রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রথম শ্রেণীতে ভর্তি পরীক্ষা কেন

news-image

স্কুলে যাওয়ার বয়স হলেই সব শিশু যাতে ভর্তি হতে পারে, তা নিশ্চিত করার ওপর জোর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ক্লাস ওয়ানে ছাপানো প্রশ্নপত্র দিয়ে পরীক্ষা দিয়ে ভর্তি হবে কেন? যখনই একটা শিশুর ভর্তির বয়স হবে, তখনই তাকে ভর্তি নিতে হবে। শিক্ষা তার মৌলিক অধিকারগুলোর একটি। শেখ হাসিনা প্রশ্ন রাখেন, সে যদি ছাপানো প্রশ্নপত্র পড়ার মতো জ্ঞানই অর্জন করে থাকে, তাহলে আর তাকে পড়াবে কী স্কুলে?primary education logo main
মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী প্রথম শ্রেণীতে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে কথা বললেও গত কয়েক বছর ধরে সব স্কুলেই প্রথম শ্রেণীতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হচ্ছে লটারির মাধ্যমে। মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ঢাকায় ইউনেস্কোর আবাসিক প্রতিনিধি বিয়াত্রিস কালদান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সচিব মেজবাহ উল আলম। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর মহাপরিচালক রুহুল আমীন সরকার ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
১৯৯৬ সালের ১৭ নভেম্বর জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা- ইউনেস্কো ৮ সেপ্টেম্বরকে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এবারের আন্তর্জাতিক এ দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে- সাক্ষরতা আর দক্ষতা, টেকসই সমাজের মূল কথা।
শহর এলাকায় সব শ্রেণীর অভিভাবক যাতে সন্তানকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠাতে আগ্রহী হন, সেজন্য এসব স্কুলের মানোন্নয়নেরও তাগিদ দেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের ছেলেমেয়েরা যেন পড়তে পারে সেজন্য শহরের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো উন্নত করা দরকার। এ সময় অনুষ্ঠান মঞ্চে উপস্থিত প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার ও সচিব মেছবাহ উল আলমের দিকে তাকিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, আমি অনুরোধ করব, জরাজীর্ণ স্কুলগুলো মেরামত ও উন্নত করা দরকার। ছেলেমেয়েরা তাদের প্রথম শিক্ষা পাড়ার স্কুল থেকেই নেবে, পাড়ার স্কুলেই ভর্তি হবে।
শিশুরা যাতে স্কুলে আসতে আগ্রহী হয় সেজন্য আরও পদক্ষেপ নেয়ার তাগিদ দেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এমন ব্যবস্থা নিতে হবে, যাতে অভিভাবকরা মনে করেন এটা তাদের কর্তব্য, সন্তানকে শিক্ষা দিতে হবে। প্রাথমিক শিক্ষাকে মূল ভিত্তি হিসেবে ধরেই শিক্ষা কাঠামোকে এগিয়ে নেয়ার ওপরও প্রধানমন্ত্রী গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, এমন কোনো পাঠ্যসূচি নেয়া ঠিক হবে না, যা শিশুদের মধ্যে ভীতির সৃষ্টি করে। একটা শিশু স্কুলে যেতেই পারল না, তার ওপর বইয়ের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হল। পড়ার বোঝা হোম ওয়ার্কের বোঝা। এতে করে ভীতি এসে যায়। বইয়ের বোঝা চাপিয়ে দিলে পড়াশোনার প্রতি অনীহা সৃষ্টি হয় মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, খেলাধুলাসহ অন্য যেভাবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে আগ্রহ সৃষ্টি হয়, সে ধরনের উদ্যোগ তাদের জন্য নিতে হবে।
স্কুল ফিডিং কার্যক্রমে এক খাবার না দিয়ে, বিভিন্ন স্বাদের খাবার দেয়ার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ওই বিস্কুট আমি নিজে এনেছিলাম। নিজেই পরীক্ষা করলাম। ওই বাচ্চারা এক খাবার কয়দিন খাবে? স্কুল ফিডিংয়ের জন্য তৈরি বিস্কুটে চকলেট বা ভ্যানিলা ফ্লেভার যোগ করার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, এক জিনিস খেতে খেতে অনীহা হয়ে যায়। এলাকার বিত্তশালীদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য পৃথক তহবিল গঠনের তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, প্রত্যেক স্কুলের জন্য আলাদা ফান্ড করা যেতে পারে। আমাদের সমাজে অনেক বিত্তশালী আছেন, যাদের টাকা খরচের জায়গা নেই।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকারি টাকা দিলে তা ছাত্রদের পেটে যাবে না। কার কার পকেটে চলে যাবে। কথাই তো আছে, সরকারি মাল দরিয়া মে ঢাল। দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য এক হাজার কোটি টাকার শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করার কথা বক্তব্যে উল্লেখ করেন তিনি। আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে শিক্ষা খাতের উন্নয়নে নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত সাক্ষরতা কর্মসূচির মাধ্যমে প্রায় এক কোটি নিরক্ষরকে সাক্ষর করা হয়েছিল জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সে সময় সাতটি জেলাকে নিরক্ষরমুক্ত ঘোষণা করা হয়। দেশে সাক্ষরতা বিস্তারে এ বিশাল অর্জনের সম্মানজনক স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ ইউনেস্কো সাক্ষরতা পুরস্কার ১৯৯৮ লাভ করে।
education minis.jpg and president
বঙ্গবন্ধুর সরকার ৩৬ হাজার ১৬৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করে যাওয়ার পর ২০১৩ সালে দেশের ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং এক লাখ তিন হাজার ৮৪৫ জন শিক্ষকের চাকরি সরকারিকরণ করার কথা উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, অন্য কোনো সরকার শিক্ষাকে তেমন গুরুত্ব দেয়নি। বছরের শুরুতে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে ৩২ কোটি ৬৩ লাখ ৪৭ হাজার ৯২৩টি নতুন পাঠ্যবই বিতরণকে পৃথিবীতে বিরল বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।
উপবৃত্তির সুবিধাভোগীর সংখ্যা বাড়িয়ে ৭৮ লাখ ১৭ হাজার ৯৭৭ জনে উন্নীত করা, ৯৬টি দারিদ্র্যপীড়িত উপজেলার ২৯ লাখ শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুষ্টিমানসম্পন্ন খাদ্য বিতরণ করার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, পর্যায়ক্রমে আমরা প্রত্যেকটি স্কুলে মিড-ডে মিল চালু করব। ৫২টি জেলার ১৪৮টি উপজেলায় এক হাজার ১৪০ কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ২১ হাজার ৬২৩টি আনন্দ স্কুল প্রতিষ্ঠা করায় হতদরিদ্র ও ঝরে পড়ার শংকায় থাকা শিশুর প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে বলে জানান তিনি।
অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মেছবাহ উল আলম সাক্ষরতার হার নিয়ে বলেন, এখানে কনফিউশনের কোনো কারণ নেই। এখানে একটি বিষয় পরিষ্কার করা প্রয়োজন। দেশে গড় সাক্ষরতার হার ৭১ দশমিক ৫ শতাংশ। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যের শুরুতেই বলেন, আপনারা ইতিমধ্যেই শুনেছেন, সাক্ষরতার হার ৭১ ভাগ হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী