মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চ্যালেঞ্জের মুখে ক্যামেরনের ব্যয় সংকোচন নীতি

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্কচ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের আরও পাঁচ বছরের জন্য ব্যয় সংকোচন নীতির পরিকল্পনা। এর বিরুদ্ধে গত শনিবার বড় ধরনের বিক্ষোভ হয়েছে লন্ডন ও গ্লাসগোসহ বিভিন্ন স্থানে। আয়োজকেরা ঘোষণা দিয়েছেন, সামনে আরও বিক্ষোভ আসছে। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

সবে ৪৫ দিন আগে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে অপ্রত্যাশিতভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে পুনর্নির্বাচিত হন ডেভিড ক্যামেরন। বিরোধী দলগুলো এখনো নির্বাচনে হারের সেই দুঃসময় কাটানোর পথ খুঁজে ফিরছে। কিন্তু যুক্তরাজ্যের রাজপথ শনিবার ক্যামেরন সরকারকে একটা সতর্কবার্তাই দিল। এদিন প্ল্যাকার্ড হাতে হাজার হাজার ব্রিটিশ রাস্তায় নামে, যা ক্যামেরন সরকারের ব্যয় সংকোচন নীতির বিরুদ্ধে প্রথম বড় ধরনের বিক্ষোভ।

লন্ডনের মধ্যাঞ্চলে শনিবারের বিক্ষোভে কত লোকের সমাগম হয়েছিল, তা নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে। তবে সংখ্যাটা কোনো অনুমানেই ৭০ হাজারের কম নয়। আর সর্বোচ্চ সংখ্যাটা দেড় লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে। এর বাইরে গ্লাসগো শহরের জর্জ স্কয়ারে জড়ো হয়েছিল আরও কয়েক হাজার মানুষ।

‘ব্যয় সংকোচন বন্ধ কর’ এই ব্যানারের আওতায় রাস্তায় নামে লোকজন। তারা সরকারি খাতে ব্যয় সংকোচন ও জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা (এনএইচএস) খাতের বেসরকারীকরণসহ বিভিন্ন উদ্যোগের প্রতিবাদ জানায়। শিক্ষক, নার্স, আইনজীবী ও বিভিন্ন ইউনিয়ন গ্রুপ পৃথক ব্যানারে বিক্ষোভে অংশ নেয়। লন্ডনে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সামনে থেকে পদযাত্রা শুরু করে বিক্ষোভকারীরা। চূড়ান্ত গন্তব্য ওয়েস্টমিনস্টার পর্যন্ত পৌঁছানোর আগেই ব্যানার, প্ল্যাকার্ড ও পতাকার সমুদ্রে পরিণত হয় এই বিক্ষোভ।

বিক্ষোভের শেষ প্রান্তে পার্লামেন্ট স্কয়ারে জড়ো হওয়া জনতার উদ্দেশে বক্তব্য দেন গ্রিন পার্টির এমপি ক্যারোলাইন লুকাস। তিনি বলেন, ‘আমরা এখানে এটা বলতে এসেছি যে ব্যয় সংকোচন নীতি কাজ করছে না।… আন্তর্জাতিক বাজারগুলো নিয়ে যারা বেপরোয়াভাবে জুয়া খেলছে, তারা নার্স, শিক্ষক বা অগ্নিনির্বাপণ কর্মী নয়। সুতরাং, সেসব নীতি বাতিল করতে হবে, যার মূল্য দিতে হচ্ছে এসব মানুষকেই। অথচ যেসব সংকটের জন্য এই মূল্য দিতে হচ্ছে, তা তাদের তৈরি নয়।’

বিক্ষোভে বিরোধী দলগুলোর রাজনীতিকেরা যেমন অংশ নেন, তেমনি গত পার্লামেন্টের স্পিকার রাসেল ব্র্যান্ড ও অভিনেতা রিচার্ড কোয়েলসহ বিভিন্ন তারকাও এসেছিলেন। উত্তর আয়ারল্যান্ডের ডেপুটি ফার্স্ট মিনিস্টার মার্টিন ম্যাকগিনেস বলেন, প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরনের মন্ত্রিসভা ধনকুবেরে ঠাসা। তাঁরাই প্রকৃত শোষক। সাধারণ মানুষকে চরম সংকটে ফেলে ওই লোকগুলোর জন্য সুখের রাজত্ব তৈরি করে দেওয়া হয়েছে।

লেবার পার্টির যে চার এমপিকে বিক্ষোভে যোগ দিতে দেখা যায়, তাঁদের একজন জেরেমি করবিন। তিনি পার্লামেন্ট স্কয়ারে আবেগী ভাষণ দেন। বিক্ষোভের মাধ্যমে কোনো কিছু অর্জন করা যায় না, এমন সমালোচনা নাকচ করে দেন তিনি। যারা চলমান সংকটের জন্য অভিবাসীদের দায়ী করে থাকে, তাদের সমালোচনা করেন করবিন।

বিক্ষোভের আয়োজক সংগঠন ‘পিপলস অ্যাসেম্বলি অ্যাগেইনস্ট অস্টেরিটি’-এর নেতা জন রিস বলেন, ‘এটা বিশাল একটা বিক্ষোভ। কিন্তু এটা শুরু মাত্র। আমরা কেবল একটা বিক্ষোভ দিয়েই জয় লাভ করতে পারব না।’

এ জাতীয় আরও খবর