রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রঙ্গিলা পুতুলের গন্ধ: রিপনচন্দ্র মল্লিক

news-image

আমরা কয়েকজন রাস্তার পাশের একটি চায়ের দোকানে বসে আয়েশ করে চা খাচ্ছিলাম। এমন সময় হারুণ বলে উঠলো, ‘হামীম ভাই চলেন। খবরটি সংগ্রহ করি।’
‘হুম। খবর লেখাই তো আমাদের কাজ। ভাই চা’ টা তো একটু পান করতে দাও। তারপরে যাই।’
আমরা বলতে আমি, হারুণ, নাজমুল, রুমি, ইমন। আমাদের কাজই খবরের পেছনে ছুটে বেড়ানো। আমরা ছুটেও বেড়াই। কখনো সারাদিন আবার কখনো কখনো সারা রাত পেরিয়ে যায়।
চা শেষ করেই মটরসাইকেল স্টার্ট দিয়ে চলে আসলাম কর্ণপাড়া।
আমরা অবশ্য যেখানে বসে চা খাচ্ছিলাম সেখান থেকে কর্ণপাড়ার দূরত্ব সব মিলিয়ে তিন কিলোমিটারের বেশি হবে না। তাই আসতে মিনিট দশেক সময় লেগেছে।
কর্ণপাড়া বাসস্টান্ডের দক্ষিণ পাশ দিয়ে সোজা যে মহাসড়কটি চলে গেছে তার পাশের ফসলের মাঠে আমরা হাটতে শুরু করেছি।
আমাদের দুই পাশে বেশ লম্বা এবং ঘন করে বোনা পাট গাছের ডগাগুলো বাতাসে মাথা নুইয়ে নুইয়ে দোল খাচ্ছিলো।

আমরা বলাবলি করছিলাম, এই রকম একটি কান্ড কারা ঘটাতে পারে? আমরা ক্ষেতের আলপথ ধরে হাঁটছি তো হাঁটছিই।
কিছুদূর যেতেই একটি দমকা হাওয়ায় আমার নাকে কিছু গন্ধ এসে ধাক্কা খেল।
আমি হতচকিত হয়ে গেলাম!
ব্যাপার কী এখানে এই গন্ধ কোথা থেকে এলো?
কথাগুলো ভাবছি আর হাঁটছি। এই এলাকার নামটি অদ্ভুত। অবশ্য বাংলাদেশ ছাড়া এই দেশের সব নামই আমার কাছে অদ্ভুত লাগে।
কর্ণপাড়া নাম নিয়ে স্থানীয় ভাবে জনশ্রুতির আর শেষ নেই। শেষ যে বার এই এলাকার একটি চায়ের দোকানে বসে আমরা ক’জন চা খাচ্ছিলাম, তখন অন্যদের মুখে গ্রামটির নাম নিয়ে ঝড় উঠলো। সেদিনই প্রথম জানলাম কর্ণপাড়া নামকরণের এক নতুন তথ্য।
বটতলার ওই চায়ের দোকানে চা খেতে খেতে এলাকার মুরুব্বী আবদুর রহমান বললেন, ‘কয়েক’শ বছর আগে এই এলাকার অধিকাংশ মানুষের ডান অথবা বাম পাশের কানের গোড়ায় ছোট ছোট আরো কান উঠতো। বিভিন্ন গাছে যেমন ছোট ছোট ছত্রাক জন্মায়, ঠিক সেরকমই এখানকার মানুষের কানের গোড়ায় এসব উপকানের জন্ম হত। তখন থেকেই এই গ্রামের নামকরণ হয়েছে কর্ণপাড়া।

কথাগুলো শুনছিলাম আর বসে বসে চা খাচ্ছিলাম। সেদিন ওই মুরুব্বীর কথাগুলো শুনতে আমার বেশ মজা লাগছিল।
আমি অবশ্য কর্ণপাড়া গ্রামের নামকরণ নিয়ে শুনেছিলাম ভিন্ন কথা। গ্রামটি মাদারীপুর সদর উপজেলা ও কালকিনি উপজেলার কোনাকুনি হওয়ার কারণে গ্রামটির নাম কর্ণ মানে কোনা বলে থাকে। কোনার সাথে পাড়া শব্দটি যুক্ত হয়ে গ্রামটির নামকরণ করা হয়েছে কর্ণপাড়া।
সে যাই হোক, যে কথা বলছিলাম। আমাদের চলার পথের দুই ধারে উঁচু উঁচু পাটক্ষেত পথটিকে আরো বেশি সরুময় করে রেখেছে।

আমি খেয়াল করলাম, আমাদের সাথে সাথেই একটি ছেলে হেঁটে আসছে। আমি একুট উৎসাহ নিয়ে ছেলেটিকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘ আপনার নাম কী?’
‘আমার নাম লিমন।’
‘এখানেই কী বাড়ি?’
‘হুম। এই গ্রামেই আমাদের বাড়ি। ওই যে মহাসড়কটি যেখানে রেখে এলেন, সেখান থেকে দুইশ গজ দক্ষিণের দিকে এগিয়ে গেলেই আমাদের বাড়ি।’
আমি আর কোন কথা না বলে জিজ্ঞেস করলাম, ‘ভাই, ঘটনাস্থল আরো কত দূরে?’
মফস্বল শহরে সাংবাদিকতা করি। যখনই কোথাও কোন খবরের সন্ধান পাই। ঘটনাস্থলে ছুটে যাওয়াই আমার কাজ। তবে কোথাও আমি একা যাই না, আমার সাথে দু-একজন সহকর্মীকে সব সময় সাথে করেই নিয়ে যাই।

লিমন আমাকে বললো, ‘ভাই আচমত খানের জমিতে যেতে হবে। এই তো ভাই ওই যে দেখা যায়। ওখানেই।’
প্রচন্ড রোদ উঠেছে। এতো রোদে আমার আর কথা বলতে ভালো লাগছিল না। সবাই চুপচাপ। রোদে পুড়েই আমরা হেঁটে চলেছি।
হঠাৎ মাথার মধ্যে কামড় দিয়ে গত রাতের পুতুল নাচের কথা মনে পড়ে গেল। এ আমার এক অদ্ভুত অভিজ্ঞতা!
আমরা অনেক আগ্রহ ও উদ্যমতা নিয়ে সেই অভিজ্ঞতা উদ্যাপনে গিয়েছিলাম। আমি অবশ্য আগে থেকেই সেখানে যাওয়ার জন্য ভেতরে ভেতরে উসখুশ করছিলাম।
নতুন অভিজ্ঞতার বিষয়টি আমার কাছে নতুন হলেও রুমির কাছে পুরনো। সে এর আগেও বেশ কয়েকবার পুতুল নাচের আসরে গিয়েছে।
পুতুল নাচের অনেক গল্প শুনেছি। আমাদের এই অঞ্চলে আগে কাঠের তৈরী পুতুলের ব্যাক গ্রাউন্ডে কণ্ঠ দিয়ে এই নাচের আসর বসানো হতো।
অবশ্য ওই ছেলেবেলায় আমাদের এই বিষয়টি এমন করে জানাজানির কোন বিষয় ছিল না, বড়দের মুখ থেকেই শুনেছি পুতুল নাচের অনুষ্ঠান আমাদের চিরাচরিত বাংলার এক আনন্দের সংস্কৃতি।

