বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পুরোনো স্যাটেলাইট সারানোর উদ্যোগ

news-image

কমপক্ষে ১ হাজার ১০০টি কৃত্রিম উপগ্রহ বা স্যাটেলাইট পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করছে। পুরোনো হয়ে যাওয়ায় এসবের কোনো কোনোটির কার্যক্রমে সমস্যাও দেখা দিচ্ছে। এ রকম ত্রুটিপূর্ণ স্যাটেলাইট সারানোর জন্য মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (নাসা) মহাকাশে একটি বিশেষ কেন্দ্র স্থাপন করতে চায়। আর তাহলে স্যাটেলাইটগুলো নিষ্ক্রিয় হয়ে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে আছড়ে পড়ার আগে আরও কিছুদিন কাজ করতে পারবে।  পৃথিবীকে আবর্তনশীল স্যাটেলাইটগুলো টেলিভিশন অনুষ্ঠান সম্প্রচার, টেলিফোন যোগাযোগ রক্ষা, গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অরণ্যের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ এবং ক্ষেপণাস্ত্র ঘাঁটিগুলোর ওপর নজরদারির কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে। এসবের অধিকাংশই ব্যয়বহুল। কারণ, এসব স্যাটেলাইট নির্মাণ, উৎক্ষেপণ এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য লাখ লাখ মার্কিন ডলার খরচ করতে হয়। ইন্টারন্যাশনাল সান-আর্থ এক্সপ্লোরার থ্রি নামের একটি স্যাটেলাইট ১৯৭৮ সালে কক্ষপথে পাঠানো হয়েছিল। ১৯৯৭ সালে নাসা এটি ঠিকঠাক করার পরও এটির কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। এখন বেসরকারি উদ্যোগেও অনেক স্যাটেলাইট সারানোর জন্য অনলাইনে প্রচার চালিয়ে তহবিল গঠন করা হচ্ছে।  নাসার গডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারের স্যাটেলাইট সার্ভিসিং প্রোগ্রাম অফিসের উপপরিচালক বেঞ্জামিন রিড বলেন, স্যাটেলাইটগুলোর কার্যকারিতার মেয়াদ বাড়াতে মানুষ ও রোবটকে একসঙ্গে নিযুক্ত করে এবং সেগুলোর তেল চুইয়ে পড়া রোধ করে ও আরও গতিশীল করে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পাঠানোর প্রযুক্তি এখন তাঁদের কাছে আছে।  নাসার মহাকাশচারীরা আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে ২০১১ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে পুনরায় জ্বালানি ভরার জন্য রোবটনির্ভর দুটি অভিযানে অংশ নিয়েছেন। আর ভূপৃষ্ঠে গডার্ডের প্রকৌশলীরা মহাকাশে ব্যবহারোপযোগী নতুন ধরনের নল, তার কাটার যন্ত্র, ড্রিল ও অন্যান্য স্বয়ংক্রিয় উপকরণ তৈরি করছেন। একই উদ্দেশ্যে পুরোনো প্রযুক্তিগুলোও উন্নয়নের কাজ চলছে। যেমন লেজারচালিত র্যাভেন সেন্সর বা সংবেদী, যা কক্ষপথে নির্দিষ্ট বস্তুর দিকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য স্যাটেলাইটকে চালিত করে।  রিড মনে করেন, ভবিষ্যতে স্যাটেলাইট ঠিক করার কাজে নাসার বিশেষ নভোযানগুলো পৃথিবীর নিম্ন-কক্ষপথে মোতায়েন থাকবে এবং প্রয়োজনে কোনো স্যাটেলাইটের কাছে গিয়ে তাতে গ্যাস বা জ্বালানি ভরে দেবে। আবার কোনো গ্রহাণুর গতিপথ ঘুরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে অ্যাস্টেরয়েড রিডিরেক্ট মিশনও চালু করার ব্যাপারে নাসা আশাবাদী। ২০২০ সালের ডিসেম্বরেই এ ধরনের একটি অভিযান শুরু করার কথা রয়েছে। 


 

এ জাতীয় আরও খবর

ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহ বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিলেন মাখোঁ

ঘুরে দাঁড়িয়ে শিরোপা লড়াইয়ে টিকে রইল লিভারপুল

শেখ হাসিনাকে সরিয়ে তারেককে চাই না

নাটোরে ট্রাক-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে ২ জনের মৃত্যু

‘ইচ্ছাকৃতভাবে’ ঘটানো হয়েছিল চীনের সেই বিমান দুর্ঘটনা!

টেস্টে ৫ হাজার রানের মাইলফলকে ‘প্রথম’ মুশফিক

এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর বিরুদ্ধে মামলা

পরীমনির মামলায় নাসির-অমির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

সম্রাটের জামিন বাতিল, ৭ দিনের মধ্যে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের