বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কালিহাতীতে পুলিশের গুলিতে নিহত তিন উল্টো জনতাকে আসামি করে পুলিশের মামলা

news-image

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় মা-ছেলেকে নির্মম নির্যাতনের ঘটনার বিচার চাইতে গিয়ে পুলিশের গুলিতে লাশ হয়েছে তিনজন। জনতার বিক্ষোভে পুলিশ এলোপাতাড়ি গুলি করেছে। গুলিবিদ্ধ বেশ কয়েকজন এখনো বিভিন্ন হাসপাতালে কাতরাচ্ছে। পুলিশ কর্মকর্তারাই বলছেন, অন্তত ৭৮টি গুলি ছোড়া হয়েছে। অথচ এখন উল্টো সেই জনতাকে আসামি করেই মামলা করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার সন্ধ্যার দিকে কালিহাতী ও ঘাটাইল থানায় পুলিশের পক্ষ থেকে এ মামলা করা হয়।

মামলার বিষয়ে জানতে উভয় থানার ওসির মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তাঁরা কেউ ফোন ধরেননি। তবে টাঙ্গাইলের সহকারী পুলিশ সুপার (গোপালপুর সার্কেল) জমির উদ্দিন বলেন, 'মামলা হয়েছে। পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।' তবে কতজনকে আসামি করা হয়েছে সে বিষয়ে তিনি কিছু বলতে পারেননি। পরে টাঙ্গাইলের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার সঞ্জয় সরকারও মামলার কথা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, 'গুলির ঘটনায় ঘাটাইল ও কালিহাতী থানার সাত পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে চারজন কনস্টেবল ও তিনজন এসআই রয়েছেন।' তবে তাৎক্ষণিকভাবে তিনি ওই সাতজনের নাম জানাতে পারেননি।pic-23_270778

পুলিশের গুলির ঘটনায় কালিহাতী ও ঘাটাইল উপজেলায় লোকজনের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। তারা বলছে, বিনা উসকানিতেই পুলিশ গুলি করেছে। আর সে গুলিতে নিরীহ তিনজনের প্রাণ গেছে। অবশ্যই এ ঘটনার বিচার হতে হবে। পুলিশ ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গতকাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি এস এম মাহফুজুল হক নূরুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, ঘটনার প্রাথমিক তদন্তে গুলির ঘটনায় জড়িত হিসেবে যেসব পুলিশ সদস্যের নাম পাওয়া যাবে তাঁদের প্রত্যাহার করা হবে। আর চূড়ান্ত তদন্ত শেষে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পুলিশের গুলিতে তিনজন নিহত হওয়ার ঘটনা তদন্তে পুলিশ সদর দপ্তরের পক্ষ থেকে একজন অতিরিক্ত ডিআইজিকে প্রধান করে গতকাল তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। পুলিশের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিদর্শক মো. মোখলেছুর রহমানের নির্দেশে গতকাল এ কমিটি গঠন করা হয়। অতিরিক্ত ডিআইজি (ডিসিপ্লিন) মো. আলমগীর আলমকে কমিটির প্রধান করা হয়েছে। ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আক্তারুজ্জামান ও টাঙ্গাইল জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আসলাম খানকে সদস্য করা হয়েছে। আগামী সাত দিনের মধ্যে তাঁদের প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সরোয়ার হোসেনকে প্রধান করে তিন সদস্যের পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। গতকাল বিকেলে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার জিল্লার রহমান, পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি এস এম মাহফুজুল হক নূরুজ্জামান, অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ আলী, টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মাহবুব হোসেন ও ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার সঞ্জয় সরকার কালিহাতী থানা ও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

টাঙ্গাইল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে গতকাল নিহত তিনজনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের জানান, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহত ব্যক্তিদের প্রত্যেকের পরিবারের জন্য ৫০ হাজার টাকা করে অনুদান বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আর ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন একজনকে ইতিমধ্যে ১০ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। তাঁর চিকিৎসায় আরো অর্থ লাগলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেওয়া হবে। কালিহাতী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোজহারুল ইসলাম তালুকদার জানান, নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের জন্য মাসিক ভাতা দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। আর নিহত শ্যামল চন্দ্রের পরিবারকে বাড়ি করার জন্য স্থায়ী জায়গা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

