বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপির মামলায় চার্জশিটের হিড়িক

news-image

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা হরতাল-অবরোধ-আন্দোলনের আড়াই বছরে সহিংসতার অভিযোগে সারা দেশে বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মীর নামে ১৫ হাজারের বেশি মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকাতেই মামলা দায়ের হয়েছে প্রায় সাড়ে চার হাজার। এসব মামলা হয়েছে দণ্ডবিধি, বিস্ফোরক দ্রব্য ও বিশেষ ক্ষমতা আইনের বিভিন্ন ধারায়। মামলার আসামিদের বেশির ভাগই পলাতক। তাই সরকারের প্রধান প্রতিপক্ষ এই জোটের আন্দোলন-সংগ্রামসহ প্রায় সব ধরনের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড মামলার জালে জড়িয়ে স্থবির হয়ে পড়েছে।

জানা যায়, সম্প্রতি সরকারের ওপর মহল থেকে সহিংসতার মামলায় পুলিশকে দ্রুত চার্জশিট দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এর পর থেকেই আদালতে চার্জশিট দাখিলের হিড়িক পড়েছে। অন্যদিকে পুলিশের দায়ের করা মামলায় বোমা হামলার ঘটনায় সম্পৃক্ততা প্রমাণ করতে না পেরে এম কে আনোয়ার, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের অব্যাহতি চেয়েছে খোদ পুলিশই। গত দুই সপ্তাহে ঢাকার আদালতে এ রকম অন্তত দুটি নজির সৃষ্টি হয়েছে। এ দুটি ঘটনাই বোমা হামলায় পুলিশ সদস্যের মৃত্যুসংক্রান্ত- একটি রাজধানীর বাংলামোটরে, অন্যটি মৎস্য ভবনের কাছে।

ঢাকার বিভিন্ন আদালতে বিচারাধীন মামলাসংক্রান্ত রেজিস্টার ঘেঁটে ও বিএনপিপন্থী আইনজীবী নেতাদের তথ্য মতে, ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে গত পাঁচ মাসে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ বিএনপির এক হাজার ১০০ নেতাকর্মীর নামে শতাধিক মামলায় বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ বিভিন্ন আইনে চার্জশিট জমা দিয়েছে পুলিশ। এ ছাড়া প্রায় প্রতিদিনই দাখিল হচ্ছে কোনো না কোনো মামলার চার্জশিট। ২০১৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে চলতি বছরের ৩০ মে পর্যন্ত বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ অন্যান্য আইনের মামলায় কমপক্ষে সাড়ে ৬০০ চার্জশিট আদালতে জমা দিয়েছে পুলিশ। এক হিসাবে জানা যায়, ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগরীতে ৬৫৯টি মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।

বিএনপির মামলায় চার্জশিটের হিড়িক

তবে বিএনপিপন্থী আইনজীবী নেতাদের দাবি, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার লক্ষ্যে এবং বিএনপিকে নেতাকর্মীশূন্য করাসহ দলটিকে গণতান্ত্রিক আন্দোলন থেকে দূরে রাখার হীন চক্রান্ত থেকেই সরকার এসব কাজ করছে। সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, মিথ্যা মামলা দিয়ে সরকার বিএনপির নেতাকর্মীকে চাপে রাখার পরিকল্পনা নিয়েছে। তাদের উদ্দেশ্য বিএনপিকে সমূলে উৎপাটন করে ক্ষমতা কুক্ষিগত করা। আবার তদন্তের নামে মিথ্যা চার্জশিট দিয়ে বিএনপিকে গণতান্ত্রিক আন্দোলন থেকে দূরে রাখার চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে সরকার। আমরা তা বাস্তবায়িত হতে দেব না। রাজপথেও আইনি লড়াই চালিয়ে যাব। এ প্রসঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, সব মামলাই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। বিএনপিকে চাপে রাখতে নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে সরকার তার পুলিশ বাহিনী দিয়ে একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। তাদের গণতান্ত্রিক আন্দোলন থেকে দূরে রাখতেই মিথ্যা চার্জশিট দিচ্ছে সরকার।

বিএনপিপন্থী আইনজীবী ঢাকা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, সরকার বরাবরই আইন-আদালতের মাধ্যমে রাজনীতি নিয়ন্ত্রণ করতে চাচ্ছে। এ কারণে পুলিশকে দিয়ে মিথ্যা মামলা করাচ্ছে আর চার্জশিট দেওয়া হচ্ছে। সরকার বিএনপিকে

নেতৃত্বশূন্য করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। তিনি বলেন, 'এসব করে কোনো ফায়দা হবে না বরং এতে বিএনপির জনপ্রিয়তা আরো বাড়বে।'

তবে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর শাহ আলম তালুকদার কালের কণ্ঠকে বলেন, 'সুনির্দিষ্ট অভিযোগেই বিএনপির নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বেশ কিছু মামলায় আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। আমরা আদালতে সাক্ষ্য-প্রমাণ দিয়েই আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে পারব।'

আদালত ও ঢাকা মহানগর পুলিশ- ডিএমপির প্রসিকিউশন সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীর আটটি জোনের মধ্যে ওয়ারী জোনের ৬৪টি, উত্তরা জোনের ২৫, লালবাগ জোনের ৩৮, মতিঝিল জোনের ১৩৪, মিরপুর জোনের ১৬২, গুলশান জোনের ৪৩ এবং রমনা জোনের ৯২টি মামলায় চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। এসব মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামির মধ্যে খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সালাহ উদ্দিন আহমেদ, রুহুল কবীর রিজভী ও বরকতউল্লাহ বুলুসহ বিএনপির বিপুলসংখ্যক কেন্দ্রীয় নেতা রয়েছেন।

এর মধ্যে বিশেষ ক্ষমতা ও বিস্ফোরক আইনের পৃথক দুটি মামলায় গত ৭ জুন বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ও আমানউল্লাহ আমান, রুহুল কবীর রিজভীসহ ২৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। অভিযোগপত্র গ্রহণ ও মামলা আমলে নেওয়ার ধার্য দিনে আদালতে হাজির না হওয়ায় ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত তাঁদের বিরুদ্ধে ওই পরোয়ানা জারি করেন।

এর আগে গত ৬ মে যাত্রাবাড়ীতে বাসে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ ৩৮ জনের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে ডিবি পুলিশ। আবার ২০ মে বিশেষ ক্ষমতা আইনের আরেকটি মামলায়ও খালেদাসহ একই আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ। চলতি মাসের ২৮ জুন অভিযোগপত্র গ্রহণের শুনানি রয়েছে। প্রতিটি মামলায় খালেদা জিয়াকে পলাতক দেখিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদনও করেছে পুলিশ।

গত জানুয়ারি মাসে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদুসহ কমপক্ষে ৬০০ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে বিভিন্ন আইনে ১৫০টির বেশি মামলা হয়।

বিশেষ ক্ষমতা আইন ছাড়া অন্য আইনেও খালেদা জিয়াসহ বিএনপির বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। এসব মামলায় খালেদা জিয়াসহ বিএনপির শতাধিক কেন্দ্রীয় নেতার বিচারও শুরু হয়েছে।

বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে যত মামলা

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ১৩টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে তিনটি মামলা তদন্তাধীন, তিনটি মামলায় হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ রয়েছে। এ ছাড়া দুর্নীতির দুটি মামলার বিচার চলছে ঢাকার একটি বিশেষ জজ আদালতে। মামলা দুটি সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে।

অন্যদিকে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ৭৬টি মামলার আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে তিনটি মামলায় তাঁর অনুপস্থিতিতে বিচার চলছে। বিশেষ করে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার বিচার শেষ পর্যায়ে।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ৭৮টি মামলার আসামি করা হয়েছে। ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বর অবরোধের ঘটনায়ই তাঁর নামে রাজধানীতে ৩৭টি মামলা দেয় পুলিশ। চলতি বছরের ৬ জানুয়ারি তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। একাধিকবার জামিনের আবেদন করলেও তা নাকচ করেছেন আদালত। বর্তমানে তিনি কারাগারে আছেন। ইতিমধ্যে বিএনপির এই নেতার বিরুদ্ধে ২২টি মামলার বিচার শুরু হয়েছে।

এ ছাড়া বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার বিরুদ্ধে পাঁচটি (বর্তমানে কারাগারে), এম কে আনোয়ারের বিরুদ্ধে পাঁচটি (বর্তমানে কারাগারে), মির্জা আব্বাসের বিরুদ্ধে ৭৩টি, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে ১১টি (বর্তমানে কারাগারে), এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে তিনটি, মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে ১০টি, খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামসুর রহমান ওরফে শিমুল বিশ্বাসের নামে ৪৭টি, বিএনপির সহসভাপতি আবদুল্লাহ আল নোমানের বিরুদ্ধে পাঁচটি, সহসভাপতি সাদেক হোসেন খোকার বিরুদ্ধে ১৪টি (বর্তমানে বিদেশে চিকিৎসাধীন), বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমানের বিরুদ্ধে ১০টি মামলা বিচারাধীন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদুর বিরুদ্ধে ১৭টি (বর্তমানে কারাগারে), ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) হান্নান শাহর বিরুদ্ধে আটটি, আবদুল আউয়াল মিন্টুর বিরুদ্ধে পাঁচটি, শমসের মবিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে চারটি, মোসাদ্দেক আলী ফালুর নামে চারটি (বর্তমানে কারাগারে), বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমানের বিরুদ্ধে ৮৭টি, সাবেক বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুকের বিরুদ্ধে ১০টি, বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানির নামে ৪০টি, যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদের (বর্তমানে ভারতে আটক) বিরুদ্ধে ২৭টি, আরেক যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভীর (বর্তমানে কারাগারে) বিরুদ্ধে ৪৪টি, যুগ্ম মহাসচিব বরকতউল্লা বুলুর বিরুদ্ধে ৫০টি, সহসভাপতি মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিনের বিরুদ্ধে পাঁচটি, বিশেষ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাদিম মোস্তফার বিরুদ্ধে ৯টি, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলমের বিরুদ্ধে তিনটি, গণশিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়ার বিরুদ্ধে দুটি, সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার মাহবুব হোসেনের বিরুদ্ধে ১১টি, সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকনের বিরুদ্ধে পাঁচটি মামলা বিচারাধীন।

এ ছাড়া যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের বিরুদ্ধে ১১০টি, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নীরবের বিরুদ্ধে ১৭৮টি, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের নামে ১০০টি, সাধারণ সম্পাদক মীর শরাফত আলী সপুর বিরুদ্ধে ১০৫টি (বর্তমানে কারাগারে), সহসাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে সাতটি, যুবদল ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) সভাপতি রফিকুল আলম মজনুর বিরুদ্ধে ১০৬টি, যুবদল ঢাকা মহানগরের (উত্তর) সাধারণ সম্পাদক এস এম জাহাঙ্গীর হোসেনের বিরুদ্ধে ১৩৭টি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদের বিরুদ্ধে ৪৭টি, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলের বিরুদ্ধে ১০১টি, ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিবের বিরুদ্ধে ৯৮টি এবং নির্বাহী সদস্য বেলাল আহমেদের বিরুদ্ধে আটটি, ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ারের বিরুদ্ধে ১৭টি, মিরপুর-৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর দেলোয়ার হোসেন দুলুর বিরুদ্ধে ১২০টি, ঢাকা মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এম এ কাইয়ুমের বিরুদ্ধে ৩৮টি এবং খিলগাঁও থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ফারুক উল ইসলামের নামে ১২টি মামলা বিচারাধীন। এ ছাড়া ২০ দলীয় জোটের শরিক জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধানের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা বিচারাধীন।

 

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা