বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক

news-image

এ, কে , এম, ফজলুর রহমান মুন্শী : হযরত ইব্রাহীম (আ.)-এর স্মৃতি।পবিত্র মক্কার ‘বাক্কা’ নামটি সর্বপ্রথম যাবুর কিতাবে পরিদৃষ্ট হয়। এ প্রসঙ্গে স্মরণ রাখা দরকার যে, প্রাচীন শামী ভাষায় ‘বাক’ শব্দটির অর্থ হচ্ছে আবাদী অথবা শহর। যেমন- আজো শামের একটি প্রাচীন শহরের নাম ‘বায়ালবাক’। অর্থাৎ বায়াল-এর শহর। (বায়াল একটি দেবতার নাম) এতেও এ শহরটির প্রাচীনত্বের প্রমাণ পাওয়া যায়। আর কা’বার প্রাথমিক নির্মাণের সময় এই নামটিই আল-কুরআনে উক্ত হয়েছে, “অবশ্যই প্রথম গৃহ যা মানুষের ইবাদতের জন্য বাক্কাতে নির্মাণ করা হয়েছ।” কা’বা শব্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে চতুষ্কোনাকৃতি।

mecca1 hazকারণ এই ঘরটি চতুষ্কোনাকৃতিতে নির্মাণ করা হয়েছিল। এখনও এর আকৃতি অবিকল তাই রয়ে গেছে। এ জন্য এ গৃহটি কা’বা নামে বিখ্যাত হয়ে আছে। আরবের অধিবাসীরা কিংবা বনী ইসমাঈল সর্বদাই নিজেদের পৈতৃক অনুষ্ঠানাদি পালন করতো। আর এ সকল অনুষ্ঠান পূর্ণ বৈশিষ্ট্যসহ তাদের মাঝে বিদ্যমান ছিল। তাই দেখা যায়, জাহিলিয়াত আমলে, রচিত কাব্য কবিতায় হজের কথা এবং হজের আরকানের কথা বহুলভাবে আলোচিত হয়েছে। (আল আনআম ফী আকছামিল কুরআন : মাওলানা হামীদ-উদ-দীন)। শুধু তাই নয়, আরবের খ্রিস্টান কবিরাও সম্মানের সাথে হজের কথা তুলে ধরেছে। এমনকি আরবের বাজারসমূহে এবং মেলাসমূহের জমজমাট অবস্থা কায়েম রাখার জন্যই হজের মওসুমটি ছিল একটি সহায়ক। কিতাবুল আমকিনাহ ওয়াল আজমানাহ : ইমাম মারকুজী পৃষ্ঠ-১৬১)। এ কারণেই রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর দাওয়াত ও তাবলীগ হিজরতের পূর্বেই আরবের দূর-দূরান্ত সীমায় পৌঁছে গিয়েছিল এবং ইয়েমেন ও বাহরাইনে তা ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছিল। কেননা হজের মওসুমে আরবের সকল গোত্র মক্কা উপত্যকায় তাদের উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত অনুষ্ঠানগুলো আদায় করার জন্য একত্রিত হত।হযরত ইব্রাহীম (আ.) স্বীয় ছেলের কুরবানী সংক্রান্ত যে স্বপ্ন দেখেছিলেন এবং ‘লাব্বায়েক’ বলে সম্মতি জানিয়েছিলেন, যার পরিপূরণের জন্য তিনি এই দূর-দারাজ স্থানে আগমন করেছিলেন। biday haj

যখন তিনি পুত্রকে কুরবানী করার জন্য ছুরি চালাতে উদ্যত হলেন এবং প্রাণপ্রিয় পুত্রও আল্লাহর নির্দেশের সামনে স্বীয় মস্তক অবনত করেছিল, ঠিক তখনই ধ্বনিত হলো, “হে ইব্রাহীম (আ.)! তুমি স্বীয় স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করেছ এবং এভাবেই আমি পুণ্যবানদের বিনিময় প্রদান করি। সুতরাং আমি একটি বৃহত্তর কুরবানীর বিনিময়ে তাঁর ছেলেকে বিমুক্ত করলাম”। (সূরা সাফ্ফাত : রুকু-৩।hajj 5

এ ঘোষণার সাথে সাথে হযরত ইব্রাহীম (আ.) বুঝতে পারলেন যে, তাঁর স্বপ্নের তাবীর হলো স্বীয় ছেলেকে আল্লাহর ঘরের খেদমতের জন্য এবং তাওহীদের প্রচার বুলন্দ করার জন্য সুনির্দিষ্ট করা এবং এরই প্রেক্ষিতে ‘খানায়ে কা’বাকে’ বিশ্বের বুকে আল্লাহর ইবাদতের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা। আল কুরআনে ঘোষণা করা হয়েছে : “এবং সেই সময়কে স্মরণ কর যখন কা’বা গৃহকে মানবজাতির মিলন কেন্দ্র ও নিরাপত্তাস্থল করেছিলাম এবং বলেছিলাম, তোমরা ইব্রাহীম (আ.)-এর দাঁড়াবার স্থানকেই সালাতের স্থানরূপে গ্রহণ কর এবং ইব্রাহীম ও ইসমাঈল (আ.)-কে তাওয়াফকারী, ইতিকাফকারী, রুকুকারী ও সিজদাকারীদের জন্য আমার ঘরকে পবিত্র রাখতে আদেশ দিয়েছিলাম।”স্মরণ কর, যখন ইব্রাহীম (আ.) বলেছিল, “হে আমার প্রতিপালক : একে নিরাপদ শহর কর, আর এর অধিবাসীদের মধ্যে যারা আল্লাহ ও পরকালে বিশ্বাসী তাদের ফলমূল হতে জীবিকা প্রদান কর।” তিনি বললেন, যে কেউ সত্য প্রত্যাখ্যান করবে তাকেও কিছুকালের জন্য জীবনোপভোগ করতে দেব। তারপর তাকে জাহান্নামের শাস্তি ভোগ করতে বাধ্য করব এবং তা কত নিকৃষ্ট পরিণাম!“স্মরণ কর, যখন ইব্রাহীম ও ইসমাঈল (আ.) কা’বা গৃহের প্রাচীর তুলছিল, তখন তারা বলেছিল, হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদের এই কাজ গ্রহণ কর, নিশ্চয় তুমি সর্বজ্ঞাতা।”

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা