বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রী এমপিদের থাবা ট্রেনের টিকিটে

news-image

কোটা পদ্ধতির সুযোগে গণমানুষের ট্রেনের টিকিট নিয়ে নিচ্ছেন মন্ত্রী, এমপি, তাঁদের একান্ত সচিব, ব্যক্তিগত কর্মকর্তা ও রেলের কর্মকর্তারা। নিয়মানুযায়ী ভিআইপিসহ বিভিন্ন কোটায় ৩৫ শতাংশ টিকিট বিক্রির কথা। কিন্তু ঈদ মৌসুমে অনুরোধপত্রের চাপে পড়ে রেল কর্মকর্তারা ৬০ শতাংশ টিকিট ছাড়ছেন কোটায়। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, অনুরোধপত্রের মাধ্যমে কাউন্টার থেকে টিকিটের একটি বড় অংশ চলে যাচ্ছে কালোবাজারে। ঈদযাত্রার শেষ মুহূর্তে এসব টিকিট সাধারণ মানুষের কাছে বেচে দেওয়া হয় দ্বিগুণ-চার গুণ দামে।tran

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও একটি বিশেষ গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যানুসারে, কমলাপুরসহ দেশের আটটি রেলস্টেশনে টিকিট কালোবাজারির স্থায়ী সদস্য ৩৭৫ জন। এর মধ্যে রেলস্টেশনের টিকিট কাউন্টারের বুকিং সহকারী, পান দোকানদার, এটিএম বুথের নিরাপত্তাকর্মী থেকে শুরু করে ক্ষমতাসীন দলের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে এবং বিভিন্ন প্রভাবশালী মন্ত্রী-এমপির অনুসারীরাও রয়েছে। ৩৭৫ জনের মধ্যে ১৬৭ জনই রেলের কর্মকর্তা-কর্মচারী। তাদের একটি অংশ মন্ত্রী-এমপির নামে ডিও লেটার জমা দিয়ে নিজেরাই বা অন্যদের দিয়ে কৌশলে টিকিট সংগ্রহ করে বাজারে বিক্রি করে। এবার ঈদে উপলক্ষে ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরুর পর দ্বিতীয় দিন তিনজন ও গতকাল তৃতীয় দিন মোট আট কালোবাজারিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।
ঈদ সামনে রেখে গত মঙ্গলবার থেকে রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশনে আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। কিন্তু এরও ১০ দিন আগে থেকে রেল ভবনে জমা হতে শুরু করেছে প্রভাবশালীদের ‘অনুরোধপত্র’। রেলমন্ত্রী, রেলের মহাপরিচালক, যুগ্ম মহাপরিচালকের (অপারেশন) দপ্তরে গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রায় ৮০০ ডিও লেটার ও অনুরোধপত্র জমা পড়েছে। এগুলোর তালিকা যুগ্ম মহাপরিচালকের (অপারেশন) দপ্তর থেকে প্রতিদিন কমলাপুর রেলস্টেশনে বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তার দপ্তরে পাঠানো হচ্ছে। এসব চাহিদাপত্র দেখে সার্ভারে ব্লক করা হচ্ছে টিকিট। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আগাম টিকিট বিক্রি হবে। সাধারণ মানুষকে এই টিকিটের জন্য দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। তাদের বেশির ভাগই টিকিট নেই শুনে ফিরে আসছে। কিন্তু অনুরোধপত্রের মাধ্যমে ও টেলিফোনে তদবিরের টিকিটের জন্য লাইনে দাঁড়াতে হয় না।

রেল ভবন সূত্রে জানা গেছে, কমলাপুর থেকে প্রতিদিন ২৮টি আন্তনগর ট্রেনের প্রায় ১৭ হাজার টিকিট বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু এর ৬০ শতাংশই চলে যাচ্ছে অনুরোধে। রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, কোটায় ট্রেনের টিকিট দেওয়ার কথা ৩৫ শতাংশ। এর মধ্যে ৫ শতাংশ ভিআইপিদের জন্য, ৫ শতাংশ রেল কর্মচারীদের আর অনলাইনে বিক্রির জন্য ২৫ শতাংশ। কিন্তু ৫ ভাগ ভিআইপি কোটার বিপরীতে বাস্তবে ২০-২৫ শতাংশ টিকিট দিতে হচ্ছে। রেলওয়ের একজন কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের সুবর্ণ এক্সপ্রেসে আসন আছে ৭৯৯টি। কোটায় ভিআইপিদের পাওয়ার কথা ৪০টি। গত ঈদ মৌসুমে প্রায় প্রতিদিনই নির্দিষ্ট কোটার চেয়ে ২০ গুণ বেশি টিকিট দিতে হয়েছে। এই বাড়তি টিকিট দেওয়া হয়েছে সাধারণ যাত্রীদের বরাদ্দ থেকেই। এবার ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-রাজশাহী, ঢাকা-দিনাজপুর রুটে অপেক্ষাকৃত বেশি চাপ পড়েছে ভিআইপিদের। দুই এমপির ডিও লেটারেই ৮০ টিকিটের চাহিদা : গত ৫ সেপ্টেম্বর থেকেই রেল ভবনে টিকিটের জন্য অনুরোধপত্র আসছে। কেউ একাই ৫৪টি, আবার কেউ ৪০টি টিকিটও চাইছেন। সাধারণ শ্রেণির নয়, একেবারে কেবিন নতুবা প্রথম শ্রেণির এসি চেয়ারের টিকিট তাঁদের চাই-ই চাই। গত কয়েক দিন রেল ভবনে গিয়ে দেখা গেছে, সংশ্লিষ্ট শাখায় অনুরোধপত্রের স্তূপ জমে আছে। tran

একটি পত্র পাঠিয়েছেন ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজি মো. সেলিম। তিনি ২১ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর এই চার দিনে ১২টি ট্রেনের বিভিন্ন গন্তব্যের ৪০টি টিকিট চেয়েছেন। ৪০টি টিকিটের ২৩টিই আবার এসি চেয়ার কোচের। ১৩ সেপ্টেম্বর তাঁর স্বাক্ষরিত ডিও লেটারে ২১ সেপ্টেম্বর চিত্রা ট্রেনের আটটি, তূর্ণা ট্রেনের চারটি ও পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনের দুইটি এসি চেয়ার কোচের টিকিট চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ২২ সেপ্টেম্বর সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেসের পাঁচটি, যমুনা ট্রেনের দুইটি, সুবর্ণ এক্সপ্রেস, লালমনি এক্সপ্রেস, তূর্ণা নিশীথা, দ্রুতযান, ব্রহ্মপুত্র ও সুন্দরবন এক্সপ্রেসের একটি করে এসি শ্রেণির টিকিট, পদ্মা এক্সপ্রেসের চারটি এসি শ্রেণির টিকিট চাওয়া হয়েছে। ২৪ সেপ্টেম্বর ভ্রমণের জন্য চাওয়া হয়েছে ঢাকা থেকে ঈশ্বরদী পর্যন্ত সুন্দরবন এক্সপ্রেসের একটি চেয়ার ও সুবর্ণ এক্সপ্রেসের আটটি এসি চেয়ার আসনের টিকিট। গত বছর ঈদুল আজহার আগে এভাবে তাঁর নামে যমুনা, পদ্মা, ধূমকেতু ও সিল্ক সিটি ট্রেনের ২৮টি টিকিট চাওয়া হয়েছিল। গত বছর ৩ সেপ্টেম্বর তিনি রেল ভবনে অনুরোধপত্র পাঠান।
সংসদ সদস্য হাজি মো. সেলিমের কাছে গত বুধবার রাতে এত টিকিট কাদের জন্য জানতে চাইলে কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘আমি গতবার ছয়-সাতটি টিকিট পেয়েছিলাম। এবার টিকিট আছে। টিকিট থাকলে টিকিট পাব না কেন? এসব টিকিট আমাদের প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের যাতায়াতের জন্য চাওয়া হয়েছে।’
জামালপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য ফরিদুল হক খান পাঁচ দিনে ব্রহ্মপুত্র, তিস্তাসহ চারটি ট্রেনের ৪০টি টিকিট চেয়ে ডিও লেটার দিয়েছেন। জানতে চাইলে ফরিদুল হক খান বলেন, ‘দলের নেতা-কর্মী ও পরিচিতরা ঈদে বাড়ি যাবে। তাদের অনুরোধ সামাল দিতে হয়। গত ঈদে ৫০টির মতো টিকিট চেয়েছিলাম। চার-পাঁচটি ছাড়া সব পেয়েছি।’
আরো জানা গেছে, একজন প্রতিমন্ত্রীর পরিবারের সদস্য ও তাঁর দপ্তরের কর্মচারীদের জন্য আগামী ২২ থেকে ২৩ সেপ্টেম্বরের ১২টি টিকিট চাওয়া হয়েছে। প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব গত ১৩ সেপ্টেম্বর রেল মহাপরিচালকের কাছে এ জন্য ডিও লেটার পাঠান। ঢাকা-রাজশাহী রুটের সিল্ক সিটি ও পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনে ভ্রমণের জন্য এসব টিকিট চাওয়া হয়েছে। এভাবে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী-সংসদ সদস্যদের নামে টিকিটের চাহিদা জানানো হচ্ছে। এমপির প্যাড ও স্বাক্ষর, বাণিজ্য ক্যাডারদের : অনুসন্ধানে জানা গেছে, চাহিদার চেয়েও বেশি টিকিটের জন্য অনেক ক্ষেত্রে সংসদ সদস্যদের প্যাড ও স্বাক্ষর ব্যবহার করে তাঁর ক্যাডাররাও ডিও লেটার পাঠায়। যেমন, বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নানের প্যাডে ও স্বাক্ষরে ২২ ও ২৩ সেপ্টেম্বরের ২১টি টিকিটের জন্য ডিও লেটার দেওয়া হয়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের সুবর্ণ, তূর্ণা নিশীথা, ঢাকা-নোয়াখালী রুটের উপকূল, ঢাকা-রাজশাহী রুটের পদ্মা এক্সপ্রেসে ভ্রমণের জন্য এসব টিকিট চাওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ছয়টি টিকিট চাওয়া হয়েছে কেবিনের। বাকিগুলো এসি চেয়ারের। এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য আবদুল মান্নানের কাছে গত বুধবার মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘আমি কোনো চিঠি দিইনি।’ ওই চিঠিতে সুজন নামে একজনের মোবাইল ফোন নম্বর দেওয়া ছিল যোগাযোগের জন্য। সুজনের নাম উল্লেখ করতেই এমপি আবদুল মান্নান বললেন, সে গত বছর ঈদের সময় দুটো টিকিট চেয়েছিল। এবার আমার কাছে কোনো টিকিট চায়নি। আমি চিঠিও দিইনি।’
পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য খন্দকার আজিজুল হক আরজুর নামে ৫৪টি টিকিটের চাহিদা জানানো হয়েছে। গত ১৪ সেপ্টেম্বর তাঁর প্যাডে ও স্বাক্ষরে পাঠানো ডিও লেটারে সুবর্ণ, তূর্ণা নিশীথা, ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, চিত্রা, দ্রুতযান ট্রেনে ২০ থেকে ২৩ সেপ্টেম্বর ভ্রমণের জন্য এসব টিকিট চাওয়া হয়। তবে এমপি আরজুর কাছে গত বুধবার রাতে জানতে চাইলে কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে তাঁর কিছুই জানা নেই। আমি ট্রেনে চলাচল করি না। আমি এত টিকিট চাইব কেন? আমি টিকিটের জন্য কোনো ডিও লেটার লিখিনি।’ নাসির নামের এক ব্যক্তি এই সংসদ সদস্যের প্যাড ব্যবহার করেছেন। যোগাযোগের জন্য নাসির নিজের ও সুজনের মুঠোফোন নম্বর দিয়েছেন অনুরোধপত্রে। সুজনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এমপি আবদুল মান্নান দেশে ছিলেন না। তাই তাড়াহুড়ো করে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তবে আরজু স্যারের চিঠিতে কে আমার ফোন নম্বর ব্যবহার করেছে, বলতে পারব না।’ রেল মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানিয়েছে, এভাবে ভুয়া ডিও লেটারে কাউন্টার থেকে টিকিট বের করে কালোবাজারে নেওয়া হচ্ছে।


রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মো. এনামুল হকের প্যাড ও স্বাক্ষরে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের মহানগর প্রভাতীর চারটি এসি কেবিনের টিকিটের ডিও লেটার রেল ভবনে জমা পড়ে ৮ সেপ্টেম্বর। রাজশাহীর এমপি কেন ঈদের আগে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের ট্রেনের টিকিট চেয়েছেন জানতে চাইলে গতকাল বিকেলে এনামুল হক বলেন, ‘আমি বিমানে চলাচল করি। আমি কেন ট্রেনে যাব? আমি কোনো ডিও লেটার দিইনি। গত বছরও একই কাণ্ড ঘটেছিল।’ এমপি বলেন, ‘রেলের কর্মকর্তারাও এতে জড়িত। এদের বিরুদ্ধে লিখুন, ধরিয়ে দিন।’
সেলুনও লাগিয়ে দেয় রেল! : পাবনা-৩ আসনের সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন ২৩ সেপ্টেম্বরের সুন্দরবন এক্সপ্রেসের চারটি টিকিট চেয়েছেন। মকবুল হোসেন বলেন, ‘আমার ও আমার অফিসের স্টাফদের জন্য এসব টিকিট চেয়েছি।’ পঞ্চগড়-১ আসনের সংসদ সদস্য নাজমুল হক প্রধান ২১ বা ২২ সেপ্টেম্বর ঢাকা থেকে নীলসাগর ট্রেনে ভ্রমণের জন্য এসি সেলুনের চারটি টিকিট চেয়ে চিঠি দিয়েছেন। নেত্রকোনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেবেকা মমিনের একান্ত সচিব রফিকুল ইসলাম ‘অতিথিদের জন্য’ ২২ সেপ্টেম্বর হাওড় এক্সপ্রেস ট্রেনে ঢাকা থেকে মোহনগঞ্জ যাওয়ার আটটি টিকিট চেয়েছেন। দিনাজপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর জন্য ডাবল কেবিন চেয়ে আবেদন করেছেন তাঁর ব্যক্তিগত সহকারী মোক্তাদির হোসেন। মোক্তাদির বলেন, সিঙ্গেল বা ডাবল কেবিন দরকার। টিকিট এখনো পাইনি। সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী  বলেন, সংসদ সদস্য হিসেবে প্রয়োজন হলে ট্রেনে নতুন বগি লাগিয়ে দেয়। সেলুনও লাগিয়ে দেয়।
চাহিদা বেশি রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের : কোটায় ৫ শতাংশ টিকিট সংরক্ষণের প্রথা রয়েছে রেল কর্মচারীদের জন্য। কিন্তু রেলপথ মন্ত্রণালয়ের বড় কর্মকর্তাদের দাপটে ছোট কর্মচারীরা টিকিট পান না। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা শাখা-২-এর সহকারী প্রধান বিবেক সরকার ২১ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বরের ১৬টি টিকিট চেয়েছেন একাই। ২১ সেপ্টেম্বরের ছয়টি, ২২ সেপ্টেম্বরের চারটি, ২৩ সেপ্টেম্বরের চারটি ও ২৪ সেপ্টেম্বরের দুইটি টিকিট চেয়ে রেলের যুগ্ম মহাপরিচালকের (অপারেশন) কাছে তিনি চিঠি দিয়েছেন। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব মো. আসাদুজ্জামান ১৩ সেপ্টেম্বর রেল ভবনে অনুরোধপত্র দিয়েছেন ২০ সেপ্টেম্বর দ্রুতযান বা একতা এক্সপ্রেসের প্রথম শ্রেণির তিনটি টিকিটের জন্য। রেলমন্ত্রীর গানম্যান মো. মোস্তাফিজুর রহমান ২১ সেপ্টেম্বর মহানগর প্রভাতীর দুটো ও ২৩ সেপ্টেম্বর নীলসাগরের দুটো টিকিট চেয়েছেন। রেলওয়ের সংস্থাপন শাখার কর্মকর্তা আবদুল আজিজ ১৯ থেকে ২৪ সেপ্টেম্বরের কেবিন ও প্রথম শ্রেণির ২১টি টিকিট চেয়েছেন। রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির একান্ত সচিব আবদুল কাদের জিলানির নামে দেওয়া চাহিদাপত্রে ২২ ও ২৩ সেপ্টেম্বরের ১৩টি টিকিট চাওয়া হয়েছে। ২৩ সেপ্টেম্বর রংপুর এক্সপ্রেসে ঢাকা থেকে রংপুর যাওয়ার তিনটি স্লিপিং বার্থ ও একই দিন একই ট্রেনে বগুড়া যাওয়ার তিনটি স্লিপিং বার্থ চাওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ২২ সেপ্টেম্বর দ্রুতযান এক্সপ্রেসের পাঁচটি প্রথম শ্রেণির এসি চেয়ারের টিকিট লাগবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে চিঠিতে।


রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক গত মঙ্গলবার কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিট বিক্রি কার্যক্রম পরিদর্শন করে বলেছেন, সাধারণ যাত্রীরা যাতে টিকিট পায় তার ওপর বেশি নজর দেওয়া হবে। রেলের মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন এক মাসের ছুটিতে বিদেশে অবস্থান করছেন। কমলাপুর রেলস্টেশনের ব্যবস্থাপক সীতাংশু চক্রবর্তী কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘চাপ সব সময়ই ছিল। সেটা আগে যেভাবে মোকাবিলা করা হয়েছে এবারও সেভাবেই করা হবে। আর রেলভবন থেকে যাচাই করে এবার চাহিদা পাঠানো হচ্ছে কমলাপুরে।’ সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ডিও লেটার ছাড়াও টিকিট পেতে ভিআইপিরা টেলিফোনে তদবির করছেন। ঝাড়িও খেতে হচ্ছে। এ কারণে রেলভবনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা দিনের বেশির ভাগ সময় মোবাইল ফোন বন্ধ রাখছেন। 

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা