সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হার্ডডিস্কের আয়ু বাড়াতে…

news-image

হার্ডডিস্ক ক্র্যাশের সাথে কম্পিউটার ব্যবহারকারীর অনেকেই পরিচিত। প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ সকল তথ্য যেহেতু হার্ডডিস্কেই থাকে, তাই হার্ডডিস্ক ক্র্যাশের অর্থ হলো তথ্য হারানো। সাধারণভাবে হার্ডডিস্ক ক্র্যাশের পরিমাণ কম হলেও কিছু বিষয় রপ্ত করতে পারলে হার্ডডিস্কের আয়ু অনেকটাই বেড়ে যেতে পারে। তেমন পাঁচটি পরামর্শই তুলে ধরা হলো এই লেখায়।
 
ভালো ইউপিএস ব্যবহার করা 
ভালো মানের একটি ইউপিএস কেবল হার্ডডিস্কই নয়, কম্পিউটারের সব ধরনের যন্ত্রাংশের সুরক্ষার জন্যই জরুরি। ভোল্টেজ বাড়া-কমা, ঝড়-ঝঞ্ঝা, বৈদ্যুতিক লাইনের সমস্যা প্রভৃতি কারণে হার্ডডিস্ক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। সার্জ প্রোটেকশনযুক্ত ভালো মানের ইউপিএস এসব ঘটনা থেকে হার্ডডিস্ককে সুরক্ষা প্রদান করবে। এমন ধরনের ইউপিএস বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনা থেকে হার্ডডিস্ক ও কম্পিউটারের অন্যান্য যন্ত্রাংশকে সুরক্ষা প্রদান করবে। এতে হার্ডডিস্কের আয়ুষ্কালও বেড়ে যাবে।
 
পরিপার্শ্বের দিকে খেয়াল রাখা 
কম্পিউটার যে স্থানে ব্যবহার করবেন, তার পরিপার্শ্বও গুরুত্বপূর্ণ। এমন স্থানে কম্পিউটার রাখবেন না যেখানে বাতাসের আর্দ্রতা এবং তাপমাত্রায় ঘন ঘন পরিবর্তন ঘটে। কম্পিউটার ব্যবহারের স্থানে বাতাসের পর্যাপ্ত প্রবাহও থাকা প্রয়োজন। আর কম্পিউটারের কেসিংয়ের ভেতরটাও মাঝে মাঝে পরীক্ষা করে দেখতে হবে যেন কেসিংয়ে বাতাসের যাওয়া-আসা কোনোভাবেই বাধা না পায়।
 
পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম 
হার্ডডিস্কের সুরক্ষা ও দীর্ঘায়ু নিশ্চিত করতে পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। যখন কম্পিউটার ব্যবহার হয় না, তখন হার্ডডিস্কের ব্যবহারও বন্ধ রাখা বা একে স্লিপ মোডে রেখে বিশ্রাম দেওয়া এর কর্মঘণ্টা বাড়িয়ে দেয়। তাই পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম এমনভাবে সেট করুন যাতে পিসি আইডল থাকলে বা মাঝে মাঝেই হার্ডডিস্ক বিশ্রাম পায়।
 
বহনে সতর্কতা

হার্ডডিস্ক বহন করতে হলে মূল হার্ডডিস্কের বাইরে বিশেষায়িত বহনযোগ্য হার্ডডিস্ক ব্যবহার করা উচিত। এখন প্রায় সব ব্র্যান্ডেরই এক্সটার্নাল হার্ডডিস্ক বাজারে সহজলভ্য। তাই পিসিতে যে হার্ডডিস্কটিকে মূল স্টোরেজ হিসেবে ব্যবহার করবেন, সেটি পিসি থেকে না খোলাই ভালো। বহন করতে হলে এক্সটার্নাল হার্ডডিস্ক ব্যবহার করুন।
 
মনিটর করুন 
হার্ডডিস্কের হালহকিকত নিয়মিত মনিটরিং করা ভালো। এর জন্য বিভিন্ন ধরনের SMART (সেলফ-মনিটরিং অ্যানালাইসিস রিপোর্টিং টেকনোলজি) টুলস পাওয়া যায়। এই টুলগুলো হার্ডডিস্কের কর্মক্ষমতা এবং বর্তমান পরিস্থিতি নিজে থেকেই মনিটর করে রিপোর্ট করতে সক্ষম। তাই হার্ডডিস্কে কোনো ধরনের সমস্যা পেলে এটি আপনাকে আগে থেকেই জানিয়ে দিতে পারবে। সেক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় তথ্যের ব্যাকআপ রেখে সময়মতো হার্ডডিস্কটি বদলে নিতে পারবেন।