মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শরতের শিশির বিন্দু

news-image

হাসি তার ভুবন ভোলানো, সৌন্দর্য তার নজরকাড়া। অভিনয়েও পূর্ণিমা জয় করেছেন অগণিত ভক্তের মন। ছোট এক বিরতির পর আবার অভিনয়ে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন তিনি। তাকে নিয়ে লিখেছেন শিমুল আহমেদ
ঘড়ির কাঁটা তখন ৪টার ঘর ছুঁই ছুঁই। মেঘলা আকাশ। মেঘের ফাঁকে রোদের খেলা। পাশ দিয়ে বয়ে গেছে লেক। বাতাসের গতিও নেহাত মন্দ নয়। লেকের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা সারিবদ্ধ গাছগুলো যেন তারই প্রমাণ দিচ্ছে। গুলশান-২ এর ব্যস্ততম এক রাস্তার পাশে একদল মানুষ জটলা পাকিয়ে আছে। দিনের বেলায় দাঁড়িয়ে তারা পূর্ণিমা দেখছেন! আঁধার ঢিঙিয়ে বহু দিন পর অভিনয়ের আকাশে পূর্ণিমা। তাই মানুষের কৌতূহলও কম নয়। উৎসুক জনতার ভিড় বাড়ছে। আমরাও সেদিন গিয়েছিলাম পূর্ণিমা দেখতে! দিনক্ষণটা আগে থেকেই চূড়ান্ত ছিল। তাই শুটিংয়ের ফাঁকে পূর্ণিমা বললেন অনেক কথা। তবে শুরুতেই তিনি ছবি তোলার পর্বটা সেরে নিতে চাইলেন। সিদ্ধান্ত নিলেন, বাড়ির ছাদে ছবি তুলবেন। সেখানের পরিবেশটাও বেশ। ছবি তোলার এক ফাঁকে তার কাছে প্রশ্ন রাখা হলো_ অনেক দিন পর অভিনয় করছেন। কেমন লাগছে? ঠোঁটের কোণে হাসি রেখে বলতে শুরু করলেন; 'পরিবার নিয়ে ব্যস্ত থাকায় অনেক দিন অভিনয় করা হয়নি। প্রতিদিন শূন্যতা অনুভব করেছি। এতদিন আমার মেয়ে অনেক ছোট ছিল। তাই কাজ করার মতো পরিস্থিতি ছিল না। বাধ্য হয়েই অভিনয় থেকে দূরে থাকতে হয়েছে। এখন মেয়েটা একটু বড় হয়েছে। অভিনয়েও ফিরতে পেরেছি। তবে আগের মতো বেশি কাজ হয়তো করা হবে না।' দীর্ঘ বিরতির পর রূপালি পর্দার পূর্ণিমা ফিরেছেন ছোট পর্দায়। ঈদে আরিফ খানের 'আমার বেলা যে যায়' [আফজাল হোসেন, সুবর্ণা মুস্তাফা ও মাহফুজ আহমেদ] ও তুহিন হোসেনের ‘প্রেম অথবা দুঃস্বপ্নের রাত দিন’-এ [মোশাররফ করিম ও ইরেশ যাকের] তাকে দেখা যাবে।     

এত দিন পর কাজ করতে এসে কেমন লাগছে? উত্তরে তিনি বলেন, 'ভালোই লেগেছে। আগের মতোই সবকিছু। তবে টিভি মিডিয়াতে আগের মতো আর সম্মান নেই বলে আমার মনে হয়েছে।' তাহলে কি আবার বড় পর্দায় ফিরছেন? এবার একটু চিন্তাভাবনা করে উত্তর দিলেন তিনি। বললেন, 'আপাতত বড় পর্দায় ফিরছি না। মেয়েটা একটু বড় হোক। তারপর ভালো গল্প, সুন্দর চরিত্র, ভালো পরিচালকের ছবির প্রস্তাব পেলে ভেবে দেখব। তবে কোনো কিছুই নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। সময়ই বলে দেবে_ কী হবে, কী হবে না।'
সময় ও স্রোত কারও জন্য অপেক্ষা করে না। এটা আমরা যেমন জানি, পূর্ণিমাও নিশ্চয় জানেন। যাই হোক, এবার প্রসঙ্গ পাল্টে জানতে চাইলাম অবসর সময় কাটে কীভাবে?
'অবসর সময় মেয়ে আরশিয়া উমায়জার সঙ্গে খেলা করে কেটে যায়। গান শুনি। প্রতিদিন নতুন নতুন পদের খাবার রান্নার চেষ্টা করি। নতুন নতুন জায়গায় ঘুরতে যাই। নায়িকা হিসেবে পূর্ণিমা অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র জাকির হোসেন রাজুর 'এ জীবন তোমার আমার'। ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৯৭ সালে। মানে দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন পূর্ণিমা।
কী পেলেন এই দীর্ঘ ক্যারিয়ারে? 'দর্শকের ভালোবাসার চেয়ে বড় প্রাপ্তি একজন অভিনেত্রীর জন্য আর কী হতে পারে? সে ভালোবাসা আমি পেয়েছি। তাই অপ্রাপ্তি বলে কিছু আছে বলে মনে করি না।' 

এ জাতীয় আরও খবর