প্রসঙ্গত, কালিহাতীর সাতুটিয়া গ্রামে এক মা ও তাঁর ছেলেকে মারধর এবং মায়ের সামনে ছেলেকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের প্রতিবাদ ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে গত শুক্রবার বিকেলে বিক্ষোভ মিছিল বের করে জনতা। ঘাটাইল ও কালিহাতী উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে লোকজন এসে ঘাটাইলের হামিদপুর বাসস্ট্যান্ডে প্রথমে মিছিল শুরু করে। এ সময় পুলিশ বাধা দেয়। একপর্যায়ে সেখানে পুলিশ বিক্ষুব্ধ জনতার ওপর টিয়ারশেল ও গুলি ছোড়ে। লোকজন ছত্রভঙ্গ হলেও একটু পরে তারা আবার জড়ো হয়ে কালিহাতী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মিছিল শুরু করে। সেখানেও গুলি করে পুলিশ। গুলিতে ঘাটাইল ও কালিহাতীর মিলিয়ে অন্তত ৫০ জন আহত হয়। তাদের মধ্যে পরে তিনজন মারা যান। নিহতরা হলেন-কালিহাতী পৌর এলাকার কুষ্টিয়া গ্রামের মৃত সানু শেখের ছেলে ফারুক হোসেন (৩০), কামারপাড়ার রবি চন্দ্র দাসের ছেলে শ্যামল চন্দ্র দাস (১৮) ও ঘাটাইলের শালাঙ্কা গ্রামের মৃত ওসমান আলীর ছেলে শামীম হোসেন (৩২)।

গতকাল কালিহাতী বাসস্ট্যান্ড ও ঘাটাইলের হামিদপুর বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে দেখা যায়, দোকানপাট সব খোলা। যানবাহনও চলাচল করছে। কিন্তু মানুষের মধ্যে ভয় আর চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। কেউ পরিচয় প্রকাশ করে কথা বলতে সাহস পায় না। তবে তারা মা ও ছেলেকে নির্যাতন এবং পুলিশের গুলির ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে। কালিহাতী বাসস্ট্যান্ডে দক্ষিণ-পূর্ব পাশে একটি চায়ের দোকানে বসা ছিল আটজন। তাদের মধ্যে একজন বৃদ্ধ। তাদের সঙ্গে কথা বলতে গেলে সবাই চুপ হয়ে যায়। অনেকক্ষণ চেষ্টার পর সেই বৃদ্ধ পরিচয় প্রকাশ না করে বলেন, 'এমনি এমনি কেউ আন্দোলন করে না। মাকে বেইজ্জতি করা হয়েছে। এটা কেউ মানতে চাবো? আর পুলিশ গুলি কি এমনিতেই করছে? খোঁজ নিয়ে দেখেনগা, তাগোরে কে মিছিলে বাধা দিতে বলছিল।' সেখানে উপস্থিত এক শ্রমিক নেতা বলেন, 'মা-ছেলেকে নির্যাতনের ঘটনায় অভিযুক্তরা প্রভাবশালী। তাদের ক্ষমতাও আছে, টাকাও আছে। পুলিশ তো তাগো কথাই শুনবো।' পাশ থেকে আরেকজন বলেন, 'রোমার (মা-ছেলেক নির্যাতনের মামলার প্রধান আসামি) ভাইয়ের বাসায় কালিহাতী থানার ওসি ভাড়া থাকেন। আর কিছু বলন লাগবো?' পরিচয় জানতে চাইলে তারা বলে, পরিচয় বললে পুলিশ ধরে নিয়ে সাক্ষী বানাবে। না হলে রাজনৈতিক নেতারা হয়রানি করবে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শুক্রবার বিকেল ৪টার দিকে ঘাটাইল উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে লোকজন হামিদপুর বাসস্ট্যান্ডে জড়ো হয়। সেখান থেকে প্রথমে মিছিল বের করতে চাইলে ঘাটাইল থানার পুলিশ বাধা দিয়ে তাদের লাঠিপেটা করে। এ সময় জনতা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। পরে আবার তারা একত্র হয়ে মিছিল করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ওপর চড়াও হয়। এ সময় জনতা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ে। একপর্যায়ে তারা পুলিশকে ধাওয়া দিলে সাত পুলিশ সদস্য পাশের একটি হোটেলে আশ্রয় নেন। জনতা সেখানেও ঢিল ছোড়ে। এরই মধ্যে টাঙ্গাইল থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এসে জনতার ওপর আক্রমণ করে। তারা গুলি ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হয়। পরে লোকজন ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

