বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিল্লিকে ইলিশে প্রত্যাখান করেছে ঢাকা

news-image
পানি না এলে কি করে ইলিশ যাবে- বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই ঠাট্টার উক্তিটি যে বাস্তবিক সেটা এবার পরিস্কার হয়ে গেল। ফেব্রুয়ারিতে গণভবনের নৈশভোজের সময় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ইলিশ আবদারের প্রসঙ্গে  শেখ হাসিনা ওই মন্তব্য করেছিলেন। তিস্তার জটে যে ইলিশ আটকে যাবেই সেটি তখন দুই দেশের মিডিয়া বোদ্ধারা পরিস্কার বলে দিয়েছিলেন গণমাধ্যম গুলোতে। এবার সেটি তিস্তার পানির মতোই পরিস্কার হয়ে গেল। কেননা ঢাকা সাফ জানিয়ে দিয়েছে ভারতের কোনওভাবেই ইলিশ মাছ দেওয়া সম্ভব নয়। যদিও চিঠির ভাষায় কয়েক দফায় অভ্যন্তরিন সমস্যার কথা উল্লে্যখ হরয়েছে। বলা হয়েছে,  ’অভ্যন্তরীন সমস্যার কারণে ভারতে ইলিশ দেওয়া সম্ভব নয়’।

দায়িত্বশীল সূত্রের খবর, ৭ জুন ঢাকায় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির থাকার সময় ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে তাদের পরারাষ্ট্রমন্ত্রণালয় হয়ে বাংলাদেশ সরকারের কাছে ইলিশ চেয়ে আবেদন সরাসরি আবেদন জানায় দিল্লি। ২১ জনু সেই আবেদনের প্রেক্ষিতেই ঢাকা থেকে পরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে দিল্লিকে ’অভ্যন্তারিন সমস্যায় ইলিশ দেওয়া যাবে না’ বলে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি দিয়ে জানানো হয়। ওই চিঠি পেয়ে ৩০ জুন ভারতের ফিস ইমপোর্ট অ্যাক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশনকে দিল্লি থেকে তাদের এই ব্যর্থতার কথা জানানো হয়।  সূত্র নিশ্চিত করেছে, দিল্লি ওই মাছ আমদানীকারকদের পরামর্শ দিয়েছে যে, ঢাকা নয় আপনারা এখন বার্মা থেকেই ইলিশ মাছ আমদানী করুন।

সম্প্রতি দিল্লির বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সেই চিঠি পেয়ে ভারতের বাংলাদেশ থেকে ইলিশ আমদানাীকারকদের কাছে একইভাবে ’অপরাগতা’ প্রকাশ করে জানিয়েছে দিল্লি ঢাকা থেকে ইলিশ আনার চেষ্টায় ব্যর্থ। আপাতত বাংলাদেশের ইলিশ ভারতে আসছে না।

দিল্লি থেকে ঢাকার এই প্রত্যাখানপত্রের খবর কদিন আগেই পৌছে ভারতে ইলিশ আমদানীকারকদের কাছে।

কেন্দ্রীয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ওই চিঠি পাওয়ার কথা স্বীকার করে ’ক্ষোভ প্রকাশ’ করেছেন ফিস ইমপোর্টার অ্যান্ড অ্যাক্সপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার মোকসেদ। তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, ’তারা (দিল্লি) তো ঢাকা থেকে ইলিশ আনতে ব্যর্থ হলোই আবার আমরা কোথা থেকে ইলিশ আনবো না আনানো সেটাও তারা নির্ধারণ করে দিয়েছে। আমরাতো জানিই যে তিস্তার পানি না গেলে পদ্মার ইলিশও এপারে (পশ্চিমবঙ্গে) আসবে না’।

এদিকে টেলিফোনে যোগাযোগ করা হলে ভারতের বাংলাদেশি ইলিশ আমদানীকারকদের সংগঠন ফিস ইমপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন বা হিলশার সভাপতি অতুল চন্দ্র দাসও দিল্লির অপরাগতার চিঠি পাওয়ার কথা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, ’মে মাসের শেষ দিকে ফিস ইমপোটার্স অ্যাসোশিয়েশনের তরফে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে চিঠি দিয়ে তার ঢাকা সফরের সময় ইলিশ নিয়ে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রীর কাছে ওই অনুরোধ গুরুত্বের সঙ্গে গৃহিত হয় এবং বিষয়টি মোদি সরাসরি ভারতের কেন্দ্রীয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে দেখার নির্দেশ দিয়েছিলেন’।
জুন মাসের শেষ দিকে ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি আসে এবং সেখানে ঢাকা থেকে ইলিশ আনার উদ্যোগে তারা ব্যর্থ বলে স্বীকার করেন এবং পরবর্তীতে বিষয়টি দেখার কথা জানানো হয়- এই কথাও বলেন অতুল চন্দ্র দাস।পদ্মার ইলিশের চাহিদা মেটাতে ইতিমধ্যে উড়–গুয়ে থেকে ইলিশের মতো দেখতে ’রুপসি’ মাছ আনার উদ্যোগও কার্যত ভেস্তে গিয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গিয়েছে। ২৫ টন মাছের অর্ডারও দেওয়া রয়েছে। কিন্তু সেই ’রুপসি’ মাছ মোটেও এপার বাংলার বাঙালির পাতে পদ্মার ইলিশের বিকল্প হয়ে উঠবে না। সেটি বুঝতে পেরেই শেষ পর্যন্ত রুপসির মাছ আমদানী থেকেই সরে এসেছেন ভারতে পদ্মার ইলিশ আমদানীকাররা।

পশ্চিমবঙ্গ মৎস দফতর সূত্রের জানা গিয়েছে সর্বশেষ সরকারিভাবে ২০১২ সালে বাংলাদেশ থেকে ইলিশ এসেছিল ২০০ টন। সে বছর জুন মাসেই বাংলাদেশ সরকার ভারত সহ বিদেশে ইলিশ রফতানী বন্ধ করে। এর আগে ২০০৭ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর গড়ে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টন ইলিশ আমদানী করা হতো পশ্চিমবঙ্গে। সরকারি হিসাব অনুযায়ী রাজ্যেও ৪০ জন ইলিশ আমদানীকারক বাংলাদেশ থেকে ইলিশ মাছ আমদানী করতেন। কিন্তু বাংলাদেশ সরকারের এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর তারা এই ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছেন।

রাজ্যের শীর্ষস্থানীয় মাছ আমদানীকারক আনোয়ার মোকসেদ এই প্রতিবেদককে জানান, দিল্লিকে বহু চিঠি দিয়েছি আমরা। কোন চিঠির উত্তর পায়নি। তবে এবার দুটি চিঠি পেয়েছি। একটি প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে, যেখানে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল বিষয়টি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দেখবে। এবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে আরো একটি চিঠি পেলাম, যেখানে তারা ঢাকা থেকে ইলিশ আমদানীতে ব্যর্থতা স্বীকার করে নিয়ে বার্মা থেকে ইলিশ আমদানীর পরামর্শ দিয়েছে।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, ত্রিপুরা, মেঘালয় ছাড়াও উত্তরভারতের পদ্মার ইলিশের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। ১৯৯৮ সাল থেকেই ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে ইলিশ আমদানী-রফতাণী বাণিজ্য শুরু হয়। যেটি ২০১২ সালে ১১ জুন বন্ধ হয়ে যায়। ভারতের ব্যবসায়ীদের দাবি, সরকারিভাবে ইলিশ আসা বন্ধ হলেও অবৈধভাবে প্রচুর ইলিশ সীমান্ত দিয়ে ঢুকছে এপারে (পশ্চিমবঙ্গে)। এতে দুই দেশের সরকারই তাদের রাজস্ব হারাচ্ছে। তেমনই ইলিশ মাছ নিয়ে যারা ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করেন, সেই ব্যবসায়ীরাও অর্থনৈতিকভাবে চরম ঝুকির মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা