সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ট্রাক থামাচ্ছে চাঁদাবাজ গরুপ্রতি বাড়তি ২০০০ টাকা খরচ

news-image

কোরবানির ঈদ সামনে রেখে রাজধানী ঢাকায় পশু আসা শুরু হয়েছে। তবে এবারও কোরবানির পশুবাহী যানবাহন ঘিরে চাঁদাবাজচক্র সক্রিয়। পথে পথে চাঁদাবাজির শিকার হচ্ছেন গরু ব্যবসায়ীরা। সীমান্তের বিভিন্ন জেলা থেকে রাজধানী পর্যন্ত পৌঁছাতে নানা কায়দায় গরুপ্রতি ৫০০ থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা, পরিবহন শ্রমিক সংগঠন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু অসাধু সদস্যের ছত্রচ্ছায়ায় পশুবাহী যানবাহন থেকে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে।cow in bangladesh

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, কোরবানির ঈদের আগে সীমাহীন চাঁদাবাজির এ মচ্ছব চলছে উত্তরাঞ্চল মহাসড়ক ঘিরে। কোরবানির পশুবাহী বাস, ট্রাক আটকে ওঠানো হচ্ছে টাকা। তবে ট্রাকশ্রমিক ইউনিয়নের নামে চাঁদা উঠছে বেপরোয়াভাবে। চাঁদাবাজরা কমিউনিটি পুলিশের ব্যানারে হলুদ পোশাক গায়ে লাগিয়ে মহাসড়কে ব্যারিকেড দিয়ে পণ্য ও গরুবাহী ট্রাক থামিয়ে চাঁদা আদায় করছে। বগুড়ার ১৫টি পয়েন্টে চাঁদা ওঠানো হচ্ছে। ট্রাকশ্রমিক ইউনিয়ন তাদের নিজস্ব লোক নিয়োগ করে এ চাঁদা আদায় করছে। এ ব্যাপারে জেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সদস্যসচিব শাহাদৎ আলম ঝুনু জানান, মোটরশ্রমিক কিংবা ট্রাকশ্রমিক ইউনিয়নে তাঁদের কোনো ইউনিট নেই। এ ক্ষেত্রে যারা চাঁদা আদায় করছে, তারা অবৈধ কাজ করছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পুলিশের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি। এদিকে জানতে চাইলে আন্তজেলা ট্রাকশ্রমিক ইউনিয়নের বগুড়া জেলা সভাপতি আবদুল মান্নান জানান, তাঁদের ফেডারেশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতিটি ট্রাক থেকে ২০ টাকা করে চাঁদা আদায় করা হয়। এটা ইউনিয়নের নিয়োগপ্রাপ্ত লোকরাই করে থাকে। এর বাইরে যেসব পয়েন্টে চাঁদা ওঠানো হয়, সেটা করে মোটরশ্রমিক ইউনিয়ন। তাদের চাঁদা আদায়ের পরিমাণ ও স্থানের সংখ্যা বেশি। গরুর ট্রাক থেকে অতিরিক্ত চাঁদা আদায়ের কথা অস্বীকার করে মান্নান জানান, এ ধরনের কাজ কেউ করে থাকলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বগুড়া হাইওয়ে পুলিশের দেওয়া তথ্য মতে, বগুড়ার দুটি বাইপাস মহাসড়ক ও মূল শহরের ভেতর দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ১২০০ ট্রাক যাতায়াত করে। এগুলোর বেশির ভাগই বাইরের জেলার। চাঁদাবাজদের টার্গেটও বাইরের জেলার ট্রাক। কারণ এসব ট্রাকের চালকদের ভয়ভীতি দেখিয়ে ইচ্ছেমতো চাঁদা আদায় করা যায়। গত শুক্রবার রাতে বগুড়ায় কোরবানির গরুর ট্রাক থামিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছে চাঁদা দাবি করার সময় র‌্যাব-১২ ক্যাম্পের সদস্যরা আসাদুজ্জামান নুর অনন্ত ও মাহমুদ হাসান নামের দুজনকে আটক করে। গরু ব্যবসায়ীরা জানান, গরুবাহী ট্রাকে নীরব চাঁদাবাজি চলছে। ভয়ে অনেক ব্যবসায়ী মুখ খোলেন না। চাঁদা দিতে হয় ট্রাকে থাকা গরু গুনে গুনে। দেনদরবার করে চাঁদা পরিশোধ করেই তাঁরা ব্যবসা করছেন। ট্রাকচালক আমিনুল ইসলাম জানান, কৌশলে গরুবোঝাই ট্রাক যানজটে আটকে রাখা হয়। দেখলে মনে হবে, যানজটে আটকা পড়েছে। কিন্তু আসলে তা নয়। চাঁদার টাকা দিলে ব্যারিকেড খুলে যায়। নয়তো আটকে থাকতে হয় ঘণ্টার পর ঘণ্টা। অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ, মোটরশ্রমিক ও সরকারদলীয় শ্রমিক সংগঠন নামে-বেনামে এ চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত। গরু ব্যবসায়ী আবদুস শুকুর ও মিরাজুল জানান, কৃত্রিম যানজট সৃষ্টিসহ নানা কৌশলে পুলিশ, মোটরশ্রমিক ও বিভিন্ন সংগঠনের নামে চাঁদাবাজি করা হচ্ছে।

জানতে চাইলে বগুড়ার পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান বলেন, যার যে পরিচয়ই থাক না কেন, মহাসড়কে চাঁদা আদায়ের কোনো সুযোগ নেই। আর কৃত্রিম যানজট সৃষ্টির তো প্রশ্নই আসে না। এ ব্যাপারে নজরদারি আগের চেয়ে আরো বাড়ানোর কথা বলেন তিনি। ট্রাকচালকদের তথ্যানুসারে, উত্তরাঞ্চলের লালমনিরহাটের পাটগ্রাম থেকে ডালিয়া-পাগলাপীর সড়ক হয়ে রংপুর আসতে গরুর ট্রাকগুলোকে পাঁচটি স্থানে চাঁদা দিতে হচ্ছে। পঞ্চগড় থেকে দিনাজপুর ও রংপুর হয়ে ঢাকা যেতে কেবল বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপাশ পর্যন্ত গুনতে হচ্ছে ট্রাকপ্রতি এক থেকে দুই হাজার টাকা। তবে অধিকাংশ স্থানেই চাঁদা দিতে হয় ট্রাকে থাকা গরুর সংখ্যার ওপর ভিত্তি করে। একইভাবে ১৭টি স্থানে টাকা গুনতে হয়। ফলে গরুপ্রতি দাম বাড়ছে গড়ে প্রায় দুই হাজার টাকা। বঙ্গবন্ধু সেতু পার হলেই কয়েক স্থানে তাদের আবারও টাকা দিতে হয়। গরু ব্যবসায়ী কামাল হোসেন জানান, গত রবিবার গরু নিয়ে ঢাকা যাওয়ার পথে টাঙ্গাইল বাইপাসে এক হাজার ৪০০ টাকা দিয়েছেন তিনি।

এদিকে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, চাঁদার টাকা আদায়ের জন্য শুধু বগুড়ার ১৫টি পয়েন্টে শতাধিক কলার বয় (চাঁদার টাকা উত্তোলনকারী) নিয়োগ করা হয়েছে। এরা দিনে ১০০ থেকে ৩০০ টাকা চুক্তিতে চাঁদার টাকা আদায় করে দেয়। ভুক্তভোগী ট্রাকচালকদের দেওয়া তথ্য মতে, চাঁদা উঠছে বগুড়ার মোকামতলা, মহাস্থানগড়, মাটিডালির মোড়, চারমাথা বাসস্ট্যান্ড, ভবেরবাজার, তিনমাথা রেলগেট, শাকপালা, বনানী, লিচুতলা, শাহজাহানপুর, শেরপুর, মানিকচক, সাবগ্রাম, চান্দাইকোনা ও গোদারপাড়ায়। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন রাজশাহী শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুল লতিফ মণ্ডল জানান, মোটরশ্রমিক কল্যাণ ফান্ডের জন্য প্রতিটি জেলায় ৩০ থেকে ৫০ টাকা করে আদায় করা হয়। এটা বৈধ চাঁদা। কিন্তু ট্রাকশ্রমিকরা পুলিশকে ম্যানেজ করে যে চাঁদা তুলছে, সেটা পুরোপুরি অবৈধ। এরা ট্রাকচালককে জিম্মি করে চাঁদা নিচ্ছে।