বিকেল ৫টার দিকে আবারও লোকজন জড়ো হয় কালিহাতী বাসস্ট্যান্ড এলাকায়। তারা মিছিল নিয়ে কালিহাতী থানার দিকে যাওয়ার উদ্যোগ নিলে কালিহাতী থানার পুলিশ প্রথমেই গুলি করে। সেখানেও কয়েকজন আহত হয়। হামিদপুর বাসস্ট্যান্ডের দোকানদার ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মোহাম্মদ অরফিজ বলেন, শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ বাধা দেয়। মিছিল করতে দিলে কিছুই হতো না। কেন পুলিশ বাধা দিল? জনগণ পরে উত্তেজিত হয়ে ভাঙচুর করেছে, পুলিশকে ঢিল ছুড়েছে। আরেক প্রত্যক্ষদর্শী রিকশাচালক রফিকুল ইসলাম বলেন, পুলিশকে ঢিল মারলে তারা গুলি করে। কিন্তু ঢিল খাওয়ার অবস্থাও তো পুলিশই সৃষ্টি করেছে। তারা কেন মিছিলে বাধা দিতে গেল? কারা মিছিলের আয়োজন করেছিল-জানতে চাইলে মোহাম্মদ অরফিজ বলেন, একজন মাকে অপমান করা ঘটনা কেউ সহ্য করতে পারেনি। তাই লোকজন নিজেদের মতো করে প্রতিবাদ করার সিদ্ধান্ত নেয়। এ জন্য এলাকায় মাইকিংও করা হয়। কালিহাতীর সাবেক ইউপি মেম্বার হারুন অর রশিদ জানান, গুজব ছড়িয়ে পড়ে যে পুলিশ টাকা খেয়ে আসামিদের ছেড়ে দিয়েছে এবং জনগণকে প্রতিবাদ করতে দেবে না। এ জন্য এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। কালিহাতী বাসস্ট্যান্ড এলাকার ছাইদুর রহমান বলেন, পুলিশের বাধা দেওয়াতেই যত ঝামেলা হয়েছে। এত লোকজনকে আটকাতে চাওয়া উচিত হয়নি পুলিশের।

স্থানীয়রা বলছে, মা-ছেলেকে নির্যাতনের মামলার প্রধান আসামি রফিকুল ইসলাম রোমা কালিহাতী শহর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিনজু মিয়ার ছোট ভাই। রোমাও স্থানীয় আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তা ছাড়া কালিহাতী থানার ওসি শহিদুল ইসলাম থানার অদূরে মিনজু মিয়ার বাড়ির দ্বিতীয় তলায় ভাড়া থাকতেন। এসব কারণেই পুলিশ বিক্ষোভকারীদের দমন করতে মিছিলে বাধা দেয় এবং শেষ পর্যন্ত গুলি চালায়। তবে মিছিলে গুলির কথা অস্বীকার করেছেন থানার ওসি শহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, 'পুলিশ কোনো গুলি করেনি। পুলিশ সদস্যদের ইস্যু করা অস্ত্র থেকে কোনো গুলি করা হয়নি।' তাহলে কারা গুলি করল জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাদের চাপে বা তাদের অনুরোধে মিছিলে বাধা দেওয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'কারো কোনো চাপ ছিল না। যা করা হয়েছে পরিস্থিতিতে পড়েই করা হয়েছে।' টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরিফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'এখন কিছুই বলতে পারব না। আপনারা যা দেখেছেন তা তো জানেন। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ ব্যাপারে কথা বলবেন।'

