বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনুভূতি ও সম্পর্ক, সন্তান এবং নতুন সহোদর

news-image


 
আপনি সন্তানসম্ভবা – এটা জানার সাথে সাথে সবকিছু বদলে যেতে শুরু করে। আপনার ব্যাপারে আপনার নিজের অনুভূতি পালটায়, অনাগত শিশু আর আর তার ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবনা শুরু হয়। আপনার স্বামীর সাথে আপনার সম্পর্ক পালটায়, ইতিমধ্যে যদি আপনি এক সন্তানের মা হয়ে থাকেন, তাহলে সেই শিশুটির সাথেও আপনার সম্পর্কের নতুন মাত্রা যোগ হয়। সম্পর্কের মাত্রা বদলায় আপনার মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজন আর বন্ধু-বান্ধবের সাথে। আর, এই পরিবর্তনগুলোর সাথে হঠাৎ করে খাপ খাইয়ে নেয়াও সহজ হয় না। 
এই নিবন্ধে যে বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে তার সবকিছুই যে সবার ক্ষেত্রে ঘটে তা নয়। আপনার যে সমস্যাটা হচ্ছে না, সেটা হয়তো অন্য আরেকজন সন্তানসম্ভবা মায়ের জন্য গুরুতর সমস্যা। এই নিবন্ধ থেকে সবাই তাদের নিজস্ব সমস্যা অনুযায়ী পরামর্শগুলো কাজে লাগাতে পারেন।
 
আপনার অনুভূতি
এ সময় আপনার শরীরে যেসব হরমোনের পরিবর্তন হচ্ছে সেগুলো নিয়ে পড়ুন। আপনার হয়তো দুশ্চিন্তা হয়, কিংবা রাতে ঘুমের ঘোরে হয়তো অদ্ভুত স্বপ্ন দেখেন, এমনকি দুঃস্বপ্নও দেখেন – সেগুলো সম্পর্কে জানুন। আপনার মনে বিষন্নতার বীজ সুপ্ত আছে কি না সেটা জানাও কিন্তু জরুরি।
 
শিশুটি ঠিকমতো জন্মাবে তো?
তলপেটের সংকোচনের এর সাথে কীভাবে খাপ খাইয়ে নেবেন সে ব্যাপারে জেনে নিতে হবে। সেই সাথে যদি এটাও জেনে নেন যে দুশ্চিন্তাগুলোকে ঝেড়ে ফেলবেন কিভাবে, আর অনাগত শিশুটির ব্যাপারে কি চাইতে পারেন, তাহলে দুশ্চিন্তামুক্ত হওয়া সহজ হবে।
 
শিশুটির কোনো অস্বাভাবিকতা নেই তো ?
গর্ভের শিশুকে নিয়ে এরকম দুশ্চিন্তা হওয়াটা স্বাভাবিক। জেনে নিন, কি করলে ঝুঁকিমুক্ত থাকতে পারেন আর কোন কাজগুলো ঝুঁকি বাড়াতে পারে। গর্ভের শিশুর কোনো অস্বাভাবিকতা আছে কি না সেটা জানার জন্য বিভিন্ন ধরণের স্ক্রিনিং টেস্ট আছে, সেগুলো সম্পর্কেও জানুন।
 
সঙ্গী, পরিবার ও বন্ধুদের সাথে সম্পর্ক
জেনে নিন গর্ভাবস্থায় আশেপাশের মানুষদের সাথে সম্পর্কগুলো কিভাবে পালটায়, কেনই বা পালটায়।
 
গর্ভাবস্থায় যৌন মিলন
গর্ভাবস্থায় যৌন মিলন কতটুকু পর্যন্ত নিরাপদ আর কতটুকু নয় ? এ সময় আপনার পেট বড় হয়ে যাচ্ছে, ফলে কোন ভঙ্গিতে যৌন মিলন করা আপনার জন্য নিরাপদ হবে সে ব্যাপারে পরামর্শগুলো জেনে নিন।
 
মাতৃত্বকালীন ছুটি
যাদের সাথে প্রতিদিন কাজ করছেন, তাদের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে লম্বা ছুটিতে যাচ্ছেন – তার মানে কিন্তু নিজের জন্য আর অনাগত সন্তানের জন্যই এই সময়টাকে বরণ করছেন।
 
একা মায়েদের জন্য
আপনি গর্ভবতী, কিন্তু আপনার সঙ্গী হয়তো আপনার সাথে নেই। সেক্ষেত্রে অন্যান্য সন্তানসম্ভবা নারীদের সাথে কথা বলতে পারেন। কোথায় থাকবেন, টাকা-পয়সা কীভাবে ব্যবস্থা করবেন এগুলো জানা আপনার জন্য জরুরি। তাছাড়া সন্তান প্রসবের সময় সঙ্গী হিসেবে কে আপনার সাথে থাকবে সেটাও ঠিক করতে হবে।
 
পারিবারিক নির্যাতন
একজন নারী তার ঘরে এমনকি গর্ভাবস্থায়ও শারীরিক, আবেগী, যৌন বা মানসিক যে কোনোভাবেই নির্যাতিত হতে পারেন। এসব নির্যাতনের লক্ষণগুলো কি হয়, আর কোথায় গেলে আপনি সাহায্য পেতে পারেন সে সম্পর্কে জানুন।
 
প্রথম সন্তানকে তার নতুন ভাই বা বোনের জন্য প্রস্তুত করুন
একজন নতুন শিশুর আগমন অবশ্যই একটা সুন্দর চমক। কিন্তু, এমনও হতে পারে যে আপনার যদি ইতিমধ্যেই একজন সন্তান থাকে সে এই নতুন শিশুর আগমনে নিজেকে অনিরাপদ ভাবতে পারে, এমনকি ঈর্ষান্বিত বোধ করতে পারে। নতুন শিশুর আগমন কি প্রথম সন্তানকে মানসিকভাবে প্রচন্ড আহত করতে পারে? সে কি এভাবে ভাবে যে তার খেলনা, কাপড়-চোপড় এসব নতুন শিশুটির সাথে ভাগাভাগি করে নিতে হবে? শুধু তাই না, তাকে তো এখন তার পুরনো খাট, এমনকি তার ঘর, তার প্রিয় দাদা-দাদী, নানা-নানীকেও ভাগাভাগি করতে হবে। সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্যাপার হচ্ছে তার মা-বাবার ওপরও নতুন শিশুটি ভাগ বসাবে! তার এতদিনের একান্ত নিজস্ব জগতে যেন একটা আগন্তুক এসে হানা দিচ্ছে! এসব অনুভূতি দ্বারা তাড়িত হয়ে শিশুরা অনেক সময়ই এমন কাজ করে যেগুলো নিয়ে হয়তো অনেক বছর পরে অনেক হাসাহাসি হয়। কিন্তু, কখনো কখনো এমন পরিস্থিতিও তৈরি হয় যার জন্য সারাজীবন হয়তো একটা পরিবারকে দুঃখ বয়ে বেড়াতে হয়।

 

সন্তান এবং নতুন সহোদর
 
একটি সন্তানের চেয়ে দুইটির সাথে মানিয়ে নেওয়া আরও বেশি কঠিন। প্রথম প্রথম এটা বেশ জটিল হতে পারে বিশেষ করে যদি আপনার প্রথম সন্তান অল্প বয়সী হয়। আপনার জন্য কাজের পরিমাণ দ্বিগুণের চেয়ে বেশি হয়ে যায় আর সময় ও মনোযোগের ভাগাভাগিটা ঝামেলাযুক্ত হতে পারে। তবে একটি শিশুকে দেখাশোনা করার অভিজ্ঞতা এবং সম্ভবত অধিকতর আত্মবিশ্বাস আপনার রয়েছে, যা আপনাকে সাহায্য করবে।
childen
 
অধিকতর বড় পরিবার হিসেবে ও একের অধিক শিশুর দেখাশোনার জন্য মানিয়ে নিতে নিতে কিছুটা সময় লাগবে। আপনার বড় সন্তানকেও (বা সন্তানদেরকে) মানিয়ে নিতে হবে। কারো কারো জন্য বিষয়টি কঠিন। আপনি হয়তো দেখবেন যে আপনার বড় শিশুটি ঈর্ষাপরায়ণ হয়ে উঠছে বা মনোযোগ আকর্ষণ করতে চাইছে। এক্ষেত্রে তাদের প্রত্যেকের সাথে এককভাবে সময় কাটানোটা জরুরী।
 
এছাড়াও নিম্নলিখিত পরামর্শগুলো সহায়ক হতে পারেঃ
* আগের রুটিন ও কাজকর্ম বজায় রাখার চেষ্টা করুন। খেলার মাঠে যাওয়া, বন্ধুদের সাথে দেখা করা ও রাতে শোয়ার সময় গল্প বলা ইত্যাদি কাজগুলো করা প্রথম কয়েক সপ্তাহে কষ্টকর হতে পারে। তবে প্রতিষ্ঠিত রুটিনের প্রতি অনুগত থাকাটা আপনার আগের সন্তানকে আশ্বস্ত হতে সাহায্য করবে।
 
* এটা আপনাকে বুঝতে হবে যে আপনার বড় শিশুটি নতুন শিশুটিকে প্রথম প্রথম ভালো নাও বাসতে পারে। তারা হয়ত আপনার মতো করে বিষয়টি অনুভব করবেনা। যদি তারা আপনার আনন্দকে ভাগ করে নেয় তো ভালো তবে তা আশা করবেন না।
 
* অতিরিক্ত আবদারের সাথে মানিয়ে নেওয়ার জন্য প্রস্তুত হোন। আপনার বড় শিশুটি হয়তো আগের চেয়ে বেশি মনোযোগ চাইবে। এক্ষেত্রে দাদা-দাদি, নানা-নানি হয়ত সাহায্য করতে পারবে তবে তারপরও আপনার শিশুর আপনার সাথে এককভাবে সময় কাটানোর প্রয়োজন রয়েছে যাতে করে সে এটা না মনে না করে যে তাকে ভুলে যাওয়া হয়েছে।
 
* আপনার আগের সন্তানকে আগ্রহী হতে উৎসাহিত করুন। বাচ্চারা সবসময় শিশুদেরকে পছন্দ করেনা তবে তাদের কাছে নতুন শিশুকে আকর্ষণীয় লাগতে পারে। আপনার বড় সন্তানেরা শৈশবে কেমন ছিলো এবং কি কি করতো তাদেরকে সেসব বলার মাধ্যমে এই বিষয়টির প্রতি আগ্রহী করে তুলতে পারেন। তাদের পুরনো খেলনাগুলো বের করুন এবং ছবি দেখান।
 
* শিশুকে খাওয়ানোর সময় তাদের মনোযোগ অন্য দিকে সরিয়ে দিন। আপনি যখন আপনার শিশুকে খাওয়ান তখন আপনার আগের সন্তানটি পরিত্যক্ত ও ঈর্ষান্বিত বোধ করে। তাদের করার জন্য কিছু খুঁজে বের করুন বা খাওয়ানোর পর্বটাকে তাদের সাথে গল্প করার বা কোন গল্প বলার একটি সুযোগ হিসেবে ব্যবহার করুন।
 
* তাদের শিশুসুলভ আচরণে ধৈর্য ধারণ করুন। আপনার আগের শিশুটি হয়তো বোতল চাইতে পারে,প্যান্ট ভেজাতে শুরু করবে বা কোলে নিতে বলবে। এটা সম্পূর্ণ স্বাভাবিক আচরণ তাই চেষ্টা করুন যাতে এটিতে আপনি বিরক্ত না হন এবং প্রত্যেক সময় তাকে না বলবেন না।
 
* কিছুটা ঈর্ষা ও অসন্তোষ প্রত্যাশা করুন। এরকমটা ঘটা প্রায় নিশ্চিত। আপনার সঙ্গী, দাদা-দাদি, নানা-নানি বা কোন বন্ধুর সাহায্য চান যাতে আপনি নিজেকে প্রতিটি শিশুর সাথে একা সময় দিতে পারেন। এটি আপনাকে আপনার উপর আরোপিত দাবিসমূহের ভারসাম্য রাখতে সাহায্য করবে।
 
* আপনার সন্তানকে শিশুটির সাথে জড়িত হতে উৎসাহিত করুন। শিশুর দেখাশোনাকে একটি মজার খেলায় পরিনত করুন এবং আপনার সন্তানকে শিশুটির সাথে কথা বলতে অনুপ্রাণিত করুন।

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা