বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পচা গম খাওয়ানো হচ্ছে টিআর-কাবিখায়

news-image
পুলিশ ফিরিয়ে দিলেও পচা গমের আটা খেতে হবে সাধারণ মানুষকে। কারণ গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এসব পচা গম বিতরণ স্থগিত করেনি খাদ্য মন্ত্রণালয় বা অধিদপ্তর। কোনো তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়নি, যদিও এ বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে। খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম  বলেছেন, ‘পুলিশ, বিডিআর, সেনাবাহিনী, কোস্ট গার্ডসহ যেসব সংস্থার সদস্যদের মধ্যে রেশন হিসেবে গম দেওয়া হয়, সেসব সংস্থায় ব্রাজিলের গম দিচ্ছি না। তাদের দেশি গম দিচ্ছি। তবে টিআর ও কাবিখা কর্মসূচিতে দিচ্ছি। তার পরও টিআর কাবিখা প্রকল্পসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কিছু দিন অপেক্ষা করে দেশি গমের বরাদ্দ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এ অবস্থায়ও অনেকে ব্রাজিলের গমই নিচ্ছে। ব্রাজিলের গম নেওয়ার জন্য কোনো চাপ দেওয়া হচ্ছে না। আমাদের এখনো তিন লাখ ১৪ হাজার টন গম মজুদ রয়েছে। এর মধ্যে ব্রাজিলের গম বাদ দিলেও এক লাখ ৪২ হাজার টন দেশি গম রয়েছে।’
কোনো তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে কি না- কালের কণ্ঠ’র এ প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নমুনা সংগ্রহ করছি। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা এ নমুনা পাঠাচ্ছেন। ইতিমধ্যে ১৭-১৮টি জেলা থেকে নমুনা মন্ত্রণালয়ে এসেছে। এসব নমুনা আগে পরীক্ষা-নিরীক্ষা হবে, তারপর অ্যাকশনের প্রশ্ন। আর গম আমদানি খাদ্য অধিদপ্তরের বিষয়। তার পরও মন্ত্রী হিসেবে আমি দায় এড়াতে পারি না। আমরা যে পদক্ষেপ নিয়েছি, তা স্বপ্রণোদিত হয়েই। ইতিমধ্যে একটি জাহাজের গম গ্রহণ করা হয়নি।’
উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে খালাসের পর এসব গম যখন দেশের বিভিন্ন খাদ্যগুদামে পৌঁছায়, তখনই বিপত্তি শুরু হয়। ব্রাজিলের গম পচা ও নিম্নমানের হওয়ায় মিলাররা গ্রহণ করতে আপত্তি জানায়। ওএমএসে আটা বিক্রি অনেক জায়গায় স্থগিত রাখা হয়। এরই মধ্যে পুলিশের অভিযোগের পর প্রধানমন্ত্রী এসব গম আমদানির বিষয়ে তদন্তের নির্দেশ দেন।
কালের কণ্ঠের নীলফামারী প্রতিনিধি ভূবন রায় নিখিল জানান, জেলার আটা মিল মালিক এবং ওএমএস ডিলাররা জানিয়েছে আমদানি করা গমের দানা চিকন। এ কারণে আটার মান ভালো হচ্ছে না, পরিমাণেও কম হচ্ছে। ফলে গমের বরাদ্দ নিয়ে লোকশান গুনছে মালিকরা। অন্যদিকে ওএমএস ডিলাররা ওই আটা বিক্রিতে অনীহা প্রকাশ করেছে। অনেকেই মান খারাপের কারণে বরাদ্দ নেওয়া বন্ধ করেছে। ব্রাজিল থেকে আমদানি করা নিম্নমানের গম নীলফামারীতে মজুদ আছে ৮৪৫ দশমিক ২৩৮ টন। চলতি মাসের মধ্যে ওই গম সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে বিতরণ করা হবে বলে জানা গেছে। নীলফামারী জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সাইফুদ্দিন অভি জানান, জুনের মধ্যে জেলায় প্রয়োজন এক হাজার ৯০০ টন গম। সেখানে মজুদ আছে প্রায় ৯০০ টন। অবশিষ্ট গম এনে ঘাটতি পূরণ করতে হবে। নীলফামারী জেলা সদরের ওএমএস ডিলার আরিফ হোসেন মুন বলেন, ‘আমি এক মাস ধরে আটার কোনো বরাদ্দ নিইনি। নিম্নমানের গম থেকে তৈরি আটা ক্রেতারা নিচ্ছে না। ফলে বরাদ্দ নিয়ে লোকসান গুনেছি। বাজারে ভালো মানের দেশি গমের আটা ১৮ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে পাওয়া যাচ্ছে, সেখানে নিম্নমানের ব্রাজিলের গমের আটার দাম ২২ টাকা।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা সদরের এক ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, বিভিন্ন প্রকল্পে বরাদ্দে নিম্নমানের গম সরবরাহ করা হচ্ছে। ওই গম বিক্রি করে অনেক প্রকল্পের উন্নয়ন করা হয়। মান খারাপের কারণে ওই গম ক্রেতারা প্রতি কেজি ১০ থেকে ১২ টাকার বেশি দাম দিচ্ছে না। কিন্তু সরকারি হিসাবে ওই গমের মূল্য ধরা আছে প্রতি কেজি ২৮ টাকা। মূল্য কমের কারণে উন্নয়নকাজ ব্যাহত হচ্ছে বলে জানান তিনি।
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   জানান, ব্রাজিল থেকে আমদানি করা নিম্নমানের গম চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন উপজেলায় সরবরাহ করা হয়েছে। ওএমএস এবং টিআর প্রকল্পের জন্য এসব নিম্নমানের গম বরাদ্দ করা হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের অনেকেই জানান, এর আগে কখনো এত নিম্নমানের গম চুয়াডাঙ্গায় আসেনি। গম যা এসেছে তা পুরোপুরি খাওয়ার অনুপযোগী। গম ব্যবসায়ীরা বলেন, এ গম থেকে আটা তৈরি করা যাচ্ছে না। গমে পোকা ও দুর্গন্ধ রয়েছে। মানুষ খেলে রোগাক্রান্ত হতে পারে। পশুপাখিদেরও খাওয়ার উপযোগী নয় বলে মনে হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা নীল কমল অয়েল মিলের স্বত্বাধিকারি হাজি আলাউদ্দিন রতন জানান, সরকারিভাবে বরাদ্দ গম তিনি প্রতিবছরই কিনে থাকেন। এবার গম দেখেছেন। নিম্নমানের হওয়ায় তিনি তা নেননি। তিনি বলেন, বাজারে ওই গমের চেয়ে ভালো মানের গমের দামও কম।
চুয়াডাঙ্গা ফ্লাওয়ার মিলের ম্যানেজার   বলেন, ‘ওএমএসের জন্য বরাদ্দ গম থেকে আমাদের মিলে আটা তৈরি করা হয়। এবারের গম থেকে এখনো আটা তৈরি করা হয়নি। গমের মান ভালো নয়। এ জন্য এবারের গম গরুর খাদ্য হিসেবে ভুসি তৈরি করা হবে বলে আমরা ভাবছি।’ নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক ডিলার বলেন, ‘লাইসেন্স ঠিক রাখার জন্য এই নিম্নমানের গম আমাদের নিতে হয়েছে। তা না হলে এ গম আমরা নিতাম না।’ ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানান, জেলা খাদ্য বিভাগের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ ফ্লাওয়ার মিল মালিকরা গুদাম থেকে গম উত্তোলন করছেন না। ফলে জেলার ওএমএস ডিলারদের গমের আটা সরবরাহে বিঘ্ন ঘটছে।
জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিস সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন সরকারি খাদ্যগুদামে গতকাল পর্যন্ত স্থানীয়ভাবে সংগৃহীত এবং ব্রাজিলসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা তিন হাজার ৪১৫ মেট্রিক টন গম মজুদ রয়েছে। এর মধ্যে সম্প্রতি ব্রাজিল থেকে আনা গম রয়েছে ৭৭২ টন। গত মাসের প্রথম দিকে ব্রাজিলের গম এক হাজার ৩৯৩ টন ঝিনাইদহ জেলার জন্য আনা হয়। এই গমের মধ্য থেকে কাবিখা, ওএমএস ও এপিওপি খাতে ইতিমধ্যে ৬২১ টন বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। জেলায় ওএমএসের আটা সরবরাহের জন্য কুষ্টিয়া ও যশোরের ছয়টি ফ্লাওয়ার মিলের সঙ্গে চুক্তি করেছে ঝিনাইদহ খাদ্য বিভাগ। মিলগুলো এক টন গমের বিপরীতে ৭৭০ কেজি আটা সরবরাহ করছে। মিল মালিকদের অভিযোগ, ব্রজিল থেকে আমদানি করা নিম্নমানের গমে আটা তৈরি হচ্ছে কম এবং আটার রং কালো হচ্ছে। ফলে মিল মালিকরা এই গম নিতে চাচ্ছেন না। এ কারণে ওএমএস ডিলারদের আটা সরবরাহ করতে সমস্যা হচ্ছে। 
মেসার্স মিনকো অটো ফ্লাওয়ার মিলের কর্মকর্তা খায়রুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারি গুদাম থেকে বর্তমানে যে গম সরবরাহ করা হচ্ছে তা খুবই চিকন দানার এবং নিম্নমানের। ফলে ওই গম থেকে আটা তৈরি করতে আমাদের খুব সমস্যা হচ্ছে। এই গমে আটা কালো হচ্ছে এবং পরিমাণেও কম হচ্ছে। গত মাসে আমাদের নামে যে বরাদ্দ আছে তা আমরা উত্তোলন করেছি। তবে চুক্তিবদ্ধ অন্য মিলগুলো নিম্নমানের এই গম উত্তোলন করতে চাচ্ছে না।’
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি  জানিয়েছেন, জেলার ১১টি গুদাম থেকে প্রায় এক মাস ধরে নিম্নমানের এসব গমই ছাড় দিচ্ছে খাদ্য বিভাগ। জানা গেছে, জেলার প্রধান খাদ্যগুদামে ৬২৩ টন ব্রাজিলের গম ঢুকেছে। এরই মধ্যে ৪৬৭ টন গম ছাড় দেওয়া হয়েছে, যার অধিকাংশই বিশেষ প্রকল্পের অধীনে। এ ছাড়া শান্তকরণ প্রকল্প, পুলিশ, আনসার, জেলখানা, ফায়ার সার্ভিস ও টিআর প্রকল্পেও গেছে। ১৮ জুন পর্যন্ত কেবল খাগড়াছড়ি খাদ্যগুদামেই ১৫৬ টন গম মজুদ আছে। জেলার অন্য ১০টি গুদামে প্রায় একই পরিমাণ করে গম মজুদ থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
বরিশাল প্রতিনিধি  জানিয়েছে, এ বিভাগের প্রত্যেক উপজেলার এলএসডি থেকে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা ব্রাজিল থেকে আমদানি করা গমের নমুনা সংগ্রহ শুরু করেছেন। উজিরপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন বলেন, খাদ্য অধিদপ্তরের গোডাউনে মজুদ থাকা গম সংগ্রহ করেছি। এ গমের মান এতই খারাপ, যা আগে কখানো দেখিনি।
মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা বলেন, গমগুলো ছিল পোকায় খাওয়া, কালো ও ক্ষুদ্র আকৃতির। ভাঙা গমের পরিমাণও ছিল অনেক বেশি। প্রতিবেদনসহ সংগৃহীত গমের নমুনা দুই-এক দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠিয়ে দেব।

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা