মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাত দিন ধরে ভাত পাই না’ জামালপুরে বন্যাকবলিত সূর্যভানের অভিযোগ

news-image

জামালপুরের ইসলামপুরের চিনাডুলি ইউনিয়নের দেওয়ানপাড়া গ্রামের এই বাড়িটির মতোই দুই ইউনিয়নের প্রায় ২০ হাজার মানুষ এখন পানিবন্দি।

'ভাই, আমি চরনন্দনের পাড়া থেকে সূর্যভান বলছি। আঙ্গরে বাড়িঘর বন্যায় ভাইসা যাবার অবস্থা হইছে। বাড়ির প্রতিটি ঘরে এখনো কোমর পানি। এদিকে ঘরে খাবার নাই। ভাত-তরকারি রান্না করার সুযোগ নাই। সাত দিন ধরে ভাত খাইতে পারি না। ভাই আঙ্গরে বাঁচান, সাহায্য করেন।' চরনন্দনের পাড়া জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার চিনাডুলি ইউনিয়নের যমুনার দুর্গম চর। সেখান থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে এ প্রতিবেদকের মুঠোফোনে কল করে এসব কথা বলেন তিনি। মুঠোফোনে মুখ দেখা না গেলেও ওপ্রান্তে যে তিনি কাঁদছেন তা তাঁর কণ্ঠ শুনেই বোঝা গেল।flood9

পরে সরেজমিনে চরনন্দনের সূর্যভান বেগমের (৪০) সঙ্গে দেখা করতে একটি নৌকা নিয়ে গিয়েছিলেন এ প্রতিবেদক। সূর্যভান জানান, চিঁড়া-মুড়ি বা শুকনা বিস্কুট খেয়ে দিন কাটে তাঁর। ঘরের সবকিছু পানিতে ডুবে আছে। রান্না করার চুলা, চাল কিছুই অবশিষ্ট নেই। তাঁর মতোই অবস্থা বন্যাকবলিত হাজার হাজার মানুষের। গতকাল ইসলামপুরের সাপধরী ইউনিয়নের প্রজাপতি, চরশিশুয়া, কাশাড়িডোবা ও বিশরশি চরে নৌকায় ঘুরে দেখা গেছে, গ্রামগুলো পানিতে ডুবে আছে। এসব গ্রামের প্রায় অধিকাংশ বাড়িতে বন্যার পানি। প্রজাপতি চরের লাল মিয়া প্রামাণিক, সরবেশ আলী ও আবদুর রশিদ প্রামাণিক জানান, তাঁদের গ্রামের প্রায় দুই হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সেখানে বিশুদ্ধ পানি, রান্না করা খাবার ও গো-খাদ্যের তীব্র সংকট চলছে। এখনো কেউ তাঁদের সাহায্যে এগিয়ে যায়নি।

পাশের কাশাড়িডোবা গ্রামের জিয়াউল ফারাজী, আজাহার মণ্ডল ও হোসেন মণ্ডল জানান, তাঁদের গ্রামের দুই শতাধিক পরিবারের প্রায় এক হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। ওই গ্রামের সব কটি নলকূপ বন্যার পানির নিচে তলিয়ে গেছে। তাই বিশুদ্ধ পানির অভাবে মানুষ বন্যার ঘোলা পানি পান করছে। এতে অনেকে রোগাক্রান্ত হয়ে পড়েছে। এ ছাড়া চারদিকে পানির কারণে গ্রামে চোর-ডাকাতের আতঙ্ক বেড়েছে।flood

পাশের জোড়ডোবা গ্রামের সৈয়দ আলী শেক বলেন, 'এই চরের প্রায় দুই শ পরিবারের বাড়িঘরে বন্যার পানি। অনেকের ঘরবাড়ি পানির তীব্র স্রোতে ভেসে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। আজও কেউ আমাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেনি।' এদিকে চিনাডুলি ইউনিয়নের দেওয়ানপাড়া থেকে হেলাল উদ্দিন মাস্টার মুঠোফোনে বলেন, 'আমাদের গ্রামের প্রায় তিন হাজার মানুষের ঘরে বন্যার পানি। রান্না করে খাওয়ার সুুযোগ নেই। এলাকায় রান্না করা খাবারসহ ত্রাণের জন্য হাহাকার চলছে। অথচ কেউ এখনো সহযোগিতা করেনি।'

ওই দিন দুপুরে সাপধরী ইউনিয়ন থেকে ফেরার পথে মাহমুদপুর বাজারে দেখা হয় মাদারগঞ্জ উপজেলার চরপাকেরদহ ইউনিয়নের নব্বইচর গ্রামের লোকমান ফকিরের সঙ্গে। তিনি বলেন, 'মাদারগঞ্জের হিতেগারী, নব্বইচর ও হরিণধরা গ্রামে প্রায় ১০ হাজার মানুষ এখনো পানিবন্দি হয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।'

এ ছাড়া গতকাল দুপুরে মেলান্দহ উপজেলার কুলিয়া, নাংলা ও মাহমুদপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, চরমাহমুদপুর গ্রাম থেকে গোপিন্দি বাজার পর্যন্ত এলাকার প্রায় পাঁচ হাজার বাড়িঘরে বন্যার পানি। নৌকা ছাড়া কারো বাড়িতে যাওয়া যায় না। এ ছাড়া মেলান্দহ উপজেলার চারাইলদার, রোকনাইপাড়া, বানিয়াবাড়ী, নলছিয়া, নলকুড়ি, পয়লা ও কুলিয়া গ্রামে প্রায় দুই হাজার মানুষের বাড়িঘরের চারদিকে বন্যার পানি।

এ বিষয়ে ইসলামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নবী নেওয়াজ খান লোহানী বিপুল বলেন, 'যমুনার দুর্গম চরাঞ্চলে বন্যাকবলিত অর্ধ লক্ষাধিক মানুষের মধ্যে রান্না করা খাবার ও বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট চলছে। আমি চরাঞ্চলের পানিবন্দিদের মধ্যে পর্যাপ্ত চাল, ডাল ও শুকনো খাবার বিতরণের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানাই।'flood4

উল্লেখ্য, জামালপুরের বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে গতকাল বিকেলে যমুনা নদীর পানি বিপৎসীমার ৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বন্যার পানি ১৪ সেন্টিমিটার হ্রাস পেলেও বন্যার্তদের মধ্যে দুর্ভোগ বেড়েছে। চলতি বন্যায় জেলার ৫৩টি ইউনিয়নের ৫২ হাজার ৬৭৮টি পরিবারের দুই লাখ ৮০ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যার্তদের সাহায্যে ৩০৫ মেট্রিক টন জিআর চাল ও সাত লাখ ৬৭ হাজার টাকার জিআর নগদ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে।