মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গরুর অভাব নেই দামও নাগালে, কোরবানির হাটে গরুর কোনো সংকট থাকবে না’

news-image


* দেশে যথেষ্ট মজুদ * ভারত থেকেও আসছে * দুশ্চিন্তায় খামারিরা
কোরবানির ঈদ এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে রংপুর বিভাগের আট জেলার বিভিন্ন সীমান্তের করিডর দিয়ে ভারত থেকে চোরাইপথে গরু আসতে শুরু করেছে। গরু ঢুকছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়েও। পাশাপাশি এসব এলাকায় কোরবানি উপলক্ষে দেশি গরুও পর্যাপ্ত সংখ্যায় মজুদ করে রাখা হয়েছে। রাজশাহী সীমান্ত দিয়ে এখনো গরু আসা শুরু না হলেও এ অঞ্চলে দেশি গরুর যথেষ্ট মজুদ রয়েছে বলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে।

তাই এবারের ঈদে কোরবানির পশুর দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হলেও কিছুদিন ধরে এ অঞ্চলের পশুর হাটগুলোতে ভারতীয় গরু আসা বেড়ে যাওয়ায় দাম ক্রেতাদের নাগালের মধ্যেই রয়েছে। তবে ক্ষতির আশঙ্কা করছে স্থানীয় খামারিরা। জমে উঠেছে রংপুর অঞ্চলের হাটগুলো : কড়াকড়ি সত্ত্বেও কুড়িগ্রাম সীমান্ত গলে গরু আসায় সীমান্তবর্তী পশুর হাটগুলো জমে উঠেছে। সংক্ষিপ্ত বিচারাদেশের মাধ্যমে অবৈধপথে আসা এসব গরু ৫০০ টাকার বিনিময়ে করিডর করে কাস্টমসের বৈধতা দেওয়া হয়। এভাবে গত ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জেলার দুটি শুল্ক করিডরে আয় হয়েছে প্রায় ১১ কোটি টাকা।cows

স্থানীয় গরু ব্যবসায়ীরা জানায়, ভারত থেকে বেশি গরু আসে জেলার নাগেশ্বরী, ফুলবাড়ী, ভুরুঙ্গামারী, কুড়িগ্রাম সদর ও রৌমারী সীমান্ত দিয়ে। প্রায় ৩০০ কিলোমিটার সীমান্ত গলে এসব গরু এনে খাটালে জড়ো করা হয়। এরপর তালিকা করে তা করিডরের জন্য পাঠানো হয়। সীমান্তবর্তী যাত্রাপুর হাটে গিয়ে দেখা যায়, বিপুল পরিমাণ ভারতীয় গরু ওঠায় দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে পাইকাররা এসে জড়ো হয়েছে। এই হাট থেকে প্রতিদিন শতাধিক ট্রাকে গরু যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন মোকামে। তবে ব্যবসায়ীরা জানায়, বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের চাঁদাবাজিসহ ঘাটে ঘাটে টাকা দেওয়ার কারণে গরুর দাম বেশি পড়ছে। রাজশাহী থেকে আসা ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম বলেন, হাটে গরুর প্রচুর আমদানি হলেও এবার দাম একটু বেশি বলে মনে হচ্ছে। যাত্রাপুর হাটের ইজারাদার আব্দুল গফুর আশা করছেন শেষের কয়েক দিনে গরুর আমদানি আরো বাড়বে।

কুড়িগ্রাম কাস্টমস অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলার ধরলা সেতু প্রস্তাবিত শুল্ক করিডর দিয়ে এক লাখ ৫৩ হাজার ৭৪২টি ভারতীয় গবাদি পশু করিডর করা হয়। এতে আয় হয় সাত কোটি ৬৪ লাখ ৭১ টাকা এবং রৌমারী প্রস্তাবিত শুল্ক করিডরে ৬০ হাজার ৩২৭টি ভারতীয় গবাদি পশু করিডর করা হলে রাজস্ব আয় হয় তিন কোটি ১৬ হাজার ৩৫০ টাকা। চলতি মাসের প্রথম দুই সপ্তাহে দুটি শুল্ক করিডর দিয়ে প্রায় ২৫ হাজার পশু গেছে দেশের বিভিন্ন হাটে।

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার রসুলগঞ্জে গিয়ে দেখা যায়, ভারতীয় গরুর আমদানি আগের তুলনায় বেড়েছে। দামও ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে। গরু নিয়ে হাটে আসা স্থানীয় ব্যবসায়ী পানবাড়ী এলাকার ইব্রাহীম, কাবুলসহ কয়েকজন জানায়, গ্রামে ঘুরে তারা স্থানীয় খামারিদের কাছ থেকে গরু কিনে বিভিন্ন হাটে বিক্রি করে। কিন্তু এবার নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও হাটগুলোতে ভারতীয় গরুর আমদানি হওয়ায় দেশি গরুর দাম কমে গেছে। এতে তাদের লোকসান গুনতে হচ্ছে। স্থানীয় তিন-চারজন খামারি জানায়, অনেকেই চার থেকে পাঁচ মাস আগে ছোট ছোট গরু কিনে পালন করেছে ভালো দাম পাওয়ার আশায়। কিন্তু ভারতীয় গরু ঢোকায় লাভ দূরের কথা, আসল টাকা উঠে আসবে কি না, তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে তারা। রসুলগঞ্জ হাটে পাবনা থেকে আসা গরু ব্যবসায়ী এরশাদ আলী জানান, তিন লাখ ৭০ হাজার টাকায় পাঁচটি গরু কিনেছেন তিনি। এলাকায় নিয়ে বিক্রি করে লাভ হলে এরপর এসে আরো বেশি গরু কিনবেন। পাটগ্রামের ইসলামপুর শুল্ক করিডর সূত্র জানায়, গত জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ভারতীয় গরু থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে ৩৯ লাখ ৪৩ হাজার টাকা। করিডর স্টেশনের সহকারী কর্মকর্তা (কাস্টমস সহকারী পরিদর্শক) মতিয়ার রহমান বলেন, ঈদকে ঘিরে গরু আমদানি কিছুটা বেড়েছে। রাজস্ব আদায়ও বেশি হচ্ছে।

এ ছাড়া দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী ও পঞ্চগড়ের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে কম-বেশি ভারতীয় গরু আসছে বলে খবর পাওয়া গেছে। রংপুরের প্রধান গরুর হাট লালবাগহাট, বুড়িরহাট ও গঙ্গাচড়ার ঐতিহ্যবাহী বেতগাড়ি গরুর হাটে গিয়ে দেখা যায়, জমে উঠেছে পশুর হাটগুলো। বুড়িরহাটে গত বৃহস্পতিবার গরু কিনতে আসা রংপুর শহরতলির খটখটিয়া এলাকার বাসিন্দা চাঁদ মিয়া বলেন, ‘এবার আশঙ্কা ছিল ভারত থেকে গরু আসতে না পারায় দাম বেশি হবে, কিনতে পারব না। কিন্তু হাটে এসে স্বস্তি পাচ্ছি যে গরুর দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে।’

লালবাগ হাটের ইজারাদার কর্তৃপক্ষ জানায়, গরুর আমদানি ভালো। ক্রেতারাও খুশি। বেতগাড়ি হাটে ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ের ভিড় ছিল লক্ষ করার মতো। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, রংপুর বিভাগের রংপুর, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, নীলফামারী, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় জেলায় এবার কোরবানির জন্য প্রস্তুত রয়েছে আট লাখের বেশি গরু, যদিও চাহিদা রয়েছে ছয় লাখের মতো। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর রংপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপপরিচালক ডা. সহিদুল ইসলাম জানান, ভারত থেকে গরু আমদানি না হলেও কোরবানির ঈদে এর কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়ত না। শেষ পর্যন্ত হাটগুলোতে ভারতীয় গরু আমদানি হওয়ায় ক্রেতারা সাধ্য অনুযায়ী ইচ্ছেমতো গরু কিনছে। রাজশাহীতে আসছে মহিষ, হাটে পর্যাপ্ত দেশি গরু, চাঁপাই সীমান্তে ঢুকছে গরু গত ২৮ আগস্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ সীমান্তে বিএসএফের সন্ত্রাসের পর থেকে ওই এলাকা দিয়ে গরু আনা প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। স্থানীয় গরু ব্যবসায়ী নুরতাজ আলী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সীমান্ত পার হতেই এখন গা শিউরে ওঠে। গরু আনতে যাব কী করে। জান দিব, না গরু আনব জি?’ তাই গরু আনতে যাইনি। বাড়িতেই বইস্যা আছি।’

গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে গরু ব্যবসায়ী ও রাখালদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সীমান্তে বিএসফ কয়েক দিন ধরে নজরদারি ব্যাপক বাড়িয়েছে। গরু আনতে গেলেই তারা ধাওয়া করছে, গুলি করছে, বোমা মারছে। এতে রাখাল বা গরু ব্যবসায়ীরা ওপারে যেতে সাহস পাচ্ছে না। গরুও আসছে না। image_269807.goru123তবে সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের দু-তিনটি সীমান্ত হয়ে গরু এখনো রাতের আঁধারে আসছে। জহুরপুর গ্রামের গরু ব্যবসায়ী দিলসাদ জানান, জেলার জহুরপুর ও বাঘারবাড়ী সীমান্ত দিয়ে কিছু গরু আসছে। আরেক ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান বলেন, ‘যেদিন বৃষ্টি হয়, অথবা আকাশে ঘন কালো মেঘ থাকে, সেদিন গরু আমদানি কিছুটা বেশি হয়। কারণ ওই দিনগুলোতে বিএসএফ সদস্যরা সীমান্তে অতটা নজর দেয় না।

রাজশাহীর পবার খানপুর ও মাঝদিয়াড় সীমান্ত দিয়ে কিছু মহিষ আসছে বলে জানিয়েছে ব্যবসায়ী ও রাখালরা। বিশেষ করে সিটি হাটের দিনে মহিষের আমদানি বাড়ে। গতকাল শুক্রবার পবা সীমান্ত হয়ে মহিষ আমদানির সময় দেখা হয় কয়েকজন রাখালের সঙ্গে। সাদিকুল নামে এক রাখাল জানান, গতকাল চর খানপুর সীমান্ত দিয়ে সকালের দিকে অন্তত ৫০টি মহিষ আসে। রাজশাহীর সিটি বাইপাস হাট, বানেশ্বর হাট, কাকনহাট, নওহাটা, চাঁপাইনবাবগঞ্জের খাসির হাট, ভোলাহাটসহ বিভিন্ন স্থানে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এই হাটগুলোতে এ বছর প্রচুর পরিমাণে দেশি জাতের গরু-মহিষ উঠছে। সিটি হাটের ইজারাদার আতিকুর রহমান কালু বলেন, ‘হাটে পাঁচ হাজার গরু আমদানি হলে অন্তত চার হাজারই থাকছে দেশি জাতের। তবে বেচাকেনা এখনো অতটা জমেনি। এবার গতবারের চেয়ে দাম কিছুটা বেশি হওয়ায় এখনো মানুষ ভারতীয় গরুর দিকেই তাকিয়ে আছে।’

এদিকে গরুর খামারিরা দাবি করেছে, এ বছর গোখাদ্যের দামসহ সব কিছুরই খরচ বেড়েছে। ফলে গরুর দামও কিছুটা বেড়েছে। তাতেও খামারিরা খুব একটা লাভবান হচ্ছে না। তবে একসঙ্গে অনেক টাকা পাওয়া যায় বলে দেশি জাতের গরু পালন বেড়েছে বলে জানান তানোর এলাকার খামারি জমিল উদ্দিন।

অন্যদিকে ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে, এবার দেশি জাতের গরু কিনে রাজশাহী অঞ্চলের বাইরে যেতে হলেই আমদানি শুল্ক কাগজ দেখাতে হচ্ছে। রাজশাহীর রাজাবাড়ী, মহিষালবাড়ী ও বেলপুকুর চেকপোস্টে বিজিবি সদস্যরা গরুর ট্রাক থামিয়ে আমদানি ছাড়পত্র দেখতে চান। সেটি দেখাতে না পারলে দেশি গরু হলেও তা আটকে দেওয়া হচ্ছে। গোদাগাড়ীর সুলতানগঞ্জ এলাকার ব্যবসায়ী কামরুল হোসেন জানান, তিনি গতকাল ২১টি দেশি গরুর আমদানি ছাড়পত্র করেন প্রতিটির জন্য ৫০০ টাকা করে দিয়ে। সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়েও আসছে গরু, সংকটের আশঙ্কা নেই রাত জেগে সীমান্ত দিয়ে গরু নিয়ে আসা সাতক্ষীরার রাজপুর গ্রামের রাখাল ইউছুপ আলী (৩৯), আনারুল ইসলাম (৪২), খোকন গাজী (৪৯), মন্টু মিয়া ও আব্দুস সালাম কারিকর ছন্দ কেটে বলেন, ‘গরু নিয়ে চিন্তা/আর না আর না!’ গতকাল শুক্রবার সকাল ৮টায় সরেজমিনে সীমান্তের বিভিন্ন গরুর খাটাল পরিদর্শনকালে রাখালরা জানায়, প্রতিদিন তারা রাত জেগে ভারত সীমান্ত দিয়ে গরু নিয়ে এসে নির্ধারিত খাটালে তুলে দিচ্ছে। সীমান্তের গয়ড়া গ্রামের গরু ব্যবসায়ী আয়উব আনছারী, আনারুল ইসলাম, লাবলু মোড়ল, তবিবর রহমানসহ আরো অনেকেই বলেন, দু-তিন দিন ধরে লাইন একটু ভালো হয়েছে। চোরাই পথে গরু আসছে। চাহিদার তুলনায় কম হওয়ায় রাখালদের ‘পাসিং খরচ’ বেশি হচ্ছে। 

