মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জাতীয় সঙ্গীতে ব্যঙ্গ, বিপদে হংকং ফুটবল

news-image

ফুটবল ম্যাচে চীনের জাতীয় সঙ্গীত বাজার সময় ব্যাঙ্গ করে হংকং-য়ের দর্শকরা সেখানকার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনকে বিরাট বিপদে ফেলে দিয়েছেন। হংকংয়ের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের ওপর এখন বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা-র শাস্তির খাঁড়া ঝুলছে। সংস্থার পক্ষ থেকে অবশ্য বলা হচ্ছে, ফিফা তাদের শাস্তি দিলে তারা খুবই হতাশ হবেন।

এই ঘটনার সূত্রপাত মঙ্গলবার, যখন বিশ্বকাপ ফুটবলের যোগ্যতানির্ধারণী ম্যাচে হংকং কাতারের মুখোমুখি হয়েছিল। স্বশাসিত হংকং চীনেরই অংশ– তাই তাদের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন আলাদা হলেও জাতীয় সঙ্গীত একই। ফলে হংকংয়ের আন্তর্জাতিক ফুটবল ম্যাচের আগে চীনের জাতীয় সঙ্গীত বাজানোটাই রীতি। তবে গত বছর হংকংয়ে গণতন্ত্রের পক্ষে যে আন্দোলনের সূচনা হয়েছিল, তখন থেকেই বেজিংয়ের সঙ্গে তাদের তিক্ততা অনেকটাই বেড়েছে।

ফুটবল ম্যাচে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে, সেটা আশঙ্কা করে হংকংয়ের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দর্শকদের উদ্দেশে আবেদনও জানিয়েছিলেন তারা যেন ওই ম্যাচকে কোনও ‘রাজনৈতিক বিবৃতি’ দেওয়ার জন্য ব্যবহার না করেন। কিন্তু তারপরও দেখা গেল, যখন চীনের জাতীয় সঙ্গীত বাজছে তখন স্টেডিয়ামের হাজার হাজার দর্শক দুয়ো দিয়ে ওঠেন – চিৎকার করে তারা সেটিকে বিদ্রূপ করতে থাকেন। এর আগে এ বছরই হংকংয়ের আরও দুটো ফুটবল ম্যাচেও এই একই ধরনের দৃশ্য দেখা গেছে – তার জন্য ফিফা তাদেরকে সতর্কও করে দিয়েছিল।

এখন হংকংয়ের ফুটবল দর্শকরা একই ‘অপরাধে’র পুনরাবৃত্তি করায় ফিফা তাদের কড়া শাস্তি দেবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শাস্তি হিসেবে ফিফা বলতে পারে, এখন থেকে হংকংকে সব ম্যাচ দর্শকশূন্য মাঠেই খেলতে হবে। অথবা তাদেরকে বিশ্বকাপের যোগ্যতানির্ধারণী পর্বের এই গোটা টুর্নামেন্টেই বাতিল ঘোষণা করা হতে পারে।

কাতারের বিরুদ্ধে ম্যাচটিতেও হংকং ৩-২ গোলে হেরে গেছে। একটা সময় ০-৩ পিছিয়ে পড়েও হংকং দুটি গোল শোধ করেছিল, কিন্তু নাটকীয় উত্তেজনায় ভরা ম্যাচটিতে তারা শেষরক্ষা করতে পারেনি। বিবিসি