শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের বিনম্র প্রকাশ কোরবানি

news-image

কোরবানি মুসলিম উম্মাহর দ্বিতীয় বৃহৎ জাতীয় উৎসব। জিলহজ মাসের ১০ তারিখে পালিত হয় এ উৎসব। কোরবানি শব্দটি আরবি বা ফারসি। এর আভিধানিক অর্থ ত্যাগ বা নৈকট্য। আত্মত্যাগের দুরূহ কঠিন পথ পেরিয়েই মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভ সম্ভব। আর আল্লাহর নৈকট্যেই বান্দার সত্যিকার আনন্দ। তাই বলা হয়, 'ভোগে নয়- ত্যাগেই সুখ।' হজরত ইব্রাহিম (আ.) তাঁর জীবনের বাঁকে বাঁকে সম্মুখীন হয়েছেন আত্মত্যাগের সমূহ অগ্নিপরীক্ষার। ইরশাদ হয়েছে- 'স্মরণ করো, যখন ইব্রাহিমকে তার রব কয়েকটি বিষয়ে পরীক্ষা নিলেন আর সে তার সব কয়টি পরিপূর্ণ করে দিল। তার রব বললেন, আমি তোমাকে মানবজাতির ইমাম বানাব। সে বলল, আমার বংশধরদের মধ্য থেকেও! রব বললেন, আমার অঙ্গীকার জালিমদের পর্যন্ত পৌঁছবে না।' (সুরা বাকারা : ১২৪)

ইব্রাহিম (আ.)-এর জন্ম হয়েছিল একটি প্রতিকূল পরিবেশে, প্রসিদ্ধ মূর্তি নির্মাতা আজরের ঘরে। জন্মের পর থেকে মূর্তি আর মূর্তি পূজা দেখে দেখে একসময় তিনি মূর্তি পূজার বিরুদ্ধে প্রতিবাদও করে বসলেন। হলেন পিতার বিরাগভাজন, মাতৃগৃহ থেকে বিতাড়িত। ইরশাদ হয়েছে, 'তুমি এই কিতাবে ইব্রাহিমের কথা বর্ণনা করো। নিশ্চয়ই সে ছিল একজন সত্যবাদী নবী। যখন সে তার পিতাকে বলল : হে আমার পিতা! যে (মূর্তি) কোনো কিছুই শোনে না, দেখে না এবং আপনার কোনো উপকারে আসে না, আপনি কেন তার পূজা করেন? পিতা, আমার কাছে এমন জ্ঞান এসেছে, যা আপনার কাছে আসেনি। সুতরাং আপনি আমার অনুসরণ করুন, আমি আপনাকে সরল পথের সন্ধান দেব। পিতা! আপনি শয়তানের অনুসরণ করবেন না। শয়তান তো দয়ালু আল্লাহর অবাধ্য। হে আমার পিতা! আমার আশঙ্কা হয় যে দয়াময়ের পক্ষ থেকে কোনো আজাব আপনাকে স্পর্শ করবে, তখন আপনি শয়তানের সঙ্গী হয়ে যাবেন। তার পিতা বলল, ইব্রাহিম! তুমি কি আমার উপাস্যদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছ? তুমি যদি বিরত না হও তাহলে আমি অবশ্যই তোমাকে প্রস্তরাঘাতে প্রাণনাশ করব। তুমি চিরতরে আমার থেকে দূরে সরে যাও। ইব্রাহিম বলল, আপনার ওপর শান্তি হোক! আমি আমার রবের কাছে আপনার জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করব। নিশ্চয়ই আমার রব আমার প্রতি অশেষ করুণাময়। আমি আপনাদের এবং আপনারা যাদের পূজা করেন তাদের পরিত্যাগ করছি। আমি আমার রবের ইবাদত করব, আশা করি, আমার রবের ইবাদত করে বঞ্চিত হব না।' (সুরা মারইয়াম : ৪১-৪৮)

হজরত ইব্রাহিম (আ.) জগদ্বিখ্যাত খোদাদ্রোহী, তৎকালীন জালিমশাহির জুলুম আর মূর্তি পূজার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও চূড়ান্ত আঘাত করায় খোদা দাবিদার নমরুদ কর্তৃক জ্বলন্ত অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষিপ্ত হয়েও অবিচল ছিলেন ইমানের পথে। ইরশাদ হয়েছে- 'অতঃপর সে সেগুলোকে চূর্ণ-বিচূর্ণ করে দিল ওদের প্রধানটাকে বাদ দিয়ে; যাতে তারা তার কাছে ফিরে আসে। তারা বলল, আমাদের উপাস্যদের সঙ্গে এরূপ আচরণ কে করল? নিশ্চয়ই সে জালিম। কেউ কেউ বলল, আমরা এক যুবককে তাদের সম্পর্কে বিরূপ আলোচনা করতে শুনেছি, যাকে ইব্রাহিম নামে ডাকা হয়। তারা বলল : তাকে জনসমক্ষে উপস্থিত করো, যাতে তারা প্রত্যক্ষ করতে পারে। তারা জিজ্ঞাসা করল, হে ইব্রাহিম! তুমিই কি আমাদের উপাস্যদের সঙ্গে এরূপ আচরণ করেছ? সে বলল, এদের প্রধানই তো এ কাজ করেছে। তোমরা তাদের জিজ্ঞাসা করো, যদি তারা উত্তর দিতে পারে। অতঃপর তারা মনে মনে বলল, আসলে তোমরাই তো অবিচার করেছ! তারপর তারা তাদের মস্তক অবনত করে বলল, তুমি তো জানো যে তারা কথা বলতে পারে না। সে বলল : তোমরা কী আল্লাহকে বাদ দিয়ে এমন কারো পূজা করো, যারা তোমাদের কোনো উপকারও করতে পারে না এবং কোনো ক্ষতিও করতে পারে না। ধিক তোমাদের এবং তোমরা আল্লাহকে বাদ দিয়ে যাদের পূজা করো তাদের। তোমরা কী বোঝো না? তারা বলল : একে জ্বালিয়ে দাও এবং তোমাদের উপাস্যদের সাহায্য করো, যদি তোমরা কিছু করতেই চাও। আমি (আল্লাহ) বললাম : 'হে অগ্নি! তুমি ইব্রাহিমের ওপর শীতল এবং নিরাপদ হয়ে যাও। তারা ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করতে চেয়েছিল, সুতরাং আমি তাদের সর্বাধিক ক্ষতিগ্রস্ত বানিয়ে দিলাম।' (সুরা আম্বিয়া : ৫৮-৭০)

স্বদেশবাসী হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর তাওহিদের দাওয়াতকে চূড়ান্ত নিষ্ঠুরতার সঙ্গে প্রত্যাখ্যান করায় তাঁকে আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠার জন্য জন্মভূমি ত্যাগ করে সিরিয়া, অতঃপর মক্কার হিজরতকে হাসিমুখে বরণ করতে হয়েছিল। ইরশাদ হয়েছে- 'আর নুহপন্থীদের একজন ছিলেন ইব্রাহিম। স্মরণ করো, সে বিনম্রচিত্তে তার রবের কাছে উপস্থিত হয়েছে। যখন সে তার পিতা ও সম্প্রদায়কে বলল : তোমরা কিসের উপাসনা করছ? তোমরা কি আল্লাহকে ছেড়ে অলীক কোনো উপাস্যের খোঁজ করছ? বিশ্বজগতের প্রতিপালকের সম্পর্কে তোমাদের ধারণা কী? অতঃপর সে একবার নক্ষত্ররাজির প্রতি তাকাল, তারপর বলল : আমি পীড়িত। এরপর তারা তাকে পশ্চাতে রেখে চলে গেল। তারপর সেও তাদের দেবালয়ে গিয়ে ঢুকল এবং (দেবতাদের) বলল : তোমরা খাচ্ছ না কেন? কী হলো তোমাদের, তোমরা কথা বলছ না কেন? অতঃপর তিনি তাদের ওপর প্রবল আঘাতে ঝাঁপিয়ে পড়লেন। তখন লোকজন তার দিকে তেড়ে এলো ভীত অবস্থায়। সে বলল : তোমরা স্বহস্তে নির্মিত পাথরের মূর্তির পূজা করছ কেন? অথচ আল্লাহ তোমাদের এবং তোমরা যা কিছু তৈরি করেছ সবাইকে সৃষ্টি করেছেন। তারা বলল : তার জন্য একটি ভিত নির্মাণ করো, অতঃপর তাকে আগুনে নিক্ষেপ করো। তারা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করল, আর আমি তাদের পরাভূত করে দিলাম।' (সুরা আস্ সাফফাত : ৮৩-৯৮)

হজরত ইব্রাহিম (আ.) ছিলেন সহায়সম্বলহীন ও দুর্বল। জীবনের ওপর তাঁর বার্ধক্যের ছাপ নেমে এসেছিল। তখন পর্যন্ত পুত্রসন্তানের মুখ দেখার সৌভাগ্য হয়নি তাঁর। অঝোর নয়নে বহু কাকুতিমিনতির পর জীবনসন্ধ্যায় মহান আল্লাহ তাঁকে দিয়েছিলেন এক পুত্রসন্তান। আল্লাহর নির্দেশে সদ্যপ্রসূত সন্তান আর তার গর্ভধারিণী মাকে নির্বাসনে দিয়েও তাঁকে অবিচল থাকতে হয়েছে একত্ববাদ প্রচারের মিশন পরিচালনায়। ইরশাদ হয়েছে- 'তাদের ইব্রাহিমের অতিথিদের ঘটনা শুনিয়ে দাও। যখন তারা তার কাছে প্রবেশ করে বলল : সালাম। সে বলল : নিশ্চয়ই আমরা তোমাদের ব্যাপারে শঙ্কিত। তারা বলল : আপনি আশঙ্কা করবেন না, আমরা আপনাকে একটি জ্ঞানবান পুত্রসন্তানের সুসংবাদ দিচ্ছি। সে বলল : তোমরা আমাকে সুসংবাদটি দিচ্ছ এমন একসময়ে, যখন আমাকে বার্ধক্য স্পর্শ করেছে। তাহলে তোমরা আমাকে কেমন সুসংবাদ দিচ্ছ? তারা বলল : হ্যাঁ, আমরা আপনাকে সঠিক সুসংবাদই দিচ্ছি। অতএব, আপনি হতাশাগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবেন না।' (সুরা আল হিজর : ৫১-৫৩)

আরো ইরশাদ হয়েছে- 'হে আমাদের রব! আমি আমার সন্তানকে আপনার ঘরের কাছে সম্পূর্ণ অনাবাদি ভূমিতে (জনমানবহীন প্রান্তরে) রেখে গেলাম; যাতে তারা নামাজ কায়েম করে। অতএব আপনি মানুষের হৃদয়কে তাদের প্রতি আকৃষ্ট করে দিন, যেন তারা বারবার তাদের কাছে ফিরে আসে। আর ফলমূল দিয়ে তাদের রিজিকের ব্যবস্থা করুন, তাহলে হয়তো তারা কৃতজ্ঞতা আদায় করবে।' (সুরা ইব্রাহিম : ৩৭)

হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর দোয়া মহান আল্লাহ কবুল করেছিলেন। আর তাই আরো এক পরীক্ষার মাধ্যমে তাঁকে প্রমাণ করতে হলো ইমানি দৃঢ়তা। জাতীয় ঐক্যের কেন্দ্র হিসেবে কাবাঘর নির্মাণের আদেশ দেওয়া হলো তাঁকেই। পিতা-পুত্র মিলে বিরামহীন সাধনায় আল্লাহর ঘরের নির্মাণ সম্পন্ন করার পর আল্লাহর নির্দেশে হজরত ইব্রাহিম (আ.) পৃথিবীময় ঘোষণা করেছিলেন জাতীয় ঐক্যের এ কেন্দ্রের প্রতি নিবেদিত হওয়ার আহ্বান। ইরশাদ হয়েছে, 'স্মরণ করো, আমি ইব্রাহিমকে কাবাঘরের স্থান নির্দেশ করে বলেছিলাম, তোমরা আমার সঙ্গে কাউকে শরিক করবে না, আর আমার ঘরকে পবিত্র রাখবে, তওয়াফকারী, রুকুকারী ও সিজদাকারীদের জন্য। আর মানুষের মধ্যে হজের ঘোষণা প্রচার করো, তারা তোমার কাছে আসবে পদব্রজে, কৃশকায় বাহনে চড়ে দূর-দূরান্তের পথ অতিক্রম করে।' (সুরা হজ : ২৬-২৭)

সব পিতারই আশা থাকে পুত্রের ওপর ভর করে তার ঔরস টিকে থাকুক এই পৃথিবীতে। কিন্তু হজরত ইব্রাহিম (আ.) নিজ বংশধারাকে বাঁচিয়ে রাখার কথা ভাবেননি কখনো। তিনি ভেবেছিলেন আল্লাহর জমিনে আল্লাহর তাওহিদের পতাকা উড্ডীন রাখার কথা। শিশুকাল পেরিয়ে দুরন্ত কৈশোরে উপনীত ইসমাইল পিতার সেই আরাধনার ধনই হয়ে উঠবে- পিতৃহৃদয়ে এমন আশা জাগাটাই ছিল স্বাভাবিক। যে সন্তান পিতার নির্ভরতার জায়গাটা দখলে নিয়ে নিয়েছে, তার গলায় ছুরি চালাতে পারে এমন পিতা কি আছে দুনিয়ায়? কিন্তু সেটি যদি হয় মহান স্রষ্টার আদেশ! হ্যাঁ, হজরত ইব্রাহিম (আ.) এমনই এক আদেশের সম্মুখীন হয়েছিলেন জীবনসন্ধ্যায়। এক দিকে পুত্রের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা, অন্য দিকে আল্লাহর নির্দেশ- কঠিন এক পরীক্ষা। হজরত ইব্রাহিম (আ.) আবার প্রমাণ করলেন, মহান রাব্বুল আলামিনের নির্দেশ পালনে তিনি নিজের সর্বস্ব উজাড় করে দিতে বিন্দুমাত্র কুণ্ঠিত নন। ইরশাদ হয়েছে- 'অতঃপর সে (ইসমাইল) যখন পিতার সঙ্গে চলাফেরার মতো বয়সে উপনীত হলো, পিতা বলল : বৎস! আমি স্বপ্নে দেখেছি যে আমি তোমাকে আল্লাহর নামে কোরবানি করছি। এখন তোমার মতামতটা ভেবে বলো। ইসমাইল বলল, আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে দ্রুত তা বাস্তবায়ন করুন। ইনশাআল্লাহ, আপনি আমাকে ধৈর্যশীল হিসেবে পাবেন। যখন পিতা-পুত্র উভয়েই আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইব্রাহিম তাকে জবাই করার জন্য শুইয়ে দিল। তখন আমি তাকে ডেকে বললাম : ইব্রাহিম! তুমি তো স্বপ্নকে সত্যি প্রমাণ করে দেখালে! আমি এভাবেই সৎকর্মশীলদের প্রতিদান দিয়ে থাকি। নিশ্চয়ই এটা ছিল একটি বড় ধরনের পরীক্ষা। আমি ইসমাইলের পরিবর্তে জবাই করার জন্য দিলাম এক মহান (বেহেশতি) জন্তু।' (সুরা আস্-সাফফাত : ১০২-১০৭)

হজরত ইব্রাহিম (আ.) মানবকল্যাণে সার্বিক অবদানের জন্য, আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন প্রতিষ্ঠায় নিজের সব কামনা-বাসনা মিটিয়ে দিয়ে মহান রবের নির্দেশ শিরধার্য করে নেওয়ার জন্য মুসলিম জাতির পিতা হিসেবে সম্মানিত হয়েছিলেন। তিনি ত্যাগের পরীক্ষার চূড়ান্ত পর্বে নিজের সন্তানের গলায় তীক্ষ্ন খঞ্জর চালিয়ে আল্লাহর নির্দেশ পালনে আত্মার যে বলিষ্ঠতা প্রদর্শন করেছিলেন, তা মহান আল্লাহর দরবারে এতই প্রিয় হয়ে উঠেছিল যে কিয়ামত পর্যন্ত সব সামর্থ্যবান মুসলমানের ওপর সেই ইব্রাহিম (আ.)-এর স্মৃতির অনুশীলনে কোরবানি করা ওয়াজিব। তাই কোরবানি কেবল মোটাতাজা জন্তু জবাইয়ের মহড়া দেওয়া নয়। কোরবানি কেবল উৎসব-আনন্দে, ভোগ-বিলাসিতায় গা ভাসিয়ে দেওয়া নয়। কোরবানি হলো নিজের আমিত্বকে মিটিয়ে দিয়ে আল্লাহর প্রতি আনুগত্যের বিনম্র প্রকাশ।

লেখক : পেশ ইমাম ও খতিব

রাজশাহী কলেজ কেন্দ্রীয় মসজিদ