মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রকাশ্যে স্কুলছাত্রীর শ্লীলতাহানি

news-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্কুলে যাওয়ার পথে এক ছাত্রীকে প্রকাশ্যে মারধর ও শ্লীলতাহানি করেছে এক বখাটে। ঘটনার বিচার দাবিতে এলাকাবাসী মহাসড়ক অবরোধ করলে ওই বখাটেকে ধরে দেড় বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ময়মনসিংহের ভালুকায় একটি মোটরসাইকেল ফেলে দেওয়ায় ছয় বছরের একটি শিশুকে স্কুল থেকে ধরে এনে উপর্যুপরি চড়থাপ্পড় ও লাথি মারতে মারতে একটি ভবনে নিয়ে আটকে রাখে মোটরসাইকেলের মালিক। শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করলেও ভয়ে সে কথা বলতে পারছে না। হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে মোবাইল ফোন চুরির অপবাদ দিয়ে সংঘবদ্ধভাবে নির্যাতন করা হয়েছে এক তরুণীকে। প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রকাশ্যে স্কুলছাত্রীর শ্লীলতাহানি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের ছাতিয়াইন গ্রামের বাসিন্দা ও স্থানীয় বুধল উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী স্কুলে যাচ্ছিল। পথে ছাতিয়াইন গ্রামের মো. আবদুর রাজ্জাকের ছেলে ইলিয়াস ওই ছাত্রীর পথরোধ করে। একপর্যায়ে ওই ছাত্রীকে মারধর করে বখাটে ইলিয়াস। এমনকি ওড়না কেড়ে নিয়ে জামা-কাপড়ও টানাহেঁচড়া করে। এ সময় ওই স্কুলছাত্রীর চিৎকারে এলাকার লোকজন বখাটে ইলিয়াসকে আটক করে। জানা গেছে, আগে থেকেই ওই ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করত ছেলেটি। ঘটনাটি জানাজানি হলে স্কুলের শিক্ষার্থী ও এলাকার লোকজন সুহিলপুর এলাকায় কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে অবরোধের সৃষ্টি করে। এতে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। পুলিশ এসে বখাটে ইলিয়াসকে আটক করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়। পরে বিকেলে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ড. আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত গঠন করে ইলিয়াসকে দেড় বছরের কারাদণ্ড দিয়ে জেলে পাঠানো হয়।

জানা গেছে, গতকাল জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা চলাকালেই ওই স্কুলছাত্রীকে লাঞ্ছনা ও মারধরের খবরটি আসে। বিষয়টি নিয়ে সভায় জোরালো আলোচনা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ড. আশরাফুল আলম বলেন, 'ওই বখাটে স্কুলছাত্রীকে আক্রমণ করার পাশাপাশি ওড়না কেড়ে নেয়। দণ্ডবিধির ৫০৯ ধারায় এক বছর এবং ২৯০ ও ২৯১ ধারায় অভিযুক্তকে ছয় মাসের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।'

ভালুকা (ময়মনসিংহ) : গত বুধবার বিকেলে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের চেঁচুয়া নুন্দিপাড়া গ্রামে ছয় বছরের একটি শিশুকে নির্যাতন করা হয়। তার নাম আবদুল আহাদ। বিদ্যালয়ে প্রাইভেট পড়ে বিকেল ৩টার দিকে বাড়ি ফেরার পথে মনের খেয়ালে শিশু আহাদ রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা একটি মোটরসাইকেল ধরতে যায়। তাতে মাটিতে পড়ে মোটরসাইকেলের একটি লুকিং গ্লাস ভেঙে যায়। এতে ভীত হয়ে আহাদ পাশের একটি কেজি স্কুলে গিয়ে লুকিয়ে থাকে। কিন্তু ঘটনা টের পেয়ে মোটরসাইকেলের মালিক পাশের জীবনতলা গ্রামের আমান উল্যাহ খান (৩৫) শিশুটিকে স্কুল থেকে ধরে এনে উপর্যুপরি চড়থাপ্পড় ও লাথি মেরে আহত করে পাশের এক বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে। পরে স্থানীয়রা শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। গতকাল সকালে ভালুকা হাসপাতালে গিয়ে শিশুটির কানের কাছে কালচে দাগ দেখা যায়। বারবার চেষ্টা করেও ভীত-সন্ত্রস্ত শিশুটির সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

শিশু আহাদ চেঁচুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র। তার বাবা জামাল উদ্দিন স্থানীয় লাবনী শুটিং স্পটের কর্মচারী। তাদের বাড়ি পার্শ্ববর্তী গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার গোলাবাড়ী গ্রামে। এ ঘটনায় আহত শিশুর বাবা ভালুকা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে আমান উল্যাহর বড় ভাই রফিকুল ইসলাম জানান, সামাজিক সালিসের মাধ্যমে ঘটনার নিষ্পত্তির চেষ্টা চলছে।

হবিগঞ্জ : জেলার বানিয়াচং উপজেলার যাত্রাপাশা গ্রামে মোবাইল ফোন চুরির অপবাদ দিয়ে এক তরুণীকে (২০) তাঁর বাড়ি থেকে ধরে এনে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়েছে প্রতিবেশী আছমা বেগম ও তার সহযোগীরা। এ ঘটনায় তরুণীর মা গতকাল দুপুরে ছয়জনকে আসামি করে বানিয়াচং থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তাতে বলা হয়, গত শনিবার প্রতিবেশী আছমা বেগমের একটি মোবাইল ফোন চুরি হলে ওই তরুণীকে সন্দেহ করা হয়। এর সূত্র ধরে গত রবিবার আছমা বেগম ও তার পরিবারের লোকজন তরুণীটিকে বাড়ি থেকে ধরে এনে লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকে। একপর্যায়ে তরুণীটিকে মাটিতে ফেলে মারধর এবং তাঁর পোশাক ছিঁড়ে ফেলা হয়। পরে এলাকাবাসী নির্যাতিত তরুণীটিকে উদ্ধার করে বানিয়াচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

খুলনায় ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগে শিক্ষক বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা জানান, খুলনা নগরীতে দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে কোচিং করানোর কথা বলে ডেকে নিয়ে শ্লীলতাহানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই শিক্ষকের নাম উত্তম কুমার বিশ্বাস। এ ঘটনায় গত বুধবার রাতে থানায় মামলা হয়েছে। তিনি পলাতক রয়েছেন। একই সঙ্গে অভিভাবকদের দাবির মুখে স্কুল থেকে তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। সে সেন্ট জেভিয়ার্স হাই স্কুলের লাইব্রেরিয়ান।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শিক্ষক উত্তম কুমার বিশ্বাস ওরফে আবুল কালাম আজাদের কাছে কোচিং করত ওই ছাত্রী। গত শনিবার দুপুরে ফোন করে ওই ছাত্রীকে কোচিংয়ে ডেকে নেন ওই শিক্ষক। সেখানে শ্লীলতাহানির শিকার হয় ওই ছাত্রী। এরপর স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। একপর্যায়ে পরিবারকে ঘটনা খুলে বলে। পরে পরিবারের পক্ষ থেকে সোনাডাঙ্গা থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়।

সোনাডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মারুফ আহমেদ বলেন, তাঁরা অভিযোগটি তদন্ত করে দেখেছেন, তবে ওই শিক্ষককে আটক করতে পারেননি।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক গাজী মোহম্মদ মহিউদ্দিন  বলেন, ওই শিক্ষকের নাম শিক্ষা সনদ অনুযায়ী উত্তম কুমার বিশ্বাস, তবে স্কুলে তিনি আবুল কালাম আজাদ নামে পরিচিত। আবুল কালাম আজাদ নামে তিনি নিরালায় কোচিং পরিচালনা করতেন। যদিও লাইব্রেরিয়ান হিসেবে তাঁর নিয়োগ, কিন্তু তিনি একাধিক বিষয়ের ক্লাস নিতেন। গত বুধবার বিকেলে স্কুল পরিচালনা কমিটির সভায় তাঁকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং কেন স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হবে না, তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শাও নোটিশ জারি করা হয়েছে।