তবে আগে যখন গ্রাম গঞ্জে পুতুল নাচের আসর বসানো হতো, তখন নাচের অনুষ্ঠানে ছেলে মেয়েরা কোন রকমের টিকেট ছাড়াই দর্শক হয়ে যেত।
যে কথা বলছিলাম, আমরা দল বেঁধে গতরাতে আটটার দিকেই বিশ কিলোমিটার দূরের সেনদিয়া গ্রামে যাত্রা শুরু করেছি।
পূর্ণিমা রাতের জোসনায় ভিঁজতে ভিঁজতে দুটি মটরসাইকেলে চড়ে রওনা দিলাম। ছুটছি তো ছুটছি। কোথাও কোন থেমে যাওয়ার কোন অবকাশ নেই। পুতুল নাচের আসর দেখার আগ্রহ আমার মনকে তুমুল ভাবে আলোড়িত করছিল।
আমরা দেখতে দেখতে সেনদিয়া গ্রামে চলে আসলাম। মনের ভেতরে খুব আগ্রহ ও কৌতুহল থাকায় আমরা যেন বাতাসে ভাসতে ভাসতে চলে এলাম।
এখানে এসে আমরা বেশ বিপাকে পড়লাম। আমাদের আসার কিছুক্ষণ আগেই রঙ্গিলা পুতুলের আসর শুরু হয়ে গেছে।

আমাদের এখন অপেক্ষা করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই। আমরাও অগত্যা কী আর করব, শুরু করে দিলাম অপেক্ষা। একটি মাঝারি আকৃতির বটগাছের নিচে দাঁড়িয়ে চারদিকে দেখতে লাগলাম।
এই খোলা মাঠটিতে রঙ্গিলা পুতুলের আসরকে কেন্দ্র করে চারপাশে বেশ কিছু দোকানপাট বসানো হয়েছে। দোকানপাট বলতে এই কিছু চটপটি ফুচকা, ঝালমুড়ি চা সিয়ারেটের দোকান ছাড়াও বেশ কিছু মুখরোচক খাবারের দোকান।

আমরা রঙ্গিলা পুতুলের আসরের ঘরটির পশ্চিম পাশে চোখ ফেলতেই দেখতে পেলাম কিছু মানুষ জটলা পাকিয়ে আছে। আমাদের মধ্যে কারো ওই জটলা নিয়ে তেমন আগ্রহ না থাকলেও আমি একটু হেঁটে এগিয়ে যাই। মানুষের এই ছোট্ট ভিড়ের ভেতরে উঁকি দিয়ে দেখি, একদল মানুষ জুয়ার আসর বসিয়েছে।
আসরে পাতানো হরতন, রুইতন, ইসকাপনের কোটগুলোতে পঞ্চাশ টাকা, একশ টাকা, পাঁচশ টাকা থেকে এক হাজার টাকার নোটগুলোও দলা পাকিয়ে জটলা করে রাখা হয়েছে। জুয়ার আসরে খেলতে আসা জুয়াড়ীদের মহাব্যস্ততা দেখে আমি চলে আসি।
আমাদের এখন যেন আর সময় কাটছে না।

আমরা রঙ্গিলা আসরের ঘরটির পাশে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে মনের সুখে সিগারেটের ধোঁয়া কুন্ডুলী পাকিয়ে আকাশের দিকে উড়িয়ে দিচ্ছিলাম।
এমন সময় আমাদের কানে আসরের ভেতর থেকে ভেসে আসতে লাগলো শরীর কাঁপানো সুর, লয়, তাল। সেই সুর লয় তালের সাথে সাথে আমরা দেখছিলাম আমাদেরও শরীর দুলে দুলে উঠছে।
হঠাৎ রুমি বলে উঠলো, ‘চল। আমরা আসরের ভেতরে ঢুকি।’
আমি বললাম, ‘আসরের দরজা তো লোহা দিয়ে বানানো। চাইলেই কী ঢোকা যাবে?’
হারুণ বললো, ‘তা ঠিক। পরেই আমরা ঢুকি। এখানে আসছি যখন, তখন নাচ গান দেখেই যাবো।’
রঙ্গিলা আসরে ঘরটি সার্কাসের ঘরের মতো পিরামিড স্টাইলে সামিয়ানা টানিয়ে তৈরী করা হয়েছে। তবে আকারে সার্কাসের ঘরের চেয়ে অনেক ছোট। সামনের অংশে লোহার তৈরী বেড়া ও দরজা দেওয়া হয়েছে। বেড়া ও দরজাগুলো এমন ভাবে স্থাপন করা হয়েছে, যেন দেখলেই যে কারো মনে হবে, এ যেন এক রঙ্গিন কারাগার।

রঙ্গিলা পুতুলের আসর শুরু হওয়ার সাথে সাথেই সবগুলো লোহার দরজা তালাবদ্ধ করে রাখা হয়।
আমরা এই রাতে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সময় কাটাতে লাগলাম। অবশ্য ইমন কিছুক্ষণ আগে একবার বলেছিল, ‘কারো যদি চটপটি খাওয়ার ইচ্ছে হয়, খেতে পারে। আমি বিল দেবো।’
ইমনের এমন প্রস্তাবে দেখলাম কেউ আগ্রহ দেখাল না। এই গরমে চটপটি না খাওয়াই উত্তম। আমরা যারা এখানে এসেছি সবার পেটেই গ্যাসট্রিকের জ্বালা আছে। আমি বললাম, ‘কেন? সবাই কী গ্যাসট্রিকের রোগী নাকি?’

নাজমুল বলে উঠলো, ‘গ্যাসট্রিকের রোগী বলেই তো ইমন চটপটি খাওয়ার প্রস্তাব দেয়।’
ইমন বলে ফেললো, ‘ঠিক আছে গ্যাসট্রিকের ঔষধ আমি কিনে দেবো।’
—কথাটি বলতে বলতেই আমরা সবাই আমাদের সবগুলো দাঁত বের করে হাসতে থাকি। আমাদের হাসি চারপাশের ছড়িয়ে পড়া গানের শব্দে অনেকেরই কানে পৌছায় না।
আমরাও দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আশে পাশের মানুষের মুখে শুনতে পেলাম, আজ মধ্য রাতে নাকি আয়োজক চেয়ারম্যানের ছেলে নুরুদ্দিন মোল্লা ঢাকা থেকে আসা তার বন্ধুদের নিয়ে স্পেশাল জলসার আসর বসাবে।
আমরা শুনতে পেলাম স্টেজের ভেতর থেকে ভেসে আসছে অতি পরিচিত একটি গান—
‘রুপবানে নাচে কোমড় দোলাইয়া।
আরে রুপবানে নাচে কোমড় দোলাইয়া।।’
গানটি শুনতে শুনতে আমাদের সফর সঙ্গী নাজমুল বলে ফেললো, ‘আরে গান শেষ হয় না কেন? আমরাও তো কোমড় দোলাইয়া নাচতে চাই।’
আমি বললাম, ‘ভাই এখানে আসছি যখন, তখন আপনার কোমড় না দোলাইয়া বাড়ি নিয়ে যাবো না।’

সে যাই হোক আমরা সিগারেটের ধোঁয়া ফুঁকতে ফুঁকতে দেখি নাচঘরের লোহার দরজা দিয়ে সারিবদ্ধ পিঁপড়ার মতো বেরিয়ে যাচ্ছে নানা বয়সের মানুষেরা। এদিকে মাইকে ঘোষনা করা হচ্ছে-‘আর মাত্র দশ মিনিটের মধ্যে শুরু হয়ে যাবে মধ্যরাতের শেষ শো। যারা এখনো টিকেট সংগ্রহ করেননি, দ্রুত টিকেট সংগ্রহ করে ভেতরে প্রবেশ করুন। টিকেটের দাম মাত্র দুই শত টাকা।’
মাইকের ঘোষণা শুনেই আমরা টিকিট কাউন্টারে এগিয়ে গিয়ে সবার জন্য টিকেট সংগ্রহ করি। কিন্তু শুধু টিকেট কিনলেই হবে না। ভেতরে প্রবেশ করতেও যুদ্ধ করতে হবে। অবশেষে আমরা মানুষের ঠেলাঠেলিতে ভেতরে ঢুকেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম।
নাচের আসরের সামনে সারি সারি করে রাখা প্লাস্টিকের চেয়ারগুলোতে যে যেভাবে পারছে বসে পড়ছে। মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে পুরো চেয়ারগুলোই মানুষে মানুষে ভরে গেল।
এদিকে মঞ্চে ঢুকেই আমার ভেতরে বেশ পরিবর্তন লক্ষ্য করলাম। আমি নাজমুল, হারুণ, রুমি ইমনের দিকে তাকিয়ে দেখি ওদের চোখে মুখেও বেশ পরিবর্তন। সেই পরিবর্তন নতুন কিছু দেখার, নতুন কিছু উপভোগের পরিবর্তন।

