রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কুড়িগ্রামের বেশিরভাগ শিক্ষার্থী একুশের ইতিহাস জানে না

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : বছর ঘুরে একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালির জাতীয় জীবনে বারবার আসলেও অধিকাংশ শিক্ষার্থী একুশের সঠিক ইতিহাস জানে না।তাদের পাঠ্যসূচিতে একুশ সম্পর্কে গল্প থাকলেও সে সম্পর্কে অবগত নয় অনেক শিক্ষার্থী।কুড়িগ্রাম শহরের মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে এমনই তথ্য উঠে এসেছে kurigram-map-s20151206203249।ফলে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস সম্পর্কে আগামী প্রজন্মের ধারণা প্রশ্নের মুখে পড়েছে।আবার বেশিরভাগ বিদ্যালয়গুলোতে ভাষা শহীদদের স্মরণে শহীদ মিনার নির্মিত না হওয়ায় শিক্ষার্থীরা ভাষা আন্দোলন নিয়ে কৌতূহল হারিয়ে ফেলছে।

 

 

কুড়িগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন সিনিয়র শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন,“শহরের ঐতিহ্যবাহী এই বিদ্যালয়ে জাতীয় শহীদ মিনারের আদলে এখনও শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়নি।জেলার সরকার দলীয় এক প্রভাবশালী নেতা স্কুলের একটি অনুষ্ঠানে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য পঞ্চাশ হাজার টাকা দেওয়ার অঙ্গীকার করলেও এখনও অব্দি তিনি তা দেননি।”

 

 

এদিকে, স্কুলের পক্ষ থেকে কর্তৃপক্ষকে শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য বারবার বলা হলেও বিভিন্ন অজুহাতে তারা কালবিলম্ব করছে বলে জানান ওই শিক্ষক।

কুড়িগ্রামকুড়িগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সোহাগ, মমিনুল ও জুনায়েদের সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। তাদের জিজ্ঞাসা করা হয়,একুশে ফেব্রুয়ারি সম্পর্কে কি জানো? জবাবে জুনায়েদ ও সোহাগ অপারগতা প্রকাশ করলেও মমিনুল উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করে। তবে তার উত্তরটি ছিল জাতি হিসেবে আমাদের লজ্জা পাওয়ার মত। মমিনুল জানায়, “১৯৭১ সালে আমাদের দেশের মানুষ ভাষার জন্য ও স্বাধীনতার জন্য এই দিনে যুদ্ধ করে শহীদ হয়েছে, সেজন্য আমরা একুশে ফেব্রুয়ারি পালন করি।” এমন উত্তর শুনে তাকে শাসন করতে ইচ্ছা হলেও নিজেকে সামলে নিয়ে এবার প্রশ্ন করি, তাদের পাঠ্যসূচিতে একুশ বা ভাষা আন্দোলন নিয়ে কোনও গল্প আছে কিনা। উত্তরে সম্মতি জানালেও কি গল্প আছে তা জানাতে পারেনি এই শিক্ষার্থী।
এ ব্যাপারে কথা হয় কুড়িগ্রাম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব খালেক সিদ্দিকীর সঙ্গে। তিনি জানান,“শিক্ষার্থীদের পাঠ্যসূচিতে ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে বলা আছে,তাদেরতো না পারার কথা নয়! আর একুশে ফেব্রুয়ারি দিনব্যাপী বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে আলোচনা সভা হবে তখন জানতে পারবে।”
আপনার বিদ্যালয়ে জাতীয় শহীদ মিনারের আদলে শহীদ মিনার নির্মাণ হয়নি কেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে প্রধান শিক্ষক জানান, এতদিন নির্মিত না হলেও দ্রুত নির্মাণ করা হবে।
এদিকে, কুড়িগ্রাম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, নীলারাম স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বেগম নূর নাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, রিভার ভিউ উচ্চ বিদ্যালয় ও কুড়িগ্রাম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মত শহরের নামকরা বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেও একই চিত্র পাওয়া গেছে। তারা কেউ ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে সঠিক তথ্য দিতে পারেনি।

 
রিভার ভিউ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ফরিদ, রাশেদ, মামুন, নবম শ্রেণির লাভলু ও আশিক ভাষা আন্দোলন কি জানে না। আর নবম শ্রেণীর শাওন কিছুটা জানলেও তারও অজানাটাই বেশি।
আবার কুড়িগ্রাম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির দীপিকা, জান্নাতুল, ফারজানা ও ইয়াছমিন জানেই না ভাষা আন্দোলন কি! তারা এও জানে না যে, তাদের নবম-দশম শ্রেণির বইয়ে “রক্তে ভেজা একুশ” নামে একটি গদ্য রয়েছে।
একই অবস্থা নীলারাম স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও বেগম নূর নাহার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরও।

 
অন্যদিকে, কুড়িগ্রামে ১৯ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়েছে তিনদিন ব্যাপী একুশে বই মেলা। শিশু নিকেতন মাঠে জেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত এই মেলায় আয়োজন করা হয়েছে ভাষা আন্দোলন নিয়ে কুইজ প্রতিযোগিতা। সেই প্রতিযোগিতায় ভাষা আন্দোলন সম্পর্কিত কুইজের প্রস্তুতি নিয়ে আসা বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অবস্থাও শোচনীয়। প্রতিযোগিতায় প্রতিটি দলকে পাঁচটি করে প্রশ্ন করা হলে কোনও দলই সব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেনি। এমনকি দর্শক সারিতে বসে থাকা অনেক শিক্ষার্থীকে প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হলেও একজন ছাড়া সবাই উত্তর দিতে ব্যর্থ হয়।

 

 

ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের এমন দৈন্যতা সম্পর্কে জানতে চাইলে জেলা শহরের বিভিন্ন বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক জানান, আমরা বিদ্যালয়ের পাঠ্যসূচি অনুযায়ী তাদেরকে ভাষা আন্দোলনসহ আমাদের জাতীয় ও ঐতিহাসিক দিনগুলো সম্পর্কে অবহিত করি। কিন্তু শুধু আমাদের একার প্রচেষ্টায় তারা এগুলো আত্মস্থ করতে পারবে না। বিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রম ছাড়াও দেশের মিডিয়াগুলোকে আমাদের আন্দোলন ও ঐতিহ্য সম্পর্কিত বিভিন্ন অনুষ্ঠান প্রচারের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মকে সে সম্পর্কে অবহিতকরণ কার্যক্রম চলমান রাখতে হবে।

 

 

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মামুনুর রশিদ বলেন, “আমরা একুশে ফেব্রুয়ারির প্রভাত ফেরিতে যেতাম স্বতঃস্ফুর্তভাবে। আর এখন শিক্ষার্থীরা প্রভাত ফেরিতে আসবে কিনা, এ নিয়ে আমাদের শঙ্কায় থাকতে হয়।”

ভাষা অন্দোলনসহ আমাদের জাতিসত্তার বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রাম সম্পর্কে বর্তমান প্রজন্মের উদাসীনতা সম্পর্কে জানতে চাইলে এই শিক্ষক বলেন,“এটি বর্তমানে একটি জাতীয় সঙ্কট। শুধু মাধ্যমিক পর্যায়ে নয় সকল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে এই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের অতি প্রযুক্তি নির্ভরতা এবং আকাশ সংস্কৃতিতে বিভিন্ন অপসংস্কৃতির অনুপ্রবেশ এক্ষেত্রে অনেকাংশে দায়ী।

 

এই সঙ্কট কাটিয়ে ওঠার পরামর্শ হিসেবে তিনি বলেন, ভাষা আন্দোলনসহ সকল আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাসকে বিভিন্ন চিত্তাকর্ষক গল্পের মাধ্যমে বর্তমান প্রজন্মকে জানাতে হবে। এক্ষেত্রে এ সকল আন্দোলন সংগ্রামের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও তাদের পরিবার নিয়ে বিভিন্ন ডকুমেন্টারি তৈরি করে তা শিক্ষার্থীদের প্রদর্শন করা যেতে পারে।পাশাপাশি আমাদের প্রচার মাধ্যমগুলোতে নিয়মিত এ সম্পর্কিত অনুষ্ঠান প্রচারের মাধ্যমে একটা পরিবর্তন আনা সম্ভব।