রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছন্দে ফেরার অপেক্ষায় মুস্তাফিজ

Bangladeshস্পোর্টস ডেস্ক : গত বছরের এপ্রিলে পাকিস্তানের বিপক্ষে টি২০ ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল কার্টার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমানের। তারপর থেকে এই বাঁহাতি পেসারের স্বপ্নের মতোই কাটছে দিনগুলো। কিন্তু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চার ম্যাচের টি২০ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেই বাম কাঁধের ইনজুরিতে পড়েছিলেন তিনি। তবে আসন্ন টি২০ ফরম্যাটের এশিয়া কাপে সেরাটা দেয়ার অপেক্ষায় আছেন মুস্তাফিজুর রহমান।

অনুশীলনের মুস্তাফিজ

আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হবে এশিয়া কাপের ১৩তম আসর। আর এই আসরকে সামনে রেখে শনিবার বিকেল থেকে শুরু হয় বাংলাদেশ দলের অনুশীলন। জাতীয় দলের অনুশীলন আগে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন মুস্তাফিজ। বাম কাঁধের ইনজুরি কাটিয়ে পুরোনো ছন্দে বোলিং করতে প্রস্তুত আছেন বলে জানান তিনি।

অভিষেকের পর দুর্দান্তভাবে চলতে থাকা মুস্তফিজের ছন্দপতন হয় গত জানুয়ারিতে খুলনায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে। চার ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় টি২০ ম্যাচে কাঁধের ইনজুরিতে পড়ে শেষ দু’টি ম্যাচ খেলতে পারেননি বাঁহাতি এই কাটার মাস্টার।

বাম কাঁধের ইনজুরি কাটিয়ে এখন মুস্তাফিজ এশিয়া কাপে পুরোদমে বল করতেও প্রস্তত আছেন। যেখানে তার স্বাভাবিক বোলিংয়ের পাশাপাশি দেখা যাবে বিশেষ অস্ত্র ‘অফ কাটার’র ভেলকিও। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এখন বেশ ভাল আছি। নিয়মিত অনুশীলন করছি। আশা করছি এশিয়া কাপে আমার ওই স্পেশাল বল করতে পারবো।’

ঘরের মাঠে টানা তৃতীয়বারের মতো বসতে যাচ্ছে এশিয়া কাপের আসর। এশিয়া কাপে বড় টুর্নামেন্টে অনেক চ্যালেঞ্জ থাকে। তবে এই চ্যালেঞ্জটা আবারো জিততে চান মুস্তাফিজ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘জিম্বাবুয়ে সিরিজের পর খুলনা ও চট্টগ্রামে অনুশীলন ছিল। সবকিছু ঠিক আছে। আশা করি সামনে আরো ভালো কিছু হবে।’

গত বছরের এপ্রিলে নিজের দাপুটে অভিষেকের পরই ওয়ানডেতে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কারও জেতেন মুস্তফিজ। ওয়ানডেতে অভূতপূর্ব সাফল্য ধরা দিলেও টি২০তে এখনো মাশরাফি বাহিনীর পারফরম্যান্স ততটা উজ্জ্বল নয়।

তাছাড়া টি২০ এর একাধিক খেলায় এখনও বাংলাদেশের সেভাবে ততোধিক খেলোয়াড় হতে পারেননি ম্যান অব দ্য ম্যাচ। তাই এবার এশিয়া কাপে সেই আক্ষেপ ঘোঁচাতে চান মুস্তাফিজ। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ওয়ানডে আর টি২০ আলাদা কিছু নয়, সবই সমান। যদি এবার আমরা ভালো খেলতে পারি তাহলে এবার অবশ্যই হবে।’

২০১২ সালে এশিয়া কাপের ফাইনালে হেরেছিল বাংলাদেশ। তখন মুস্তাফিজ ঢাকাতেই পেস ফাউন্ডেশন ক্যাম্পে ছিলেন। তবে দল হেরে যাওয়ায় খুবই কষ্ট পেয়েছিলেন তিনি। এ বিষয়ে মুস্তাফিজ বলেন, ‘২০১২ সালে আমি বাংলাদেশ দলের নেটেও বোলিং করেছি। ওই সময় আমি মামার বাসায় ছিলাম। ফাইনালে বাংলাদেশ দলের খেলাও দেখেছি। কিন্তু দল হেরে যাওয়ায় খুবই কষ্ট পেয়েছি ওই সময়।’

এশিয়া কাপে এখনো খেলা হয়নি মুস্তাফিজের। তাই প্রথমবারের মতো দলে থাকায় কোচ ও সিলেক্টরদেরকে ধন্যবাদ জানিয়েছিয়েন তিনি। সেই সঙ্গে দলকে বড় কিছুর স্বপ্নও দেখাচ্ছেন মুস্তাফিজ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ দলের এই বাঁহাতি কাটার মাস্টার বলেন, ‘এশিয়া কাপ আগে খেলি নাই। এটাই প্রথম। দলে রাখার জন্য কোচ-সিলেক্টরদের ধন্যবাদ। আমাকে যেহেতু রাখছে, চেষ্টা করবো আমার সেরাটা দেয়ার। আর যখন আমি জাতীয় দলে খেলি তখন আমার চেষ্টা থাকে দলকে চ্যাম্পিয়ন করানোর।’

বাংলামেইল