হিজলদী গ্রামের গরু ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন, জালাল উদ্দীন, আমির হামজা জানান, তাঁরা ভারতের উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার বশিরহাট মহকুমার হটাৎগঞ্জ হাট থেকে গরু নিয়ে আসছেন। বিএসএফ কড়াকড়ি আরোপ করায় ভারতীয় রাখালদের গরু পার করে দিতে বেশি টাকা দিতে হচ্ছে। তাঁরা দাবি করেন, এ দেশে গরুর চাহিদা বেশি থাকায় ভারত সীমান্ত এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে অসংখ্য গরুর খামার গড়ে উঠেছে, যা কোরবানির ঈদ উপলক্ষে একটু বেশি দামে বিক্রি হয়ে থাকে। গরু বিক্রি না হলে ভারতীয় গরু পালনকারীদের পথে বসতে হবে। এ অবস্থায় তারা বিএসএফের চোখ ফাঁকি দিয়ে চোরাই পথে সীমান্ত পার করে এ দেশে গরু বিক্রি করে যাচ্ছে। বরগুনার গরু ব্যবসায়ী জাফর আহম্মেদ, কুমিল্লার ব্যবসায়ী আমিন উদ্দীন জানান, গত দুই দিনে তাঁরা ট্রাকে করে সাতক্ষীরার পার্শ্ববর্তী সাত মাইল হাট থেকে ১১৭টি ভারতীয় গরুর চালান ঢাকায় পাঠিয়েছেন। গতকাল শুক্রবার কলারোয়া গরুর হাট থেকে আরো শতাধিক গরু নিয়ে তাঁরা ঢাকা ও বরিশাল যাবেন। তাঁরা আরো জানান, ভারত থেকে আসা গরুর জন্য আগে পাসিং খরচ ছিল সাত থেকে আট শ টাকা। এখন গরুপ্রতি ২৬ থেকে ২৭ শ টাকা। এর ওপর রাজস্ব ও বহন খরচ তো আছেই। খরচ বেশি হওয়ায় এবার গরুর দামও একটু বেশি পড়বে। অভিজ্ঞতার আলোকে শেষ পর্যন্ত পশুর দাম আকাশছোঁয়া থাকে না বলেও তাঁরা অভিমত ব্যক্ত করেন।  

সোনাবাড়িয়া গরু করিডরের উপসহকারী পরিদর্শক আব্দুর রশিদ জানান, প্রতিদিন ভারত থেকে আসা গরু থেকে তাঁর করিডরের মাধ্যমে শুল্ক আদায় করা হচ্ছে। গতকাল সকাল ১০টা পর্যন্ত কাকডাঙ্গা, মাদরা ও চান্দুড়িয়ার খাটাল থেকে আসা ৯৭টি গরুর শুল্ক আদায় করা হয়েছে। এবার কোরবানির পশুর সংকট হবে বলে ধারণা করা হলেও দিন দিন পরিস্থিতি পাল্টে যাচ্ছে। সদর থানার তলুইগাছা বিজিবি ক্যাম্পের সুবেদার হায়দার আলী জানান, গরু আনতে বাংলাদেশি রাখালদের ভারতে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে ভারতীয় রাখালরা তাদের গরু সীমান্ত পার করে দেওয়ার সময় কোনো বাধা দেওয়া হচ্ছে না।    সাতক্ষীরা ৩৮ ব্যাটালিয়ন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর নজির আহমেদ বকশি জানান, সীমান্ত পার হয়ে কোনোভাবেই বাংলাদেশিদের ভারতে যেতে দেওয়া হবে না। তবে গরু নিয়ে ভারতীয় রাখালসহ ব্যবসায়ীরা সীমান্তের নো ম্যান্স ল্যান্ড এরিয়ায় প্রবেশ করতে পারবে। প্রয়োজনে তারা বাংলাদেশ সীমানার কাছে (জিরো পয়েন্টের শেষ পিলার) এলেও অনুপ্রবেশকারী হিসেবে ধরা হবে না। শুধু গরু প্রদানকারী ভারতীয়দের জন্য এই ছাড় দেওয়া হবে। (এই প্রতিবেদনের জন্য তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন আব্দুল খালেক ফারুক, কুড়িগ্রাম ও ভূবন রায় নিখিল, নীলফামারী)।  

কোরবানির হাটে গরুর কোনো সংকট থাকবে না'
 মৎস্য ও প্রানীসম্পদ মন্ত্রী ছায়েদুল হক বলেছেন, কোরবানির হাটে গরুর কোনো সংকট থাকবে না। নিরাপদ মাংস নিশ্চিতকরণে সারাদেশের প্রতিটি হাটে ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম সেবা প্রদান করবে। দেশের মানুষ আসন্ন ঈদ যাতে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সে লক্ষ্যে পশুর হাটগুলোতে সার্ভিলেন্স টিম কাজ করছে। তিনি আজ রাজধানীর খামার বাড়ির কৃষিবিদ ইনিস্টিটিউটে ‘নিরাপদ মাংস উৎপাদন নিশ্চিতকরণে প্রাণী সম্পদের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে খামারী পর্যায়ে সারাদেশে কোরবানী উপযোগী ৪০ লাখ গরু ও ৬৯ লাখ ছাগল প্রস্তুত রয়েছে। কোরবানীর জন্য গরু ও ছাগলের কোন সংকট হবে না। প্রাণী সম্পদ অধিদফতর এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে এবং বাংলাদেশ পোলট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ কোর্ডিনেশন কমিটির সহযোগিতায় অনুষ্ঠানে প্রাণী সম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ অজয় কুমার রায়ের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশননের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন দীপন কুমার সাহা, পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. রফিকুল ইসলাম,মন্ত্রণালয়ের সচিব শেলীনা আফরোজা প্রমুখ। মন্ত্রী বলেন,অসাধু উপায়ে কেউ গরু মোটাতাজাকরণ করতে না পারে সে জন্য প্রাণিসম্পদ অধিদফতররের কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে সতর্ক থাকতে হবে।
গরু মোটাতাজাকরণ করতে স্টেরয়েড হরমোন প্রয়োগ করে কেউ ধরা পড়লে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, সারাদেশে ৪৯টি হাটে ভেটেরিনারি চিকিৎসক দল সেবা প্রদান করবেন। তিনি বলেন, ইউনিয়ন পর্যায়ে খামারীদের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। তালিকাভুক্ত খামারীরা নিরাপদ মাংস নিশ্চিকরণে সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে গোমাংসের চাহিদা বাড়ছে। দেশে দুধ ও মাংসের চাহিদা পূরণে গবাদি পশুর জাত উন্নয়ন অত্যান্ত জরুরী। এর উন্নয়নে প্রয়োজন প্রযুক্তি কৃত্রিম প্রজনন। কৃত্রিম প্রজনন সেবা দেশের প্রতিটি গ্রামে পৌঁছে দিতে এবং দুধ ও মাংস উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে শতকরা ৫ ভাগ সুদে ব্যক্তি পর্যায়ে ও ক্ষুদ্র খামারী পর্যায়ে ঋণ প্রদানের জন্য ২০০ কোটি টাকার তহবিল দেয়া হয়েছে। দেশের মানুষের পুষ্টি চাহিদা পূরণে সরকার বদ্ধপরিকর। প্রাণীসম্পদের সার্বিক উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে সরকার বহুমুখী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে।

অনুষ্ঠানে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চীফ ভেটেনারী অফিসার ডা.এ বি এম শহীদুল্লাহ। বক্তারা অনুষ্ঠানে প্রতি উপজেলায় প্রাণিসম্পদ সর্ম্পর্কিত ডায়াগনস্টিক সেন্টার নির্মাণ, গবাদি পশুর খুরা রোগসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নানা ধরনের টিকা প্রদানের ব্যবস্থা, মাঠপর্যায়ে কৃষকদের মান উন্নয়নে নানা প্রশিক্ষণপ্রদানের বিষয় তুলে ধরেন। 

এ জাতীয় আরও খবর