাসি উপনিবেশের আমলে আফ্রিকার ২৪টি দেশে ফরাসিকে রাষ্ট্রভাষা করা হয়েছিল। সাথে সাথে ইংরেজিও ছিল ২০টি দেশে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের একটা কথার মুখোমুখি হতে হবে। এখন বাংলাদেশকে যারা শাসন করছে সামাজিক শ্রেণি হিসেবে। তাতে মধ্যবিত্ত শ্রেণি বলেন আর যাই বলেন, ১৯৫২’র সময় কিন্তু তারা ছিলেন না। ১৯৫২ সালে বাংলাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা কারার কথায় যে আন্দোলন করেছি তা গণতান্ত্রিক অন্দোলনের মূল কথা।