শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাবনায় আ’লীগের দুই গ্রুপে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, আহত ২৫

news-image

পাবনা সদর উপজেলার শানিকদিয়ার গ্রামে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ও গোলাগুলি হয়েছে। এতে ২৫ জন আহত হয়েছেন। সোমবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে এ সংঘর্ষ হয়। এ সময় কমপক্ষে ৫টি বাড়ী ও ৪টি দোকান ভাংচুর করা হয়। আহতদের ১০ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় পাবনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গুরুতর আহতরা হলেন, সদর উপজেলার শানিকদিয়ার চর গ্রামের শুটকা প্রামানিকের ছেলে বিল্লাল হোসেন (৪০), আকাত মালিথার ছেলে মিজান হোসেন (৩০), বাবু প্রামানিকের ছেলে বাবলু (২৩), মুর্শিদ খাঁর ছেলে রিপন (১৪), হাবু মন্ডলের ছেলে সামাদ (২৮), উজ্জ্বলের স্ত্রী সবুরা খাতুন (৩০), জামাল উদ্দিনের স্ত্রী জহুরা খাতুন (৫৫), আজাদ প্রামানিকের ছেলে ডাবলু (৩৫), হাসেন প্রামানিকের ছেলে শাহিন (৩০) ও আখের হাজীর ছেলে মতিন (৪৫)। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মিজান হোসেন জানান, দীর্ঘদিন ধরে শানিকদিয়ার হাটের ইজারাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আসলাম হোসেনের সাথে আওয়ামীলীগ সমর্থক পান্না সরকারের বিরোধ চলছিল। সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে পান্না সমর্থকরা শানিকদিয়ার বাজারের চায়ের দোকানে বসে গল্প করছিলেন। এমন সময় আসলামের সমথর্করা তাদের ওপর হামলা চালায়। পাশাপাশি বন্দুক দিয়ে গুলি চালাতে থাকে। আহত অবস্থায় তারা পালিয়ে গেলে আসলামের লোকজন বকুল, মুকুল, মজিবর, সাহেবের বাড়ী ও দোকানঘর ভাংচুর করে। এ নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা ও থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।  খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
পাবনা সদর থানার এসআই সোহেল হোসেন জানান, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে এখনও  কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ করেননি। পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি রেজাউল রহিম লাল বলেন, এটা কোন দলীয় কোন্দল নয়। সম্পূর্ণ এলাকাভিত্তিক গোষ্ঠীগত ঝামেলা। এর সঙ্গে আওয়ামীলীগের রাজনীতির কোন সম্পর্ক নেই। 

এ জাতীয় আরও খবর