হামিদপুর বাসস্ট্যান্ডে কথা হয় টাঙ্গাইলের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) হাফিজ আল আসাদের সঙ্গে। তিনি বলেন, 'হাজারের ওপরে লোক জড়ো হয়েছিল। সেখানে পুলিশ ছিল মাত্র ১০ থেকে ১২ জন। মিছিল থেকে যাতে অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে জন্য পুলিশ মিছিলে বাধা দেয়। পরে জনতা পুলিশের ওপর চড়াও হয়। পুলিশ পিছু নিলে জনতা তাদের ঘিরে ধরে। তারা একটি হোটেলে আশ্রয় নিলে সেখানেও তাদের আক্রমণ করা হয়। পরে তাদের উদ্ধার করতে অতিরিক্ত পুলিশ এসে রাবার বুলেট, টিয়ার গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে। দুই থানা মিলে প্রায় ৭৮টি গুলি ছোড়া হয়। ঘাটাইল থানার ওসি মোখলেসুর রহমান বলেন, 'ঘটনার পেছনে রাজনৈতিক কোনো কারণ নেই। তাৎক্ষণিক পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে গিয়ে এ অবস্থা হয়েছে।' গতকাল রোমাদের বাড়ি গিয়ে দেখা যায় গেটে তালা ঝুলছে। বাড়িতে কেউ নেই। প্রতিবেশীরা জানায়, বাড়িতে তালা দিয়ে সবাই পালিয়েছে।

ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন দুজন : কালিহাতীতে পুলিশের গুলিতে গুরুতর আহত দুজনের চিকিৎসা চলছে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। তাঁরা হলেন স্থানীয় একটি কলেজের ছাত্র ও মোবাইল ফোনের দোকানদার রুবেল (১৯) ও দিনমজুর বাদশা খান (২৫)। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, দুজনের অবস্থাই আশঙ্কাজনক। রুবেলের খালাতো ভাই মো. মাসুদ বলেন, রুবেলের মাথার পেছনে ও পিঠে দুটি গুলি লেগেছে। বাদশার বাড়ি মধুপুরে। স্বজনরা জানান, কালিহাতীতে শ্বশুড়বাড়ি বেড়াতে গিয়েছিলেন বাদশা। বাসে করে বাড়ি ফেরার সময় গুলি লাগে। তাহতদের ক্ষতিপূরণ দাবি আসকের : কালিহাতীতে পুলিশের গুলিতে তিনজন নিহতের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)। একই সঙ্গে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ ও হতাহতদের যথাযথ ক্ষতিপূরণের দাবি জানানো হয়েছে। আসকের নির্বাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল এ দাবি জানানো হয়। 

এ জাতীয় আরও খবর

উচ্চ রক্তচাপ কী? হঠাৎ রক্তচাপ বেড়ে গেলে করণীয়

শরীরের যেসব স্থানের ব্যথা হতে পারে ক্যানসারের লক্ষণ

ত্বক আর্দ্রতা হারিয়েছে কি না বুঝবেন যেভাবে

পিপলস লিজিংয়ের ২৫ ঋণখেলাপিকে গ্রেফতার করে হাজির করার নির্দেশ

গরমে জনজীবনে নাভিশ্বাস, বৃষ্টি বাড়তে পারে আগামী সপ্তাহে

দ্রব্যমূল্যের অস্থির পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীদের সতর্ক হওয়ার আহ্বান

বিদ্যুতের দাম ৫৮ শতাংশ বাড়ানোর সুপারিশ

সেতুর উদ্বোধন ঘিরে পদ্মাপারে জয়গান

জেনেভায়‌ প্রবাসীদের কনস্যুলেট সেবা প্রদান

বই পড়লে কারামুক্তি

হাইকোর্ট সেই এরশাদ আলীকে পুলিশে দিল

দৈনিক সংক্রমণে শীর্ষে উত্তর কোরিয়া, বিশ্বে মৃত্যু আরও দেড় হাজার