শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভুল বানানের চর্চা জেনে না জেনে চলছে

news-image

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : শিশু একাডেমির ‘একাডেমী’ বানানটি ভুলবাংলা একাডেমির নামফলকে একাডেমি বানানটা ঠিকভাবে লেখা রয়েছে, কিন্তু তার একশ’ গজ দূরে অবস্থিত বাংলাদেশ ‘শিশু একাডেমি’র বানানটি এখনও লেখা রয়েছে ‘একাডেমী’। দেশের বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নাম ফলকের দিকে তাকালে দেখা যাবে লেখা রয়েছে, ‘সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়’। কিন্তু ওই বিদ্যালয়ের শ্রেণি কক্ষে সরকারি বানানটি সঠিকভাবে শেখানো হচ্ছে। আবার শ্রেণি শব্দটির বানান বিদ্যালয়ে পাঠদানে সঠিকভাবে শেখানো হলেও ওই শ্রেণির ব্ল্যাক বোর্ডে সাদা রং দিয়ে ‘শ্রেণী’ শব্দটি লেখা রয়েছে।

 

5ea8255ed571b3a3e8d8b67a22a9c749-
কেবল এই দুটোই নয়, দেশের সরকারি-বেসরকারি দফতরেও জেনে না জেনে চলছে এ ভুল বানানের চর্চা। তবে, সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, বাংলা বানানরীতি বেশ কয়েকবার পরিমার্জনের কারণে একটা বিভ্রান্ত তৈরি হয়েছে। তারা পুরনো ‘অভ্যাস’ ছাড়তে পারছেন না।
সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নতুন বানানরীতি অনুসরণ করে পাঠ দান করতে গিয়ে শিক্ষকদের বেশ খানিকটা বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। বিশেষ করে তৎসম ছাড়া অন্যসব ধরনের শব্দে ‘হ্রস্ব ই-কার’ দিয়ে লেখার নিয়ম চালু হওয়ায় এ সমস্যা তৈরি হয়েছে। আস্তে-আস্তে এই সমস্যা তারা কাটিয়ে উঠছেন বলেও জানান।

 
জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বানানের নিয়ম বাংলাদেশ অনুসরণ করে আসছিল। কিন্তু এতে বেশ কিছু ক্ষেত্রে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। এরইমধ্যে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড পাঠ্যবইয়ে অভিন্ন ও শুদ্ধ বাংলা বানান যুক্ত করার জন্য ১৯৮৮ সালে কমিটির মাধ্যমে বাংলা বানানের নিয়মের একটি খসড়া তৈরি করে। পরে প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম প্রণয়নকারী একমাত্র রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান বাংলা একাডেমি ‘বাংলা একাডেমী প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম’ নামে একটি পুস্তিকা প্রকাশ করে ১৯৯২ সালে। ২০০০ সালে এই নিয়মের কিছু সূত্র সংশোধন করা হয় এবং তা ‘বাংলা একাডেমী ব্যবহারিক বাংলা অভিধান’-এর পরিমার্জিত সংস্করণের পরিশিষ্ট হিসেবে মুদ্রিত হয়। সর্বশেষ আরও কিছু পরিমার্জন করে ২০১২ সালে ‘বাংলা একাডেমি প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম’ পরিমার্জিত সংস্করণ প্রকাশ করে। এরপর ২০১৫ সালের জানুয়ারি ‘পরিমার্জিত সংস্করণের প্রথম পুনর্মুদ্রণ’ প্রকাশ করে। বর্তমানে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড এটা অনুসরণ করে পাঠ্যবই প্রণয়ন করছে। এছাড়া, এর আলোকেই সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ও ‘সরকারি কাজে বাংলা’ পুস্তক আকারে প্রকাশ করে সরকারি পর্যায়ে তা অনুসরণ করার জন্য নির্দেশনা জারি করে।

 

বাংলা বানান নীতি অনুসারে স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার শব্দটি সঠিক হলেও সংসদে এটাকে কখনও সঠিকভাবে হ্রস্ব ই-কার (ি) দিয়ে লেখা হচ্ছে, কখনও দীর্ঘ ঈ-কার (‘ী’) দিয়ে ‘স্পীকার’ ও ডেপুটি ‘স্পীকার’ লেখা হচ্ছে। জাতীয় সংসদের ওয়েব সাইটে গিয়ে স্পিকার বানানটি দুই ধরনের পাওয়া গেছে।

 

 

এ বিষয়ে সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা জানিয়েছেন, নতুন বানানরীতি হিসেবে বিদেশি শব্দ হিসেবে এটা ‘হ্রস্ব ই-কার’ (ি)আবার সংবিধানে ‘দীর্ঘ ঈ-কার’ (ী) দিয়ে লেখা থাকার কারণে তারা বিভ্রান্তিতে পড়ে যান। যে কারণে এমনটি হচ্ছে। তবে, ২০১৪ সালে যখন সংবিধান সংশোধন করা হয়েছিল, তখন বিষয়টি আমলে নেওয়া উচিত ছিল।

প্রমিত বানানরীতি অনুসারে ‘শহিদ’ লেখার কথা থাকলেও সর্বত্র ‘শহীদ’ লেখার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। ‍রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে জ্ঞাতসারেই এই শব্দ ভুল বানানে করে লেখা হচ্ছে বলে অনেকে মনে করেন। বিদেশি শব্দ ‘ফেব্রুয়ারি’ বানানটি শুদ্ধ হলেও অনেক ক্ষেত্রে অশুদ্ধ আকারে এটা ‘ফেব্রুয়ারী’ লেখা হচ্ছে। শুক্রবার ‘কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার’ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা ঘুরে ‘শহিদ দিবস’ উপলক্ষে টাঙ্গানো বেশ কয়েকটি বিল বোর্ডে এ চিত্র দেখা গেছে।

 

 

সরকারি পর্যায়ে অনেক ক্ষেত্রে অশুদ্ধ বানানের প্রচলন দেখতেপাওয়া যাচ্ছে। জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তরে সংসদ সদস্যদের পক্ষ থেকে যেসব প্রশ্ন ও মন্ত্রীদের পক্ষ থেকে তার যে উত্তর দেওয়া হয় সেখানে প্রচুর অশুদ্ধ বানান চোখে পড়ে। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তরেও এ ধরনের অশুদ্ধ বানান দেখা গেছে। ওই দিনের প্রধানমন্ত্রীর তারকা চিহ্নিত প্রশ্নোত্তর পর্যালোচনা করে কোম্পানি, আমদানি, রপ্তানি, তৈরি, সহযোগিতা, দেশি, বিদেশি, মঞ্জুরিসহ অন্তত দুই ডজন শব্দের দুই ধরনের বানান পাওয়া গেছে। এ ক্ষেত্রে কোথাও ‘হ্রস্ব ই-কার’ (ি) আবার কোথাও ‘দীর্ঘ ঈ-কার’ (ী) দিয়ে দেখা হয়েছে।

এছাড়া, সহযোগিতা, পল্লি, কর্মসূচি, সূচি, কোতয়ালি, পদবি, মামি, নানি, গাড়ি, ইসলামি, শহিদ মিনার, শুমারি, হাজি, জঙ্গি, জঙ্গিবাদ, দামি শব্দ ভুল বানানে লিখতে দেখা যায়।

 

এদিকে, সরকারের বেশ কিছু দফতর ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নাম অশুদ্ধ বানানে দেখা যায়। এর মধ্যে রয়েছে সোনালী ব্যাংক লিমিডেট, রূপালী ব্যাংক লিমিডেট, পল্লী উন্নয়ন একাডেমী, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, ঢাকা পাওয়ার ডিস্টিবিউশন কোম্পানী, বাংলাদেশ সমবায় একাডেমী, বাংলাদেশ ‍শিশু একাডেমী ইত্যাদি। অবশ্য বাংলা একাডেমির ধারাবাহিকতায় শিল্পকলা একাডেমি এবং পরিকল্পনা ও উন্নয়ন একাডেমিসহ কিছু প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যে তাদের প্রতিষ্ঠানের নামের বানান সংশোধন করেছে।

 

বানানরীতি পরিবর্তনের ফলে রাষ্ট্রীয় বা ব্যক্তিগত পর্যায়ে বেশ কিছু স্থানের নামের বানানেও ইদানিং পরিবর্তন দেখা করা যাচ্ছে। নোয়াখালী জেলার বানান ‘ী’ দিয়ে লেখা হয়ে এলেও পঞ্চম শ্রেণির বাংলা বইয়ে ‘নোয়াখালি’ লেখা হয়েছে। আবার তৃতীয় শ্রেণির বাংলা বইয়ে ‘মীরপুর’ লেখা হলেও পঞ্চম শ্রেণিতে লেখা হয়েছে ‘মিরপুর’।

অশুদ্ধ বানানের ব্যবহার প্রশ্নে জানতে চাইলে শরীয়তপুর জেলার একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সিরজুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমরা ছাত্রজীবনে যেভাবে শিখেছি, শিক্ষক হওয়ার পর সেটাই অনুসরণ করে আসছিলাম। কিন্তু গত দুই/তিন বছর হলো পাঠ্যবইয়ে বেশ কিছু বানানে পরিবর্তন এসেছে। এতে করে ছেলে-মেয়েদের পড়াতে গিয়ে আমাদের প্রথমদিকে বেশ বিভ্রান্তি পড়তে হয়েছে। তবে, তারা আস্তে-আস্তে এটা আয়ত্ত্বে নিয়ে আসছেন।

 

 

এই শিক্ষকের বিদ্যালয়টির নামফলকে সরকারি বানানটি অশুদ্ধভাবে রয়েছে স্বীকার করে বলেন, বিদ্যালয় ভবনটি বেশ কয়েক বছর আগে নির্মিত হওয়ায় এখানে সরকারি শব্দটি ‘ী’ কার দিয়ে লেখা রয়েছে। তবে আমরা শিগগিরই এটা ঠিক করে ফেলব।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রমিত বাংলা বানানের নিয়ম বইয়ের রচয়িতা কমিটির সদস্য ও বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, অনেক ক্ষেত্রে এ ধরনের বিষয়গুলো আমাদেরও নজরে এসেছে। বাংলা একাডেমি বানানোর বিষয়টি অনুসরণের জন্য সবাইকে পরামর্শ দিতে পারে। আমাদের এ রকম ক্ষমতা নেই যে, কাউকে বাধ্য করাব। অনেক ক্ষেত্রে আমরা বলার পরেও অনেকেই শোনেন না। এটা ঠিক, এভাবে ভুল বানানে লেখার কারণে জনমনে বিভ্রান্তি হচ্ছে। বিশেষ করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে।

 

 

তবে আস্তে-আস্তে এটা হচ্ছে এমন দাবি করে তিনি বলেন, শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী যে একুশে পদক দিয়েছেন, সে অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্র তৈরিতে ‌’২১ ফেব্রুয়ারি’ ও ‘ভাষাশহিদ’ বানানের প্রশ্ন উঠলে আমি বলেছি দুটোতেই ‘ি’ কার হবে। সে অনুযায়ী আমন্ত্রণপত্র ছাপা হয়েছে।

শিশু একাডেমির উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে কয়েকটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগ করে শুদ্ধভাবে লেখার অনুরোধ করেছি। কিন্তু তারা জানিয়েছেন এগুলো তাদের আইনেই নেই।