আমি যখন এমনটি ভাবছিলাম তখনই মাইকে ঘোষণা করা হলো- ‘এখনই শুরু হয়ে যাচ্ছে আমাদের মধ্য রাতের শো। আপনার যে যেখানে আছেন ভদ্রতা বজায় রেখে আনন্দ ফূর্তি করবেন।’
কথাগুলো বেশ কয়েকবার মাইকে প্রচার করার পরে মিউজিকের তালে তালে নতুন ঘোষণা দেওয়া শুরু করলো—‘এবারে আপনাদের সামনে নৃত্যু পরিবেশন করবেন সূদূর ঢাকা থেকে আগত সুন্দরী রূপসী কন্যা, রাতের ঘুম হরণকারী, যার নাচের তালে তালে আপনার হৃদয়েও ঝংকার তুলবে সেই জিরো জিরো সেভেন ঝুমুর।’
ঝুমুরের নামটি ঘোষণা আসতেই উপস্থিত দর্শকদের একটি বড় অংশ হৈ হুল্লোর করে চেঁচিয়ে উঠলো— ‘ঝুমুর, ঝুমুর, ঝুমুর।’
ঝুমুর নাম উচ্চারিত হতে না হতেই মঞ্চে উঠে ঝুমুর সারা শরীরটি ঝাঁকিয়ে পুরো দর্শকদের উল্লাসে মাতিয়ে তুললেন। হঠাৎ টের পেলাম আমরাও উল্লাসে অংশ নিচ্ছি।

ঝুমুর মঞ্চে আসতেই চারদিকের আলোগুলো হঠাৎ করে কেমন যেন রঙ্গিলা হয়ে উঠলো। পুরো আসর জুড়ে হালকা আলোর লাল নীল হলুদ আর সবুজ আলোয় ঝলমল ঝলমল করে উঠলো।
হঠাৎ করে আমার নাকে কিছু সুগন্ধি বাতাস এসে লাগলো। আমার আর বুঝতে বাকী রইল না। ঝুমুর রঙ্গিলা পুতুলের মতো করে সেজেছে। তার শরীরে মাখানো সুগন্ধি বাতাসে উড়ে এসে আমাদের মন সতেজ করে তুলছে। ঝুমুরকে দেখে আমিও খুব অভিভূত!
কেমন যেন মনটা উতলা হয়ে উঠলো। এমন আকর্ষণীয় শারিরীক কাঠামো আমি খুব কমই দেখেছি। পুরো সুঠাম দেহ। চোখের ভুরু, মাথার চুল, ঠোঁঠের হাসি সবই অদ্ভুত লাগলো।
এমনকি লক্ষ্য করলাম, বুকের নিচ থেকে কোমড় পর্যন্ত শরীরের ধবধবে চামড়ার কোথাও কোন মেদ নেই। উরু থেকে শুরু করে পায়ের গোড়ালী পর্যন্ত সৌন্দর্য যেন লকলক করে দুলছে। আমরা সবাই ঝুমুরের রূপের মোহে মুগ্ধ হয়ে যেতে থাকলাম।

মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে ঝুমুর আমাদের পুরো হাউসের দর্শকদের উদ্দেশ্যে বলতে লাগলো, ‘আমি রঙ্গিলা পুতুল ঝুমুর। আমার রঙ্গিলা নাচে আপনাদের মাতাল করে দিতে চাই। কী সাবই মাতাল হতে রাজী আছেন?’
পুরো দর্শকরা হাততালি দিয়ে চিৎকার করে বলতে লাগলো, ‘মাতাল হবো, মাতাল হবো। তোমার নাচে মাতাল হবো।’
আমরা ঝুমুরের দিকে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে আছি। যেন তার সারা শরীরের ভাঁজে ভাঁজে সৌন্দর্যের ঝিলিক দোল খাচ্ছিলো।
শুরুতের আমাদের অতি পরিচিত সেই চেনা গানটির তালে তালে পুরো আসরটি কাঁপিয়ে তুলতে লাগলো—
হাজার দর্শক মন মজাইয়া
নাচে গো সুন্দরী কমলা।
প্রেমিক পুরুষ ওরে রহিম মিয়া।
রুপবানে নাচে কোমড় দোলাইয়া।।
আমাদের সামনে গানের তালে তালে ঝুমুর নিজেকে মেলে ধরে নাচছে। নৃত্যকলার বিদ্যায় তার শরীরের প্রতিটি ভাঁজে ভাঁজের সৌন্দর্য আমাদের মুগ্ধ করতে থাকলো। আমরাও অন্যদের মতোই উল্লাস করতে থাকি, আদিম আনন্দে মেতে উঠি।
কেউ কেউ দেখলাম মুগ্ধ হয়ে হাতের আঙুলের একশ টাকা, পাঁচশ টাকার নোট ঝুমুরের বুকের ভেতরে ঢুকিয়ে দিয়েই আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়ছে। এরপরে চলতে থাকলো।
ঝুমুরের পরে আসলো জিরো জিরো সেভেন চিত্রজগতের ব্যাক সাইডের হিরোইন বিপাশা, সারা বাংলার মঞ্চ কাঁপানো কুইন কাকলী। এভাবেই আমরা কখন যে রঙ্গিলা আসরে মগ্ন হয়ে গেলাম, তা টেরই পাইনি।

আমরা যখন নাচের আসর ছেড়ে বেরিয়ে আসছি, তখন দেখলাম মঞ্চের পেছনের দরজা দিয়ে চেয়ারম্যানের ছেলে কয়েক জন বন্ধুকে নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করছে।
আমার মনে পড়ে গেল, যখন অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে ছিলাম তখন কে একজন বলছিল- ‘মধ্য রাতে আয়োজক চেয়ারম্যানের ছেলের বন্ধুরা ঢাকা থেকে আসছে। তাদের নিয়ে রাতে স্পেশাল জলসার আসর বসাবে।’—সত্যিই তো! আমরা তো তাই দেখছি।
আমরা কথাগুলো বলতে বলতে মটরসাইকেল স্টার্ট দিয়ে বাড়ির দিকে আসতে আসতে বলাবলি করছিলাম, ‘আহা কী মজাটাই লাগলো। ইমন বলে ফেললো, ‘আবারো এই রঙ্গিলা পুতুলের আসরে আসতে চাই।’
আমাদের সতেজ মনে তখনো মঞ্চের রঙ্গিলা পুতুলদের গায়ে মাখা সুগন্ধ ভেসে আসছিল। চোখের ভিতরে ঝুমুর বিপাশা কাকলীদের শরীরের উত্তাল ঢেউ উঁকি ঝুঁকি মারছিল।
কথাগুলো ভাবতে ভাবতে কর্ণপাড়ার এই পাটক্ষেতের পথ ধরে হাঁটতে হাঁটতে অনেক দূর চলে এসেছি। আমি যতই কাছে আসছি ততই একটি চেনা সুগন্ধ আমার নাকে এসে ধাক্কা খাচ্ছে।
কিছুদূর এগিয়ে যেতেই দেখি পাটক্ষেতের এক কোনায় পড়ে আছে রঙ্গিলা আসর কাপানো সেই ঝুমুর।
তার শরীর থেকে এখনো ভেসে আসছে সেই সুগন্ধি। যা গতকাল রাতে আমাদের মুগ্ধ করে রেখেছিল।

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী